বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

ম্যারাথন ভোটের জেরে শিকেয়
বিধি, লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ভোটের মধ্যেই লাফিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। বৃহস্পতিবারের তুলনায় শুক্রবার আক্রান্ত বাড়ল প্রায় ন’শো। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বহুদিন ধরেই বলে এসেছেন, নির্বাচনী প্রক্রিয়া যত দীর্ঘদিন ধরে চলবে, করোনার সংক্রমণ বাড়বে তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে। সেই সাবধানবাণী অবশ্য বাস্তবে কার্যকর হয়নি। আর তাতেই বাংলার করোনা পরিস্থিতি উদ্বেগজনক জায়গায় চলে যাচ্ছে।
এই অবস্থায় গত বছরের আগস্ট মাসে যে গাইডলাইন প্রকাশ করা হয়েছিল, শুক্রবার তা সমস্ত রাজনৈতিক কঠোরভাবে মেনে চলার নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। যেখানে সাফ বলা হয়েছে, জনসভায় যোগ দেওয়ার সময় সংশ্লিষ্ট দলের নেতা, কর্মী-সমর্থক প্রত্যেককে মাস্ক, স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে হবে। বজায় রাখতে হবে সামাজিক দূরত্ব। অন্যথা কমিশনের পক্ষ থেকে সেই কর্মিসভা নিষিদ্ধ করে দেওয়া হবে।
সূত্রের খবর, গত বছর ১৭ এপ্রিল থেকে প্রায় এক বছর রাজ্যের চিকিৎসক-স্বাস্থ্যকর্মী-আধিকারিকদের আপ্রাণ চেষ্টায় এই ফেব্রুয়ারির শেষলগ্নেও দৈনিক করোনা সংক্রমণ মাত্র দু’শোর আশপাশে ছিল। কিন্তু দফায় দফায় ভোট, সেজন্য নেতা-সমর্থকদের প্রচার, ভিন রাজ্য থেকে বারবার আসা-যাওয়া, সমাবেশ, র‌্যালি, বিপুল সংখ্যক ভোটকর্মী, কেন্দ্রীয় বাহিনী, পুলিস এবং সর্বোপরি তলানিতে পৌঁছে যাওয়া মাস্ক সচেতনতা। সব মিলিয়ে অবস্থা আরও খারাপ হচ্ছে। শুক্রবারের বুলেটিন অনুযায়ী রাজ্যে ২৪ ঘণ্টায় ৮৬৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন। পরিস্থিতি দেখে পরীক্ষার সংখ্যা অনেকটা বাড়িয়ে রাজ্য করেছে ৩৬ হাজার ১১৭। মহামারী কতটা সংক্রামক বা একজন আক্রান্ত হলে কতজনের মধ্যে ছড়াতে পারেন, তা বুঝতে বিজ্ঞানীরা ‘আর’ ভ্যালুকে গুরুত্ব দেন। পশ্চিমবঙ্গের ক্ষেত্রে এই ‘আর’ ভ্যালু বেড়ে ২-এর কাছাকাছি চলে গিয়েছে। বাংলার থেকেও আরও দুশ্চিন্তার জায়গায় রয়েছে উত্তরপ্রদেশ, বিহার ও ঝাড়খণ্ড। তিন রাজ্যেই ‘আর’ ভ্যালু ২ ছাড়িয়েছে। অর্থাৎ একজন করোনা আক্রান্ত কমপক্ষে আরও দু’জনের মধ্যে সংক্রমণ ছড়াচ্ছেন। মহামারীর দ্বিতীয় পর্বের আরও একটি উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, শিশুদের মধ্যে সংক্রমণ বৃদ্ধি। এবার ১ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল—স্রেফ এক মাস তিনদিনেই পাঁচ রাজ্যের ৭৯ হাজার শিশু করোনা পজিটিভ হয়েছে। রাজ্যগুলি হল উত্তরপ্রদেশ, কর্ণাটক, মহারাষ্ট্র, ছত্তিশগড় এবং দিল্লি।
এত কিছুর মধ্যে আশার খবর হল, এদিন সন্ধ্যা পর্যন্ত রাজ্যের সাড়ে তিন লক্ষের বেশি মানুষকে কোভিড টিকা দেওয়া হয়েছে। যদিও কেন্দ্রীয় সরকার রাজ্যের অনুরোধ মেনে দ্রুত টিকা না পাঠালে এভাবে জোরকদমে টিকাদান কতদিন চলবে, তা নিয়ে সন্দেহ দেখা দিয়েছে। কেন্দ্র ১৫ এপ্রিল টিকা পাঠাবে বলে রাজ্যকে জানালেও হাতে যা টিকা আছে, তাতে আর বড়জোর তিনদিন চলতে পারে বলেই মনে করছেন শীর্ষ স্বাস্থ্যকর্তারা। এদিন কলকাতার এক বেসরকারি হাসপাতাল টিকার অপ্রতুলতার কথা বিবৃতি দিয়ে ঘোষণা করেছে। বিবৃতিতে তারা জানিয়েছে, একটাও টিকা না পাওয়ায় আজ, শনিবার তাদের সল্টলেকের হাসপাতালে কোনও টিকাকরণ হবে না।
 নির্বাচন কমিশন দপ্তরে চলছে নমুনা পরীক্ষা। -নিজস্ব চিত্র

10th     April,   2021

মুখ্যমন্ত্রীর ৪টি চিঠি নিয়ে মুখে কুলুপ
মমতাকে এড়িয়ে ডিএমদের সঙ্গে
কোভিড-বৈঠক ‘উদ্বিগ্ন’ মোদির

রাজ্যে রাজ্যে বাড়ছে সংক্রমণ এবং মৃত্যু। টিকা, অক্সিজেন, হাসপাতালে বেডের আকাল দেশজুড়ে। এই সঙ্কটকালে সার্বিক টিকাকরণ এবং অক্সিজেনের দাবিতে বারবার প্রধানমন্ত্রীর দ্বারস্থ হয়েছেন একাধিক অবিজেপি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীরা। এদিনও ১২ জন বিরোধী নেতা মিলিতভাবে চিঠি দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদিকে। যদিও পত্রাঘাত পর্বে অন্যতম অবশ্যই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী বিগত কয়েকদিনে নরেন্দ্র মোদিকে চারটি চিঠি পাঠিয়েছেন। অথচ প্রধানমন্ত্রী উত্তর দেওয়ার প্রয়োজন অনুভব করেননি।

 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
কিংবদন্তী গৌতম
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
12th     May,   2021