বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

তোতাপাখি...। রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে ব্যবহার করা হচ্ছে ইডি ও সিবিআইয়ের মতো কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাকে। এই অভিযোগ তুলে রাজ্যজুড়ে প্রতিবাদ মিছিল তৃণমূল কংগ্রেসের। শনিবার উলুবেড়িয়ায় তোলা নিজস্ব চিত্র।

চাকরির নাম করে লক্ষাধিক টাকা
আত্মসাতে অভিযুক্ত শিক্ষক নেতা
বনগাঁ

নিজস্ব প্রতিনিধি, বারাসত: চাকরি পাইয়ে দেবে বলে ও বদলির নাম করে লক্ষ লক্ষ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে বনগাঁর এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত সুকান্ত মাহাত বনগাঁ হাইস্কুলের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষক। একাধারে তিনি তৃণমূল কংগ্রেসের জেলার আদিবাসী সেলের নেতা। তাঁর বিরুদ্ধে সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রথম মুখ খুলেছেন শাসকদলেরই এক নেতা। তা নিয়ে বিতর্ক তৈরি হতেই বনগাঁ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের প্রতারিত এক ব্যক্তি। এ নিয়ে বনগাঁ শহরে তীব্র চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে। বিরোধীরা এই সুযোগে শাসকদলকে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি। তবে শাসকদলের তরফে বলা হয়েছে, আইন আইনের পথে হাঁটবে। কেউ দোষ করলে তাঁর সাজা হওয়াই বাঞ্ছনীয়।
প্রসঙ্গত, সুকান্ত মাহাতর স্ত্রী ছয়ঘরিয়া গ্রাম পঞ্চায়েতে শাসকদলের সদস্যা। গত ৯ জুন বনগাঁর এক তৃণমূল নেতা সুকান্তবাবুর নামে ফেসবুকে একটি পোস্ট করেন। তাতে লেখা হয়েছিল, ‘বাগদার চন্দনের তো সিবিআই তদন্ত হচ্ছে। এদিকে বনগাঁর ছয়ঘরিয়ায় একজন চন্দন আছেন, যিনি বনগাঁ হাইস্কুলের রাস্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষক। তিনি বনগাঁ, বাগদা সহ গাইঘাটার বহু মানুষের কাছ থেকে চাকরি এবং বদলির নাম কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছেন। প্রতারিতদের বলব, প্রশাসনের দ্বারস্থ হন।’ এরপরই মঙ্গলবার বনগাঁর বাসিন্দা প্রশান্ত কুণ্ডু ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। তাতে তিনি বলেছেন, সুকান্ত মাহাত ওরফে গোপাল আমার মেয়েকে চাকরি পাইয়ে দেওয়ার জন্য স্ট্যাম্প পেপারে সই করে ছ’লক্ষ টাকা নিয়েছেন। চাকরি দিতে না পারলে চলতি বছরের জুনের মধ্যে টাকা ফেরত দেওয়ার কথা বলেছিলেন। কিন্তু সেই টাকা তিনি ফেরত দিচ্ছেন না। এ প্রসঙ্গে সুকান্ত মাহাতর প্রতিক্রিয়া জানতে ফোন করা হলে তিনি ফোন ধরেননি। তবে সোশ্যাল মিডিয়ায় অভিযোগ প্রসঙ্গে ঘনিষ্ঠ মহলে বলেছেন, আমি জেলার আদিবাসী নেতা। ফলে বহু লোক আমার কাছে আসেন। এটা তৃণমূলের কারও হয়তো পছন্দ হচ্ছে না। তাই আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা হচ্ছে। তৃণমূলের বনগাঁ সাংগঠনিক জেলার সভাপতি গোপাল শেঠ বলেন, বিচার ব্যবস্থার উপর আমাদের পূর্ণ আস্থা রয়েছে। আদালত যা রায় দেবে, তা আমরা গ্রহণ করব। দোষ করলে শাস্তি হবে। বিজেপির বনগাঁ সাংগঠনিক জেলার নেতা দেবদাস মণ্ডল বলেন, শাসকদলের রন্ধ্রে রন্ধ্রে দুর্নীতি রয়েছে। চাকরি দেওয়ার নাম করে সর্বত্র বেকার যুবকদের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে। 

7th     July,   2022
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ