বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

ভাঙড়েই শহরের দ্বিতীয় বিমানবন্দর
ছাড়পত্র পেল বালুরঘাট, কোচবিহারও

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা: চাপ বাড়ছে কলকাতা বিমানবন্দরের উপর। সমস্যা সমাধানে উদ্যোগী নবান্ন। রাজ্যের দ্বিতীয় বৃহত্তম আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর তৈরির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে শহরের অদূরেই, দক্ষিণ ২৪ পরগনায়। সব কিছু পরিকল্পনা অনুযায়ী চললে রাজ্যের চতুর্থ বিমানবন্দরটি গড়ে উঠবে ভাঙড়ে। শুক্রবারই ভাঙড়-২ ব্লকে জমি পরিদর্শন করলেন জেলার ভূমি ও ভূমি সংস্কার বিভাগের কর্তা সহ অন্যান্য আধিকারিকরা। পাশাপাশি বালুরঘাট ও কোচবিহার বিমানবন্দরের পরিকাঠামো খতিয়ে দেখে এয়ারপোর্ট অথরিটি অব ইন্ডিয়া বিমান চলাচলের জন্য ছাড়পত্র দিয়েছে বলে নবান্ন সূত্রে খবর। সমানতালে চলছে মালদহ বিমানবন্দর সম্প্রসারণের ব্লুপ্রিন্ট তৈরির কাজ।
নতুন বিমানবন্দরটির রানওয়ের দৈর্ঘ্য হবে ৩ কিমি। দু’দিকে থাকবে ১৫০ মিটার করে ফাঁকা জায়গা। ফলে বোয়িং ৭৭৭-এর মতো বড় বিমানও খুব সহজে উড়ান বা অবতরণ করতে পারবে। আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নিয়ম মেনে তৈরি হবে টার্মিনাল, এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল এবং হ্যাঙ্গার। প্রয়োজন প্রায় ৩ হাজার একর জমি। 
প্রথমে নদীয়ার কল্যাণীতে এই নতুন বিমানবন্দর তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। পরবর্তীকালে সেই সিদ্ধান্ত বদল করে নবান্ন। জমি চিহ্নিত করার জন্য গত ১৫ ডিসেম্বর নির্দেশ দেওয়া হয় দক্ষিণ ২৪ পরগনার জেলাশাসক পি উলগানাথানকে। গত মঙ্গলবার জেলাশাসকদের সাথে ভিডিও কনফারেন্সের সময় নতুন বিমানবন্দর তৈরি নিয়ে ফের এক প্রস্থ আলোচনা করেন মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী। আর তিন দিনের মধ্যেই হল জমি পরিদর্শন। 
অন্যদিকে, সম্প্রতি মালদহের প্রশাসনিক বৈঠকে রাজ্যের তৈরি বিমানবন্দরগুলি দ্রুত চালু করার নির্দেশ দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্যের পক্ষে যোগাযোগ করা হয় এয়ারপোর্ট অথরিটি অব ইন্ডিয়ার সঙ্গে। গত ডিসেম্বর মাসের শেষের দিকেই মালদহ বালুরঘাট ও কোচবিহার বিমানবন্দর পরিদর্শন করে তাদের প্রতিনিধি দল। নবান্ন সূত্রে খবর, পরিকাঠামো দেখে সন্তুষ্ট তারা। রাজ্যের এক আধিকারিক জানান, বালুরঘাট ও কোচবিহার বিমানবন্দর পরিষেবা চালুর জন্য একদম প্রস্তুত। প্রয়োজনীয় ‘ফ্রিকশন টেস্ট’-এর পরেই দু’টি বিমানবন্দর থেকে বিমান চলাচলের জন্য ছাড়পত্র মিলেছে। বালুরঘাট বিমানবন্দরে একটি এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। তবে বর্তমান পরিকাঠামোয় বিমান পরিষেবা শুরু করা সম্ভব। 
ওই আধিকারিক আরও জানান, মালদহ বিমানবন্দর সম্প্রসারণের জন্য আরও কী কী পরিকাঠামো উন্নয়ন প্রয়োজন, তাও রাজ্যকে জানিয়েছে এয়ারপোর্ট অথরিটি। তাদের পরামর্শ অনুযায়ী, অন্তত ৮০টি আসনের বিমান পরিষেবা শুরুর জন্য রানওয়ের দৈর্ঘ্য প্রায় দ্বিগুণ করতে হবে। বর্তমানে মালদহ বিমানবন্দরের রানওয়ের পরিমাপ হলো ১,১০০ মিটার। তা বাড়িয়ে ২,২০০ মিটার করা হবে। এছাড়া টার্মিনাল তৈরি, নিরাপত্তার জন্য এলাকা ঘিরতে আরও অন্তত ৬০ একর জমির প্রয়োজন। খরচ হতে পারে প্রায় ১৫০ থেকে ২০০ কোটি টাকা।

22nd     January,   2022
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ