বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

গুরুত্বপূর্ণ সড়কের ধাঁচেই রেলপথের
এবার দুর্ঘটনাপ্রবণ ‘ব্ল্যাক স্পট’ চিহ্নিত
শিয়ালদহ- হাওড়া জিআরপি ডিস্ট্রিক্ট

শুভ্র চট্টোপাধ্যায়, কলকাতা: গুরুত্বপূর্ণ জাতীয় ও রাজ্য সড়কের ধাঁচেই এবার জিআরপি এলাকাতেও ‘ব্ল্যাক স্পট’ নির্ধারণ করল রেল পুলিস। দুর্ঘটনার নিরিখে তিনটি স্পটে ভাগ করা হয়েছে বিভিন্ন স্টেশন এলাকা। কী কারণে এই সমস্ত জায়গায় দুর্ঘটনার সংখ্যা বেশি, তা নিয়ে অভ্যন্তরীণ সমীক্ষা করা হয়েছে। তার ভিত্তিতে দুর্ঘটনাপ্রবণ এলাকায় বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থা সহ অ্যালার্ম সিস্টেম বসাতে চায় রেল পুলিস। পাশাপাশি দুর্ঘটনা আটকাতে রেল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলছেন জিআরপি কর্তারা।
রাজ্যের মধ্যে দিয়ে যাওয়া রেল লাইনের সুরক্ষার দায়িত্ব আরপিএফের পাশাপাশি জিআরপির’ও রয়েছে। রেল লাইনে দুর্ঘটনা, আত্মহত্যা বা অস্বাভাবিক মৃত্যুর কারণে অনেক ক্ষেত্রেই বিঘ্ন ঘটছে ট্রেন চলাচলে। নিয়ম না মেনে ঝুঁকি নিয়ে রেল লাইন পারাপার করছেন নিত্যযাত্রী বা লাইনের ধারে বসবাসকারী বাসিন্দারা। এভাবে রেল লাইন পারাপার করার ফলে চলন্ত ট্রেনে কাটা পড়ছেন যাত্রী বা সংশ্লিষ্ট এলাকার কোনও বাসিন্দারা। রেল পুলিসের হিসেব বলছে, গত পাঁচ বছরে শিয়ালদহ, হাওড়া রেল পুলিস জেলা সহ মোট চারটি রেল পুলিস ডিস্ট্রিক্টে মৃত্যু হয়েছে ১৫৭৩৩ জনের। যার মধ্যে শিয়ালদহ রেল পুলিস ডিস্ট্রিক্টে দুর্ঘটনার সংখ্যা একটু বেশি। গড়ে প্রতিটি রেল পুলিস ডিস্ট্রিক্টে বছরে ১০০০ থেকে ১২০০ মানুষের মৃত্যু হচ্ছে।
কেন এত মানুষের মৃত্যু হচ্ছে প্রতি বছর রেল লাইনে তাই নিয়ে অভ্যন্তরীণ সমীক্ষা চালায় রেল পুলিস। দেখা যায়, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সাধারণ মানুষের অসাবধানতা বা অসতর্কতা এর একটা বড় কারণ। এর সঙ্গে  বিভিন্ন জায়গায় রেল লাইনে তীক্ষ্ণ বাঁক রয়েছে। যার ফলে দূর থেকে ট্রেনের আসা যাওয়া বোঝা যায়না। রেল স্টেশন লাগোয়া ঝুপড়ির বাসিন্দারা লাইনের উপরে বসে আড্ডা দিচ্ছেন বা তাস খেলছেন। যার থেকেও দুর্ঘটনা ঘটছে।
সেই কারণেই কোন কোন এলাকায় রেল লাইনে দুর্ঘটনার সংখ্যা বেশি, তা চিহ্নিতকরণের কাজ শুরু হয় শিয়ালদহ ও হাওড়া পুলিস ডিস্ট্রিক্টে। দুর্ঘটনার সংখ্যায় একটু হলেও এগিয়ে রয়েছে শিয়ালহ রেল পুলিস ডিস্ট্রিক্ট। খোদ হাওড়ার রেলওয়ে কারশেড এলাকা দুর্ঘটনার সংখ্যা যথেষ্ট বেশি। অভ্যন্তরীণ সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, হাওড়ার বেলুড় থেকে বালি, রিষড়া থেকে কোন্নগর, ব্যান্ডেল, বেগমপুর থেকে বাগুইপাড়া, দাঁইহাট থেকে কালনা,বর্ধমান কারশেড এবং সালানপুর রেড স্পট বা জোনের মধ্যে রয়েছে। শিয়ালদহ রেল পুলিস ডিস্ট্রিক্ট এলাকায় পার্ক সার্কাস, বালিগঞ্জ, ঢাকুরিয়া, যাদবপুর সোনারপুর, বারাকপুর, নৈহাটি, রানাঘাট থেকে কৃষ্ণনগর, মুর্শিদাবাদের বেলডাঙার মতো এলাকা রেড জোনের মধ্যে পড়ছে। রেড জোনের বাইরে অরেঞ্জ ও গ্রিন জোন রয়েছে। যেখানে দুর্ঘটনার সংখ্যা তুলনামূলকভাবে কম। তবে রেল পুলিসের চিন্তা এই রেড জোন নিয়েই। রোড জোনগুলিতে তাই বাড়তি পুলিস রাখার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হয়েছে। সেই সঙ্গে তীক্ষ্ণ বাঁক যে সমস্ত এলাকায় রয়েছে, সেখানে বাড়তি সাইনেজ লাগানোর জন্য রেলের সঙ্গে কথা বলছেন জিআরপির কর্তারা। এই এলাকায় অ্যালার্ম লাগানোর জন্য পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে যে সমস্ত এলাকায় রেলওয়ে ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ছোটখাট বদল আনা দরকার সেগুলি চিহ্নিত করে রেলের আধিকারিকদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা চলছে। পাশাপাশি জিআরপির তরফে মাইক নিয়ে প্রচার চলছে। যাতে কেউ রেল লাইনে বা ধারে বসে না থাকেন। রেল পুলিসের কর্তাদের লক্ষ্য, দুর্ঘটনার সংখ্যা অন্তত কুড়ি শতাংশ কমিয়ে আনা।

14th     September,   2021
 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021