বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

৪৫ বছরের ‘যাযাবর দশা’ ঘুচল মুখ্যমন্ত্রীর উদ্যোগে
সল্টলেক সেন্ট্রাল পার্কে স্থায়ী
ঘর বাঁধল কলকাতা বইমেলা

নিজস্ব প্রতিনিধি, বিধাননগর: নতুন বইয়ের গন্ধে বাঙালির পুরনো প্রেম। মেলার ভিড় ঠেলে পাঠক খুঁজে নেন পছন্দের লেখা। কিন্তু, যাকে ঘিরে উৎসব-আয়োজন, এতদিন সেই আন্তর্জাতিক কলকাতা বইমেলারই কোনও স্থায়ী ঠিকানা ছিল না। কখনও ময়দান, কখনও মিলনমেলা প্রাঙ্গণ আবার কখনও বা সল্টলেকের সেন্ট্রালপার্ক। ঠিক যেন ‘যাযাবর’ দশা। অবশেষে ৪৫ বছর পর এই প্রথম নিজস্ব ঠিকানা পাচ্ছে কলকাতা বইমেলা। যার উদ্যোক্তা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর ঘোষণা অনুযায়ী, বইমেলার নতুন ঠিকানা সল্টলেকের সেন্ট্রাল পার্কের ‘বইমেলা প্রাঙ্গণ’। আগামী ৩০ জানুয়ারি সেখানেই মুখ্যমন্ত্রী উদ্বোধন করবেন ‘৪৬তম আন্তর্জাতিক কলকাতা বইমেলা-২০২৩’এর। মেলা চলবে ১২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।
বুধবার বইমেলা নিয়ে সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করেছিল পাবলিশার্স অ্যান্ড বুকসেলার্স গিল্ড। সেখানেই ঘোষণা করা হয়, বইমেলার স্থায়ী ঠিকানা। এবারের বইমেলার থিম কান্ট্রি—স্পেন। এর আগে ২০০৬ সালেও স্পেন বইমেলায় অংশ নিয়েছিল। সাংবাদিক সম্মেলনে ভারতে অবস্থিত স্পেনের রাষ্ট্রদূত খোসে মারিয়া রিদাও দোমিনগেজ, পাবলিসার্স অ্যান্ড বুকসেলার্স গিল্ডের সভাপতি সুধাংশু শেখর দে, সাধারণ সম্পাদক ত্রিদিব চট্টোপাধ্যায় সহ বহু বিশিষ্টজন উপস্থিত ছিলেন।
বইমেলার উদ্যোক্তারা বলেন, ময়দানে ২০০৮ পর্যন্ত বইমেলা হয়েছিল। তারপর সায়েন্স সিটি চত্বরে মিলনমেলা প্রাঙ্গণে আসে বইমেলা। সেখান থেকে স্থানান্তরিত হয়ে ২০১৮ সালে সল্টলেকের সেন্ট্রাল পার্কে কলকাতা বইমেলা শুরু হয়। গতবছর বইমেলার উদ্বোধনে এসে এই সেন্ট্রাল পার্ককে ‘বইমেলা প্রাঙ্গণ’ করার ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সেই ঘোষণা মতো এবার ফি বছরের বই পার্বনের স্থায়ী ঠিকানা হল সেন্ট্রাল পার্ক। নিজস্ব নাম, নিজস্ব ঠিকানা। শিল্পী শুভাপ্রসন্ন বইমেলা প্রাঙ্গণের লোগো এঁকেছেন। 
ত্রিদিববাবু এবং সুধাংশু শেখরবাবু বলেন, এতদিন বইমেলার কোনও নিজস্ব ঠিকানা ছিল না। ৪৫ বছর পর এই প্রথমবার কলকাতা বইমেলা নিজস্ব ঠিকানা পেল। এটা গর্বের। তাই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে অনেক ধন্যবাদ। বিধাননগর পুরসভাকেও ধন্যবাদ জানাচ্ছি। তাঁরা বলেন, দুর্গাপুজোর পর কলকাতা বইমেলা, বাংলার অন্যতম বড় ‘উৎসব’। করোনা পর্ব কাটিয়ে গত বছর মেলায় ২২ লক্ষ মানুষ এসেছিলেন। বই বিক্রির পরিমাণ ছিল ২৩ কোটি টাকা। এবার সেই সংখ্যা আরও বাড়বে। স্পেনের রাষ্ট্রদূত বলেন, আমরা খুবই খুশি। ভারতের সংস্কৃতির সঙ্গে স্পেন মিলিত হয়েছে। পরিবেশবান্ধব উপকরণ দিয়ে প্যাভিলিয়ন তৈরি হবে। থাকবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও। 
প্রসঙ্গত, গতবার করোনার কারণে ২৫ শতাংশ জায়গা ছোট করা হয়েছিল। এবার তা বাড়ানো হয়েছে। স্টল বাড়ানোরও পরিকল্পনা রয়েছে। বইমেলায় থাকবে লিটল ম্যাগাজিনের স্টলও। বইমেলা প্রাঙ্গণেই আগামী ৯ থেকে ১১ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে নবম কলকাতা লিটারেচার ফেস্টিভাল।

1st     December,   2022
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ