বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

বচসায় ত্রিশূলবিদ্ধ কল্যাণীর
যুবক, বাঁচাল এনআরএস 

সংবাদদাতা, কল্যাণী: ত্রিশূল নিয়ে রাজনৈতিক আস্ফালন দেখেছে দেশ। তাই বলে ত্রিশূলকে অস্ত্র বানিয়ে গলা এফোঁ‌ড়-ওফোঁড় করে দেওয়ার ঘটনা শোনা যায়নি কখনও। বিঁধে রয়েছে ত্রিশূল, ক্ষতের দু’প্রান্ত দিয়ে ঝরঝর করে ঝরছে রক্ত। ওই অবস্থাতেই গয়েশপুরের আনন্দপল্লি থেকে কল্যাণীর জেএনএম হাসপাতাল, তারপর সোজা কলকাতার এনআরএস। শেষ অবধি কলকাতার এই হাসপাতালই সাফল্যের সঙ্গে অস্ত্রোপচার করে বিপন্মুক্ত করেছে ভাস্কর রামকে। এই ঘটনায় পুলিস বিক্রম সরকার ও জয় বণিক নামের দুই যুবককে গ্রেপ্তার করেছে। তারাও গয়েশপুরের বাসিন্দা। তাৎপর্যপূর্ণ হল, অভিযুক্ত দু’জনই সিপিএমের ছাত্র সংগঠন এসএফআইয়ের স্থানীয় নেতা। 
গয়েশপুর পুরসভা এলাকার ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের কানপুরের আনন্দপল্লি এলাকায় বাড়ি তেত্রিশ বছর বয়সি ভাস্করের। স্থানীয় ও পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে, ঘটনাটি ঘটেছে রবিবার রাতে, তখন বাড়িতে একাই ছিলেন ভাস্কর। কোনও বিষয় নিয়ে বিক্রম ও জয়ের সঙ্গে বচসা হয় তাঁর। সেই সময় ওই ঘরেই পড়ে থাকা ত্রিশূল হাতে তুলে নিয়ে পিছনের অংশটি তারা গেঁথে দেয় ভাস্করের গলায়। গভীর রাতে তাঁর চিৎকার শুনে ছুটে আসেন আশপাশের বাসিন্দারা। তাঁরা এসে দেখেন, গলায় ত্রিশূল বিঁধে রয়েছে ভাস্করের। তবে ঘরে সেই সময় আর কেউ ছিল না। সঙ্গে সঙ্গে তাঁরাই তাঁকে স্থানীয় জেএনএম হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখান থেকে রেফার করা হয় কলকাতায়। রাতেই এনআরএস হাসপাতালের ইএনটি বিভাগের চিকিৎসকরা অপারেশন করে ওই ত্রিশূল বের করে আনেন। তাঁর অবস্থা স্থিতিশীল বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে। ভাস্কর রামের পরিবারের অভিযোগ, ওর দুই বন্ধু ওকে প্রাণে মারার চেষ্টা করেছে। তাঁদের অভিযোগের ভিত্তিতে রবিবার রাতেই বিক্রম ও জয়কে গ্রেপ্তার করেছে কল্যাণী থানার পুলিস। ঘটনার সঠিক কারণ জানতে তদন্ত শুরু করেছে পুলিস। জানা গিয়েছে, বিক্রম এসএফআইয়ের গয়েশপুর লোকাল কমিটির সম্পাদক এবং জয় হল ওই কমিটির সহ সম্পাদক। দু’জনেই হরিণঘাটা মহাবিদ্যালয়ের ছাত্র। সোমবার ধৃতদের কল্যাণী মহকুমা আদালতে তোলা হলে বিচারক সাতদিনের পুলিস হেফাজতের নির্দেশ দেন।
আদালতে নিয়ে যাওয়ার পথে ধৃত ছাত্রনেতা জয় বণিক বলেন, ‘ওই রাতে আমি ঘটনাস্থলের আশপাশেই ছিলাম না। ছিলাম দাদার জন্মদিনের অনুষ্ঠানে। আমাকে জোর করে বাড়ি থেকে তুলে এনেছে পুলিস। আমি ছাত্র, আমার ভবিষ্যৎ বরবাদ করতেই এই চক্রান্ত।’ গয়েশপুরের ডিওয়াইএফআই নেতা জয় হালদার বলেন, ‘অভিযুক্তরাই বলছেন, তাঁদের ফাঁসানো হয়েছে। আমরা চাই, আইন আইনের পথে চলুক। সত্যিটা সামনে আসুক।’ এদিকে, আক্রান্ত যুবকের বোন সুপর্ণা সেনগুপ্ত বলেন, ‘আমার দাদা শপিংমলে কাজ করেন। অবসরে টিকটক আর ফেসবুক নিয়ে থাকেন। তাই দাদার কমবয়সিরাও বন্ধু হয়ে গিয়েছিল। কোনও রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত নন দাদা। কী কারণে মারা হয়েছে, বলতে পারব না।’ স্থানীয় কাউন্সিলার লক্ষ্মী বাড়ুই বলেন, যাঁকে মারা হয়েছে, তাঁর আশপাশের বাড়ির লোকজন বলছেন, মাঝেমধ্যেই কেউ বা কারা এই বাড়িতে আসত। কিছু একটা ‘ডিলিট’ বলত। কিন্তু সেটা কী, তা আমাদের জানা নেই। আমরা চাই, পুলিস ভাস্করের  ফোন পরীক্ষা করে দেখুক এবং দোষীরা শাস্তি পাক।

29th     November,   2022
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ