বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

নবম থেকে দ্বাদশ, স্কুল খুলছে ১৬ই

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা ও নয়াদিল্লি: ছাত্রছাত্রী, অভিভাবক এবং শিক্ষকদের একটা বড় অংশের প্রতীক্ষার অবসান। ১৬ নভেম্বর থেকে খুলতে চলেছে স্কুল এবং কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়। সোমবার শিলিগুড়ির উত্তরকন্যায় প্রশাসনিক বৈঠকে স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষণার পরে শিক্ষাঙ্গন খোলা সংক্রান্ত বহু জল্পনারও অবসান ঘটেছে। তবে প্রাথমিক বা উচ্চ প্রাথমিক নয়, এই দফায় মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক (নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি) স্তর পর্যন্তই স্কুল খুলছে। প্রথমে ১৫ নভেম্বর থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তবে, সেদিন আদিবাসী বিপ্লবী বিরসা মুন্ডার জন্মদিন থাকায় তারিখ বদলে ১৬ নভেম্বর করা হয়েছে। শিক্ষাবিদরা এই ঘোষণার ভূয়সী প্রশংসা করেছেন।
স্কুল খোলার জন্য যে যে ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন, তা যাতে স্কুল-কলেজগুলি নিতে শুরু করে, সে বিষয়টি প্রশাসনকে দেখার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। ইতিমধ্যেই বিকাশ ভবন থেকে স্কুলগুলি পরিষ্কার এবং স্যানিটাইজ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অনেক অভিভাবক স্কুল খোলার ঘোষণায় উৎসাহী হলেও দূরত্ববিধি এবং পরিচ্ছন্নতাবিধি কতটা মানা হবে, সে ব্যাপারে কিছুটা দোলাচলে রয়েছেন। কারণ, স্কুল পড়ুয়াদের টিকাকরণ শুরু হয়নি। সেই প্রক্রিয়া শেষমেশ শুরু হলেও ছেলেমেয়েকে এখনই করোনা টিকা দেওয়ার ব্যাপারে অভিভাবকরা কতটা উৎসাহী হবেন, সেটাও দেখার বিষয়। শিক্ষাদপ্তর অবশ্য এ বিষয়ে ছাড় দিতে রাজি নয়। প্রয়োজনে স্কুল ভবনে রোজ স্যানিটাইজেশন করানোর নির্দেশ দেওয়া হবে। এর জন্য পুরসভা, পঞ্চায়েত বা অন্যান্য নাগরিক পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থাগুলিরও সাহায্য নেওয়া হতে পারে। সর্বোপরি, স্কুল, কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিদিন সর্বাধিক কত পড়ুয়া ক্লাস করতে পারবেন, সেই সংখ্যাও বেঁধে দেবে শিক্ষাদপ্তর। এই সংক্রান্ত সুরক্ষাবিধি নিশ্চিত করতে আজ, মঙ্গলবার সব রাজ্যের ডিএম এবং পুলিসকর্তাদের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠক করবেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী।
এদিন থেকেই বিভিন্ন স্কুলে স্যানিটাইজেশন শুরু হয়েছে। বিশেষ করে, বেসরকারি বহু স্কুলই মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণার পর পরেই এক দফা স্যানিটাইজেশন সেরে রেখেছে। আর সব স্কুলকেই ১৬ নভেম্বরের আগে অন্তত এক দফা সার্বিক স্যানিটাইজেশন প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে যেতে হবে। পাশাপাশি, এদিনের ঘোষণার পর স্কুলগুলির ক্ষতিগ্রস্ত পরিকাঠামো মেরামতির বিষয়টিও যুদ্ধকালীন তৎপরতায় শুরু করা অপরিহার্য হয়ে উঠল। স্কুলগুলির আশা, এর জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ তারা দু’-একদিনের মধ্যেই হাতে পেয়ে যাবে। সরকারি ছুটি থাকায় অর্থদপ্তরের বরাদ্দকৃত অর্থ স্কুলগুলি এতদিন হাতে পায়নি।
সব শিক্ষক সংগঠন মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণাকে স্বাগত জানালেও অধিকাংশই একটি বিষয়ে একমত—প্রাথমিক এবং উচ্চ প্রাথমিক স্কুলও দ্রুত খুলে দিতে হবে। কারণ সরকারি বা সরকার পোষিত স্কুলগুলির ক্ষেত্রে নিচু ক্লাসে অনলাইন পড়াশোনা প্রায় হচ্ছেই না। হলেও আরও বেড়ে যাচ্ছে ‘ডিজিটাল ডিভাইড’। অর্থাৎ যাদের স্মার্ট ফোন বা ইন্টারনেটের সুবিধা রয়েছে, তারা ক্লাস করে এগিয়ে যাচ্ছে। যাদের তা নেই, তারা পিছিয়ে পড়ছে। এছাড়াও, দীর্ঘদিন বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় স্কুলছুট, শিশুশ্রম, বাল্য বিবাহের প্রবণতাও আগের তুলনায় অনেকটাই বাড়ছে।
নভেম্বরে পুরোদমে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় খোলার ভাবনা নিয়ে এগচ্ছে কেন্দ্রও। এই ব্যাপারে শিক্ষামন্ত্রকে আলোচনাও শুরু হয়েছে। তারই অংশ হিসেবে বিশ্বভারতী সহ কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলিকে মন্ত্রকের পক্ষ থেকে প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে। কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় খোলার ক্ষেত্রে প্রধান চিন্তার বিষয় অবশ্যই কোভিড ভ্যাকসিন। তাই ৪৩টি কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছেই মন্ত্রক দু’টি বিষয় জানতে চেয়েছে—সব অধ্যাপক, শিক্ষাকর্মী এবং ছাত্রছাত্রীর ভ্যাকসিন নেওয়া হয়েছে কি না এবং তা না হয়ে থাকলে কতদিনে ১০০ শতাংশ টিকাকরণ হবে? মন্ত্রক সূত্রে খবর, কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়কে যত দ্রুত সম্ভব এ ব্যাপারে রিপোর্ট তৈরি করে দিল্লিতে পাঠাতে বলা হয়েছে। আর সেই রিপোর্ট আসার পরই পুরোদমে কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় খোলার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।  

26th     October,   2021
 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021