বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

বৃষ্টিমুখর...। মঙ্গলবার গিরিশ পার্কের কাছে তোলা নিজস্ব চিত্র।

গঙ্গার চর থেকে মাটি ও বালি চুরি
ঠেকাতে হঠাৎ পরিদর্শন বিধায়কের 

নিজস্ব প্রতিনিধি, চুঁচুড়া: চুঁচুড়ার কেওটা সাহাগঞ্জে প্রকাশ্যে চলছে গঙ্গার চর থেকে মাটি, বালি তোলার কাজ। পুলিস-প্রশাসনের চোখের সামনেই প্রতিদিন খালি হচ্ছে গঙ্গার কোল। এমনটাই অভিযোগ স্থানীয় বাসিন্দাদের। তাঁদের দাবি, মাটি মাফিয়াদের বিরুদ্ধে সাহস করে কেউ কথা বলতে পারে না। কারণ তারা যেমন দলে ভারী, তেমনই সঙ্গে থাকে দুষ্কৃতী বাহিনী। এই অঞ্চলে কান পাতলেই শোনা যায় মাটি পাচারের গল্প। মৌখিক অভিযোগ পেয়ে সোমবার আচমকা সেই চরে হাজির হয়েছিলেন চুঁচুড়ার বিধায়ক। এলাকায় গিয়ে তিনি অবশ্য মাটি মাফিয়াদের ধরতে পারেননি। কিন্তু অবৈধভাবে যে মাটি কাটা হচ্ছে, তার বিস্তর প্রমাণ পেয়েছেন। আর তারপর বিধায়কের গলাতেও উঠে এসেছে আমজনতার অভিযোগের সুর। তিনি বলেছেন, এনিয়ে অবিলম্বে জেলাশাসকের সঙ্গে কথা বলবেন।
অভিযোগ, শুধু কেওটা নিয়ে নয়, হুগলির বিস্তীর্ণ এলাকায় অবৈধভাবে মাটি কাটার কাজ চলছে রমরমিয়ে। আরামবাগ থেকে চণ্ডীতলা, উত্তরপাড়া থেকে ধনেখালি, পোলবা থেকে তারকেশ্বর— নদীর চর কাটার কাজে বিরাম নেই। এর সঙ্গে আছে অবৈধ বালি খাদান। আরামবাগ মহকুমার আর্থ-সামাজিক সমস্যা ও অর্থনীতির পরিবর্তনের মূলে আছে বালি খাদান। অতীতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জেলায় প্রশাসনিক বৈঠক করতে এসে অবৈধ বালি খাদান ও তা নিয়ে অসামাজিক পরিবেশের প্রশ্ন তুলে পুলিসকে সতর্ক করেছিলেন। প্রায় দু’বছর আগের সেই বৈঠক থেকে মাটি কাটা নিয়েও প্রশাসনকে প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়েছিল। সেই ধারা যে অবিচ্ছিন্নভাবে চলছে, সোমবার তারই সাক্ষ্য সংগ্রহ করেন বিধায়ক অসিত মজুমদার।
অবশ্য বিধায়কের এদিনের অভিযানের পরে রাজনৈতিক চাপান-উতোর শুরু হয়েছে। এদিন অসিতবাবু গঙ্গার চর কেটে নেওয়া প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় সরকারকে দায়ী করেছেন। তিনি বলেন, গঙ্গা পোর্ট ট্রাস্ট দেখাশোনা করে। কেন্দ্রীয় সরকার গঙ্গা বাঁচাতে কোনও উদ্যোগ নিচ্ছে না। তার জেরেই এই ধরনের সমস্যা তৈরি হচ্ছে। তবে স্থানীয় স্তরে সমস্যার কোনও সমাধান করা যায় কি না, তা নিয়ে জেলাশাসকের সঙ্গে কথা বলব। অসিতবাবুর অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে বিজেপি নেতা স্বপন পাল বলেন, গোটা জেলাতেই অবৈধভাবে মাটি কাটার কাজ চলছে। গঙ্গাও তার ব্যতিক্রম নয়। আর সবটাই চলছে তৃণমূল নেতাদের মদতে। কেউ কেউ সেখানে লোক দেখানো অভিযান করছেন। কিন্তু স্থানীয় প্রশাসনের কি কোনও ভূমিকা নেই? আইন কী বলে? মানুষকে বোকা বানানোর একটা সীমা আছে। বিধায়ক ঘনিষ্ঠদের সূত্রে জানা গিয়েছে, কেওটা এলাকার মানুষের অভিযোগের ভিত্তিতেই এদিন বিধায়ক অভিযানে যান। তিনি গিয়ে দেখেন, মাটি মাফিয়ারা এদিন মাটি ও বালি কাটতে আসেনি। কিন্তু গঙ্গার চরে বালি কাটার নমুনা ছড়িয়ে রয়েছে। লরিতে করে বালি, মাটি নিয়ে যাওয়ার জন্য মাফিয়ারা চর পর্যন্ত রাস্তাও বানিয়ে ফেলেছে। চোরাগোপ্তা চুরি নয়, এ যেন দিনেদুপুরে ডাকাতি। জেসিবি মেশিন দিয়ে বালি তোলার চিহ্ন সেখানে বর্তমান। ফলে বাসিন্দাদের অভিযোগের বাস্তবতা খুঁজে পেয়েছেন বিধায়ক। কিন্তু এতে সমস্যা কতটা মিটবে, সেটাই দেখার। 

18th     January,   2022
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ