বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

করোনার গ্রাসে পুজোর মুখে
বিষাদের বোল সঙ্গী ঢাকিদের

অলকাভ নিয়োগী, বারাকপুর: নীল আকাশের গায়ে ডানা মেলে উড়ছে সাদা মেঘ। বাতাসে শিশির ভেজা শিউলির গন্ধ। নদীর পাড়ে পেখম মেলেছে  কাশফুল। হ্যাঁ, পুজো আসছে। বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব। পুজো মানেই ঢাকের শব্দ, ধুনোর গন্ধ। কিন্তু, এবার ‘তাক ডুম, তাক ডুম’ বোলের আড়ালে শুধুই বিষাদ। পুজোর মুখেও বায়না নেই। করোনার জেরে বন্ধ বিদেশভ্রমণও। মুখ ফিরিয়েছে ভিন রাজ্যের পুজো কমিটিরাও। তাই পেট চালাতে সবজি বিক্রি করতে হচ্ছে মছলন্দপুরের প্রবীণ ঢাকি ‘বিশ্বজয়ী’ গোকুলচন্দ্র দাসের ছোট ছেলে নেপালকে। 
গোকুলবাবু বাংলার নামী ঢাক শিল্পী। মছলন্দপুর বিধানপল্লীতে বাড়ি। বাংলার ঢাক নিয়ে তিনি আমেরিকা, চীন, কানাডা, নরওয়ে, জাপান, শ্রীলঙ্কা, বাংলাদেশ সহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ মাতিয়ে দিয়েছেন। দেশের প্রায় সমস্ত রাজ্য তাঁর ঘোরা। বাবার স্মৃতিতে ‘মছলন্দপুর মতিলাল ঢাকি ডট কম’ নামে একটি প্রতিষ্ঠানও খুলেছেন গোকুলবাবু। পুরুষ ও মহিলা মিলিয়ে যে সংস্থার সদস্য সংখ্যা প্রায় দেড়শো। ফি বছর পুজোর সময় তাঁদের নাওয়া-খাওয়ার সময় থাকে না। প্লেনের টিকিট কাটা, ভিসা করানো, দিনভর অনুশীলনেই ব্যস্ত থাকতে হয়। চার-পাঁচমাস আগে থেকেই তৈরি হয় শারদোৎসবের সূচি। কিন্তু এবার বিধি বাম। শিয়রে পুজো হলেও ঢাক বাজানোর ডাক নেই। ঘরের কোনায় মুখ লুকিয়ে লাল কাপড়ে মোড়া যত্নের তালবাদ্য। 
গত বছরেই মিলেছিল ‘শিরে সংক্রান্তি’-র আভাস। তারপর দিন এগনোর সঙ্গে সঙ্গে খালি হয়েছে ভাঁড়ার। তাই বাধ্য হয়ে সংসার চালাতে বহু ঢাকিকেই অন্য পেশায় যেতে হয়েছে। কেউ ভ্যান বা টোটো চালাচ্ছেন, কেউ বা আবার ফেরি করছেন মাছ। অতীতে পুজোর মুখে তাঁদের মুখে লেগে থাকত চওড়া হাসি। আর এবার সঙ্গী বুকচাপা কান্না। 
গোকুলবাবুর ছোট ছেলে নেপাল দাস একজন প্রতিশ্রুতিসম্পন্ন ঢাকি শিল্পী। বাজিয়েছেন দেশের বিভিন্ন প্রান্তে। কিন্তু এখন ভরসা পটল, উচ্ছে, কুমড়ো বিক্রিই। ছেলের এই দশায় ভারাক্রান্ত বাবার মন। তাঁর মন্তব্য, ‘করোনার জেরে আমাদের অবস্থা খুবই খারাপ।  গত দু’বছর পুজোয় বিদেশ ভ্রমণ সম্পূর্ণ বন্ধ। ভিন রাজ্যেও ডাক নেই। আমাদের সদস্য গোবিন্দ দাস ২০১৯’এর পুজোয় অস্ট্রেলিয়া গিয়েছিলেন। তাঁকে এখন ভ্যান চালাতে হচ্ছে। মাছ বিক্রি করছেন তানজানিয়া কাঁপানো সন্তোষ দাস। জানি না, এই দুরবস্থা কবে কাটবে। মা দুগ্গার সামনে আবার ঢাক বাজাতে পারব তো? দেবী তো মহিষাসুর বধ করেছিলেন। এবার করোনাসুরকে মেরে নিশ্চয়ই তিনি আমাদের সুখের দিন ফিরিয়ে দেবেন।’ 

15th     September,   2021
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
31st     May,   2021
30th     May,   2021