বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

কোভিডে মৃতের দেহ থেকে অঙ্গপাচার?
দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্তের নির্দেশ হাইকোর্টের 

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: মৃত্যুর কারণ করোনা সংক্রমণ। এমনটাই বলেছিল নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষ। কিন্তু তাহলে মৃতার শরীরে অস্বাভাবিক কিছু কাটাছেঁড়া ও ক্ষতচিহ্ন কেন? এই প্রশ্নই সন্দেহ জাগিয়েছিল কাকলি সরকারের পরিবারের মনে। মৃতদেহ সংরক্ষণের ব্যবস্থা করেন তাঁরা। আর তারপর ওই নার্সিংহোমের পরিচালন সংস্থার বিরুদ্ধে চিকিৎসায় গাফিলতি এবং মৃতার শরীর থেকে অঙ্গপ্রত্যঙ্গ লোপাটের অভিযোগ নিয়ে দ্বারস্থ হন কলকাতা হাইকোর্টের। তাঁদের সেই দাবিকে মান্যতা দিয়েই সোমবার বিচারপতি রাজাশেখর মান্থা সংরক্ষিত দেহটির দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্ত করার নির্দেশ দিলেন। নীলরতন সরকার হাসপাতালের তিন বিশেষজ্ঞ মহিলা ডাক্তার দেহের ময়নাতদন্ত করবেন। অঙ্গপ্রত্যঙ্গ পরীক্ষা করে দেখবেন। করা হবে ভিসেরা পরীক্ষাও। তিন সপ্তাহ পরে মামলার পরবর্তী শুনানি। 
গত ২২ এপ্রিল করোনা সংক্রামিত হয়ে বেলঘরিয়ার এক নার্সিংহোমে ভর্তি হন কাকলি সরকার। প্রথম দু’দিন রোগীর সঙ্গে পরিবারকে দেখাই করতে দেওয়া হয়নি। তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় আইসিইউতে। ২৪ এপ্রিল মাঝরাতে কাকলিদেবীর ফোন পেয়ে তাঁর ভাই সেখানে যান। তিনি ভাইকে জানান, এখানে করোনা রোগীদের নিয়ে অসাধু চক্র চলছে। রোগীদের দেহের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ নিয়ে ব্যবসা হচ্ছে। আমাকেও মেরে ফেলবে। ভাইয়ের অভিযোগ, একথা জানানোর পরই দিদিকে একটি ইঞ্জেকশন দেওয়া হয়। তারপর তিনি অচৈতন্য হয়ে পড়েন। পরদিন জানানো হয়, ভোর ছ’টায় তাঁর মৃত্যু হয়েছে। অথচ, তাদেরই দেওয়া রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে, ২৫ এপ্রিল সকাল আটটার সময়েও রোগীকে স্যালাইন দেওয়া হয়েছে। চলেছে চিকিৎসাও। অথচ গত বছরের ২৩ ডিসেম্বর সংস্থাটির নার্সিংহোম চালানোর লাইসেন্সের মেয়াদ শেষ হয়ে গিয়েছে বলে অভিযোগ। যার নবীকরণ হয়নি। তাও তারা রোগী ভর্তি নেয়। কাকলিদেবীর মৃত্যুর পর এই তথ্য সামনে আসে পরিবারের।
ময়নাতদন্তের রিপোর্টে অনুযায়ী, মৃতের মুখ থেকে গ্যাঁজলা উঠেছিল, যা করোনা রোগীর ক্ষেত্রে অস্বাভাবিক। শুধু তাই নয়, মৃতের ডান হাতের কব্জিতে ছিল একটি ফুটো। সেটাও স্বাভাবিক নয়। তাই মৃতদেহ সংরক্ষণের পর আদালতে যায় কাকলিদেবীর পরিবার। তাঁদের আইনজীবী জয়ন্ত নারায়ণ চট্টোপাধ্যায় আদালতকে জানান, বেলঘরিয়া থানা এ ব্যাপারে অভিযোগ নিতে অস্বীকার করেছিল। ফৌজদারি আইন অনুযায়ী করা আবেদনের জেরে ও নিম্ন আদালতের নির্দেশের চাপে ওই থানা পরে অভিযোগ নেয়। কিন্তু অজ্ঞাত কারণে খুনের অভিযোগের পরিবর্তে পুলিস অনিচ্ছাকৃত খুনের অভিযোগ নথিবদ্ধ করেছে। পরে এই মৃত্যুর পরিপ্রেক্ষিতে ক্লিনিক্যাল এস্টাব্লিশমেন্ট আইন অনুযায়ী বিচার চাওয়া হয়। তখন বিচারপতি অসীম বন্দ্যোপাধ্যায় নার্সিংহোমটিকে দু’লক্ষ টাকা জরিমানা করেছিলেন। জারি হয়েছিল রোগী ভর্তিতে নিষেধাজ্ঞাও।  

14th     September,   2021
 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021