বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

বিক্ষোভ উঠল বরানগরের
অর্থোপেডিক হাসপাতালে
স্বস্তিতে রোগী ও তাঁদের পরিজনরা

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আবাসিক এক ছাত্রের মৃত্যুর প্রতিবাদে গত দু’দিন ধরে চলা বরানগরের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব লোকোমোটর ডিজাবিলিটিসের (এনআইএলডি) অচলাবস্থা আপাতত কাটল। প্রিয়রঞ্জন সিং নামে ওই ছাত্রের ‘অস্বাভাবিক’ মৃত্যুর জেরে আন্দোলন শুরু করেছিলেন পড়ুয়ারা। ওই আন্দোলনের জেরে শিকেয় উঠেছিল অর্থোপেডিক এই হাসপাতালের রোগীকে দেওয়া পরিষেবাও। বুধবার সন্ধ্যায় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বৈঠকের পর আপাতত আন্দোলন তুলে নিয়ে ইনস্টিটিউটের স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়ে আনার পক্ষে মত দিয়েছেন আন্দোলনকারীরা। এতে স্বস্তির নিশ্বাস ফেলেছেন রোগী এবং তাঁদের পরিবারের লোকজনও। তবে আন্দোলনকারীরা জানিয়েছেন, ইনস্টিটিউট এবং হস্টেল সংক্রান্ত যে দাবিদাওয়া তাঁরা রেখেছেন, তা মানা না হলে, বৃহত্তর আন্দোলন শুরু হবে। বুধবার সন্ধ্যায় ইনস্টিটিউটের ডিরেক্টর পতিত পাবন মোহান্তির কাছে ন’দফা দাবি সংক্রান্ত একটি স্মারকলিপি জমা দেন পড়ুয়ারা। সেখানে বলা হয়েছে, ১২ ডিসেম্বরের মধ্যে পূরণ করতে হবে দাবিগুলি। আন্দোলন প্রত্যাহারের ঘোষণার পর পড়ুয়ারা মোবাইল ফোনের টর্চ জ্বালিয়ে একটি মিছিল করেন। সেই মিছিলে ইনস্টিটিউটের ডিরেক্টরও অংশ নেন। 
প্রসঙ্গত, ইনস্টিটিউটের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র প্রিয়রঞ্জনকে মঙ্গলবার সকালে হস্টেলের ঘরে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে তাঁর মৃত্যু হয়। সংশ্লিষ্ট ছাত্রের ঘর থেকে একটি সুইসাইডাল নোট মিলেছে। ওই ঘটনার পরে কেন্দ্রীয় সরকার পরিচালিত এই ইনস্টিটিউটে চিকিৎসার জরুরি বিভাগ চালু এবং অ্যাম্বুলেন্স রাখার দাবিতে আন্দোলন শুরু করেছিলেন পড়ুয়ারা। এদিকে প্রিয়রঞ্জন সিংয়ের ঘর থেকে মেলা সুইসাইডাল নোটের লেখা হ্যান্ড রাইটিং এক্সপার্টকে দিয়ে পরীক্ষা করাচ্ছে পুলিস। নোটের লেখা প্রিয়রঞ্জনের কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। সেই সঙ্গে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগে (আইপিসি ৩০৬ ধারা) প্রিয়রঞ্জনের দাদা প্রবীণরঞ্জন বরানগর থানায় যে এফআইআর করেছিলেন, তা নিয়েও তদন্ত শুরু হয়েছে। এফআইআরে ন’জনের নাম উল্লেখ করেছেন তিনি। অপরদিকে, আন্দোলনকারীদের তরফে এক ছাত্র প্রীতম ত্রিবেদী বলেন, হাসপাতালের পরিকাঠামোর বিস্তর অভাব রয়েছে। আমরা এর আগেও অনেকবার তা সমাধানের দাবি জানিয়েছি। কর্তৃপক্ষ কর্ণপাত করেনি। তাই বাধ্য হয়েই আন্দোলনের পথে হাঁটতে হয়েছে। রোগীদের এতে কিছুটা সমস্যা হয়েছে। তবে আমরা কোনও চিকিৎসককে পরিষেবা প্রদানে বাধা দিইনি। দাবি মানা না হলে, বৃহত্তর আন্দোলন ছাড়া আমাদের কাছে আর কোনও পথ নেই। ডিরেক্টর জানিয়েছেন, পড়ুয়াদের দাবির বিষয়গুলি দিল্লিতে পাঠাচ্ছি। সেগুলি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ নিশ্চয়ই বিবেচনা করবেন।
 মৃত পড়ুয়ার ছবি রেখে তখনও চলছে আন্দোলন। (নীচে) মোমবাতি মিছিল। -নিজস্ব চিত্র

1st     December,   2022
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ