বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দেশ
 

ভুবনেশ্বরে সাধারণতন্ত্র দিবসের প্রস্তুতি চলছে। ছবি: এএনআই

অধিবেশনের শুরুতেই সাসপেন্ড
দোলা, শান্তা সহ ১২ এমপি
অগণতান্ত্রিক বলছে বিরোধীরা

নিজস্ব প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি: সরকার বনাম বিরোধী সংঘাত চরম আকার নিতে চলেছে চলতি শীতকালীন অধিবেশনে। সোমবার অধিবেশনের প্রথম দিনেই সরকারের আনা এক প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে রাজ্যসভার ১২ জন এমপিকে সাসপেন্ড করা হয়। এই নির্দেশকে নজিরবিহীন ও অগণতান্ত্রিক আখ্যা দিয়েছে বিরোধীরা। তালিকায় বাংলার দুই এমপি দোলা সেন ও শান্তা ছেত্রী আছেন। আছেন কংগ্রেসের ৬ জন, শিবসেনার দু’জন ও সিপিএম ও সিপিআইয়ের একজন করে এমপি। গত আগস্টে বাদল অধিবেশনে ঘটে যাওয়া ঘটনার রেশ টেনেই এদিন ১২ জন এমপিকে সাসপেন্ড করার নির্দেশ দেওয়া হয়। যাকে সম্পূর্ণ বেনজির তকমা দিয়ে প্রতিহিংসার রাজনীতি হিসেবেই দেখছে বিরোধীপক্ষ। বিগত বর্ষাকালীন অধিবেশনে পেগাসাস স্পাইওয়্যার নিয়ে আলোচনার দাবিতে লোকসভা ও রাজ্যসভায় তুমুল বিক্ষোভ দেখায় বিরোধী জোট। ওয়েলে নেমে বিক্ষোভ, স্লোগান ও সংসদীয় কাজে বাধাদানের ঘটনাও ঘটে। পরিস্থিতি চরমে ওঠে বিমা বেসরকারিকরণ বিল আলোচনা ছাড়াই পাশ করানোর সরকারি প্রয়াসে। বিরোধীদের দাবি ছিল, ওই বিল সিলেক্ট কমিটিতে পাঠাতে হবে। সরকারপক্ষ তাতে রাজি হয়নি। একদিকে পেগাসাস নিয়ে আলোচনার দাবি, অন্যদিকে বিল পাশ করানোর সরকারি চেষ্টার সম্মিলিত পরিণতি শেষে হাতাহাতিতে পৌঁছয়। সরকার ও রাজ্যসভা সচিবালয়ের অভিযোগ, বিরোধীরা নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা মার্শালদেরও মারধর করেছে। নিরাপত্তা বিঘ্নিত করার অপরাধে এমপিদের গোটা অধিবেশনের জন্যই সাসপেন্ড করা হয়। পাশাপাশি তদন্তেরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। সেই  রিপোর্ট জমা পড়ে রাজ্যসভায়। আগস্ট মাসের ওই ঘটনার জেরে শীতকালীন অধিবেশন শুরু হতেই সাসপেনশনের পরিধিকে বৃদ্ধি করা কেন? প্রশ্ন তুলেছে বিরোধীরা। এনিয়ে আজ মঙ্গলবার জরুরি ভিত্তিতে বিরোধীদের বৈঠক হতে চলেছে। বিরোধীদের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, মঙ্গলবারই লড়াইয়ের পরবর্তী পদক্ষেপ কী হবে, সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
রাষ্ট্রীয় জনতা দলের এমপি মনোজ কুমার ঝা বলেছেন, এই সাসপেনশন যদি প্রত্যাহার করা না হয়, তাহলে সম্মিলিতভাবে বিরোধীরা সংসদ বয়কট করবে। তিনি বলেন, সরকার চাইছে, সংসদ হোক বিরোধীশূন্য। সোমবার অবশ্য বিরোধীদের জোটেও ফাটল পরিলক্ষিত হয়েছে। কারণ, বিরোধীদের সম্মিলিত এক বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেনি তৃণমূল কংগ্রেস। কংগ্রেস, ডিএমকে, সমাজবাদী পার্টি, শিবসেনা, ন্যাশনালিস্ট কংগ্রেস পার্টি, সিপিএম, সিপিআই, আম আদমি পার্টি, জনতা দল (সেকুলার) সক঩লেই নিন্দাপ্রস্তাবে স্বাক্ষর করেছে। ব্যতিক্রম তৃণমূল কংগ্রেস এবং মায়াবতীর বহুজন সমাজ পার্টি। তবে তাৎপর্যপূর্ণভাবে বিরোধীদের ওই জোটে যোগদান করেছে তেলেঙ্গানা রাষ্ট্রীয় সমিতিও। আজ রাজ্যসভার বিরোধী দলনেতা মল্লিকার্জুন খাড়গের দপ্তরে বিরোধী দলের রাজ্যসভার নেতাদের বৈঠকেও তৃণমূল যোগ দেবে কি না অনিশ্চিত। এদিনই তৃণমূল এমপি সুখেন্দুশেখর রায় বলেছেন, আমরা বিরোধী জোটের যে কোনও বৈঠকেই যোগ দিয়ে থাকি। একটি-দু’টি বৈঠকে উপস্থিত হতে না পারলে তা নিয়ে জল্পনা অর্থহীন। কেন্দ্রবিরোধী অবস্থানে আমাদের দল সর্বদাই সবার আগে রয়েছে। আগামীদিনেও সেই অবস্থানে অনড় থাকছি। শিবসেনা এমপি প্রিয়াঙ্কা চতুর্বেদী বলেছেন, আদালতেও অপরাধীর কাছে তাঁর বক্তব্য জানতে চাওয়া হয়। আর এখানে একতরফা বিচার হয়ে গেল? আমাদের বক্তব্য জানতেই চায়নি কমিটি। এটা যদি অগণতান্ত্রিক না হয়, তাহলে গণতন্ত্র কাকে বলে? 

30th     November,   2021
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021