বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

রুজিরাকে মুখোমুখি বসিয়ে জেরা করল সিবিআই
অ্যাকাউন্টের তথ্য জানতে থাইল্যান্ডের
ব্যাঙ্কে চিঠি যাচ্ছে বিদেশ মন্ত্রক মারফত  

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: সিবিআইয়ের মুখোমুখি হলেন অভিষেকের স্ত্রী রুজিরা নারুলা বন্দ্যোপাধ্যায়। মঙ্গলবার তাঁকে প্রায় দেড় ঘণ্টা জেরা করেন তদন্তকারী অফিসাররা। কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার দাবি, সহযোগিতা পেলেও বেশকিছু প্রশ্নের উত্তরে তাঁরা সন্তুষ্ট নন। তাঁর উত্তরের কপি দিল্লিতে পাঠানো হয়েছে। রুজিরা ও তাঁর বোনকে ফের ডাকার জন্য প্রস্তুতি শুরু করেছেন সিবিআই কর্তারা। দু’-একদিনের মধ্যে এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে সিবিআই সূত্র। তবে দ্বিতীয়বারের জেরা পর্ব রুজিরার বাসভবন শান্তিনিকেতনে হবে না বলে ওই সূত্রে এমনই ইঙ্গিত মিলেছে। এদিন সকাল সাড়ে ১১টা নাগাদ অভিষেকের বাড়িতে আসেন ছয়জনের এক তদন্তকারী দল। তাতে ছিলেন এসপি ও অ্যাডিশনাল এসপি পদমর্যাদার অফিসাররা। সিবিআই টিম প্রবেশের মিনিট ১০ আগে অভিষেকের বাড়িতে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অল্প সময়ের মধ্যেই তিনি বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান। যা নিয়ে জোর জল্পনা শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে।
শান্তিনিকেতনে বিল্ডিংয়ের গ্রাউন্ড ফ্লেরে ঢোকেন সিবিআই অফিসাররা। টিমে ছিলেন আইনজীবীরা। সেখানে আইনজীবীকে সঙ্গে নিয়ে অপেক্ষা করছিলেন রুজিরা। জানতে চান, কেন তাঁকে জেরা করতে চাইছে সিবিআই। অফিসাররা বলেন, কয়লা-কাণ্ডে বেশকিছু রহস্যজনক লেনদেন হয়েছে তাঁর অ্যাকাউন্টে। সেই বিষয় নিয়েই তাঁরা কথা বলবেন। ব্যাঙ্ককের একটি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট নম্বর দেখিয়ে অফিসাররা জানতে চান, সেটি তাঁর অ্যাকাউন্ট কি না। যদি তাঁর হয়ে থাকে তাহলে কবে খোলা হয়েছিল? জানা গিয়েছে, রুজিরা জানিয়েছেন এটি তাঁরই অ্যাকাউন্ট। অনেক আগেই খোলা হয়েছিল। আর তিনি থাইল্যান্ডে বড় হয়েছেন। সেখানে পড়াশুনা করেছেন। তাই সেখানে তাঁর অ্যাকাউন্ট রয়েছে। আর তাঁদের পারিবারিক ব্যবসা রয়েছে। অফিসাররা প্রশ্ন করেন, কয়লা পাচারের টাকা তাঁর অ্যাকাউন্টে ঢুকেছে এই বিষয়টি কী তাঁর জানা আছে? রুজিরা সিবিআইকে জানান, এনিয়ে তিনি কিছুই জানেন না। এপর্যন্ত সবকিছু ঠিকঠাকই চলছিল। তাঁর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে যে-সমস্ত লেনদেন হয়েছে সেই নথি ও প্রশ্ন তুলে ধরতেই রুজিরা সিবিআইকে জানান, এনিয়ে তিনি কিছুই বলতে পারবেন না। তাঁর সিএ বা অন্যরা জানতে পারেন। এই টাকার উৎস নিয়ে জিজ্ঞাসা করা হলেও অভিষেকের স্ত্রী উত্তর এ঩ড়িয়ে গিয়েছেন বলে সিবিআই দাবি করেছে। পারিবারিক ব্যবসার জন্য কয়টি কোম্পানি খোলা হয়েছিল এবং তাঁর লেনদেনের বিষয়ে সিবিআই জানতে চাইলে রুজিরা বলেন, এসব সিএ-রা বলতে পারবেন। এমনকী তাঁর বোনের সঙ্গে বিদেশে টাকা লেনদেনের প্রসঙ্গ উঠে এলেও তিনি এনিয়ে একটি শব্দও খরচ করেননি বলে সিবিআই সূত্রে জানা গিয়েছে। এমনকী তাঁর ঘন ঘন বিদেশে যাত্রা নিয়ে প্রশ্ন করেন সিবিআই অফিসাররা। রুজিরা জানান, থাইল্যান্ডে তাঁদের গোটা পরিবার রয়েছে। তাই তাঁকে যেতে হতো বিভিন্ন সময়ে। তাঁর পুরো বক্তব্য ভিডিওগ্রাফি করা হয়েছে। বেলা ১টা ১০ মিনিট নাগাদ তদন্তকারী অফিসাররা তাঁর বাড়ি ছাড়েন। তাঁর ও মেনকা গম্ভীরের বয়ান এদিন বিকেলে মিলিয়ে দেখার কাজ শুরু করেছেন তাঁরা। এই কাটাছেঁড়া শেষ হলে পরবর্তী পদক্ষেপ স্থির করা হবে বলে সিবিআই সূত্রে জানা গিয়েছে।
সিবিআই আরও জানিয়েছে, থাইল্যান্ডের যে-ব্যাঙ্কে রুজিরার অ্যাকাউন্টগুলি রয়েছে, সেই ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষকে চিঠি পাঠাচ্ছে তারা। ব্যাঙ্কের কাছ থেকে রুজিরার অ্যাকাউন্টগুলি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য চায় সিবিআই। আর চায় লেনেদেনের বিস্তারিত খতিয়ান। ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষকে চিঠি পাঠানো হচ্ছে ভারতের বিদেশ মন্ত্রক মারফত।  

24th     February,   2021
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
কিংবদন্তী গৌতম
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 
হরিপদ
 
7th     March,   2021