বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
উত্তরবঙ্গ
 

মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণার পরই স্কুল
খোলার তোড়জোড় উত্তরবঙ্গে

নিজস্ব প্রতিনিধি ও সংবাদদাতা: ইঙ্গিত দিয়েছিলেন আগেই। সোমবার স্পষ্টভাবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানালেন, ১৬ নভেম্বর থেকেই খুলে যাবে স্কুল-কলেজ। এদিন মুখ্যমন্ত্রীর এই নির্দেশের পরই গোটা উত্তরবঙ্গজুড়ে স্কুল খোলার তোড়জোড় শুরু হয়েছে। জলপাইগুড়ি জেলা শিক্ষাদপ্তর জানিয়েছে, জেলায় প্রায় ১৫০০ স্কুল রয়েছে। এদিন মুখ্যমন্ত্রীর স্কুল খোলার নির্দেশ পেয়ে সমস্ত বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে। সেই সঙ্গে প্রশাসনিক মহলেও তোড়জোড় শুরু হয়েছে। জলপাইগুড়ি জেলা শিক্ষাদপ্তরের আধিকারিক লেনডুপ সি শেরপা বলেন, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের ১৭০টি স্কুলের সংস্কারের জন্য পাঁচ কোটি টাকা জেলায় এসেছে। ইতিমধ্যে জেলার সমস্ত ব্লক প্রশাসন স্কুলগুলিতে  বিভিন্ন ধরনের সংস্কারমূলক কাজের প্রক্রিয়া শুরু করে দিয়েছে। কিছুদিন ধরেই স্কুল খোলার জন্য প্রশাসনিক স্তরে প্রস্তুতি চলছিল। আমরা জেলার সব স্কুলকেই বলেছিলাম দীর্ঘ ২০ মাস ধরে বন্ধ থাকায় কী ধরনের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে, সেসব সংস্কারের জন্য কত টাকার প্রয়োজন, তার সার্বিক হিসেব পাঠাতে। সেইমতো সাফাই বা অন্যান্য জিনিস সারাতে কত টাকা লাগবে তা স্কুল কর্তৃপক্ষের তরফে জানানো হয়। তাদের পাঠানো সেই প্রয়োজনীয় খরচের তালিকা আমরা রাজ্যস্তরে পাঠিয়েছিলাম। একইসঙ্গে স্কুল খোলার আগে পরিচ্ছন্নতা ও স্যানিটাইজেশনের ব্যাপারেও পুরোপুরি নিশ্চিত হতে শিক্ষাদপ্তর যথাযথ পদক্ষেপ করছে। এদিকে স্কুল খোলার ব্যাপারে প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে শিলিগুড়ি শিক্ষা জেলা স্কুল সংসদও। শিলিগুড়ি শিক্ষা জেলায় সরকার পোষিত ১১০টি হাইস্কুল রয়েছে। শিলিগুড়ি শিক্ষা জেলার স্কুল পরিদর্শক রাজীব প্রামাণিক বলেন, ইতিমধ্যেই স্কুলগুলি স্যানিটাইজেশন ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করার কাজ একপ্রস্থ হয়ে গিয়েছে। মঙ্গলবার থেকে মিড ডে মিল দেওয়া শুরু হবে। সরকারিভাবে যে  নির্দেশিকা রয়েছে, সেইমতোই আমরা স্কুল খোলার প্রস্তুতি নিচ্ছি। তবে কোন ক্লাস থেকে স্কুল চালু হবে, এব্যাপারে নির্দেশিকা এখনও নির্দিষ্ট করে না আসায় আমরা বলতে পারছি না সব স্কুল একসঙ্গে চালু হবে কি না। কারণ, কিছু জুনিয়র হাইস্কুল অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত রয়েছে। তবে সরকার যেভাবে নির্দেশ দেবে, আমরা সেইমতো স্কুল খোলার ব্যাপারে প্রস্তুত রয়েছি। কোচবিহার জেলা শিক্ষাদপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে,  জেলায় ২৫০টি মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক হাইস্কুল সংস্কারের জন্য সাড়ে সাত কোটি টাকা এসেছে।  জেলা মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিদর্শকের দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই খাতে টাকা ইতিমধ্যে ব্লকস্তরে চলে গিয়েছে। এছাড়াও জেলায় ২৪৮টি জুনিয়র হাইস্কুল ও ২৩টি মাদ্রাসা এবং ১৮৫১টি প্রাথমিক স্কুল রয়েছে। এরমধ্যে ১৮০১টি স্কুলের সংস্কার করা প্রয়োজন বলে প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শকের দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে। জেলা প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শক কানাইলাল দে বলেন, আমরা আগে শুনেছিলাম নভেম্বরের ১৫ তারিখ থেকে স্কুল খোলার কথা। চূড়ান্তভাবে কিছু শুনিনি। সেই কথা মাথায় রেখেই আমরা পদক্ষেপ নিয়েছিলাম। যদি প্রাথমিক ও মাধ্যমিক একসঙ্গে খোলে তাহলে দ্রুততার সঙ্গে কাজ করতে হবে। আর যদি প্রাথমিক একটু দেরিতে খোলে তাহলে কাজ করার কিছুটা সময় পাওয়া যাবে। আলিপুরদুয়ারেও স্কুল খোলার পরিকাঠামোগত কাজ শুরু হয়েছিল অনেক দিন আগেই। পরিকাঠামোগত কাজের জন্য জেলার ১০৩টি হাইস্কুলকে সরকারি অনুদানও দেওয়া হয়েছে। জেলা স্কুল শিক্ষাদপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, স্কুল খোলার আগে জেলার স্কুলগুলির পরিকাঠামো তৈরির জন্য দু’কোটি টাকার বেশি সরকারি অনুদান দেওয়া হয়েছে। বেশিরভাগ স্কুলই তাঁদের স্কুলের পরিকাঠামোগত কাজ শেষ করে ফেলেছে।  নিজস্ব চিত্র

26th     October,   2021
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021