বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

‘ওরা কষ্ট পাচ্ছে’, ভার্চুয়াল মাধ্যমে বিনামূল্যে
রোগী দেখছেন করোনায় আক্রান্ত চিকিৎসক

সৌম্যজিৎ সাহা, দক্ষিণ ২৪ পরগনা: ডাক্তারদের ভগবানের দ্বিতীয় রূপ বলেন অনেকেই। করোনায় আক্রান্ত বহু মানুষকে সুস্থ করে তুলেছেন এই ডাক্তাররা। নিরন্তর লড়াই চলছে দিনরাত। আর ডাক্তার নিজে আক্রান্ত হওয়া সত্ত্বেও ঘরে বসে অনলাইন আর ফোনে চিকিৎসা করে চলেছেন, এমন খবরও শোনা যাচ্ছে ইতিউতি। বারুইপুরের ইন্দ্রনীল বর্গী এমনই এক ডাক্তার, যিনি করোনায় আক্রান্ত হয়েও দায়িত্বে অবিচল। ঘরে বসেই নিখরচায় চিকিৎসা করে চলেছেন মানুষের। শুধু রাজ্য নয়, ভিন রাজ্য থেকেও বহু রোগী যোগাযোগ করছেন তাঁর সঙ্গে। কাউকে দিচ্ছেন ওষুধ, আবার কাউকে অক্সিজেন ব্যবহারের টোটকা বাতলে দিচ্ছেন। সবটাই চলছে ফোনের এপার থেকে। সুস্থ হওয়ার পর ধন্যবাদ জানাতে ভুলছেন না রোগী ও তাঁদের আত্মীয়রা।
বর্তমানে ইন্দ্রনীলবাবু গোসাবার ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক পদে কর্মরত। কিছুদিন আগে করোনায় আক্রান্ত হন তিনি। তারপর থেকে সাউথ গড়িয়ার বাড়িতে হোম আইসোলেশন আছেন এই চিকিৎসক। প্রথম কয়েকদিন শারীরিকভাবে দুর্বল থাকলেও, বিভিন্ন জায়গা থেকে যেভাবে সাধারণ মানুষ তাঁর সাহায্য চেয়ে ফোন করেছেন, তাতে আর নিজেকে আটকে রাখতে পারেননি তিনি। খানিকটা সুস্থ হতেই ফোন তুলে সাড়া দিয়েছেন। প্রতিদিন ৩০ থেকে ৪০ জন করোনা রোগীর চিকিৎসা করছেন ইন্দ্রনীলবাবু। তাঁর কথায়, ‘প্রথমে বন্ধুবান্ধব ও পরিচিতরা ফোন করত। তাঁরাই আবার অনেককে আমার ফোন নম্বর দেন। পরে এমন অনেকেই ফোন করেছেন, যাঁদের সঙ্গে আমার পরিচয় নেই। সমস্যার কথা শুনে সাধ্যমতো চিকিৎসা করেছি। তাঁদের সুস্থ করে তোলার চেষ্টা করেছি। যেমন দিল্লির এক বাসিন্দা ফোন করে পরামর্শ চেয়েছিলেন। সেখানে লকডাউন চলায় বাইরে বেরতে পারছেন না।’ তিনি কোনওভাবে জোগাড় করেন ডাঃ ইন্দ্রনীল বর্গীর মোবাইল নম্বর। তারপর ফোনেই জেনে নেন এই ভাইরাসকে পর্যদুস্ত করার টোটকা। ওই চিকিৎসক বলেন, ‘দিল্লি, পাঞ্জাব, চণ্ডীগড় ইত্যাদি রাজ্য থেকে প্রচুর ফোন পেয়েছি। স্থানীয় ডাক্তার যে ওষুধ লিখে দিয়েছেন, তা পাচ্ছিলেন না একজন। বিকল্প ওষুধের সন্ধান পেতেই ফোন করেছিলেন তিনি। এক রোগীর আত্মীয় জানান, সঙ্কটজনক অবস্থা থেকে এক ৯৫ বছরের বৃদ্ধাকে সুস্থতার পথে নিয়ে এসেছেন ইন্দ্রনীলবাবু। ফেসবুকে চিকিৎসকের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন সেই বৃদ্ধার পরিবারের এক সদস্য। 
এখনও পর্যন্ত এক হাজারের বেশি করোনা ও অন্যান্য রোগে আক্রান্তদের চিকিৎসা করেছেন এই চিকিৎসক। এই কঠিন পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়াতে কখনই কুণ্ঠাবোধ করেননি, জানিয়েছেন তিনি। অসুস্থতা নিয়েও যে যখন সাহায্য চেয়েছেন, চেষ্টা করেছি সমাধান সূত্র বের করার। ডাক্তারি তাঁর পেশা হলেও, বর্তমানে সঙ্কটময় পরিস্থিতিতে বিনা পারিশ্রমিকেই পরিষেবা দিয়েছেন রোগীদের। এ প্রসঙ্গে ইন্দ্রনীলবাবুর বক্তব্য, পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকলে অবশ্যই ফি নিতাম। কিন্তু এখন সেই পরিস্থিতি নেই। মানুষ নানা সমস্যার মধ্যে রয়েছেন। তাই টাকার কথা না ভেবেই তাঁদের চিকিৎসা দিয়ে সাহায্য করছি।

5th     May,   2021
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
কিংবদন্তী গৌতম
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
9th     May,   2021