বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

আহারে মগ্ন। বারাসত গভর্নমেন্ট কলেজে তোলা নিজস্ব চিত্র। 

শিক্ষক বদলি: সরকারি সিদ্ধান্ত খারিজ
হতেই বঞ্চিতদের আবেদন মঞ্জুর

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: কোনও স্কুলে যদি কোনও বিষয়ের একজন শিক্ষক থাকেন, সেক্ষেত্রে তাঁর বদলি আটকে দেওয়ার বিজ্ঞপ্তি জারি করেছিল শিক্ষাদপ্তর। ফলে সেইসব শিক্ষকরা উৎসশ্রী পোর্টলে আবেদন করলেও তা একের পর এক বাতিল হয়ে যাচ্ছিল। কিন্তু, বিজ্ঞপ্তি জারির আগে যাঁরা আবেদন করেছিলেন, তাঁদের বদলি কেন আটকে থাকবে, এই প্রশ্ন তুলে সম্প্রতি দু’টি মামলা হয় কলকাতা হাইকোর্টে। মামলায় এই বিজ্ঞপ্তির যৌক্তিকতা নিয়েই গুরুতর প্রশ্ন উঠে গেল। বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় দুই মামলাকারীকে অবিলম্বে বদলির নির্দেশ দিয়েছেন। অন্যদিকে, এই ঘটনার প্রেক্ষিতে অন্যান্যরা যাঁরা এই সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছিলেন, তাঁদের আবেদন মঞ্জুর হয়েছে বলে শুক্রবার আদালতকে জানিয়েছে শিক্ষাদপ্তর।
শিক্ষিকা পায়েল ভট্টাচার্যের বাড়ি থেকে স্কুলের দূরত্ব ছিল ১০০ কিলোমিটার। আর তাঁর স্বামীর কর্মস্থলের দূরত্ব ৮৭ কিলোমিটার। তিনি উৎসশ্রী পোর্টালে আবেদন করেছিলেন ২০২১ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি। অন্যদিকে, শিক্ষাদপ্তর সংশ্লিষ্ট শিক্ষকদের বদলি আটকানোর বিজ্ঞপ্তি জারি করে সেই বছরের ২২ সেপ্টেম্বর। আরেক মামলাকারী সৌমী বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্কুলের দূরত্ব বাড়ি থেকে ১০৩ কিলোমিটার। তিনিও ওই বছরের ৬ আগস্ট বদলির আবেদন করেছিলেন। কিন্তু শিক্ষাদপ্তরের বিজ্ঞপ্তিকে শিখণ্ডি করে উভয়ের আবেদনই বাতিল করে দেওয়া হয়েছিল।
ওই শিক্ষিকাদের আইনজীবী কমলেশ ভট্টাচার্য আদালতকে জানান, কোনও সিঙ্গল টিচার বদলির আবেদন করলে সেই পরিস্থিতি কীভাবে সামাল দেওয়া হবে, তার ব্যাখ্যা শিক্ষাদপ্তর ও স্কুল সার্ভিস কমিশনের আগের বিজ্ঞপ্তিতেই বলা আছে। কিন্তু, জেলা স্কুল পরিদর্শকরা সেইসব নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে গোটা বিষয়টিকে অন্যদিকে চালিত করেছেন। তাঁর কথায়, কোনও সিঙ্গল টিচার বদলি চাইলে স্কুল কর্তৃপক্ষের উচিত অবিলম্বে তা কমিশনকে জানানো। যাতে কমিশন সংশ্লিষ্ট স্কুলে সেই বিষয়ের কোনও শিক্ষককে পাঠানোর ব্যবস্থা করে। এই ধরনের কোনও বদলির আবেদন এলে জেলা স্কুল পরিদর্শকের উচিত কাছাকাছি কোনও স্কুলের একই বিষয়ের ইচ্ছুক কোনও শিক্ষককে খুঁজে বের করে সেখানে বাড়তি দায়িত্ব দেওয়া। যাতে সেই শিক্ষক সাময়িকভাবে নিজের স্কুলের পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট স্কুলে গিয়েও ক্লাস করাতে পারেন। কিন্তু, এর কোনওটাই করা হচ্ছে না। উল্টে, বদলির আবেদন করা শিক্ষক বা শিক্ষিকাদের বলা হচ্ছে, আপনাদেরই কোনও ইচ্ছুক শিক্ষককে খুঁজে বের করতে হবে। যিনি সাময়িকভাবে আপনার সাবজেক্টের ক্লাস নেবেন। তবেই বদলির আবেদন বিবেচনা করা হবে। ওই আইনজীবীর দাবি, শিক্ষক বা শিক্ষিকাদের ঘাড়ে এভাবে দায় চাপানো যায় না। যা মেনে নিয়েই ওই শিক্ষিকাদের আবেদন বাতিলের নির্দেশ খারিজ করে দিয়েছে আদালত। সেইসঙ্গে এক সপ্তাহের মধ্যে আবেদনগুলি বিবেচনা করতে বলা হয়েছে।

22nd     January,   2022
 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ