বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

ক্যান্সার ছড়িয়ে পড়ার জন্য দায়ী
প্রোটিনের আবিষ্কার বঙ্গতনয়ার

সুমন তেওয়ারি, আসানসোল: সিগ্যাস বা সাইক্লিক জিএমপি এএমপি সিনথেজ হল মূল ডিএনএ সেন্সার, যা দেহে বহিরাগত ডিএনএ প্রবেশ করলেই প্রতিক্রিয়া দেয়। অ্যা঩ন্টিমাইক্রোবিয়াল এবং অ্যান্টি টিউমার রেসপন্স দিয়ে তা প্রতিহত করার প্রক্রিয়াও শুরু হয়ে যায়। কিন্তু বেশিরভাগ ক্যান্সার ভাইরাসের ডিএনএ দেহে প্রবেশ করার পরও তা কীভাবে গোপন থাকে? একটি বিশেষ ক্যান্সার ভা‌ইরাসের ডিএনএর উপর গবেষণা চালিয়ে তা বের করে ফেললেন বঙ্গতনয়া দেবীপ্রীতা ভৌমিক। কাপোসি সারকোমার ভাইরাসের উপর গবেষণা করে তিনি প্রমাণ পেয়েছেন, ভাইরাসে উপস্থিত ‘ওআরএফ ৫২’ প্রোটিনই সিগ্যাস থেকে ক্যান্সার ভাইরাসের ডিএনএকে লুকিয়ে রাখছে। ড্রপলেট তৈরি করে বহিরাগত ডিএনএকে লুকিয়ে রাখাই নয়, পরবর্তীকালে তা বাড়তেও সাহায্য করছে। ফলে ভাইরাসের ডিএনএ ছড়িয়ে গেলেও শরীরের ডিএনএ সেন্সার টের না পাওয়ায় নীরবে রোগের বিস্তার ঘটছে। 
এই গবেষণা থেকেই প্রথম উঠে এসেছে, ডিএনএ ভাইরাস হোস্টের দেহে প্রবেশের পরও তার প্রোটিন সেপারেশন পর্যন্ত হোস্টের ডিএনএ সেন্সার থেকে পুরোটা গোপন রাখতে সক্রিয়। আমেরিকার ফ্লোরিডা স্টেট ইউনিভার্সিটিতে গবেষণারত দেবীপ্রীতার এই গবেষণা সম্প্রতি প্রকাশ পেয়েছে লন্ডনের অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেসের বিখ্যাত নিউক্লিক অ্যাসিড রিসার্চ জার্নালে। এবার কীভাবে এই বিশেষ প্রোটিনের কার্যকারিতা হ্রাস করা যায় তা নিয়ে গবেষণা শুরু করেছেন। ওয়াকিবহাল মহলের মতে, তাঁর এই আবিষ্কার ক্যান্সার গবেষণা ও চিকিৎসায় নতুন দিশা দেখাবে। উত্তর এবং দক্ষিণবঙ্গ যোগ রয়েছে দেবীপ্রীতার সঙ্গে। উত্তরবঙ্গের জলপাইগু঩ড়ির মেয়ে হলেও বিয়ে হয়েছে বাঁকুড়া জেলার বড়জোড়ায়।
ভাইরাস থেকে মানবদেহ, জীবের গঠনতন্ত্রের মূলেই রয়েছে ডিএনএ, আরএনএ। সূক্ষ্ম ভাইরা঩সের আক্রমণের মূলেও তার ডিএনএ বা আরএনএ। কোনও বহিরাগত ডিএনএ মানবদেহে প্রবেশ করলে প্রতিক্রিয়া হয়। জানা যায়, মানবদেহে থাকা কিছু ডিএনএ সেন্সার কোষে সর্বক্ষণ বহিরাগত জেনেটিক মেটেরিয়ালের খোঁজ করছে। কোনও বাইরের ডিএনএ প্রবেশ করলেই তা জানিয়ে দেয়। কয়েক বছর আগেই প্রধান ডিএনএ সেন্সার সিগ্যাসের সন্ধান দিয়েছেন জিজ্যান চেন। টেক্সাস বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গবেষণা করে তিনি প্রমাণ করেন, সিগ্যাসই প্রধান সেন্সার যে রেসপন্স দেয়। কিন্তু তার পরও কীভাবে মানবদেহে ভাইরাসের উপস্থিতি গোপন থাকে তা নিয়েই গবেষণা শুরু হয় ফ্লোরিডা স্টেট ইউনিভার্সিটিতে। বঙ্গতনয়ার এই গবেষণার সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন জিজ্যান চেন সহ বিভিন্ন দেশের আরও সাত গবেষক। গবেষণার জন্য তাঁরা বেছে নিয়েছিলেন কাপোসি সারকোমা অ্যাসোসিয়েটেড হারপেস ভাইরাসকে। এই ডিএনএ টিউমার ভাইরাস কাপোসি সারকোমা, প্রাইমারি ইফিউসন লিম্ফোমা, মাল্টি সেন্ট্রিক ক্যাস্টলমেনস ডিজিজের মতো জটিল রোগের জন্য দায়ী। কাপোসি সারকোমা এই ক্যান্সার এইডস রোগীদের বেশি মাত্রায় দেখা যায়। এই ভাইরাসের বিশেষ প্রোটিন কীভাবে ড্রপলেট তৈরি করে নিজের ডিএনএকে গোপন করছে তা পরিষ্কার হয়েছে এই গবেষণা থেকেই। অন্য ক্যান্সার ভাইরা঩সের ক্ষেত্রেও এই ‘ওআরএফ ৫২’ প্রোটিনের হদিশ মিলেছে। যা ক্যান্সার চিকিৎসায় নতুন দিশা দেখাবে। এই ড্রপলেটের ‘মায়াজাল’ কীভাবে ভাঙা যায় তা নিয়ে পরবর্তী গবেষণা শুরু করেছেন ওই গবেষকরা। 
দেবীপ্রীতার বাবা সুরজিৎ ভৌমিক অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক। দেবীপ্রীতা জলপাইগুড়ি গভর্নর্মেন্ট গার্লস স্কুলের পড়া শেষ করে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রসায়নে বিএসসি ও এমএসসি উত্তীর্ণ হন। কলকাতার ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব কেমিক্যাল বায়োলজি থেকে পিএইচডি করেন। বেঙ্গালুরুর ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স থেকে দু’বছর পোস্ট ডক্টরেট করে তিনি পাড়ি দেন ফ্লোরিডা স্টেট ইউনিভার্সিটিতে। বাঁকুড়া জেলার বড়জোড়ার নিরূপম কর্মকারের সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়। তিনিও ফ্লোরিডা স্টেট ইউনিভার্সিটি থেকে পোস্ট ডক্টরেট করার পর বর্তমানে পুনের ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল মেটেরোলজিতে বিজ্ঞানী হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।  দেবীপ্রীতা ভৌমিক

17th     October,   2021
 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021