বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

বাসিন্দাদের উচ্ছ্বাস হাসি
ফোটাচ্ছে অশোকের মুখে

সংবাদদাতা, শিলিগুড়ি: শিলিগুড়িতে ভোটযুদ্ধে শান্তির ‘ভরসা’ হয়ে ঘুরছেন অশোক ভট্টাচার্য। সকালে রাস্তার কলে জল নিতে গিয়ে কয়েকজন খবরটা জেনেছিলেন যে, সকাল ১০টায় তাঁদের পাড়ায় ভোটপ্রচারে আসবেন অশোকবাবু। তিনি শিলিগুড়ি বিধানসভা আসনে সংযুক্ত মোর্চার বাম প্রার্থী।  ন’টা বাজতে না বাজতেই একজন, দু’জন করে লোকজন জমায়েত হতে থাকে ডাঙ্গিপাড়া মোড়ে। তাঁরা সকলে অবশ্য সিপিএম নেতা-কর্মী নন। কেউ দিন আনা দিন খাওয়া মানুষ, কেউ বা সাধারণ গৃহবধূ।  কিন্তু অশোকবাবুকে সামনে থেকে দেখা, মুখোমুখি কথা বলার উৎসাহ নিয়ে রোদের মধ্যে অপেক্ষা করছেন তাঁরা। 
অশোকবাবু গাড়ি থেকে নামতেই এলাকার মানুষ তাঁকে সাদর আমন্ত্রণ জানালেন। প্রার্থী প্রচারে এসেছেন। বাড়ি বাড়ি ঘুরবেন তিনি। কিন্তু সেখানে ভোটাররাই রাস্তায় জড়ো হয়ে প্রার্থীকে স্বাগত জানাচ্ছেন। প্রাণ খুলে কথা বলছেন। ছেলেমেয়েরা সেলফি তুলছে।  
ডাঙ্গিপাড়ায় হিন্দু, মুসলিম, শিখ, খ্রিষ্টান তো বটেই, চিন থেকে আসা মানুষজনও এখানকার বাসিন্দা। সকলেই এখানে হাত ধরাধরি করে বছরের পর বছর বাস করছেন। ডাঙ্গিপাড়ায় দুয়ারে গিয়ে অশোকবাবু হাতজোড় করতেই বাড়ির ভিতর থেকে প্রশ্ন ভেসে আসছে, আপনি কেমন আছেন? হেসে মাথা নাড়ছেন এই প্রবীণ বাম নেতা।  
কেন সংযুক্ত মোর্চার বাম প্রার্থীকে নিয়ে এলাকার মানুষের এত আবেগ, ভরসা ও আন্তরিকতা? হাঁটতে হাঁটতে এলাকার বাসিন্দা গৌতম দাস বলেন, গত ৩০ বছর ধরে লোকটাকে দেখছি। একসময় রাজ্যের মন্ত্রী ছিলেন। তারপর শিলিগুড়ি পুরসভার মেয়র। আবার শিলিগুড়ির বিধায়ক হয়েছেন। সবসময় তিনি সাধারণ মানুষের পাশে একইভাবে থেকেছেন। ডাঙ্গিপাড়ায় অনেক ভাষাভাষির মানুষ বাস করেন। কিন্তু একদিনের জন্যও এখানে বড় কোনও গণ্ডগোল হয়নি। শান্তি সম্প্রীতি বজায় রাখার ব্যাপারে 
তিনি বরাবর বিশেষ ভূমিকা পালন করেছেন। করোনার সময় আমি মধ্যপ্রদেশ থেকে পরিবার নিয়ে আসতেই এলাকার কিছু মানুষ আতঙ্কে আমার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করেছিলেন। বাড়িতে ঢিল পড়েছিল। অশোকবাবু এগিয়ে এসে আমাকে রক্ষা করেছিলেন। তিনি সকলেরই ভরসা।
 শুধু ডাঙ্গিপাড়া নয়, শিলিগুড়ি বিধানসভা আসনে পুরসভার ৩৩টি ওয়ার্ডেই অশোকবাবুর একটা আলাদা গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে সাধারণ মানুষের মধ্যে। পাঁচ নম্বর ওয়ার্ডের নতুন পাড়ায় প্রচার থেকে ফিরছিলেন অশোকবাবু। একটা মোড়ে চায়ের দোকানে বেশ কিছু যুবক আড্ডা দিচ্ছিলেন। 
পুরসভার তিন নম্বর ওয়ার্ড, গুরুংবস্তিতে সব ভাষাভাষীর মানুষের বসবাস। তবে হিন্দিভাষী মানুষের বাস বেশি। প্রখর রোদের মধ্যে হেঁটে প্রতিটি বাড়িতে যাচ্ছেন। বড়  রাস্তা থেকে গলি, তস্য গলি। গোটা এলাকা যে তিনি হাতের তালুর মতো চেনেন তা অশোকবাবুর সাবলীল পথচলাতেই বোঝা যাচ্ছিল। তাঁকে পেয়ে দোকান থেকে সকলে বেরিয়ে আসছেন। বাড়ির সামনে সকলে উৎসাহ নিয়ে অপেক্ষায় রয়েছেন। রাস্তায় টুলের উপর এক বৃদ্ধ ক্ষৌরকার কাজ করছিলেন। অশোকবাবুকে দেখে কাজ থামিয়ে উঠে দাঁড়ান। অশোকবাবুকে প্রতি নমস্কার জানিয়ে বলেন, শান্তিতে বাস করার জন্য আপনাকে আমাদের দরকার।

14th     April,   2021

মুখ্যমন্ত্রীর ৪টি চিঠি নিয়ে মুখে কুলুপ
মমতাকে এড়িয়ে ডিএমদের সঙ্গে
কোভিড-বৈঠক ‘উদ্বিগ্ন’ মোদির

রাজ্যে রাজ্যে বাড়ছে সংক্রমণ এবং মৃত্যু। টিকা, অক্সিজেন, হাসপাতালে বেডের আকাল দেশজুড়ে। এই সঙ্কটকালে সার্বিক টিকাকরণ এবং অক্সিজেনের দাবিতে বারবার প্রধানমন্ত্রীর দ্বারস্থ হয়েছেন একাধিক অবিজেপি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীরা। এদিনও ১২ জন বিরোধী নেতা মিলিতভাবে চিঠি দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদিকে। যদিও পত্রাঘাত পর্বে অন্যতম অবশ্যই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী বিগত কয়েকদিনে নরেন্দ্র মোদিকে চারটি চিঠি পাঠিয়েছেন। অথচ প্রধানমন্ত্রী উত্তর দেওয়ার প্রয়োজন অনুভব করেননি।

 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
কিংবদন্তী গৌতম
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
12th     May,   2021