বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

সাধারণতন্ত্র দিবস উপলক্ষে জাতীয় পতাকার রঙের আলোয় সেজেছে জিপিও। ছবি: সায়ন চক্রবর্তী

পিছিয়ে গেল ৩ মাস, শিয়ালদহ
থেকে মেট্রো ছুটতে পারে মার্চে

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: অপেক্ষা আরও দীর্ঘায়িত হল। নতুন বছরের গোড়ায় মেট্রোয় চেপে শিয়ালদহে যাওয়ার স্বাদ অপূর্ণই থাকছে যাত্রীদের। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে ফুলবাগান থেকে পাতালপথে শিয়ালদহ পর্যন্ত ট্রেন ছুটবে মার্চ মাসে। ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোয় মূলত ‘ফায়ার সেফটি ডোর’-এর জোগানে ঘাটতির কারণেই এই সমস্যা দেখা দিয়েছে। জানা গিয়েছে, ভিন রাজ্য থেকে এই ‘ডোর’ আনতে বিলম্ব হতে পারে। সেকারণেই পিছিয়ে গিয়েছে গোটা পরিকল্পনা। সূত্রের দাবি, জানুয়ারিতে শিয়ালদহ পর্যন্ত মেট্রো চালানোর লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু করোনার জেরে ওই সব সামগ্রী ঠিক সময়ে সরবরাহ করতে পারেনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। ফলস্বরূপ, সমগ্র পরিকল্পনা পিছিয়ে গেল আরও তিন মাস। দমকল দপ্তরের এক আমলার কথায়, ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো রূপায়ণকারী সংস্থা কলকাতা মেট্রো রেল কর্পোরেশন (কেএমআরসিএল) সম্প্রতি অগ্নিসুরক্ষা বিধি সংক্রান্ত ছাড়পত্রের জন্য আবেদন করেছে। কিন্তু ন্যাশনাল বিল্ডিং কোড অনুযায়ী, মাটির নীচে এই ধরনের নির্মাণের ক্ষেত্রে ‘ফায়ার সেফটি ডোর’ লাগানো আবশ্যিক। শিয়ালদহ স্টেশনে এখনও এই ডোর বসানোর কাজ শেষ হয়নি। ওই কাজ শেষ হলে দমকলের তরফে পরিদর্শন করা হবে। তারপর দেওয়া হবে ছাড়পত্র।
দেরির বিষয়টি স্বীকার করে নিয়েছেন কলকাতা মেট্রো রেলের জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) মনোজ যোশি। তাঁর কথায়, করোনার জন্য কাজের গতি শ্লথ হওয়ায় ভিন রাজ্য থেকে ‘ফারার সেফটি ডোর’ আসতে দেরি হয়েছে। কারণ, গোটা দেশে হাতে গোনা কয়েকটি সংস্থা এই অগ্নি নিরোধক সামগ্রী তৈরি করে। তারা জানিয়েছে, করোনার জন্য সেফটি ডোর তৈরির কাজে ভাটা পড়ে঩ছে। তাই গোটা পরিকল্পনা খানিকটা পিছিয়ে দিতে হয়েছে।  যোশি বলেন, এই মুহূর্তে ভূগর্ভে শিয়ালদহ স্টেশনে ‘ফায়ার সেফটি ডোর’ বসানোর কাজ চলছে। কিছুদিনের মধ্যেই তা শেষ হবে। তারপর রাজ্য দমকল দপ্তর পরিদর্শন করবে। অগ্নিনির্বাপণ সংক্রান্ত ছাড়পত্র পেলেই আমরা কমিশন অব রেলওলে সেফটির (সিআরএস) কাছে আবেদন করব। কেন্দ্রীয় অসামরিক বিমান মন্ত্রকের অধীনে থাকা সিআরএস মূলত  নতুন পথে ভারতীয় রেল এবং মেট্রোর যাত্রার সার্বিক নিরাপত্তা ও গুণমান খতিয়ে দেখে। সিআরএসের ছাড়পত্র মিললেই মেট্রোর চাকা গড়াবে শিয়ালদহ অবধি।
এ প্রসঙ্গে মনোজ যোশি বলেন, এ বছরের শেষেই সেই আবেদন জমা পড়বে। তারপর সিআরএস নয়া রুটের বিভিন্ন তথ্য জানতে চাইতে পারে। এমনকী, বেশ কিছু ক্ষেত্রে সংযোজন বিয়োজনও করতে পারে তারা। সার্বিকভাবে সিআরএস সন্তুষ্ট হলে চূড়ান্ত পরিদর্শনে আসবেন সংস্থার কর্তারা। তারা লিখিতভাবে ছাড়পত্র দিলেই মাটির নীচে ফুলবাগান থেকে শিয়ালদহ পর্যন্ত ছুটতে শুরু করবে মেট্রো। উল্লেখ্য, কেএমআরসিএলের ম্যানেজিং ডিরেক্টর মানস সরকার আগামী মার্চে অবসর নিতে চলেছেন। স্বভাবতই তার আগে সেক্টর ফাইভ থেকে শিয়ালদহ পথে মেট্রো চালু করে দিতে মরিয়া কর্তারা।
কী এই ‘ফায়ার সেফটি ডোর’? জানা গিয়েছে, মেট্রোর ইলেকট্রিক্যাল, সিগন্যালিং, টেলি কমিউনিকেশন রুমে এই বিশেষ দরজা লাগানো হয়। অগ্নিনির্বাপক সামগ্রী দিয়ে তৈরি এই দরজা আগুনকে বাইরে আসতে দেয় না। আসলে কোনও কারণে আগুন লাগলে ওই নির্দিষ্ট ঘরেই সীমাবদ্ধ থাকবে তা। অর্থাৎ আগুন ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা দূর হবে। সেক্ষেত্রে সেই আগুনকে সহজেই নিয়ন্ত্রণে আনা যাবে।

30th     November,   2021
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021