বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দেশ
 

জুলাইয়ের মধ্যেই যাত্রা শুরু করছে নয়া বিমান সংস্থা আকাশ এয়ার। সেজন্য আমেরিকার পোর্টল্যান্ড থেকে আসছে বোয়িং ৭৩৭ ম্যাক্স বিমান। -পিটিআই

উত্তরপ্রদেশে সভা, সমাবেশ বন্ধ,
জোর সোশ্যাল মিডিয়ায়
জয় নিয়ে সংশয়ে মোদির বিজেপি

নিজস্ব  প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি: সভা নয়। সমাবেশ নয়। মিছিল নয়। করোনার তৃতীয় ঢেউয়ের কারণে উত্তরপ্রদেশের ভোটে যে কোনও রকম জমায়েত নিষিদ্ধ হওয়ায় অভিনব এক ভোটপ্রচার শুরু হয়েছে। এই প্রথম ৪০৩ আসন বিশিষ্ট সর্ববৃহৎ রাজ্যে বাইরের কোনও নির্বাচনী উত্তাপ নেই। প্রচারের মাধ্যম মাত্র দু‌঩’টি। সাংবাদিক সম্মেলন ও সোশ্যাল মিডিয়া। ঠিক এই কারণেই হঠাৎ উত্তরপ্রদেশের ভোটকে কেন্দ্র করে অসংখ্য ই-ক্যাম্পেন সংস্থা গড়ে উঠেছে। যে রাজনৈতিক দল যত টাকা ব্যয় করতে পারছে, ততই তার সোশ্যাল মিডিয়া টিম শক্তিশালী হচ্ছে। গাড়ি, রথ,  মঞ্চ, পতাকা, ফুল, মালা, কাট আউট, মিছিল, পদযাত্রা ইত্যাদি ক্ষেত্রে কোটি কোটি টাকা ব্যয় করাই ছিল দস্তুর এতকাল। এবার সেই প্রবণতা বন্ধ। একমাত্র টার্গেট সংবাদমাধ্যম ও মোবাইল। বলা বাহুল্য, ডিজিটাল প্রচারে সবচেয়ে বেশি অর্থ খরচ করেও কিছুতেই নিশ্চিন্ত হতে পারছে না বিজেপি।
বাংলায় তৃণমূলের জয় এখনও উত্তরপ্রদেশে বড়সড় আলোচনার বিষয়বস্তু। বলা হচ্ছে, করোনার সংক্রমণ স্তিমিত হলে বিজেপি বিরোধী দলগুলির সম্মিলিত সাংবাদিক সম্মেলন হতে পারে। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বিপুল সংখ্যক সংস্থা হাজির হয়েছে ঩উত্তরপ্রদেশের প্রচারে অংশ নিতে। সেই কারণেই সবথেকে বেশি অভিযোগ আসতে শুরু করেছে ফেক নিউজের। ইতিমধ্যেই অখিলেশ যাদব অভিযোগ করেছেন, বিদ্বেষমূলক প্রচারের জন্য গুজরাত থেকে লোক নিয়োগ করেছে বিজেপি। একইসঙ্গে ফেক ঩নিউজ ছড়ানো অসংখ্য আইটি সেলও খুলে ফেলা হয়েছে। কিন্তু শুধুই সোশ্যাল মিডিয়ার জোরে যুদ্ধজয়ের সম্ভাবনা যে কঠিন সেকথা বুঝতে পারছে বিজেপি। এর আগে অন্য রাজ্যে, বিশেষ করে বাংলার ভোটে সোশ্যাল মিডিয়ার উপর অতি নিভর্রতা দলকে ডুবিয়ে দিয়েছে। তাই এবার সোশ্যাল মিডিয়ার অসংখ্য সংস্থাকে নিয়োগ করে কোটি কোটি টাকা খরচ করা হলেও নিজস্ব সমীক্ষক সংস্থা দিয়ে প্রত্যেক ১০ দিন অন্তর একটি করে সমীক্ষা করা শুরু করেছে বিজেপি। 
উত্তরপ্রদেশের আসন্ন নির্বাচনকে বিজেপির দিল্লি পুনর্দখলের লড়াইয়ে ২০২৪ সালের সেমিফাইনাল হিসেবেই দেখা হচ্ছে। আর তাই সর্বশক্তি দিয়ে নামতে চেয়েছিলেন নরেন্দ্র মোদি। ঠিক যেভাবে বাংলায় ঝাঁপিয়েছিলেন। কিন্তু সভা সমাবেশ মিছিল ছাড়া নিছক সাংবাদিক সম্মেলন ও সোশ্যাল মিডিয়ার উপর নির্ভর করে এই যুদ্ধ জেতা যাবে কি না তা নিয়ে যথেষ্ট দুশ্চিন্তায় পড়েছে বিজেপি নেতৃত্ব। 
এদিকে কড়াকড়ির কারণে কোনও বড় সমাবেশ ও জনসভা না হওয়ায় বিজেপি বিরোধী বিভিন্ন দলের সম্মিলিত কোনও সমাবেশ সম্ভবত হতে পারছে না। স্থির হয়েছে, বিজেপি বিরোধী দলগুলি একজোট হয়ে সমাজবাদী পাটির সমর্থনে সাংবাদিক সম্মেলন করবে। সমাজবাদী পার্টির সহ সভাপতি কিরণময় নন্দ লখনউ থেকে বলেছেন, আমরা প্রত্যেক দলকেই আবেদন করেছি যাতে সম্মিলিতভাবে বিজেপিকে হারানোর প্রয়াস করা যায়। অ঩খিলেশ যাদব এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের যৌথ সাংবাদিক সম্মেলন করা সম্ভব কি না সেই চেষ্টাও করা হচ্ছে। কারণ বাঙালিদের ভোটও বেশ গুরুত্বপূর্ণ উত্তরপ্রদেশে। 

18th     January,   2022
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ