বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

চব্বিশে জিতবে না বুঝে এজেন্সির
আতঙ্ক ছড়াচ্ছে বিজেপি: মমতা
‘বিচার হবে জনতার দরবারে’

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ‘চব্বিশে মোদি জিততে পারবেন না’। স্বাধীনতার ৭৫ বছর পূর্তির ঠিক কয়েক ঘণ্টা আগে এমনই দৃপ্ত কণ্ঠে ঘোষণা করলেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তাঁর এই প্রত্যয় মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য বেছে নিলেন বেহালার ম্যান্টনের মঞ্চকে। তিনি সাফ বললেন, ‘বিজেপিও সেটা বুঝে গিয়েছে। তাই এজেন্সি লেলিয়ে ভয় দেখানোর নোংরা খেলায় নেমেছে। বেছে বেছে তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের হেনস্তা করছে ওরা। বিরোধীদের মুখ বন্ধ করার মরিয়া চেষ্টা চালাচ্ছে।’ কিন্তু এতকিছুর পরও যে তিনি বিন্দুমাত্র বিচলিত নন, সেটাও স্পষ্ট বুঝিয়ে দিয়েছেন। একেবারে রুদ্রমূর্তিতে মমতার হুঙ্কার, ‘মরব, তবু ভয় পাব না। পারলে আমার ঘরেও কেন্দ্রীয় এজেন্সি আসুক। বিচার হবে জনতার দরবারে।’ জনতার উদ্দেশে প্রশ্ন ছুড়ে দেন তিনি, ‘আমার জন্য পথে নামবেন তো?’ সমবেত চিৎকারে সায় দিয়েছে জনতা। দৃশ্যতই বিরক্ত নেত্রীর জিজ্ঞাস্য, ‘কী করেছে কেষ্ট? কিছু কি প্রমাণ হয়েছে? ও কখনও এমএলএ-এমপি হতে চায়নি। ওকে রাজ্যসভায় পাঠাতে চেয়েছিলাম। তাও রাজি হয়নি। অথচ, প্রতিবার ভোট এলেই কেষ্টকে ঘরবন্দি করে রাখে! কিন্তু এভাবে আটকানো যাবে না। ছেলেটা কত কষ্ট পাচ্ছে! যেমন খুশি অপবাদ ছড়িয়ে আগে ইমেজ নষ্ট করে দাও। এটাই ওদের কৌশল। তারপর তো কিছুই হয় না! আপনারাই বলুন, গোরুর টাকা কোথা থেকে আসে? বিএসএফ তো চালায় অমিত শাহের মন্ত্রক!’
পরিস্থিতি যতই বিরূপ হোক, মুখোমুখি দাঁড়াতে কখনও ভয় পান না মমতা। এদিন ফের তার প্রমাণ দিয়েছেন তিনি। প্রথমেই বলেছেন, ‘প্রতি বছর এখানে আসি। এবার না এলে ওরা বলত, পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের জন্য ভয় পেয়েছি। আমি ভয় পাই না। আইন আইনের পথে চলবে। বিচারে একদিন সব প্রমাণিত হবে।’ এরপরই অনুব্রতর নাম নিয়ে আক্রমণ শানান বিজেপি এবং কেন্দ্রীয় এজেন্সিকে। বলেন, ‘মানুষের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক স্বাধীনতা থাকা উচিত। কিন্তু ওরা ভেঁপু বাজিয়ে মুখ বন্ধ করতে চাইছে। ঘুম থেকে উঠেই আমাকে অপমান করার পালা চলে ওদের। আসলে ওরা যে আমাকে ভয় পাচ্ছে, সেটা পরিষ্কার।’
বিরোধীরা প্রচার চালাচ্ছে, এবার অনেক তৃণমূল নেতার হাজতবাস নিশ্চিত। সেই প্রসঙ্গ এনে মমতা বলেন, ‘ওরা বলছে, ববিকে ধরবে, অরূপকে ধরবে। তৃণমূল চোর, এটা প্রমাণের মরিয়া চেষ্টা চলছে। ৫০ জন, ১০০ জন নেতার নামের তালিকা নাকি রোজ দিল্লিতে পাঠাচ্ছে। কিন্তু আমিও বলে দিচ্ছি, মরব, তবু মাথা নত করব না। সহকর্মীদের নিয়ে জেল ভরো আন্দোলনের ডাক দেব।’ তাঁর পাল্টা প্রশ্ন, ‘বিজেপির এত টাকা কোথা থেকে এল? মহারাষ্ট্রে সরকার ভাঙার টাকা কে দিল? ওদের বিরুদ্ধে কেন সিবিআই-ইডি হবে না? আমাদের প্রশাসনের আট অফিসারকে ডেকেছে। কারণ, আমাদের অফিসাররাই চোর ধরে ফেলেছে।’ ঝাড়খণ্ডের এমএলএ কাণ্ডের প্রসঙ্গই এদিন মনে করিয়ে দিয়েছেন মমতা। -নিজস্ব চিত্র      

15th     August,   2022
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ