বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

মাধ্যমিকে প্রথম ৭৯ জন
সেরা দশে ১৩২৮

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: করোনায় ক্লাস না করতে পেরে মুষড়ে পড়া পড়ুয়াদের ক্ষতে কিছুটা প্রলেপ পড়ল মাধ্যমিকের ফলে। এই প্রথম মাধ্যমিকে ১০০ শতাংশ পরীক্ষার্থীই পাশ করেছে। ৭০০-র মধ্যে ৬৯৭ নম্বর পেয়ে প্রথম স্থানে রয়েছে ৭৯ জন। শুধু তাই নয়, প্রথম থেকে দশম স্থানাধিকারীর মিলিত সংখ্যা ১৩২৮। মঙ্গলবার সকাল ন’টায় সাংবাদিক বৈঠক করে ফল ঘোষণা করেছেন মধ্যশিক্ষা পর্ষদের সভাপতি কল্যাণময় গঙ্গোপাধ্যায়। তিনি এও জানান, এই ফলে কেউ অসন্তুষ্ট হলে তারা পরবর্তীতে পরীক্ষায় বসতে পারে। তখন এই ফল বাতিল হয়ে সেই পরীক্ষার রেজাল্টই চূড়ান্ত বলে গণ্য করা হবে। 
পরীক্ষা না হওয়ায় এবারের ফল ঘোষণা করা হয়েছে নবম শ্রেণির তিনটি পরীক্ষার গড় নম্বরের অর্ধেকের সঙ্গে মাধ্যমিকের অভ্যন্তরীণ মূল্যায়নের প্রাপ্ত নম্বরের পাঁচগুণ যোগ করে। অর্থাৎ, নবম শ্রেণির লিখিত পরীক্ষার নম্বর এবং মাধ্যমিকের অভ্যন্তরীণ মূল্যায়নের নম্বরকে ৫০:৫০ অনুপাতে গুরুত্ব (ওয়েটেজ) দেওয়া হয়েছে। এর ফলে আগে থেকেই জানা ছিল, ফেল কেউ করবে না। শুধু তাই নয়, অভ্যন্তরীণ মূল্যায়নে ১০-এ ১০ পেলে (যা অধিকাংশ স্কুলই দিয়ে থাকে) ন্যূনতম নম্বর ওঠার কথা ৬৩ শতাংশ। পাশমার্ক ২৫ নম্বরে হওয়ায় তা পেতেই হতো নবমের পড়ুয়াকে। তার অর্ধেক হয় ১২.৫ বা ১৩। আর অভ্যন্তরীণ মূল্যায়নের নম্বর ১০×৫=৫০। যোগফল ৬৩। পর্ষদ সূত্রের খবর, এর ফলে ১০ লক্ষ ৭৯ হাজার ৭৪৯ জন পরীক্ষার্থীর ৯০ শতাংশই প্রথম শ্রেণিতে পাশ করেছে। ৯০ থেকে ১০০ শতাংশ পেয়েছে ৪২ হাজার ৮৫৫ জন। যদিও, মেধা তালিকায় থাকা পরীক্ষার্থীর সংখ্যা থেকে শুরু করে এই সংক্রান্ত কোনও তথ্যই পর্ষদ সভাপতি সরকারিভাবে ঘোষণা করেননি।
এ বছর মোট পরীক্ষার্থীর মধ্যে ছাত্রীদের সংখ্যা ৬ লক্ষ ১৩ হাজার ৮৪৯ জন। আর ছাত্রদের সংখ্যা ৪ লক্ষ ৬৫ হাজার ৮৫০ জন। করোনা আবহে মূলধারার পড়াশোনায় ছাত্রদেরও ছাপিয়ে গিয়েছে ছাত্রীরা। এই ঘটনাকে ইতিবাচক ইঙ্গিত হিসেবেই দেখছেন শিক্ষকরা। নিয়মিত উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীর নিরিখেও ছাত্র এবং ছাত্রীর অনুপাত ৪৪:৫৬। এবার পঠন-পাঠনের মূলধারা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়া সিসি পরীক্ষার্থীরাও সকলেই পাশ করে গিয়েছে। পশ্চিমবঙ্গ শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক নবকুমার কর্মকার বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতিতে পর্ষদ যে সঠিক সময়ে ফল প্রকাশ করতে পেরেছে, এর জন্য তাদের ধন্যবাদ জানাই।’ একই সুরে পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূল মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির রাজ্য সভাপতি দিব্যেন্দু মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘এই প্রতিকূল পরিস্থিতিতে সবাই মাধ্যমিকে পাশ করেছে। তাদের শুভেচ্ছা জানাই। পরীক্ষা হওয়া না হওয়া ছাত্রছাত্রীদের হাতে ছিল না। মনে রাখতে হবে, নবম শ্রেণিতে তাদের খেটেই নম্বর তুলতে হয়েছে। মাধ্যমিকের অভ্যন্তরীণ মূল্যায়নের গণ্ডিও তাদের পেরতে হয়েছে।’ 
পর্ষদের এক কর্তা আরও মারাত্মক তথ্য দিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘বহু স্কুল থেকে পরীক্ষার্থীদের যা নম্বর এসেছিল, গাণিতিক হিসেবে তা ৭০০-এ ৭০০ দাঁড়ায়। এরকম পরীক্ষার্থীর সংখ্যাও হয়েছিল প্রায় ৭০০ জন। পর্ষদের সন্দেহ হওয়ায় সেই স্কুলের প্রধান শিক্ষক বা প্রতিনিধিদের ডেকে পাঠানো হয়। নিয়ে আসতে বলা হয় মার্কস ফয়েলও। তখন দেখা যায়, লিখিত পরীক্ষায় আদতে তারা সেই নম্বর পায়নি। তখন প্রকৃত নম্বর পাঠাতে বলা হয়। এরপরই দেখা যায়, ৭০০ নম্বর কেউ পায়নি।’ ফলে পর্ষদের দাবি, প্রাপ্ত নম্বর বহুলাংশেই পুরোপুরি সঠিক। কিছু ক্ষেত্রে এদিক-ওদিক হয়ে থাকতে পারে। তার পরিমাণ খুবই কম। তবে, সচিব পদে সুব্রত ঘোষ নিয়োগ হয়ে যাওয়া সত্ত্বেও মার্কশিটে পর্ষদ সভাপতির স্বাক্ষর থাকায় তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে। রীতি অনুযায়ী সেখানে সচিবের স্বাক্ষর থাকার কথা। সচিব পদটি দীর্ঘদিন খালি থাকায় তাতে মার্কশিটে সভাপতির সই যেত।
মাধ্যমিক পাশের খুশিতে বোলপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ছাত্রীদের সেলফি। ছবি: ইন্দ্রজিৎ রায়

21st     July,   2021
 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021