বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

পরিচিত কাজের মানুষ না রাজনীতির
চলতি হাওয়া, কোন দিকে ঝুঁকবেন? 

নিজস্ব প্রতিনিধি, রানাঘাট দক্ষিণ: পরিচিত কাজের মুখ নাকি রাজ্য-রাজনীতির চলতি হাওয়া, কোন পথে হাঁটবেন রানাঘাট দক্ষিণ বিধানসভা কেন্দ্রের মানুষ? এই প্রশ্নটা নিয়েই জোরদার আলোচনা চলছিল পায়রাডাঙা স্টেশন সংলগ্ন বাজারে। মধ্যবয়সি চার ব্যক্তিরই জিজ্ঞাসু মন ভোটের ফল নিয়ে। কারণ এই কেন্দ্রে তৃণমূল-বিজেপির হাড্ডাহাড্ডি লড়াই। একদিকে, লকডাউনে এক নাগাড়ে মানুষের কাজ করে যাওয়া তৃণমূল প্রার্থী বর্ণালি দে। যিনি আবার নদীয়া জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষও বটে। অন্যদিকে, বিজেপির প্রার্থী তরুণ মুকুটমণি অধিকারী। ভোটযুদ্ধে যার সম্বল রাজ্যব্যাপী বিজেপির হাওয়া, আর নিচুতলার তৃণমূল কর্মীদের প্রতি মানুষের ক্ষোভ।
চায়ের দোকানে বসে থাকা মধ্যবয়সি চারজনকে এবারে কে জিতবে জিজ্ঞেস করায় অমল দে বললেন, এবারের লড়াইটা সব দলের কাছেই অনেক কঠিন। কে জিতবে, এটা বলা যাচ্ছে না। বিজেপির একটা হাওয়া রয়েছে ঠিকই। কিন্তু এটাও তো দেখতে হবে, লকডাউনের সময় পরিযায়ী শ্রমিকরা বাইরের রাজ্য থেকে যখন যেখানে আসছেন সেখানেই ছুটে গিয়েছেন বর্ণালি দেবী। সাধ্যমতো সাহায্য করেছেন। রানাঘাট দক্ষিণে শুধুমাত্র মফস্সল এলাকাগুলি নয়, প্রত্যন্ত গ্রামেও ছুটে গিয়েছেন ওই মহিলা। এটার একটা প্রভাব পড়বে তো বটেই। অমলবাবুকে থামিয়ে পাশের এক সমবয়সি ব্যক্তি বলে উঠলেন, মশাই তৃণমূলের স্থানীয় নেতৃত্বের প্রতি ক্ষোভ রয়েছে। এটাই তো মূল সমস্যা। তবে হ্যাঁ বর্ণালি দেবী নিজে কাজ করেছেন এটা সত্যি। সবচেয়ে বড় কথা মানুষের সাহায্যে সেই সময় নেমে দলের প্রতীক কিংবা ব্যানার ব্যবহার করেননি। অর্থাৎ বুঝতেই পারছেন অরাজনৈতিকভাবে তার কাজ। এটা বাড়তি সুবিধা বৈকি।
দ্বারিকানগরে কাছে বাসের জন্য দাঁড়িয়ে থাকা মনরঞ্জন দাসের গলায় ভিন্ন সুর। তিনি বলেন, তৃণমূল কিংবা বিজেপির থেকে আমার মনে হয় সংযুক্ত মোর্চাকে এবছর ভোট দেওয়াটা যুক্তিযুক্ত। ১০ বছর একটা রাজনৈতিক দল ক্ষমতায় রয়েছে। কিছুটা পরিবর্তনের দরকার। আর বিজেপি নিয়ে খবরের কাগজে যা পড়ি তাতে ওরকম একটা দল ক্ষমতায় না আসাই ভাল। তাই ভোট দেওয়ার ক্ষেত্রে এই দু’টি দলের থেকে সংযুক্ত মোর্চাকে বেছে নেওয়াটা বেশি ভালো হতে পারে। একই জায়গায় বাসের জন্য প্রতীক্ষারত আরও এক যাত্রী, অম্বিকা বিশ্বাস এগিয়ে রাখছেন তৃণমূলকেই। তাঁর বক্তব্য, সবুজসাথীর সাইকেল সবাই পেয়েছে। স্বাস্থ্যসাথীর কার্ডও আমার পাড়ার অধিকাংশ লোকের হাতে রয়েছে। পানীয় জল, রাস্তা, আলো সবকিছুতেই বাম আমলের থেকে বেশি উন্নতি হয়েছে। বর্ণালি প্রার্থী হিসেবেও যথেষ্ট গ্রহণযোগ্য। লকডাউনে উনি মানুষের জন্য যেভাবে কাজ করেছেন তাতে অন্য কাউকে ভোট দেওয়ার কারণ খুঁজে পাচ্ছি না। বিজেপি প্রার্থী তো আমার এই কেন্দ্রের বাসিন্দাই নন। উল্লেখ্য, ভোটযুদ্ধে কিছুটা হলেও অ্যাডভান্টেজ পাচ্ছেন তৃণমূল। লকডাউনে প্রতিদিন সাধারণ মানুষের জন্য তার কাজ মন জয় করেছে ঘটিগাছা, শিবপুর, ঘোড়ালিয়ার মতো একাধিক জায়গার মানুষের। যা নিয়ে আশাবাদী তৃণমূল প্রার্থী নিজেও।

16th     April,   2021

মুখ্যমন্ত্রীর ৪টি চিঠি নিয়ে মুখে কুলুপ
মমতাকে এড়িয়ে ডিএমদের সঙ্গে
কোভিড-বৈঠক ‘উদ্বিগ্ন’ মোদির

রাজ্যে রাজ্যে বাড়ছে সংক্রমণ এবং মৃত্যু। টিকা, অক্সিজেন, হাসপাতালে বেডের আকাল দেশজুড়ে। এই সঙ্কটকালে সার্বিক টিকাকরণ এবং অক্সিজেনের দাবিতে বারবার প্রধানমন্ত্রীর দ্বারস্থ হয়েছেন একাধিক অবিজেপি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীরা। এদিনও ১২ জন বিরোধী নেতা মিলিতভাবে চিঠি দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদিকে। যদিও পত্রাঘাত পর্বে অন্যতম অবশ্যই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী বিগত কয়েকদিনে নরেন্দ্র মোদিকে চারটি চিঠি পাঠিয়েছেন। অথচ প্রধানমন্ত্রী উত্তর দেওয়ার প্রয়োজন অনুভব করেননি।

 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
কিংবদন্তী গৌতম
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
12th     May,   2021