বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

অধ্যাপক ও শিক্ষাকর্মীদের বচসায় 
পড়ুয়াদের ফর্ম পূরণে বাধা, বিক্ষোভ
চন্দননগর খলিসানি কলেজ

নিজস্ব প্রতিনিধি, চুঁচুড়া: অধ্যাপক ও শিক্ষাকর্মীদের মধ্যে বচসার জেরে মঙ্গলবার উত্তেজনা ছড়াল চন্দননগর খলিসানি কলেজে। নিজেদের অপমানিত দাবি করে শিক্ষাকর্মীরা অধ্যাপকদের ঘেরাও করেন। অফিস সহ কলেজের সদর দরজায় তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হয়। তখন স্নাতকস্তরের ষষ্ঠ সেমেস্টারের ফর্ম পূরণের জন্য অনেক ছাত্রছাত্রী কলেজে উপস্থিত ছিলেন। তাঁদেরও আটকে দেওয়া হয়। তাঁরা পাল্টা বিক্ষোভ শুরু করেন। পরে পুলিস এসে পরিস্থিতি কিছুটা আয়ত্বে আনে। শিক্ষার্থীদের বেরিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়।
তবে শিক্ষাকর্মীরা কর্মবিরতি শুরু করায় শিক্ষার্থীদের অনেকেই ফর্ম পূরণ করতে পারেনি। প্রতিবাদে শিক্ষার্থীদের একাংশ তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নেতৃত্বে বিক্ষোভ শুরু করে। তখন ফের একদফা উত্তেজনা ছড়ায়। যদিও বিকেলের পরে কলেজ কর্তৃপক্ষ নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই সকলের ফর্ম পূরণ করার আশ্বাস দেওয়ায় পরিস্থিতি কিছুটা আয়ত্বে আসে। কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ অরুণকুমার কোলে বলেন, শিক্ষাকর্মী ও একাংশের অধ্যাপকদের মধ্যে মতান্তর হয়েছিল। বিষয়টি গুরুতর কিছু নয়। দু’পক্ষের সঙ্গে কথা বলে আমরা সমস্যা মিটিয়ে নেব। শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার ফর্ম পূরণে জটিলতা তৈরি হওয়ার কারণেই বিষয়টি অন্য আকার নিয়েছিল। এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে। কলেজের শিক্ষাকর্মী সুরজিৎ শী বলেন, এক অধ্যাপকের অমার্জিত ব্যবহার আমাদের আন্দোলন ও কর্মবিরতিতে যেতে বাধ্য করেছে। তবে শিক্ষার্থীদের প্রতি আমরা সহানুভূতিশীল। তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তাঁরা আটকে পড়েছিলেন। আমরা ১৮২ জনের মধ্যে ১৭২ জনের ফর্ম জমা নেওয়ার কাজ শেষ করেছি। বাকিদেরও সুযোগ করে দেওয়া হবে।
কলেজ ও শিক্ষার্থীদের সূত্রে জানা গিয়েছে, এদিন দুপুরে কলেজে স্নাতকস্তরের ষষ্ঠ সেমেস্টারের ফর্ম পূরণের কাজ চলছিল। সেই পর্বেই দুই ঩শিক্ষাকর্মী একটি বিষয় নিয়ে জোরে জোরে কথা বলছিলেন। অভিযোগ, এনিয়ে বাণিজ্য বিভাগের এক অধ্যাপক রূঢ় প্রতিক্রিয়া দেন। শিক্ষাকর্মীরা সেই ব্যবহারের প্রতিবাদ করতে তিনি একজন শিক্ষাকর্মীর দিকে তেড়ে যান। এরপরেই সমস্ত শিক্ষাকর্মীরা একযোগে আন্দোলনে নেমে পড়েন। কলেজে শুরু হয় কর্মবিরতি। তাঁরা সমস্ত দরজা বন্ধ করে দিয়ে অধ্যাপকদের ঘেরাও করেন। ঘটনার জেরে শিক্ষার্থীদের ফর্ম পূরণের কাজ বন্ধ হয়ে যায়। তাঁরা আটকে পড়ায় বিক্ষোভ শুরু করেন। বিক্ষোভ, পাল্টা বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে চূড়ান্ত ডামাডোল শুরু হয়ে যায়। ফলে পুলিসকে কলেজে আসতে হয়। তখন কলেজের গেট খুলে দেওয়া হলেও আন্দোলনে অনড় থেকে ওই অধ্যাপককে ক্ষমা চাওয়ার দাবি তোলেন শিক্ষাকর্মীরা। এদিকে, ফর্ম পূরণ নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হওয়ায় কলেজ থেকে বের হতে পারলেও পাল্টা বিক্ষোভ শুরু করে একাংশের শিক্ষার্থী। পুলিসের মধ্যস্থতায় তাঁদের ফর্ম পূরণের আশ্বাস দেওয়া হলে সেই বিক্ষোভ মিটে যায়। অন্যদিকে, শিক্ষাকর্মীদের দাবি নিয়ে কলেজে বৈঠক করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। -নিজস্ব চিত্র

25th     May,   2022
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ