বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দেশ
 

সুইস ব্যাঙ্কে ভারতীয় অর্থ ৩ গুণ
২১ হাজার কোটি কালো
টাকা কার, প্রশ্নের মুখে মোদি

নিজস্ব প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি: সুইস ব্যাঙ্ক থেকে কালো টাকা ফিরিয়ে আনব। প্রত্যেক দেশবাসীর অ্যাকাউন্টে ১৫ লক্ষ টাকা জমা করব। ২০১৪ সালে ক্ষমতায় আসার আগে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন নরেন্দ্র মোদি। সাত বছরেও সেই টাকা আসেনি। দেশকে কালো টাকা মুক্ত করতে নোটবাতিল পর্যন্ত করেছেন। কিন্তু, কাজের কাজ যে হয়নি, তা চোখে আঙুল দিয়ে দেখাচ্ছে সুইস ব্যাঙ্কের দেওয়া পরিসংখ্যান। মোদি দ্বিতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর সুইজারল্যান্ডের ব্যাঙ্কে ভারতীয়দের আমানতের পরিমাণ হু হু করে বেড়েছে। এমনকী, কোভিডকালে সেই টাকার অঙ্ক বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ২১ হাজার কোটি টাকায়, যা গত ১৩ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। এই হিসেব প্রকাশ্যে আসার পরেই শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী মোদিকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছে বিরোধীরা। কংগ্রেসের পক্ষ থেকে কেন্দ্রকে তীব্র আক্রমণ করে জানতে চাওয়া হয়েছে, কোভিডকালেও এত কালো টাকা কাদের? নাম প্রকাশ করুন মোদি সরকার। যদিও, এই তহবিলকে কালো টাকা বলতে রাজি নয় সুইস কর্তৃপক্ষ।
সুইস ন্যাশনাল ব্যাঙ্ক (এসএনবি)-র তথ্য বলছে, ২০১৯ সালের শেষদিকে সুইস ব্যাঙ্কে ভারতীয়দের তহবিলের পরিমাণ ছিল ৬ হাজার ৬২৫ কোটি টাকা। ২০২০ সালের শেষে তা ২০ হাজার ৭০৬ কোটি টাকায় দাঁড়িয়েছে। অর্থাৎ, মাত্র এক বছরে কালো টাকার অঙ্ক বেড়েছে তিন গুণেরও বেশি। এর মধ্যে প্রায় সাড়ে ১৩ হাজার কোটি টাকা জমা হয়েছে বন্ড, সিকিউরিটিস এবং অন্যান্য আর্থিক প্রক্রিয়ায়। ৪ হাজার কোটির বেশি গ্রাহকরা নিজে জমা করেছেন। ৩ হাজার ১০০ কোটি টাকার বেশি এসেছে অন্য ব্যাঙ্ক থেকে এবং সাড়ে ১৬ কোটি টাকা বিভিন্ন ট্রাস্ট মারফত। 
সুইজারল্যান্ডের সঙ্গে নতুন চুক্তি অনুযায়ী, সুইস ব্যাঙ্কে ভারতীয়দের তহবিলের হিসেব এক বছর পর হাতে পায় ভারত। সেই সূত্রেই এই হিসেব এসেছে। ২০০৭ সালে ৯ হাজার কোটির বেশি অর্থ সুইস ব্যাঙ্কে জমা ছিল। এতদিন সেই হিসেব ছিল সর্বোচ্চ। ২০১৪ সালে মোদি ক্ষমতায় আসার আগে বিজেপির দাবি ছিল, সুইস ব্যাঙ্কে ভারতীয়দের সাড়ে ১৭ লক্ষ কোটি কালো টাকা লুকনো রয়েছে। সেই টাকা তাঁরা উদ্ধার করবেন প্রতিশ্রুতি দিয়েইছলেন মোদি। তাঁর ক্ষমতায় আসার পর সুইজারল্যান্ডের সঙ্গে চুক্তি হয়। পুরনো হিসেব না দেখালে নতুন করে গচ্ছিত আমানতের হিসেব দিতে রাজি হয় সুইস ব্যাঙ্ক। সেই হিসেব অনুযায়ী, ২০১৭-১৮ সালে সেই আমানতের পরিমাণ নীচের দিকে নামছিল। কিন্তু, গত বছর তা যাবতীয় রেকর্ড ছাপিয়ে গিয়েছে।
সম্প্রতি প্রকাশিত এই রিপোর্টকে কেন্দ্র করে কেন্দ্রীয় সরকারের উদ্দেশ্যে তীব্র আক্রমণ শানিয়েছে কংগ্রেস। তাদের দাবি, ২০২০ সালে সুইস ব্যাঙ্কে ভারতীয়দের আমানতের পরিমাণ ২৮৬ শতাংশ বেড়েছে। এদিন এআইসিসির মুখপাত্র অধ্যাপক গৌরব বল্লভের নামে জারি করা এক প্রেস বিবৃতিতে মোট তিনটি প্রশ্ন তোলা হয়েছে। এক, গত এক বছরে যে সব ব্যক্তি সুইস ব্যাঙ্কে টাকা জমা করেছেন, তাঁরা কারা? যেখানে ৯৭ শতাংশ ভারতীয় আরও গরিব হয়েছেন সেই সময় কারা ‘আপদের মধ্যে অবসর’ ভোগ করছেন? দুই, গত সাত বছরে কোন দেশ থেকে কত কালো টাকা কেন্দ্রীয় সরকার ফেরত এনেছে? তিন, বিদেশি অ্যাকাউন্ট থেকে কালো টাকা সরানো রুখতে কী কী পদক্ষেপ নিয়েছে মোদি সরকার। কংগ্রেসের অভিযোগ, মোদি সরকার কালো টাকার প্রবণতা রোধ করতে কোন পদক্ষেপ নেয়নি।

19th     June,   2021
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
কিংবদন্তী গৌতম
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021