বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

দিদি জিতলেই মাসে হাজার টাকা দেবেন
এসসি- এসটি ভোট পেতে মাস্টারস্ট্রোক তৃণমূলের
কেন্দ্র: ভাতার

অভিষেক পাল, ভাতার: মুড়ি চপের আড্ডায়, চপশিল্প নিয়ে টিকা-টিপ্পনি হয় রোজই। কিন্তু চপের দোকানের বৃদ্ধ মালিকের মোটা চশমার কাচের ভিতর দিয়ে জ্বলজ্বল করা চোখ বলে দেয়, অস্থায়ী চপের দোকানও হাল ফিরিয়েছে তাঁর সংসারের। দিনের শেষে লাভের কয়েকশো টাকা নিয়ে বাড়ি ফেরেন। ভাতার বাজারের স্থায়ী দোকানের পাশেই আটচালায় বেসন, মুড়ি, উনুন নিয়ে রোজ বিকেলে বসেন বছর ৬৮এর ওই বৃদ্ধ। সহকারী একটু কমবয়সি। যত সন্ধ্যা গড়ায় তত ভিড় বাড়ে। বাজারে আসা প্রায় প্রত্যেকেই একটা হলেও কুমড়োর ‘বেগুনি’ খান। সেটাই যে স্পেশাল। তার চেয়েও স্পেশাল দোকানের সামনে রাজনৈতিক চর্চা। 
তর্কের আসরে প্রবীণ থেকে সদ্য ভোটাধিকার পাওয়া যুবক, সবাই নিজের অবস্থান স্পষ্ট করছেন। সেখানে চপ শিল্প নিয়ে কটাক্ষ করে বেজায় চাপে পড়ে গেলেন বামপন্থী এক যুবক। পাল্টা জবাব না দিয়ে, আর এক যুবক দোকান মালিককে ডেকে শুনিয়ে দিলেন, দাদু আপনার প্রতিদিন বিক্রি কত? বেসনে গুলিয়ে ফুটন্ত তেলে ছাড়তে ছাড়তে উত্তর এল, শখানেক চপ তো উঠেই যায়। অঙ্ক কষে ছেলেটি বলে দিল, মানে ৫০০টাকা মিনিমাম। তার সঙ্গে মুড়ি পাঁচ টাকা করে। দিদি একেবারে ভুল কিছু বলেননি। দাদু চপের দোকান করে দিব্যি আছেন। পাল্টা একজন বললেন, এতদিন বিএসএনএলে চাকরি করলাম। শেষ বয়সে তাড়াতাড়ি অবসর নিতে হল। প্রচুর লোক ছাঁটাই করল। এখন রেল বেসরকারিকরণ করছে। জানি না ছেলেমেয়েরা কী করে জীবন কাটাবে। অন্তত চপের দোকান দিলেও তো নিশ্চিন্ত হতাম। আর একজন বলে উঠলেন, ভোটের সময় তো মোদি কত চাকরির কথা বলল, হল কোথায়? এলাকায় তো একটাও কেন্দ্রীয় সরকারি চাকরি পেল না। বরং পাড়ার দু’-একটা ছেলেমেয়ে স্কুলে চাকরি পেল। যেটুকু সঞ্চয় তাতেও দিনের পর দিন সুদ কমাচ্ছে। জিনিসপত্রের এত দাম, কী করে চলবে সংসার?
মানুষের হা-হুতাশ শুনেই একটা ধারণা করা যায়, প্রবল বিজেপি হাওয়ার মধ্যেও মানুষের মন অন্যদিকে। ভাতার বিধানসভায় মোট ভোটার ২লক্ষ ৪৬হাজার ৪৫১। কিছু মানুষের কথা যদি সার্বিক চিত্রের অংশ হয় তাহলে বিজেপির যথেষ্ট চিন্তার কারণ আছে। পাশাপশি প্রতিষ্ঠান বিরোধী হাওয়া বরাবর পছন্দ এখানকার মানুষের। সেটাও এবার ভাবার বিষয় তৃণমূলের জন্য। বাম আমলেও ডানপন্থীদের প্রভাব ছিল। আবার গত লোকসভায় ব্যাপক মোদি হাওয়া এবং শাসকদলের গোষ্ঠী সমস্যা থাকা সত্ত্বেও তৃণমূল এই কেন্দ্রে ২৬হাজার ৪৬৪ভোটে লিড পায়। এবারও গেরুয়া শিবির সুবিধা করতে পারবে না বলে দাবি রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের। 
নগরায়নের ছোঁয়া লেগে ভাতার ব্লকের বেশ কয়েকটি এলাকার উন্নতি হয়েছে। ভাতার বাজার সংলগ্ন এলাকা পুরসভাকেও টেক্কা দেওয়ার ক্ষমতা রাখে। উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিয়েই গত বিধানসভা নির্বাচনে এই কেন্দ্রে ৪৬.৮৬শতাংশ ভোট পেয়ে তৃণমূলের সুভাষ মণ্ডল জিতে বিধায়ক হন। স্থানীয় না হওয়ায় তিনি এলাকায় খুব একটা সক্রিয় ছিলেন না বলেই কান পাতলেই শোনা যায়। তাই নির্বাচনের আগে ভূমিপুত্র প্রার্থীর দাবি উঠেছিল। এবার তিনটি দলই ভূমিপুত্রকে প্রার্থী করেছে। দক্ষ সংগঠক মানগোবিন্দ অধিকারীর উপর ভরসা রেখেছে ঘাসফুল শিবির। অন্যদিকে এই কেন্দ্র থেকে দু’বার দাঁড়ানো প্রয়াত বিজেপি নেতা ধাত্রীপদ কোনারের নাতি মহেন্দ্র কোনারকে প্রার্থী করেছে পদ্ম শিবির। সংযুক্ত মোর্চা সমর্থিত সিপিএমের নজরুল হকও এই কেন্দ্রের ভূমিপুত্র। 
ভাতারের একটা বড় অংশের মানুষ এসসি ও এসটি। মোট নাগরিকের যা ৩২.৪৪ শতাংশ এসসি ও ৯.৭৪ এসটি। এই বিশাল অংশের ভোটাররা যেদিকে ঝুঁকবেন সেদিকেই যাবে নির্বাচনের ফল। এখানেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘোষিত সুনিশ্চিত আয় প্রকল্প মাস্টারস্ট্রোক হিসেবে কাজ করবে। যেখানে সাধারণ পরিবারের মহিলাদের মাসে দেওয়া হবে ৫০০টাকা। এবং তফসিলি জাতি-উপজাতি পরিবারকে দেওয়া হবে এক হাজার টাকার ভাতা। বছরে ১২হাজার টাকার নিশ্চিত আয় ভাতারের ভোটে প্রভাব ফেলবে বলেই মনে করা হচ্ছে। তৃণমূল প্রার্থী মানগোবিন্দবাবু বলেন, দলের যে গোষ্ঠী সমস্যা ছিল তা সকলে বসে মিটিয়ে নিয়েছি। পুরনো এবং নতুন সবাইকে ভোটের দায়িত্ব দিয়েছি। এখানে আমাদের জয় নিশ্চিত। মানুষ উন্নয়ন এবং আগামী একাধিক প্রকল্পের যে পরিকল্পনা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় করেছেন তাতে আস্থা রাখবেন।
বিজেপি প্রচারে সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল ও ভাতার বাজার চত্বরে পাওয়ার হাউস তৈরির প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে। মহেন্দ্রবাবু বলেন, প্রচারে মানুষের খুব উৎসাহ। আমরাই জিতব। সিপিএম প্রার্থী নজরুল হক বলেন, মানুষের কর্মসংস্থান দরকার। তৃণমূল ও বিজেপির দুই সরকার সেব্যাপারে উদাসীন। বিকল্প সরকার গড়ার জন্য মানুষের ভালো সাড়া মিলছে।

11th     April,   2021

মুখ্যমন্ত্রীর ৪টি চিঠি নিয়ে মুখে কুলুপ
মমতাকে এড়িয়ে ডিএমদের সঙ্গে
কোভিড-বৈঠক ‘উদ্বিগ্ন’ মোদির

রাজ্যে রাজ্যে বাড়ছে সংক্রমণ এবং মৃত্যু। টিকা, অক্সিজেন, হাসপাতালে বেডের আকাল দেশজুড়ে। এই সঙ্কটকালে সার্বিক টিকাকরণ এবং অক্সিজেনের দাবিতে বারবার প্রধানমন্ত্রীর দ্বারস্থ হয়েছেন একাধিক অবিজেপি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীরা। এদিনও ১২ জন বিরোধী নেতা মিলিতভাবে চিঠি দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদিকে। যদিও পত্রাঘাত পর্বে অন্যতম অবশ্যই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী বিগত কয়েকদিনে নরেন্দ্র মোদিকে চারটি চিঠি পাঠিয়েছেন। অথচ প্রধানমন্ত্রী উত্তর দেওয়ার প্রয়োজন অনুভব করেননি।

 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
কিংবদন্তী গৌতম
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
12th     May,   2021