বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

দুর্যোগ কাটলেও দুর্ভোগ কমেনি পর্যটকদের
সিকিম, কালিম্পংয়ে আটকে বহু মানুষ, রেললাইনে ধসের জেরে এখনও বন্ধ টয় ট্রেন

নিজস্ব প্রতিনিধি ও সংবাদদাতা, জলপাইগুড়ি, শিলিগুড়ি: দুর্যোগের দাপট কমলেও এখনও কাটেনি পর্যটকদের দুর্ভোগ। বৃহস্পতিবারও সিকিম, কালিম্পংয়ে বহু পর্যটক আটকে রয়েছেন। কেউ ধসের কারণে রাস্তা বন্ধ থাকায়, আবার কেউ বা তীব্র যানজটে ভোগান্তির শিকার। কলকাতা, দমদম, বর্ধমান থেকে ১৬ জনের একটি দল কালিম্পংয়ের সিলারিগাঁও থেকে ফিরছিল। মঙ্গল ও বুধবার পরপর দু’দিন প্রবল বষর্ণের জেরে বহু জায়গায় ধস নেমে বিধ্বস্ত হয়ে পড়ে জাতীয় সড়ক। বুধবার পথে আটকে পড়েন তাঁরা। কালিম্পংয়ের পাবংয়ে পরিবারের শিশুদের নিয়ে বেড়াতে এসেছেন জলপাইগুড়ি জেলা তৃণমূলের সভানেত্রী মহুয়া গোপ। বলছিলেন, টানা বৃষ্টি, ধসের জেরে কালিম্পংয়ে দু’দিন আটকে ছিলাম। বৃহস্পতিবার লাটাগুড়ির বাড়িতে ফিরে নিজের ভয়াবহ অভিজ্ঞতার কথা জানাতে গিয়ে বলেন, আমার পরিবারের শিশুদের নিয়ে পাবংয়ে গিয়েছিলাম। যেভাবে বৃষ্টি শুরু হল, তা ভয়াবহ। রীতিমতো চিন্তায় পড়ে গিয়েছিলাম। লাটাগুড়ির বাসিন্দা মিতুল পাল, কেশব গঙ্গোপাধ্যায়ের পরিবারও কালিম্পংয়ে ঘুরতে গিয়ে একই দুর্ভোগের সম্মুখীন হয়। এদিকে ধস সরিয়ে রাস্তা খুলতেই পাহাড়ে আটকে পড়া পর্যটকরা বৃহস্পতিবার সকাল থেকে শিলিগুড়িতে নেমে আসতে শুরু করেন। শিলিগুড়িতে পৌঁছে সকলেই যেন স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেন। ঘণ্টার পর ঘণ্টা পাহাড়ি রাস্তায় দুর্যোগের মধ্যে রাত কাটানোর অভিজ্ঞতার কথা বলতে গিয়ে অনেকেই আঁতকে ওঠেন। 
বর্ধমান থেকে ১৬ জনের যে দল ১৫ অক্টোবর পাহাড় ভ্রমণে এসেছিল, তাদের মধ্যে শিশু সহ ১০ জন মহিলাও রয়েছেন। মঙ্গলবার সিলারিগাঁও থেকে আলগাড়া দিয়ে ফেরার পথে তাঁরা আটকে পড়েন। বৃহস্পতিবার শিলিগুড়িতে ওই দলের সদস্য সুরজিৎ বসাক বলেন, সিলারিগাঁও থেকে ফেরার পথে বৃষ্টি নামে। তখনও ভাবিনি, এমন চরম দুর্ভোগ অপেক্ষা করছে। লাভা থেকে প্রায় ছ’কিমি দূরে গাড়ি আটকে যায়। প্রথমে ভেবেছিলাম, কিছুক্ষণের মধ্যেই রওনা হব। কিন্তু, সময় বাড়তেই দেখা যায়, পিছনে পর্যটকদের  গাড়ির লম্বা লাইন। ড্রাইভার এসে বলেন, সামনে একাধিক জায়গায় ধস নেমেছে। আর এগনো যাবে না। সামনে কোনও রাস্তা নেই। সারারাত পাহাড়ি রাস্তায় গাড়িতে বসে কাটাতে হয়েছে। সঙ্গে খাবার বলতে কিছু বিস্কুট, কেক আর জল। দীর্ঘ ১৩ ঘণ্টা কাটানোর পর পরের দিন সকাল সাড়ে ১০টা নাগাদ আমরা একটু একটু করে এগতে শুরু করি। লাভা ট্যাক্সি অ্যাসোসিয়েসনের সদস্যরা আমাদের সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন। খাবার, পানীয় জল দেওয়ার পাশাপাশি তাঁরা গাড়ি দিয়ে আমাদের লাভা বাজারে পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করেন। প্রশাসনও সাহায্য করে। বুধবারের রাত লাভাতেই কাটিয়ে বৃহস্পতিবার শিলিগুড়িতে ফিরেছি। 
এই পরিস্থিতিতে ধস সরিয়ে এখনও পাহাড়ি সব রাস্তায় যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়নি। দার্জিলিং ও কালিম্পং জেলার বিভিন্ন এলাকা এখনও ধসবিধ্বস্ত। এদিনও টয় ট্রেন চলতে পারেনি। উত্তরপূর্ব সীমান্ত রেলওয়ের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে,এখনও রেলের ট্রাকে ধসের মাটি, পাথর, গাছ পড়ে আছে। 
প্রশাসন সূত্রের খবর, দার্জিলিংয়ের মহকুমা শাসকের নিরাপত্তারক্ষী সুমন থাপা এখনও নিখোঁজ। তাঁর খোঁজে তল্লাশি চলছে। দার্জিলিংয়ের জেলাশাসক এস পন্নমবল্লম এদিন বলেন, বুধবার যে সমস্ত রাস্তা ধসের কারণে বন্ধ ছিল, তার বেশিরভাগই চালু করা হয়েছে। শিলিগুড়িতে জাতীয় সড়কে বালসন সেতুতে ফাটলের কারণে বুধবারের মতো এদিনও যানবহন চলাচল বন্ধ ছিল। এর জেরে শিলিগুড়ি শহরে যানবাহনের চাপ বেড়ে যায়। প্রবল যানজট দেখা দেয়।

22nd     October,   2021
 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021