বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

শীতলকুচির ঘটনা পরিকল্পিত গণহত্যা,
অভিযোগ মমতার
নিহতদের পরিবারকে দিলেন সাহায্যের আশ্বাসও

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, শিলিগুড়ি: চতুর্থ দফার ভোটের দিন শীতলকুচিতে চার জনের মৃত্যুর ঘটনায় উত্তাল রাজ্য রাজনীতি। তারপরই আজ , রবিবার শীতলকুচিতে নিহতের পরিবারের সঙ্গে দেখা করার কথা ছিল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। গতকাল নিজেই জানিয়েছিলেন একথা। সেই মতো শিলিগুড়িতে পৌঁছেও গিয়েছেন তিনি। কিন্তু এরমধ্যেই নির্বাচন কমিশন জানিয়ে দেয়, আগামী ৭২ ঘণ্টায় কোনও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব কোচবিহারে প্রবেশ করতে পারবেন না। ফলে আজ শীতলকুচি যাওয়া আপাতত ভেস্তে গিয়েছে তৃণমূল সুপ্রিমোর। কিন্তু হার মানবার পাত্রী নন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ভিডিও কলের মাধ্যমে নিহতদের পরিজনদের সঙ্গে কথা বলা সিদ্ধান্ত নেন তিনি। অন্যদিকে, কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে মৃত্যুর ঘটনায় এদিন কালা দিবস পালন করছে তৃণমূল। সেই মতো কালো চাদর গায়ে দিয়েই এদিন শিলিগুড়িতে সাংবাদিক বৈঠক শুরু করেন তিনি। দলীয় কর্মীর সাহায্যে মৃতদের পরিজনদের ভিডিও কল করেন। দীর্ঘক্ষণ কথা বলেন তাঁদের সঙ্গে। গুলিতে মৃত্যু হওয়া মণিরুজ্জামানের দাদা জানিয়েছেন, রাজমিস্ত্রির কাজ করতেন তাঁর ভাই। বাড়িতে স্ত্রী, ৪৫ দিনের ছোট্ট শিশু রয়েছে। রয়েছেন মা-বাবাও। সেদিনের ঘটনাপ্রসঙ্গে তিনি বলেন, ভোটের লাইনে দাঁড়িয়েছিলেন। আচমকাই গুলি করতে শুরু করে কেন্দ্রীয় বাহিনী। বুকে লাগে তাঁর। আমরা এর বিচার চাই। মুখ্যমন্ত্রী সব শুনে বলেন, আমরা তোমাদের পাশে রয়েছি। সব ধরণের সাহায্য করা হবে। দেওয়া হবে আর্থিক সাহায্যও। কিন্তু নির্বাচন কমিশনের নিষেধাজ্ঞার ফলে এখন যেতে পারছি না। কিন্তু ১৪ এপ্রিলের পর যাব। তোমাদের সঙ্গে কথা বলব। মণিরুজ্জামানের পাশাপাশি কথা বলেন, নিহত হামিদুল হকের পরিজনদের সঙ্গেও। হামিদুলের দাদা জানিয়েছেন, হামিদুলও রাজমিস্ত্রির কাজ করত। বর্তমানে তাঁর স্ত্রী সন্তানসম্ভবা। একটি তিন বছরের শিশুও রয়েছে। ওর মৃত্যুতে আমরা দিশাহারা হয়ে গিয়েছি। শোকস্তব্ধ পরিবারকে বিচার হবে বলে আশ্বাস দেন মুখ্যমন্ত্রী। দেন সাহায্যের প্রতিশ্রুতিও। এদিন নিহতদের পরিজনদের সঙ্গে কথা বলার পাশাপাশি নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে একরাশ ক্ষোভ উগরে দেন তিনি। বলেন, শুধুমাত্র আমাকে আটকানোর জন্যই নতুন এই আইন করা হয়েছে। কমিশন অমানবিক। কিন্তু মাথায় রাখবেন, এভাবে আমায় আটকানো যাবে না। মডেল কোড অব কন্ডাক্ট এখন বিজেপি কোড অব কন্ডাক্টে পরিনত হয়েছে। এদিন কেন্দ্রীয় বাহিনীর ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন মমতা। বলেন, সিআইএসএফ জনসাধারণকে সামলানোর জন্য নয়। তাঁরা ইন্ডাস্ট্রিয়াল এলাকা সামলানোর জন্য। তাহলে তাঁদের আমজনতার নিরাপত্তার দায়িত্বে কেন দেওয়া হয়েছে? পুলিস আধিকারিকদেরও ভর্ৎসনা করেন। তাঁর দাবি পুলিস বিষয়টিতে ক্লিনচিট দিচ্ছে। এদিন শীতলকুচির ঘটনাকে পরিকল্পিত গণহত্যা বলে অভিযোগ করেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো। বলেন, সেদিনের ঘটনায় প্রায় সকলেরই গলায় বা বুকে গুলি লেগেছে। কারও পায়ে গুলি লাগেনি। কাঁদানে গ্যাস ব্যবহার করা হয়নি! সরাসরি বুকেই গুলিটা করা হয়েছিল। কীসের জন্যে? বাহিনীর কেউই আহত হয়নি। কোনও ফুটেজ নেই। তাঁর অভিযোগ, তথ্য প্রমাণ লোপাটের জন্যই আটকে দেওয়া হয়েছে তাঁকে। এদিন নিহতদের বুকে গুলি লাগার ছবিও সাংবাদিক বৈঠক তুলে ধরেন তিনি। ফোনে ওই এলাকার দলীয় কর্মীর সঙ্গেও কথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী। মৃতদের পরিজনদের পাশে থাকতে বলেন। সমস্তরকম প্রয়োজনীয় আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ এবং এফআইআরের কপি সামলে রাখার কথা জানান। পাশাপাশি দলীয় কর্মী-সমর্থকদের উদ্দেশ্যে বলেন, সেদিনের ঘটনার প্রতিবাদে আজ সকাল থেকে কালো পোশাক পরেছি। এদিন কালাদিবস হিসেবে পালন করব আমরা। মোমবাতি নিয়ে রাস্তায় হাঁটব। ব্লকে ব্লকে দলীয় কর্নীদের মোমবাতি মিছিল করার নির্দেশও দিয়েছেন তিনি। অন্যদিকে গেরুয়া শিবিরের দাবি, মৃত্যু নিয়ে রাজনীতি করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার দাবিও করেছে বিজেপি।
 

11th     April,   2021
 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
কিংবদন্তী গৌতম
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
12th     May,   2021