বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দেশ
 

উপত্যকায় হত্যালীলার কিংপিন ছোটা ওয়ালিদ
কাশ্মীরে পাক জঙ্গিদের নয়া টার্গেট নিরীহ মানুষ

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: কৌশল বদলেছে জঙ্গিরা, নয়া ছক নিয়েছে পাকিস্তান। কাশ্মীরে গত একমাস ধরে জঙ্গি নিশানায় শুধুই নিরীহ নাগরিক। আর এই হত্যালীলার মূল হোতা পাক অধিকৃত মুজফফরাবাদ থেকে আসা এক জঙ্গি—ছোটা ওয়ালিদ। বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্ট, গত সেপ্টেম্বর মাসের গোড়ায় নিয়ন্ত্রণ রেখা পেরিয়ে ভারতে ঢুকেছে এই ‘প্রবীণ’ জঙ্গি। এক সময়ে লস্কর-ই-তোইবার সঙ্গে যুক্ত থাকলেও এখন সে কাশ্মীরে হামলা-নাশকতার নেপথ্যে থাকা সব জঙ্গি সংগঠনের ‘আমব্রেলা অ্যাসোসিয়েশন’ দি রেজিস্ট্যান্স ফ্রন্টের (টিআরএফ) প্রধানের দায়িত্বে। এক মাস ধরে কাশ্মীর উপত্যকার জঙ্গিরা তাদের পাক হ্যান্ডলারদের সঙ্গে যে সমস্ত মাধ্যমে যোগাযোগ রেখে চলেছে, তাতে নজরদারি চালিয়ে ছোটা ওয়ালিদের নামটি জেনেছেন গোয়েন্দারা। তাঁরা বলছেন, নিয়ন্ত্রণ রেখা লাগোয়া পাক অধিকৃত কাশ্মীরের গ্রাম আব্বাসপুর-সেনশা’র জঙ্গি ক্যাম্প থেকে ভারতে ঢুকেছে ছোটা ওয়ালিদ। আর তার সঙ্গে এসেছে সাত-আটজন জঙ্গির একটি  দল। 
গোয়েন্দারা বলছেন, আগে পাক গুপ্তচর সংস্থা আইএসআইয়ের নির্দেশে তালিবান বাহিনীকে সাহায্যের জন্য আফগানিস্তানে ছিল এই ওয়ালিদ। বিভিন্ন সূত্র থেকে গোয়েন্দারা জেনেছেন, সে দেশের পাকতিয়া প্রদেশের জাজিতে লস্করের প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ‘মুয়াসকার-ই-তোইবা’তে ছিল ওয়ালিদ। তালিবান সরকার প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর আইএসআইয়ের নির্দেশেই ফের নিয়ন্ত্রণ রেখা লাগোয়া জঙ্গি ঘাঁটিতে ফিরে এসেছিল ওয়ালিদ। সেখান থেকে কাশ্মীরের ‘সহকর্মী’দের প্রয়োজনীয় নির্দেশ দিচ্ছিল এই জঙ্গি নেতা। গোয়েন্দা সূত্রে জানা গিয়েছে, পুশতু এবং বাল্টি ভাষায় নির্দেশ পাঠানো হতো। এই ভাষার ব্যবহার দেখেই গোয়েন্দাদের অনুমান, আফগানিস্তান এবং লাগোয়া পাকিস্তানের পাখতুনওয়া প্রদেশের বেশ কিছু লোকজন নিয়ন্ত্রণ রেখা পেরিয়ে ভারতে ঢুকেছে। কে এই ছোটা ওয়ালিদ? কেনই বা তার এই নাম? গোয়েন্দারা বলছেন, এর আগে গত ২০২০ সালের গোড়া থেকে কাশ্মীর উপত্যকায় আর এক পাকিস্তানি জঙ্গির নাম সামনে এসেছিল। আইইডি বিশেষজ্ঞ সেই জঙ্গির নাম ছিল ওয়ালিদ খান। গত বছরের জুলাই মাসে কুলগাঁওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে খতম হয় এই ওয়ালিদ। জঙ্গি মহলে সে বড়া ওয়ালিদ নামে পরিচিত ছিল। তার উত্তরসূরি হিসেবে এখন শিরোনামে এসেছে ছোটা ওয়ালিদ। তাহলে তার আসল নাম কী? গোয়েন্দারা বলছেন, গত দু’মাস নিয়ন্ত্রণ রেখা অতিক্রম করিয়ে এদেশে জঙ্গি অনুপ্রবেশের মরিয়া চেষ্টা চালাচ্ছে আইএসআই। পাক অধিকৃত কাশ্মীরের ভীমবের, কাঠুয়া, বালাকোট, মাংলা, চাওয়ারি সহ আরও কয়েকটি জায়গায় জঙ্গি প্রশিক্ষণের ‘ক্র্যাশ কোর্স’ সেন্টার বা ‘দৌরা-ই-লস্কর’ চালু করেছে তারা। সেখানে ট্রেনিং নিচ্ছে লস্কর, জয়েশ, হিজবুল এবং আল বদরের জঙ্গিরা। গোয়েন্দারা বলছেন, সেরকমই এক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র হয়ে গত ১৮ সেপ্টেম্বর নিয়ন্ত্রণ রেখা পেরিয়ে ভারতে ঢুকেছিল আলি বাবর পাতরা নামে পাক-পাঞ্জাবের এক জঙ্গি। গত ২৮ সেপ্টেম্বর নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযান চলাকালীন সে সেনার হাতে ধরা পড়ে। জেরায় জানা যায়, প্রশিক্ষণ শিবিরের তাদের তালিম দিত পাক সেনা ও গোয়েন্দা কর্তারা। সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে ঢুকে ঠিক কী করতে হবে, সেই নির্দেশ দিত পাক অধিকৃত কাশ্মীরের আব্বাসপুরে এক ‘হুজুর’। সেই হুজুরের নাম আহমেদ খালিদ ওরফে হামজা ওরফে হাকপারস্ত। এই হামজাই কি ছোটা ওয়ালিদ? উত্তর খুঁজছেন গোয়েন্দারা। 

19th     October,   2021
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021