বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

আহারে মগ্ন। বারাসত গভর্নমেন্ট কলেজে তোলা নিজস্ব চিত্র। 

দুর্ঘটনায় অসুস্থ বাবা, সংসার চালাতে ফুচকা
বিক্রি করছে বোলপুরের নবম শ্রেণির ছাত্রী

সংবাদদাতা, বোলপুর: দুর্ঘটনায় হাত ভেঙেছে বাবার। অথচ বাবার আয়েই তো সংসার চলে। তাই ফুচকা বিক্রি করে সংসারের হাল ধরছে বোলপুরের বাঁধগোড়া এলাকার সবুজপল্লির নবম শ্রেণির ছাত্রী কবিতা কুমারী। ফুচকা বিক্রির পাশাপাশি পড়াশোনাও চলছে সমানতালে। অর্থ উপার্জনে বাবাকে সাহায্য করায় এলাকাবাসীর কাছে প্রশংসা কুড়িয়েছে কবিতা।
বর্তমানে সমাজের সবরকম পেশাতেই নারীরা হাত লাগিয়েছেন। তেমনই ফুচকা বিক্রিতে নেমেছে বোলপুর বিবেকানন্দ বিদ্যাপীঠের নবম শ্রেণির ছাত্রী কবিতা। তার বাবা কপিলদেব শাহ বোলপুরের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের বাঁধগোড়া সবুজপল্লির বাসিন্দা হলেও ২০বছর ধরে বিশ্বভারতীর ক্যাম্পাসের ফার্স্ট গেটে ফুচকা বিক্রি করছেন। এই ফুচকা বিক্রি করেই দীর্ঘদিন ধরে সংসার চালিয়ে আসছেন তিনি। পাঁচজনের সংসারে বিপর্যয় নামে গতবছর লকডাউন পর্বে। করোনা মহামারীর কারণে অন্যান্য ছোট ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি হাল খারাপ ছিল কপিলদেবেরও। এরপর গত বছর নভেম্বর মাস থেকে করোনা সংক্রমণ নিম্নমুখী হতেই ফের ফুচকা বিক্রি শুরু করেন কপিলদেব। কিন্তু কিছুদিন ব্যবসা করার পরেই বোলপুর-শান্তিনিকেতন রাস্তায় পথদুর্ঘটনায় তাঁর হাত ভেঙে যায়। হাত জোড়া লাগাতে প্লেট পর্যন্ত বসাতে হয়। এসবে ৫০ হাজার টাকারও বেশি খরচ হয়। ধার করে সেই টাকা জোগাড় করেন কপিল। কিন্তু এরপর তার হাত থেকে প্লাস্টার খোলা হলেও আগের মতো সচল না হওয়ায় ফুচকা বিক্রি করতে হিমশিম খেতে হয় তাঁকে। ফলে একপ্রকার কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে পড়ে গোটা পরিবার। এসব দেখে বাবাকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসে ওই ছাত্রী। ছোট থেকেই কবিতা বাবাকে ফুচকা তৈরি ও বিক্রি করতে দেখছে। তাই ছোটবেলা থেকে ফুচকা তৈরিতে হাত লাগালেও মেয়ে যে ফুচকা বিক্রি করবে তা একেবারেই পছন্দ ছিল না কপিলের। কিন্তু পরিস্থিতির ফেরে একপ্রকার বাধ্য হয়েই মেয়ের ফুচকা বিক্রির বিষয়টি মেনে নেন তিনি। প্রথম প্রথম অসুবিধা হলেও দেড় মাস ধরে ফুচকা বিক্রি করার ফলে এখন রীতিমতো হাত পাকিয়েছে কবিতা। কবিতার ‘পাকা হাত’ দেখে অবাক হচ্ছেন ফুচকা খেতে আসা অনেকে। তবে এতকিছুর মাঝে পড়াশোনা বন্ধ হয়নি কবিতার। সে বলে, করোনা সংক্রমণের জেরে স্কুলের স্বাভাবিক পঠনপাঠন বন্ধ হওয়ায় অনলাইনে নিয়ম করে চলছে পড়াশোনা। ফাঁকি নেই টিউশনিতেও। সামনের বছর মাধ্যমিক পরীক্ষা। তাই এখন থেকেই ফুচকা তৈরি ও বিক্রির ফাঁকেই পরীক্ষার প্রস্তুতি চলছে। বোলপুর বিবেকানন্দ বিদ্যাপীঠের প্রধান শিক্ষিকা শুভ্রা ঘোষ বলেন, আমাদের স্কুলে মূলত পিছিয়ে পড়া পরিবারের পড়ুয়ারা পড়াশোনা করে। কবিতা যেভাবে বাবাকে সাহায্য করছে তা একটা উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। ওর পড়াশোনার জন্য আমরা সর্বতোভাবে সাহায্য করতে তৈরি। কবিতার মতো মেয়েরা সমাজকে পথ দেখাক। 

18th     January,   2022
 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ