বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দেশ
 

‘মুখ্যমন্ত্রীরাও জানেন না মেয়াদ কতদিন’
বেসুরো গাদকারি, এবার দিল্লিতে তলব হিমাচলের মুখ্যমন্ত্রীকে

নিজস্ব প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি: ‘রাজনীতিকদেরও দুঃখ-যন্ত্রণা কম নয়! মুখ্যমন্ত্রী হয়েও গদি হারানোর ভয় তাঁদের তাড়া করে সর্বদা!’ বিজেপির ডবল ইঞ্জিন গুজরাতে মুখ্যমন্ত্রীর গদি হারানোর রেশ কাটার আগেই দলীয় নেতৃত্বের উদ্দেশে মোক্ষম কটাক্ষবাণ ছুড়লেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নীতিন গাদকারি। রাজনীতির উত্থান-পতন নিয়ে একটি মন্তব্য, আর তাতেই তোলপাড় গোটা দেশ। ছ’মাসে পাঁচ মুখ্যমন্ত্রী বদলের নেপথ্যে মোদি-শাহের কলকাঠি নিয়ে জল্পনা কম নেই। তার মধ্যেই গাদকারির এহেন মন্তব্য, আর তারপরই মোড় ঘুরল দিল্লি দরবারের চিত্রনাট্য। মঙ্গলবার রাজধানীতে ডেকে পাঠানো হল হিমাচল প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী জয়রাম ঠাকুরকে। তাতেই বেশ কিছু প্রশ্ন সামনে চলে এসেছে—বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী বদলের প্রবণতা কি চলবে? জয়রাম ঠাকুরকে কি কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব ডেকে পাঠিয়েছে? এর আগে একের পর এক রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে দিল্লি ডেকে পাঠানোর পরই তাঁরা রাজ্যে ফিরে গিয়ে ইস্তফা দিয়েছেন। উত্তরাখণ্ড থেকে গুজরাত। কর্ণাটক অথবা অসম। তার মানে কি এবার জয়রাম ঠাকুরের পালা? বিশেষ করে উত্তরাখণ্ড,  গুজরাতের মতো আগামী বছর হিমাচল প্রদেশেও ভোট। তাই জল্পনা আরও বেড়েছে। যদিও জয়রাম ঠাকুর এই চর্চা উড়িয়ে বলেছেন, রাজ্যের একঝাঁক প্রকল্প নিয়ে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের সঙ্গে কথা বলতে তিনি এসেছেন। দেখা করেছেন রাষ্ট্রপতির সঙ্গেও।
সোমবারই রাজস্থানে ‘সংসদীয় ব্যবস্থা ও জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা’ শীর্ষক এক সম্মেলনে যোগ দিয়েছিলেন গাদকারি। সেখানে তিনি বলেন, ‘আজকের দিনে কোনও রাজনীতিকই সুখী নন। বিধায়করা সবসময় কষ্ট পান মন্ত্রী হতে না পেরে। আবার তাঁরা মন্ত্রী হলে আক্ষেপ করেন ভালো দপ্তর না পাওয়ার। তারপর হয়তো ভালো দপ্তর পেলেন। তাতেও মন ভরল না। তিনি দুঃখ করতে লাগলেন মুখ্যমন্ত্রী হতে পারলেন না বলে। আর মুখ্যমন্ত্রী হলেই ভয়—এই বুঝি মেয়াদ ফুরিয়ে গেল!’ এখানেই গাদকারির স্পষ্ট ইঙ্গিত, ঠিক যেভাবে মেয়াদ ফুরিয়ে গিয়েছে রুপানি এবং আরও চার বিজেপি মুখ্যমন্ত্রীর। তাঁর আক্ষেপ, ‘রাজনীতির আসল উদ্দেশ্য হল, সারির সর্বশেষে দাঁড়িয়ে থাকা সাধারণ মানুষের জীবনে পরিবর্তন আনা। অথচ দুর্ভাগ্যজনক হলেও এটা সত্যি,  আজকাল ক্ষমতা দখলের মাধ্যম হিসেবে সেই উদ্দেশ্যকে বিবেচনা করা হয়।’
কিন্তু প্রশ্ন হল, ‘রেজিমেন্টেড’ সঙ্ঘ পরিবার নিয়ন্ত্রিত বিজেপির শীর্ষ নেতা কেন এমন বেসুরো? রাজনৈতিক শিবিরের একটা বড় অংশের মত, পশ্চিমবঙ্গের ভোটে উচ্চ প্রত্যাশা নিয়ে ঝাঁপিয়ে ছিলেন মোদি-শাহরা। কিন্তু তাঁদের সেই চেষ্টা পুরোপুরি মুখ থুবড়ে পড়ে। জোর ধাক্কা খায় মোদির ব্যক্তিগত ইমেজ। তারপর থেকেই দলের অন্দরে কিছুটা কিছুটা করে রাশ আলগা হতে থাকে মোদি-শাহের। সেই কারণেই বিভিন্ন রাজ্যে মাথাচাড়া দিচ্ছে দলীয় কোন্দল। এক একটি রাজ্যে বিজেপির অন্দরেই একাধিক গোষ্ঠী। সামাল দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে দিল্লির নেতৃত্বকে। বছর ঘুরলেই পাঞ্জাব, উত্তরপ্রদেশ, গোয়া, মণিপুর, উত্তরাখণ্ডের ভোট। আর ওই বছরের শেষে গুজরাত, হিমাচল। তার ঠিক আগে বিজেপির অন্দরে এমন কোন্দল বেশ চাপে রেখেছে মোদি-শাহকে। কারণ, তাঁদের ‘দল পরিচালন পদ্ধতি’ ঘোরতর প্রশ্নের মুখে। আর এরই মধ্যে রাতের জল্পনা হিমাচল প্রদেশ ঘিরে। জয়রাম ঠাকুরের মেয়াদ কি শেষ হচ্ছে? এর উত্তর মেলার আগেই বাজারে আরও একটি প্রশ্ন—তালিকায় নাকি নাম রয়েছে ত্রিপুরার বিপ্লব দেবেরও?

15th     September,   2021
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021