বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

আহারে মগ্ন। বারাসত গভর্নমেন্ট কলেজে তোলা নিজস্ব চিত্র। 

কিষানদার গ্রেপ্তারির প্রতিবাদে রাজ্যে
২৬ জানুয়ারি হামলার আশঙ্কা, জারি সতর্কতা

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: পাঁচ দিন বাদে সাধারণতন্ত্র দিবস। ওই দিনেই হতে পারে মাওবাদী হামলা। এবার তাদের নিশানায় শাসক দলের জনপ্রতিনিধি, যাত্রীবাহী ট্রেন, মালগাড়ি, সংশোধনাগার এবং অন্যান্য সরকারি সম্পত্তি। এমনটাই আশঙ্কা এরাজ্যের গোয়েন্দাদের। তাদের দাবি, শীর্ষ নেতা কিষানদার গ্রেপ্তারির প্রতিবাদেই হামলা চালানোর পরিকল্পনা নিয়েছে মাওবাদীরা। রাজ্য গোয়েন্দা সংস্থার পক্ষ থেকে এই সংক্রান্ত একটি সতর্কতা জারি করা হয়েছে ঝাড়খণ্ড লাগোয়া এ রাজ্যের জঙ্গলমহল ও বিহার লাগোয়া অংশে। সতর্ক করা হয়েছে জঙ্গলমহলে মোতায়েন কেন্দ্রীয় বাহিনীকেও। 
ওই সতর্কবার্তায় বলা হয়েছে, প্রতি বছরের মতো এবারও মাওবাদীরা ২৬ জানুয়ারি, সাধারণতন্ত্র দিবসকে ‘কালা দিবস’ হিসেবে পালন করবে। প্রভাবিত এলাকায় মশাল মিছিল, লিফলেট বিলি এবং শহিদ বেদি তৈরির পরিকল্পনা নিয়েছে তারা। এরই পাশাপাশি সংগঠনের পলিটব্যুরো সদস্য  কিষানদার গ্রেপ্তারির প্রতিবাদে এবং কারাগারে তাঁর সুচিকিৎসার দাবিতে ২৭ জানুয়ারি বিহার-ঝাড়খণ্ড বন্‌ধের ডাকও দেওয়া হয়েছে তাদের তরফে। এই দুই প্রেক্ষিতকে সামনে রেখে সাধারণতন্ত্র দিবস এবং তার পরদিনের জন্য বিশেষ সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে। গোয়েন্দা সূত্রে আরও খবর, একদা কেএলও প্রভাবিত উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন অংশ এবং দক্ষিণবঙ্গে জেএমবির তৎপরতা রয়েছে, এমন এলাকাগুলিতেও থাকছে বাড়তি নিরাপত্তা ও নজরদারির বন্দোবস্ত। সাধারণতন্ত্র দিবসের আগে নাশকতার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে না।
২০১১ সালের শেষ দিকে ঝাড়গ্রামের বুড়িশোলের জঙ্গলে কিষেনজির এনকাউন্টারের পর থেকে কাগজেকলমে এ রাজ্যে মাওবাদীরা ছন্নছাড়া। মতাদর্শগত বিবাদের জেরে বাংলায় মাওবাদীরা এখন একাধিক ছোট ছোট দলে বিভক্ত। গত বছর নভেম্বর মাসে ঝাড়খণ্ডের সরাইকেল্লা থেকে পলিটব্যুরো সদস্য তথা পূর্বাঞ্চলের মাথা কিষানদা গ্রেপ্তারের পর পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়েছে। ফলে এই প্রতিকূল পরিস্থিতিতে হামলা চালানোর মতো শক্তি মাওবাদীদের নেই বললেই চলে। তবুও নিজেদের অস্তিত্ব জাহির করতে তারা চোরাগোপ্তা হামলা ও নাশকতার পথে যেতে পারে বলে শঙ্কা গোয়েন্দাদের। তাই এই সতর্কবার্তা। 
গোয়েন্দাদের আশঙ্কা আরও বেড়েছে একটি কারণে। গড়চিরৌলি থেকে ঝাড়খণ্ড, সাম্প্রতিক সময়ে একের পর এক বিপর্যয় সত্ত্বেও, বড়সড় প্রত্যাঘাত করেনি মাওবাদীরা। বরং চোরাগোপ্তা হামলা ও নাশকতা চালিয়ে ব্যতিব্যস্ত করে রেখেছে প্রশাসনকে। তাদের সেই রণকৌশল ভাবাচ্ছে এ রাজ্যের গোয়েন্দাদেরও। তাই এই সতর্কবার্তায় রেল পুলিসকে বাড়তি নজরদারি চালাতে বলা হয়েছে। কারণ, যাত্রীবাহী ট্রেন, মালগাড়ি, রেল লাইনে হামলা হওয়ার আশঙ্কা যথেষ্ট।  বিশেষ করে জঙ্গলমহলের ঝাড়গ্রাম-গিধনি, খড়্গপুর-আদ্রা, পুরুলিয়া বিরামডিহি, পুরুলিয়া-মুড়ি, ঝালদা-বোকারো এবং সিউড়ি-অণ্ডালের মতো রুট অত্যন্ত স্পর্শকাতর। পাশাপাশি নতুন বছরের গোড়ায় প্রতিবেশী রাজ্য ঝাড়খণ্ডে বিজেপি বিধায়কের উপর মাওবাদী হামলা, তাঁর নিরাপত্তারক্ষীদের খুন ও অস্ত্র ছিনতাইয়ের ঘটনাতেও উদ্বিগ্ন গোয়েন্দারা। বিষয়টিকে সামনে রেখে এই সতর্কবার্তায় রাজ্যের শাসক দলের জনপ্রতিনিধিদের নিরাপত্তার জোর দেওয়া হয়েছে।

21st     January,   2022
 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ