বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

আজ রাজস্থান ও গুজরাতের আইপিএল ম্যাচ কলকাতায়। সেজে উঠেছে ইডেন গার্ডেন্স। ছবি: দেবাশিস মণ্ডল

সল্টলেকে পরপর ৩ বাড়িতে লুটপাট
দেড় ঘণ্টা ধরে অপারেশন, পুলিসকর্মীর হাত কামড়ে চম্পট

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: দুঃসাহসিক ডাকাতি সল্টলেকে। মঙ্গলবার কাকভোরে এ এইচ ব্লকে এক নামকরা অধ্যাপকের বাড়িতে গ্রিলের দরজা ভেঙে মূল্যবান সামগ্রী লুট করল দুষ্কৃতীরা। স্থানীয়দের বক্তব্য, প্রায় দেড় ঘণ্টা ধরে ব্লকের গলিতে আগ্নেয়াস্ত্র হাতে দাপাদাপি করেছে তারা। তবে শুধু ওই একটি বাড়ি নয়, দুষ্কৃতীরা ব্লকের তিন-চারটি বাড়িতে ডাকাতির টার্গেট করেছিল। শেষমেশ হানা দেয় এ এইচ-১৯৩ নম্বর বাড়িতে। খবর পেয়ে বিধাননগর পূর্ব থানার পুলিস ঘটনাস্থলে এলেও তাঁদের কার্যত বোকা বানিয়ে চম্পট দিল তারা। প্রায় ছ’ফুট উচ্চতার দুই দুষ্কৃতীর হাতে আক্রান্ত হয়ে থানায় ফিরতে হল উর্দিধারীদের। অভিযোগ, তাঁদের হাত কামড়ে দিয়ে পালিয়ে গিয়েছে ডাকাতরা। নিরাপত্তা নিয়ে আতঙ্কে ব্লকের বাসিন্দারা।
১৯৩ নম্বর বাড়ির মালিক প্রণবেশ জানা বলেন, সোমবার ভোর সাড়ে চারটে নাগাদ গ্রিলের দরজা টপকে বাউন্ডারির ভিতরে প্রবেশ করে তিনজন। তাদের মধ্যে দু’জন বাড়ির একতলার গ্রিলের দরজা ভাঙে। ভিতরে ঢুকে ভাড়াটিয়াদের ঘর থেকে মোবাইল ফোন ও ল্যাপটপ চুরি করে। অন্যজন ততক্ষণে পাইপ বেয়ে উপরে ওঠার চেষ্টা করছিল। এই ঘটনা দেখতে পান উল্টোদিকের বাসিন্দা সুমিত গোস্বামী। তিনিই ভোর পৌনে ৫টা নাগাদ বিধাননগর পূর্ব থানায় ফোন করে বিষয়টি জানান। মিনিট দশেকের মধ্যে আসে পুলিসের গাড়ি। পুলিসকর্মীরা মোট পাঁচজন ছিলেন। তখন ওই বাড়ির ভিতরেই ঘাপটি মেরে ছিল দুষ্কৃতীরা। পুলিস ভিতরে ঢুকতেই দু’পক্ষের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়। সূত্রের খবর, সেই সময় আক্রান্ত হন এক কনস্টেবল। তাঁর হাত কামড়ে দেয় দুষ্কৃতীরা। পুলিসকে কার্যত ধরাশায়ী করে বাড়ি থেকে বেরিয়ে পাশের সরু প্যাসেজ দিয়ে পালিয়ে যায় তিন দুষ্কৃতী। পাশের বাড়ির বাসিন্দা শান্তি মহাপাত্র জানিয়েছেন, তাঁর বাড়িতেও দু’জন ঘাপটি মেরে বসেছিল। চিৎকার-চেঁচামেচি শুনে তারাও চম্পট দেয়। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, খালপাড়ের সমান্তরাল একটি রাস্তা দিয়ে দুষ্কৃতীদের পালিয়ে যেতে দেখা গিয়েছে।
ঘটনার সূত্রপাত, ভোর ৪টে নাগাদ। সুমিতবাবু বলেন, তাঁর বাড়ির একতলায় জানালা খুলে টর্চ মারে দুষ্কৃতীরা। তাতে সতর্ক হয়ে যান তাঁর ছেলে সুজয়। তিনিই বাড়ির বাকিদের সতর্ক করেন। তা বুঝতে পেরে দুষ্কৃতীরা সাময়িকভাবে চলে যায়। তবে মিনিট দশেক বাদে তারা ফের আসে। হাতে ছিল দেশি বন্দুক। এরপর তারা ১৯৩ নম্বর বাড়িতে অপারেশনে নামে। প্রথমে দরজা ভাঙতে পারেনি। পরে যন্ত্রপাতি নিয়ে এসে দরজা ভাঙে ডাকাতরা।  
স্থানীয়রা মনে করছেন, বেশ কিছুদিন ধরেই এলাকা রেইকি করেছে ডাকাতরা। তাদের পালানোর ধরন দেখে সেটাই স্পষ্ট হয়েছে। বাসিন্দাদের অভিযোগ, গত কয়েকমাসে ওই ব্লকে একাধিকবার ডাকাতির চেষ্টা হয়েছে। দেড় বছর আগেও তাঁর ফাঁকা বাড়িতে একবার হানা দিয়েছিল দুষ্কৃতীরা, জানিয়েছেন সুমিতবাবু। তিনি বলেন, পুলিসে অভিযোগ করলেও সেই কেসের কোনও সুরাহা হয়নি। এই ঘটনায় কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি বিধাননগর পূর্ব থানার পুলিস। 

26th     January,   2022
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ