বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

 

আকাশে আজ রঙের খেলা…। বৃহস্পতিবার আন্দুলে তোলা দীপ্যমান সরকারের ছবি
 ​​​​​​​

বাংলা থেকে কেন্দ্রীয় সংস্থার দপ্তর সরানো
নিয়ে ধর্মেন্দ্র প্রধানকে ফের চিঠি অমিতের

নিজস্ব প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি ও কলকাতা: দিল্লিতে ক্ষমতায় বসার পর থেকেই বাংলা থেকে একে একে কেন সরিয়ে নিচ্ছেন কেন্দ্রীয় সরকারি সংস্থাগুলি? প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে টার্গেট করে এই প্রশ্নে কেন্দ্রকে ফের কড়া চিঠি দিলেন রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র। স্টিল অথরিটি অব ইন্ডিয়া (সেইল)-র আরএমডি (র মেটিরিয়ালস ডিভিশন)-র কলকাতা দপ্তর বন্ধ করে দেওয়ার বিষয়টি নিয়ে দু’দিন আগেই সরব হয়েছেন তিনি। বাংলার দু’টি (বার্নপুর ও দুর্গাপুর) স্টিল প্ল্যান্টকে বিপদের মুখে ফেলে দেওয়ার অভিযোগ তুলে কেন্দ্রীয় ইস্পাতমন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধানকে চিঠি দিয়েছিলেন। সেই চিঠির জবাব পেলেও সেখানে সেইলের আরএমডি’র অংশটি কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এড়িয়ে গিয়েছেন। তাই ধর্মেন্দ্র প্রধানের চিঠি পাওয়ার পরও চুপ করে যেতে নারাজ অমিত মিত্র। শুক্রবার ফের পত্রাঘাত করেছেন। তবে এবার শুধু সেইল নয়, গত কয়েক বছরে কলকাতা তথা পশ্চিমবঙ্গ থেকে যেসব কেন্দ্রীয় প্রতিষ্ঠানের সদর দপ্তর সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে, তার তালিকাও অস্ত্র হিসেবে তুলে ধরেছেন রাজ্যের অর্থমন্ত্রী। 
কেন্দ্রীয় সরকারি প্রতিষ্ঠান রাজ্য থেকে অন্যত্র সরানোর ফলে সবচেয়ে বড় বিপদ হল—সাধারণ মানুষের চাকরি হারানো। ঠিক যেভাবে সেইলের আরএমডি-র অফিস সরিয়ে নেওয়ার কেন্দ্রীয় পরিকল্পনায় এক ঝটকায় ১৪ হাজারেরও বেশি কর্মীর ভবিষ্যৎ এখন প্রবল অনিশ্চয়তার মুখে। যদিও চিঠিতে ধর্মেন্দ্র প্রধান আশ্বাস দিয়েছেন, কর্মী ছাঁটাইয়ের কোনও পরিকল্পনা সেইলের নেই। দায়িত্ববান কোম্পানি তার কর্মীদের খেয়াল রাখবে। 
কিন্তু, প্রকৃত প্রশ্নের উত্তর কোথায়? ধর্মেন্দ্র প্রধানকে পাল্টা চিঠিতে সেকথা মনে করিয়ে অমিত মিত্র বলেছেন, অনুগ্রহ করে মানুষের মুখের দিকে তাকিয়ে সেইলের কলকাতার আরএমডি দপ্তর সরাবেন না। তাই এই বিষয়টি স্পষ্ট করুন। কর্মীদের চিন্তামুক্ত করুন। এরপরেই কেন্দ্রকে রীতিমতো তোপ দেগে অমিত মিত্র একের পর এক বাণ ছুঁড়েছেন। প্রশ্ন তুলেছেন, কেন্দ্রে ক্ষমতায় আসার পর থেকেই বাংলায় থাকা বিভিন্ন কেন্দ্রীয় সরকারি রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার অফিস কেন সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে?  উদাহরণ হিসেবে তিনি বলেছেন, ২০১৭ সালে হিন্দুস্তান স্টিল ওয়ার্কস কনস্ট্রাকশন লিমিটেডের কর্পোরেট অফিস দিল্লিতে সরানো হয়েছে। ইস্টার্ন কোলফিল্ডস, ভারত কুকিং কোল, সেন্ট্রাল কোলফিল্ডস, সাউথ ইস্টার্ন কোলফিল্ডস, মহানদী কোলফিল্ডসের মতো কোল ইন্ডিয়ার অনুসারি অফিসকে ২০২০ সালে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে ধানবাদ, বিলাসপুর, সম্বলপুরে। ২০১৮ সালে স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়ার সেন্ট্রাল অ্যাকাউন্টস হাব চলে গিয়েছে মুম্বইয়ে। ইউবিআইয়ের সদর দপ্তর কলকাতা থেকে দিল্লিতে সরানো হয়েছে ২০২০-তে। 
এখানেই শেষ নয়। আগামী দিনে ৬৭ বছর ধরে থাকা টি বোর্ডের কলকাতার সদর দপ্তর, দামোদর ভ্যালি কর্পোরেশন (ডিভিসি), ন্যাশনাল ইনস্যুরেন্স কোম্পানির সদর দপ্তর সরানোর পাশাপাশি শতবর্ষের অধিক পুরনো (১৯০৮ সালে প্রতিষ্ঠিত) ক্যালকাটা স্টক এক্সচেঞ্জ বন্ধ করে আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। তাই মোদি সরকারকে চাপে রাখতে রেখে ধর্মেন্দ্র প্রধানকে চিঠিতে অমিত মিত্রর সাফ সওয়াল, ‘স্পষ্ট করে বলুন, উপর্যুক্ত বিষয়গুলি কি সত্যি?’ সেইলের আরএমডি দপ্তর সরানোর বিরুদ্ধে গত সপ্তাহেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি লিখেছেন কংগ্রেস সাংসদ প্রদীপ ভট্টাচার্য। এদিন সেই ইস্যুতে কেন্দ্রীয় ইস্পাতমন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধানকেও চিঠি দিয়েছে একগুচ্ছ জল্পনার উত্তর চেয়েছেন তিনি। পাশাপাশি, ১০ কেন্দ্রীয় ট্রেড ইউনিয়নের পক্ষ থেকেও কেন্দ্রের এই পরিকল্পনার প্রত্যাহার দাবিতে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। - ফাইল চিত্র

19th     June,   2021
 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
কিংবদন্তী গৌতম
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021