বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

সংরক্ষণ প্রশ্নে দমকলে ১৫০০
নিয়োগ স্থগিত করল হাইকোর্ট

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ফের নিয়োগ প্রক্রিয়ায় অনিয়মের অভিযোগ। এবার দমকল বিভাগে। মামলা গড়িয়েছে কলকাতা হাইকোর্টে। সোমবার সেখানে স্থগিতাদেশ জারি হতেই আপাতত থমকে গেল প্রায় দেড় হাজার ফায়ার অপারেটর নিয়োগ। গোটা প্রক্রিয়ায় সংরক্ষণ নিয়ম যথাযথভাবে মানা হয়নি বলে অভিযোগ। এর আগে এই সংক্রান্ত মামলায় পাবলিক সার্ভিস কমিশনকে ক্লিনচিট দিয়েছে স্টেট অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ট্রাইব্যুনাল (স্যাট)। সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়েই হাইকোর্টে বিচারপতি হরিশ ট্যান্ডনের নেতৃত্বাধীন ডিভিশন বেঞ্চের দ্বারস্থ হন চাকরিপ্রার্থীরা। এদিন সেই মামলায় আগামী সোমবার পর্যন্ত নিয়োগ প্রক্রিয়া স্থগিত রাখার নির্দেশ দিয়েছে উচ্চ আদালত।
২০১৮ সালের জুন মাসে পিএসসি এই নিয়োগের বিজ্ঞাপন দেয়। মোট শূন্যপদ ছিল ১,৪৫২। সেবছরই সেপ্টেম্বরে নেওয়া হয় ৮০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষা। তার ভিত্তিতে অস্থায়ীভাবে নির্বাচিতদের একটি তালিকা প্রকাশ করে পিএসসি। চূড়ান্ত মেধা তালিকা বের হয় ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে। তা নিয়েই ওঠে অভিযোগ। তালিকায় কে কত নম্বর পেয়েছে, সেসব জানানো হয়নি। গত বছর ১৯ মার্চ নিয়োগ প্রক্রিয়ায় স্থগিতাদেশ দেয় স্যাট। এরপর অধিকাংশ মামলাকারীর হাতে ওএমআর সিট তুলে দেয় পিএসসি। তাতে আরও অনিয়মের অভিযোগ ওঠে। কিন্তু, সরকারি বক্তব্যে সাড়া দিয়ে চলতি বছরের মার্চ মাসে মামলাটি খারিজ করে দেয় স্যাট। এরপরেই সেই রায়কে হাইকোর্ট চ্যালেঞ্জ জানান চাকরিপ্রার্থীরা।
মামলাকারী বাসুদেব ঘোষ ও অন্যান্যদের আইনজীবী সুবীর সান্যাল ও দিব্যেন্দু চট্টোপাধ্যায় আদালতকে জানান, ‘প্যানেলভুক্ত বহু প্রার্থী লিখিত পরীক্ষার ফল অত্যন্ত খারাপ। কিন্তু আশ্চর্যজনকভাবে মৌখিক পরীক্ষায় তাঁদের ব্যাপক নম্বর পেয়েছেন। অন্যদিকে লিখিত পরীক্ষায় ভালো ফল করা বেশ কিছু প্রার্থীকে মৌখিকে যৎসামান্য নম্বর দেওয়া হয়েছে।’ মামলাকারীদের দাবি, এটি কাকতলীয় ঘটনা নয়। কিন্তু, ট্রাইব্যুনাল এই দিকে নজর দেয়নি।
তবে গোটা মামলায় মুখ্য অভিযোগ সংরক্ষণ নিয়ম নিয়েই। মামলাকারীদের অভিযোগ, সংরক্ষণের আওতায় থাকা বহু প্রার্থীকে অসংরক্ষিত হিসেবে নির্বাচন করা হয়েছে। কেন? তার ব্যাখ্যা মেলেনি। অথচ, এর ফলে সাধারণ প্রার্থীর কোটা কমেছে। ওএমআর সিট পর্যবেক্ষণ করে তাঁরা অন্তত ছ’টি প্রশ্ন নিয়ে গুরুতর অভিযোগ তুলেছেন। সেখানে চারটি করে সম্ভাব্য উত্তর ছিল। কিন্তু, ওএমআর সিটে হোয়াইটনার দিয়ে একটির জায়গা সাদা করে দেওয়া হয়েছে। সেটাই ছিল সঠিক উত্তর। ফলে সঠিক উত্তর দিয়েও তাঁরা নম্বর পাননি।
২০৩ জন মামলকারী আদালতকে এও জানিয়েছেন, নিয়োগের বিজ্ঞপ্তিতে অসংরক্ষিত আসন ছিল ৭০৭টি। পাশাপাশি তফসিলি জাতির জন্য ৩০৯, তফসিলি উপজাতির জন্য ৯৩, অন্যান্য অনগ্রসর (ক) শ্রেণির জন্য ১৫৭, অন্যান্য অনগ্রসর শ্রেণি (খ)-এর জন্য ৭৪, এক্স-সার্ভিসম্যানদের জন্য ৮০ এবং প্রতিভাবান খেলোয়াড়দের জন্য ৩২টি পদ সংরক্ষিত ছিল। তা সঠিকভাবে মানা হয়নি। তাই পুরো নিয়োগ প্রক্রিয়াই বাতিল হওয়া উচিত।

5th     July,   2022
 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ