বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

ফেসবুকের ভুয়ো প্রোফাইলে ‘বান্ধবীর’ 
ডাকে সাড়া, পুলিসের জালে প্রতারক
অপরাধের ইতিহাস দেখে বিস্মিত তদন্তকারীরা

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ফেসবুকে ভুয়ো প্রোফাইল খুলে, রীতিমতো ফিল্মি কায়দায় এক কুখ্যাত প্রতারককে পাকড়াও করল কলকাতা পুলিস। শুধু কলকাতা নয়, দিল্লি, আমেদাবাদ, লখনউয়ের মতো অনেক শহরেই নানা ধরনের ঠগবাজি, প্রতারণার সঙ্গে জড়িত ছিল এই অভিযুক্ত। এমনকী হায়দরাবাদ ও পোর্ট ব্লেয়ারে সে জেলও খেটেছে আগে। সম্প্রতি এই গ্রেপ্তারির কথা জানা গিয়েছে কলকাতা পুলিস সূত্রে। তারা আরও জানিয়েছে, একাধিক নাম ব্যবহার করত এই অভিযুক্ত। এর জন্য একই ছবি দেওয়া একাধিক প্যান কার্ড, আধার কার্ড ইত্যাদি সে ব্যবহার করত। অবশেষে কলকাতা পুলিসের এক মহিলা এসআইয়ের ভুয়ো ফেসবুক প্রোফাইল এবং সেখান থেকে কলকাতার মিলেনিয়াম পার্কে ‘বান্ধবী’র সঙ্গে দেখা করার আমন্ত্রণ ফেলতে না পেরে পুলিসের জালে ধরা পড়ে যায় প্রতারক। 
কলকাতা পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে, ঘটনার সূত্রপাত গত আগস্ট মাসে। অঙ্গদ মেহতা নামে এক ক্রেতা গড়িয়াহাটের এক অলঙ্কার বিক্রেতার কাছে প্রায় ১ লক্ষ ৯০ হাজার টাকার গয়নার বরাত দেন। ‘ক্যাশ অন ডেলিভারি’ পদ্ধতিতে হিন্দুস্থান পার্কের এক গেস্ট হাউসে ওই গয়না ক্রেতার হাতে তুলে দেওয়া হবে বলে ঠিক হয়। সেই মতো গয়না নিয়ে ওই গেস্ট হাউসে পৌঁছন দোকানের দু’জন কর্মী। তাঁদের হাত থেকে গয়নাগুলি নিয়ে স্ত্রীকে দেখিয়ে টাকাটা আনছেন বলে উধাও হয়ে যান অঙ্গদ মেহতা নামের ওই ক্রেতা। গড়িয়াহাট থানায় এফআইআর দায়ের করেন ওই বিক্রেতা। তদন্তের শুরুতে গেস্ট হাউস কর্তৃপক্ষের কাছে থাকা একটি ছবি ছাড়া আর কোনও সূত্র ছিল না পুলিসের হাতে। তখনই তদন্তকারীরা ফেসবুকে ভুয়ো প্রোফাইল খুলে তাকে ফাঁদে ফেলার চেষ্টা শুরু করেন। গড়িয়াহাট থানার সাব-ইন্সপেক্টর দিশা মুখোপাধ্যায় পায়েল শর্মা নামে একটি প্রোফাইল খোলেন। অঙ্গদকে খুঁজে বের করে তার সঙ্গে ‘বন্ধুত্ব’ করে ফেলেন। সে তখন অন্ধ্রপ্রদেশে। কিন্তু নতুন ‘বান্ধবী’র তরফে কলকাতায় আমন্ত্রণ ফেলতে পারেনি প্রতারক। গত ৪ সেপ্টেম্বর মিলেনিয়াম পার্কে পায়েলের সঙ্গে দেখা করতে আসে অঙ্গদ। আগে থেকেই পুলিসি ব্যবস্থা ছিল। তথাকথিত অঙ্গদ মেহতাকে গ্রেপ্তার করতে দেরি করেনি পুলিস। তাকে জেরা করতে গিয়েই পুলিসের কার্যত চমকে ওঠার পালা শুরু হয়। তদন্তকারীরা জানতে পারেন, ২০১৮ সালে হায়দরাবাদে তিন বছরের কারাদণ্ড হয়েছিল এই ব্যক্তিরই। তারও আগে আন্দামানের পোর্ট ব্লেয়ারে কিছুদিন কারাবাস হয় তার। তবে তার নাম ছিল আলাদা। তদন্তে জানা যায়, হর্ষ ওবেরয়, সার্থক রাও বাবরস সহ আরও কয়েকটি নামে তার ভুয়ো পরিচয়পত্র রয়েছে। সল্টলেকের একটি গেস্ট হাউসে হানা দিয়ে সেগুলি বাজেয়াপ্ত করে পুলিস। ভুয়ো পরিচয়পত্র দেখিয়েই সে গড়িয়াহাটে গয়নার বরাত দেয়। দেশের বিভিন্ন বড় শহরের পাঁচতারা হোটেলে থেকে বিল না মিটিয়ে চুপচাপ সটকে পড়া, টাকা হাতিয়ে নেওয়ার মতো নানা অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। তার সঙ্গে আরও কারা কারা জড়িত, তা জানতে তদন্ত চালাচ্ছে কলকাতা পুলিস। 

15th     September,   2021
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021