বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দেশ
 

উত্তরপ্রদেশ: অখিলেশ-শিবপাল
জোটের ভাগ্য ২২ আসনেই আটকে

লখনউ: উত্তরপ্রদেশ বিধানসভা নির্বাচনের ভাগ্য নির্ধারণ আর কয়েকদিনের অপেক্ষা। বিশেষজ্ঞ মহলের একাংশের দাবি, ফের রাজ্যে ক্ষমতায় আসতে চলেছে সমাজবাদী পার্টি। অখিলেশ যাদবের দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ভাবমূর্তি আর আত্মবিশ্বাসই আরও একবার তাঁকে মুখ্যমন্ত্রীর আসনে বসাবে। ঠিক পাঁচ বছর আগে যে লড়াইয়ের জেরে উত্তরপ্রদেশে বিজেপি তার প্রভাব জমাতে সফল হয়েছিল সেই পারিবারিক লড়াই মিটিয়ে এখন সমাজবাদী পার্টিতে কার্যত শান্তি বিরাজমান। গত মাসেই অখিলেশ আর বিদ্রোহী কাকা শিবপাল সিং যাদব হাত মিলিয়েছেন। এক হয়ে নির্বাচনী লড়াইয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। যাদব ভোটকে একত্রিত করার এই প্রয়াসই অখিলেশের শক্তিকে আরও মজবুত করেছে বলে রাজনৈতিক মহলের ধারণা। তবে অনেকেই বলছেন, টানা পাঁচ বছর ধরে নানা লড়াইয়ের পর সমাজবাদী পার্টি কতটা মজবুত হয়েছে তা ঠিক হবে তৃতীয় দফার ভোটে। ২০ ফেব্রুয়ারি রাজ্যে তৃতীয় দফার নির্বাচন। সেই দফায় ৫৯টি আসনে ভোট হবে। তার মধ্যেই রয়েছে যাদব ভোট অধ্যুষিত ২২টি আসন। এই ২২ আসনের ফলই বুঝিয়ে দেবে যাদব ভোটকে কতটা হাসিল করলেন অখিলেশ। 
২০১৭ সালে ওই ৫৯টি আসনের ৪৯টিতেই জয় পেয়েছিল বিজেপি। বাকি দশটি আসনের মধ্যে আটটি ছিল সপার। বাকি একটি করে দখল করে বিএসপি এবং কংগ্রেস। দুই শিবিরের চাপানউতোরেই সেবার ভোটবাক্সে এই হাল হয়েছিল সপার। তার আগে ২০১২ সালে ওই ৫৯টি আসনের ৩৭টিতেই জয় পেয়েছিল সপা। এবছরে আরও ভালো ফলের আশায় ঝাঁপাচ্ছে অখিলেশের দল। বিশেষ করে মইনপুরি, কনৌজ এবং এটাওয়ায় যাদব ভোটই সপার মূল শক্তি। তাই এবার অখিলেশ-শিবপাল জোটের দিকেই তাকিয়ে রয়েছে দল। ২০১৬ সালে এই দুই নেতার লড়াই শুরু হতেই তার প্রভাব পড়ে ২০১৭-র বিধানসভায়। পারিবারিক দ্বন্দ্বের জেরে সেবার বিধানসভা নির্বাচনে শিবপাল নিজে দল গড়ে রাজ্যের ৩০টি আসনে লড়াই করেন। ভোট কাটাকাটির জেরে হাসি ফোটে বিজেপির মুখে। পরে ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনেও নিজের দল প্রগতিশীল সমাজবাদী পার্টি (লোহিয়া)-র হয়ে তিনি প্রার্থী দেন। নিজে ফিরোজাবাদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। অন্যদিকে, সপা প্রার্থী অক্ষয় যাদব বিজেপি প্রার্থী চন্দ্রসেন যাদবের কাছে মাত্র ২৮ হাজার ৭৮১ ভোটে পরাজিত হন। শিবপাল ভোট পান ৯১ হাজার ৮৬৯। বিশেষজ্ঞ মহলের ধারণা, সপার ভোট কাটতে বড় ভূমিকা নিয়েছিলেন শিবপাল। তাই এবার বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপিকে রুখতে পারিবারিক দ্বন্দ্ব মিটিয়ে ফেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন অখিলেশ। আর কোনও কাঁচা পদক্ষেপ নয়। কোনও বিবাদ নয়। গেরুয়া শিবিরকে মাত দিতে বিদ্রোহী শিবপালের সঙ্গে হাত মেলানোই ঠিক বলে মনে নিলেন অখিলেশ।

18th     January,   2022
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ