বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দেশ
 

১১ ধর্ষকের মুক্তির বিরুদ্ধে
সুপ্রিম কোর্টে বিলকিস বানো

নয়াদিল্লি: আজ গুজরাতের প্রথম দফার বিধানসভা ভোট। তার আগেই বুধবার ‘ন্যায়বিচারে’র আশায় সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হলেন বিলকিস বানো। বিলকিস গণধর্ষণ মামলায় ১১ জন দোষী সাব্যস্ত আগাম মুক্তি পেয়েছেন। তাদের মুক্তির বিরোধিতা করে মামলা দায়ের করলেন নির্যাতিতা। গত ১৫ আগস্ট ১৯৯২ সালের ‘রিমিশন পলিসি’ মেনে ওই আসামিদের আগাম মুক্তি দিয়েছিল গুজরাতের বিজেপি সরকার। ভোটের আগে এই সিদ্ধান্তে সমালোচনার ঝড় ওঠে। জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার দিন সাজাপ্রাপ্তদের ফুলের মালা পরিয়ে স্বাগতও জানিয়েছিল একটি হিন্দুত্ববাদী সংগঠন।
২০০২ সালে গুজরাতে গোধরা পরবর্তী হিংসার সময় পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা বিলকিসকে গণধর্ষণ করেন ওই ১১ জন। সেইসময় তাঁর বয়স ছিল ২১ বছর। শুধু তাই নয়, বিলকিসের তিন বছরের শিশু কন্যা সহ পরিবারের সাতজনকে তাঁর চোখের সামনেই খুন করা হয়। ২০০৮ সালে মুম্বইয়ের বিশেষ সিবিআই আদালত অভিযুক্তদের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়। পরে বম্বে হাইকোর্টও সেই রায় বহাল রাখে। তবে ১৫ বছরের বেশি কারাবাসের পর আসামিদের একজন সুপ্রিম কোর্টে মুক্তির আবেদন করেন। শীর্ষ আদালতের তরফে বল ঠেলে দেওয়া হয় গুজরাত সরকারের কোর্টে। আদালত জানায়, রাজ্য চাইলে ১৯৯২ সালের আইন অনুযায়ী সেই আর্জি বিবেচনা করতে পারে। এরপরেই গুজরাত একটি কমিটি গঠন করে। ওই কমিটি গণধর্ষণকারীদের মুক্তির সুপারিশ করে। স্বাধীনতা দিবসের দিন গোধরা সাব জেল থেকে মুক্তি পান তাঁরা।
এই সিদ্ধান্তের সপক্ষে শীর্ষ আদালতে গুজরাত সরকারের যুক্তি ছিল, জেলে ওই আসামিরা ‘ভালো আচরণ’ করেছেন। তাছাড়া দোষী সাব্যস্তরা ১৪ বছর জেলও খেটেছেন। যদিও, প্রথম থেকেই আসামিদের আগাম মুক্তির তীব্র বিরোধিতা করেন বিলকিস। সেইমতো এদিন তিনি সুপ্রিম কোর্টের মে মাসের অর্ডারকে চ্যালেঞ্জ করলেন। পাশাপাশি, যাবজ্জীবন সাজা শেষ হওয়ার আগেই মুক্তির সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে রিট পিটিশনও দাখিল করেছেন বিলকিস। তাঁর আইনজীবী সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়ের কাছে মামলাটি তালিকাভুক্ত করার অনুরোধ করেন।
এদিকে, আসামিদের মুক্তির সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যেই শীর্ষ আদালতে মামলা করেছেন তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র এবং সিপিএম নেত্রী সুহাসিনী আলি। এছাড়া বেশ কিছু সংগঠনের তরফেও মামলা হয়েছে। প্রধান বিচারপতি জানিয়েছেন, সবগুলি আবেদন একসঙ্গে শোনা যাবে কি না, তা তিনি খতিয়ে দেখবেন। এর আগে বিলকিস বলেছিলেন, ১১ জনকে মুক্তির বিষয়ে সিদ্ধান্ত গুজরাতের বদলে মহারাষ্ট্র সরকারের নেওয়া উচিত ছিল। গুজরাত ভোটের আগে এই ঘটনা অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। প্রসঙ্গত, গোধরা কেন্দ্রের ছ’বারের বিজেপি বিধায়ক চন্দ্রসিং রাউলজি আসামিদের ‘সংস্কারি ব্রাহ্মণ’ আখ্যা দিয়েছিলেন। এবারের নির্বাচনেও তিনি টিকিট পেয়েছেন।

1st     December,   2022
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ