বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
উত্তরবঙ্গ
 

নিত্যনতুন নারীসঙ্গের আসক্তিতে পর পর খুন, মনে করছে পুলিস
মাটিগাড়ায় জোড়া প্রেমিকা-হত্যা কাণ্ড

নিজস্ব প্রতিনিধি, শিলিগুড়ি: স্ত্রী অসুস্থ। তাই যৌন লালসা মেটাতে নিত্যনতুন নারীতে আসক্ত হতো জোড়া প্রেমিকা হত্যাকাণ্ডে ধৃত দুই সন্তানের বাবা মহম্মদ আখতার। চারদিন ধরে ঘটনার তদন্ত চালিয়ে মাটিগাড়া থানার পুলিস এমনটাই অনুমান করছে। পুলিসের সন্দেহ, ধৃতের টার্গেট ছিল মাদকাসক্ত মহিলারা। তাই আখতারের লালসার শিকার আরও কোনও মহিলা হয়েছে কি না তা নিয়ে খোঁজ­খবর নেওয়া হচ্ছে। যদিও ধৃত এখনও পর্যন্ত দু’টি খুনের ঘটনা পুলিসের কাছে কবুল করেছে। প্রেমের সম্পর্কের টানাপোড়েন ছাড়াও মাদক কারবারের সংস্রব রয়েছে বলে পুলিসের ধারণা। যা পুলিসকে রীতিমতো ভাবিয়ে তুলেছে। 
মাটিগাড়ার শুটকি গোডাউনের কাছে আখতারের বাড়ি। কয়েক বছর আগে তুম্বাজোতের এক যুবতীর সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্কে গড়ে ওঠে। পরে তাকে বিয়েও করে। তাদের দুই ছেলে রয়েছে। আখতারের আত্মীয়দের সঙ্গে কথা বলার পর পুলিস জেনেছে, তার স্ত্রী অসুস্থ। ওদের মধ্যে দাম্পত্য কলহও ছিল। সম্ভবত এ জন্যই আখতার নিত্যনতুন মহিলায় আসক্ত হতো।  প্রথমে প্রেমের সম্পর্ক গড়ত। তারপর শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন। যৌন লালসা মেটার পর সে সহজেই পথের ‘কাঁটা’ প্রেমিকাকে ঠান্ডামাথায় খতম করত। এলাকার আরও কয়েকজন মহিলার সঙ্গে ধৃতের সম্পর্ক ছিল বলে জানা গিয়েছে।  প্রসঙ্গত, ১ সেপ্টেম্বর মাটিগাড়ার চামটা সেতুর কাছ থেকে এক তরুণী গৃহবধূর মৃতদেহ উদ্ধার হয়। ওই মহিলাকে খুনের অভিযোগে আখতারকে গ্রেপ্তার করার পর সোমবার শুটকি গোডাইনের কাছ থেকে আরএক যুবতীর কঙ্কাল উদ্ধার করা হয়। ঘটনাগুলির তদন্তে পুলিস জানতে পারে, সংশ্লিষ্ট দুই মহিলাই ছিল বিবাহিত। দু’জনেই মাদকাসক্ত ছিল। মদ, গাঁজা, ব্রাউন সুগার। এ নিয়ে ওদের পরিবারে ছিল অশান্তি। দু’জনের সঙ্গেই প্রেমের সম্পর্ক ছিল আখতারের। একজন তো নিজের বাড়ি ছেড়ে দিয়ে শুটকি গুদামের কাছে ভাড়া বাড়িতে থাকত। পাশেই আখতারের বাড়ি। সেই বাড়িতে তার যাতায়াত ছিল। মে মাসের পর থেকে ওই মহিলাকে আর দেখা যাচ্ছিল না। 
মাটিগাড়া থানার পুলিস জানিয়েছে,সম্প্রতি মাটিগাড়া থেকে নিখোঁজ হয়েছেনএমন মহিলাদের নামের তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। সেইসব মহিলার কেউ আখতারের খপ্পরে পড়েছিল কি না তা জানার চেষ্টা চলছে। এ জন্য থানার অফিসারদের নিয়ে বিশেষ একটি টিম গঠন করা হয়েছে। শিলিগুড়ি মেট্রোপলিটন পুলিসের এসিপি (ওয়েস্ট) মণীশ যাদব বলেন, বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে খতিয়ে দেখা হচ্ছে। 
এদিকে ধৃতের স্ত্রী বলেন, আমি অসুস্থ। সেভাবে আখতারের খোঁজ রাখতে পারতাম না। ও সবসময় বাড়িতে আসতও না। অনেক সময় নেশা করে গভীর রাতে বাড়িতে ঢুকত। এ নিয়ে ওর সঙ্গে ঝগড়াও হতো। তাছাড়া নেশাগ্রস্ত কিছু মহিলার সঙ্গে আখতার ঘুরে বেড়ায় বলে এলাকার লোকের মুখে শুনেছি। এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করলেই অশান্তি করত। বলতো লোকের কথা শুনবে না। তা হলে সংসার ভেঙে যাবে। ওকে ফাঁসানো হয়েছে। 
ইতিমধ্যে ঘটনাস্থলে ধৃতকে হাজির করে ওই মহিলা খুনের ঘটনা পুনর্নির্মাণ করেছে পুলিস। ঘটনাগুলি পর্যালোচনা করার পর পুলিস অফিসারদের একাংশের ধারণা, আখতারের টার্গেট ছিল মাদকাসক্ত মহিলা। সম্ভবত সে ওই মহিলাদের নেশার টাকা এবং মাদক জোগার করে দিত। সঙ্গে সেও মাদক সেবন করত। কাজেই ঘটনার সঙ্গে মাদক কারবারেরও যোগাযোগ রয়েছে বলেই মনে হচ্ছে। যারফলে এখন চরম বেকায়দায় পড়েছে তিনটি পরিবার। শিলিগুড়ি মেট্রোপলিটন পুলিসের এসিপি (ওয়েস্ট) বলেন, খুনের ঘটনাগুলির তদন্তে বেশকিছু তথ্য মিলেছে। সবটাই গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে। 
অন্যদিকে, ধৃত ‘সিলিয়াল কিলারকে’ অনেকে ‘সাইকো’ বলেই মনে করছেন। মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ নির্মল বেরা বলেন, দু’টি খুনের ঘটনা শুনে মনে হচ্ছে ধৃতের মধ্যে ‘অ্যান্টিসোশ্যাল পার্সোনালিটি ডিসঅর্ডার’ হয়েছে। এটা একধরনের মানসিক রোগ। 

15th     September,   2021
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021