বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

বাগবাজারের প্রতিমা নিরঞ্জন 

শূন্য ভাঁড়ার ভরতে বকেয়া আদায়ে জোর
নোটিস ধরাচ্ছে বারাসত পুরসভা
জেলাশাসকের অফিস থেকে পাওনা এক কোটি টাকারও বেশি

নিজস্ব প্রতিনিধি, বারাসত: তহবিল ফাঁকা। রুটিন কাজ ছাড়া বন্ধ সব উন্নয়নমূলক কাজ। এমনকী অর্থ সঙ্কটের কারণে বন্ধ ভাঙা রাস্তায় প্যাচওয়ার্কের কাজও। এই পরিস্থিতিতে বকেয়া ট্যাক্স আদায় করে রাজস্ব বাড়ানোর পরিকল্পনা নিয়েছে বারাসত পুরসভা। সেই কারণে বিভিন্ন সরকারি অফিস থেকে বকেয়া হোল্ডিং ট্যাক্স আদায়ের জন্য নোটিস দেওয়ার কাজ শুরু করা হয়েছে। তবে ট্যাক্সের পরিমাণ দেখে জেলাশাসক, জেলা পরিষদের কর্তাদের চোখ কপালে উঠতে শুরু করেছে। যদিও পুরসভার তরফে জানানো হয়েছে, দীর্ঘদিন বকেয়া থাকায় ট্যাক্সের পরিমাণ এত বেশি লাগছে। 
পুরসভা সূত্রে জানা গিয়েছে, নতুন বোর্ড গঠন হওয়ার পর পঞ্চদশ অর্থ কমিশনের টাকা ছাড়া সেই অর্থে পুরসভা উন্নয়নমূলক কাজে বড় কোনও অর্থ পায়নি। এদিকে নিজস্ব তহবিলও প্রায় ফাঁকা। তাই বিভিন্নভাবে ট্যাক্স বাড়ানোর পাশাপাশি বকেয়া হোল্ডিং ট্যাক্স আদায়ের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। শহরের বিভিন্ন বাজার এলাকায় গাড়ি পার্কিংয়ের জায়গা করা, পাইকারি সব্জি বাজার ও মাছ বাজারে ট্যাক্স বাড়ানোর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন এলাকায় দোকানের বাইরে স্ট্যান্ড লাগিয়ে নানান সামগ্রী রাখা হয়। সেখানেও ট্যাক্স চাপানোর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। তবে আধিকারিকদের দাবি, এসব করে রাতারাতি বিপুল আয় হওয়া সম্ভব নয়। তাই বকেয়া ট্যাক্স আদায়ের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে শহরের মধ্যে জেলাশাসকের অফিস থেকে শুরু করে অন্যান্য সরকারি দপ্তরে নোটিস পাঠানো হয়েছে। বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের মধ্যে সব থেকে বেশি বাকি রয়েছে জেলাশাসকের অফিসে। ২০২০২২ অর্থবর্ষে বাকি রয়েছে ৪ লক্ষ ৮৯ হাজার ৫৮০ টাকা। ২০০৫ সাল থেকে ১০১৯ সাল পর্যন্ত বকেয়া টাকার পরিমাণ ৯৬ লক্ষ ৬১ হাজার ৬১৫ টাকা। ২০১৩ সাল থেকে জেলা পরিষদের ৩৪ লাখ ৫৮ হাজার ২৪২ টাকা বাকি রয়েছে। জেলা পুলিস অফিসের (হাউজিং) বাকি রয়েছে ৭৫ লক্ষ ৯৫ হাজার ৩৬৪ টাকা। জেলা পুলিস সুপারের অফিসে বাকি রয়েছে ৬ লাখ ৪৮ হাজার ৪৯৯ টাকা। জেলা আদালতের বকেয়া টাকার পরিমাণ ১০ লক্ষ ৯৬ হাজার ৭৪ টাকা। এছাড়া পূর্তদপ্তর, ইলেকট্রিক অফিস, সেচদপ্তর, বনদপ্তরের বিপুল টাকা বাকি রয়েছে। শুধুমাত্র পশুপালন দপ্তর, মৎস্যদপ্তর ও স্টেট ব্যাঙ্কের চলতি অর্থবর্ষের টাকা বাকি রয়েছে। পুরসভার চেয়ারম্যান অশনি মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘পুরসভার নিজস্ব তহবিলে অর্থ খুব একটা নেই। তাই বড় কোনও কাজ করা যাচ্ছে না। সমস্ত দিক থেকে আয় বাড়ানোর জন্য নানান পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। বকেয়া হোল্ডিং ট্যাক্স আদায়ের জন্য সমস্ত সরকারি অফিসে নোটিস পাঠানো হয়েছে।’

8th     August,   2022
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ