বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

কলকাতায় এবার বেসরকারি
নিয়ন্ত্রণে চলবে ই-বাস

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আগামী দিনে বৃহত্তর কলকাতার সরকারি ইলেকট্রিক বাসের (ই-বাস) পরিচালন ব্যবস্থা বেসরকারি হাতে যাচ্ছে। থার্ড পার্টি লিজের মাধ্যমেই এবার মহানগরীতে বাস চলবে। দূষণ রোধ, পরিবেশ আদালতের নির্দেশ এবং প্রচলিত জ্বালানির আকাশ ছোঁয়া মূল্যবৃদ্ধির সৌজন্যে এই সিদ্ধান্ত বলে পরিবহণ দপ্তর সূত্রের খবর। 
কী এই থার্ড পার্টি লিজ? জানা গিয়েছে, এখন থেকে ওয়েস্ট বেঙ্গল ট্রান্সপোর্ট কর্পোরেশনের (ডব্লুবিটিসি) অধীনে যাবতীয় ই-বাস নামাবে বেসরকারি সংস্থা। অর্থাৎ ওই সংস্থাই নিজেদের টাকায় বাস কিনবে। তা চালাতে প্রয়োজনীয় ড্রাইভার, কন্ডাক্টর সহ সমস্ত কর্মীর জোগান দেবে ওই সংস্থাই। বদলে রাজ্য সরকার কিলোমিটার প্রতি একটি সুনির্দিষ্ট টাকা মেটাবে ওই সংস্থাকে। টিকিট বিক্রির টাকা সরকারের ঘরে জমা পড়বে। 
বুধবার এমনই ১০টি ই-বাসের সূচনা করেন পরিবহণ মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। জুলাই মাসের মধ্যে ওই সংস্থা এ ধরনের আরও ৪০টি বাস শহরে নামাতে চলেছে। ২০২৩ সালের মধ্যে বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় আরও ১২০০ ই-বাস নামনোর পরিকল্পনা নিয়েছে পরিবহণ দপ্তর।
উল্লেখ্য, এই মুহূর্তে পুরোপুরি সরকারি পরিচলনায় বৃহত্তর কলকাতায় ৮০টি ইলেকট্রনিক বাস চলছে। আগামীতে রাজ্য সরকার নিজের টাকায় আর এই বাস কেনার প্রক্রিয়ায় যাবে না। সূত্রের দাবি, এবিষয়ে বেসরকারি একটি সংস্থার সঙ্গে পরিবহণ দপ্তরের চুক্তিও সম্পন্ন হয়েছে। যেখানে প্রতি কিলোমিটারে ওই সংস্থাকে ৮৩ টাকা করে দেবে রাজ্য। একই সঙ্গে ওই সংস্থা পরিবহণ দপ্তরের যাবতীয় পরিকাঠামোগত সুযোগও নেবে। অর্থাৎ বাস ডিপো, চার্জিং স্টেশন সহ সমস্ত কিছু ব্যবহার করতে পারবে ওই সংস্থা। এ প্রসঙ্গে পরিবহণ দপ্তরের এক কর্তা বলেন, গোটা প্রক্রিয়া কেন্দ্রীয় সরকারের মস্তিষ্কপ্রসূত। কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহণ মন্ত্রক গোটা দেশে ইলেকট্রনিক গাড়ির উপর বাড়তি গুরুত্ব দিচ্ছে। সেই লক্ষ্যে গণপরিবহণে আরও বেশি করে ই-যানকে রাস্তায় নামাতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করেছে নীতিন গাদকারির মন্ত্রক।
দেশি-বিদেশি বেসরকারি সংস্থাকে ই-গাড়ির বাজারে আনতে নানান উৎসাহ দিচ্ছে মোদি সরকার। গণপরিবহণে যানবাহন নামানো ও তার পরিচালন সহ সমস্ত কিছু সুষ্ঠুভাবে সারতে টেন্ডার হয়েছে। তার মাধ্যমে বিজেপি সরকার ইতিমধ্যেই সংশ্লিষ্ট বেসরকারি সংস্থা নির্বাচন করে দিয়েছে। পশ্চিমবঙ্গ সরকার সেই নীতিতেই বিকল্প জ্বালানির গণপরিবহণ ব্যবস্থার দিকে আরও বেশি করে ঝুঁকছে। বিভাগীয় কর্তাদের দাবি, পরিবেশ আদালতের নির্দেশ মেনে ১৫ বছর বা তার বেশি বয়সী ব্যক্তিগত কিংবা বাণিজ্যিক গাড়ি বাতিলের প্রক্রিয়া ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে। কয়েকদিন আগেই বেসরকারি মালিকদের পরিচালনায় শহরে প্রথম সিএনজি-এসি বাসের উদ্বোধন হয়েছে। এবার থার্ড পার্টি লিজের মাধ্যমে শহরের ইলেকট্রিক বাসের নিয়ন্ত্রণ যেতে বসেছে বেসরকারি হাতে। যদিও ডব্লুবিটিসি’র ছাপ্পা গায় দিয়েই চলবে এই বাসগুলি। ভাড়া নির্ধারণ করবে সরকার। বেসরকারি সংস্থা টিকিট বিক্রি করে যা আয় করবে, তা তুলে দেওয়া হবে সরকারের ঘরে। এদিন মন্ত্রী স্পষ্ট করে দিয়েছেন গণপরিবহণে আগামীদিনে কলকাতায় পরিবেশ বান্ধব যানই অগ্রাধিকার পাবে। সিটি সাবার্বান বাস সার্ভিসেসের সাধারণ সম্পাদক টিটু সাহার কথায়, আমাদের মতো ছোট ছোট মালিকদের একাধিক বাসে লোন রয়েছে। হঠাৎ করে ডিজেল ইঞ্জিনের সব গাড়ি বসে গেলে খাব কি? নবান্নকে বিকল্প ভাবনার আর্জি জানিয়েছেন তিনি।

26th     May,   2022
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ