গল্পের পাতা

গুরুদ্বার সিস গঞ্জ

সমৃদ্ধ দত্ত: দিল্লি দেখতে এসে চাঁদনী চক যাওয়া হবে না? তা কীভাবে হয়? অতএব দেশ ও বিদেশের পর্যটকদের অত্যন্ত প্রিয় ভ্রমণস্থল চাঁদনী চক। আধুনিক ঝকঝকে নতুন দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবন, নর্থ ব্লক, সাউথ ব্লক, ইন্ডিয়া গেটের রাজকীয় ঔপনিবেশিক এক ইতিহাসের ক্যানভাস থেকে বেরিয়ে মিনিট কুড়ির মধ্যেই যেখানে পৌঁছনো যাবে সেটাই একদা শাহজাহানাবাদ। যে নগরী নির্মাণ করেন সম্রাট শাহজাহান। আর এই হল বাহাদুর শাহ জাফর মার্গ। শেষ মুঘল সম্রাটের নামের এই রাজপথ আদতে একটি ইতিহাস বই। কারণ এই পথ ধরে চলতে শুরু করলে কিছুক্ষণ পর মনে হবেই যে, আশপাশে যা দেখতে পাচ্ছি, সেসব তো এতকাল ছিল সিলেবাসের বই আর পরীক্ষার খাতায়। ওই যে ডানদিকে চলে গেল ফিরোজ শাহ কোটলা। ফিরোজ শাহ তুঘলকের তৈরি করা এক কেল্লা। কেন বিখ্যাত এই কেল্লা? জিনের জন্য। এখানে নাকি অশরীরী জিন ঘুরে বেড়ায়। ফিরোজ শাহ কোটলা ছাড়িয়ে আরও এগিয়ে যেতে হবে। জামা মসজিদের গলিতে ঢুকলেই মনে হবে এখনই যেন একটি সিঁড়ি থেকে নামতে দেখা যাবে মির্জা বেগ আসাদুল্লা খান গালিবকে। চৌরি বাজারের কাছে একঝাঁক জুতোর দোকানের গলির আড়ালে থাকা বাল্লি মারানে যে তাঁর হাভেলি লুকিয়ে আছে, সেটা বাইরের ব্যস্ত আবহ থেকে বোঝার সাধ্য কী? এই রাস্তা এভাবেই পৌঁছে যাবে দিল্লির সেরা পর্যটন স্থলে। লালকেল্লা। মীনাবাজার। জাহান আরার শপিং করার কাহিনি। আশপাশেই উঠে আসে দাস্তানখোরের দল। যারা আজও গল্প শোনাবে। 
ঠিক উল্টোদিকের রাস্তা হল আসল পুরনো দিল্লির স্পর্শ পাওয়ার দরজা। জাহান আরার ছোট বোন রোশন আরার ছিল একটু প্রেমিক খোঁজার অভ্যাস। তিনি যেন বিশ্বপ্রেমিক। এই রাস্তায় ছিল তাঁর একাধিক পরিচারিকা আর এক সহেলির বাড়ি। আসতেন সেখানে রোশন আরা। আরও অগ্রসর হলে একের পর এক গলি। কোনওটা বিখ্যাত পরোটাওয়ালা গলি। কোনওটা জিলাপিওয়ালা। কোথাও আতরওয়ালা। মুঘল মুঘল মুঘল। চাঁদনী চক, পুরনো দিল্লি জুড়ে শুধুই কি মুঘলদের নানারকম স্পর্শ আর কাহিনি ছড়িয়ে আছে? 
এখানেই একটি আশ্চর্য ব্যতিক্রম! সুনহেরি মসজিদের কথা আমরা আগেই জেনেছি এই গুপ্ত রাজধানীর কিস্‌সায়। সেই যে মসজিদের অলিন্দের উপর বসে নাদির শাহ চাক্ষুষ করেছিল দিল্লির গণহত্যা, সেই মসজিদের ঠিক পাশের এই গুরুদ্বারের এত মাহাত্ম্য কীসের? এটাই আজকের গল্প। এই হল চাঁদনী চকের সিস গঞ্জ গুরুদ্বার। অবিরত ভক্তদের আনাগোনা। দেশবিদেশ থেকে। এই গুরুদ্বার এখানে কেন? পুরনো দিল্লির চাঁদনী চকে তো মুঘল ইতিহাসের রমরমা। এখানে আচমকা মুঘলদের  অসংখ্য স্মৃতিকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে গুরুদ্বার থাকার কারণ কী? 
শিখ ধর্মের নবম গুরু তেগ বাহাদুর বাংলায় গিয়েছেন। ধর্মপ্রচার আর অনুগামীদের আমন্ত্রণে। ১৬৭৫ সাল। হঠাৎ তাঁর কাছে সংবাদ এল দিল্লি, আগ্রার মতো এলাকায় হিন্দুদের উপর অত্যাচার শুরু হয়েছে। গুরু তেগ বাহাদুর জানতে পারলেন, শয়ে শয়ে হিন্দু ব্রাহ্মণ, যাদের অনেকেই কাশ্মীরি ব্রাহ্মণ তাদের জেলবন্দি করেছেন সম্রাট আওরঙ্গজেব। কারণ কী? জিজিয়া কর চালু করার প্রতিবাদ করেছে তারা। এই অপরাধ। 
পণ্ডিত কৃপারাম এসেছেন গুরু তেগ বাহাদুরের কাছে। বললেন, গুরু মহারাজ আপনার অসীম শক্তি। আওরঙ্গজেবের বাহিনীর এই অত্যাচার থেকে আপনিই রক্ষা করতে পারেন আমাদের। গুরু তেগ বাহাদুরের প্রভাব যে অবিরত বেড়ে চলেছে এবং তাঁর অনুগামী ও ভক্তের সংখ্যা ক্রমেই চিন্তার কারণ হয়ে উঠছে জায়গিরদার, সামন্ত, সুবেদারদের কাছে। অতএব তাঁর এই ক্রমেই শক্তিশালী হয়ে ওঠা কানে এসেছে আওরঙ্গজেবের। 
কিন্তু হিন্দু ভাইদের এই আকুল প্রার্থনায় গুরু তেগ বাহাদুর চুপ করে থাকতে পারেন না। তিনি আনন্দপুর থেকে রওনা হলেন আগ্রা। আর এই সংবাদ পেয়েই আওরঙ্গজেবের নির্দেশ, ‘গ্রেপ্তার কর ওকে!’ তেগ বাহাদুরকে পাকড়াও করে দিল্লিতে আনা হল। এরকম নিরীহ দর্শন মানুষ আবার এত শক্তিশালী ধর্মপ্রচারক? তাঁর এত শয়ে শয়ে ভক্ত ও অনুগামী? হাসি পাচ্ছে আওরঙ্গজেবের। তিনি বললেন, তোমার নাকি অলৌকিক শক্তি? কই দেখাও তো? গুরু তেগ বাহাদুর রাজি হলেন না। তাঁর এই অকুতোভয় আচরণকে মুঘল সম্রাট মনে করলেন বেয়াদপি। গুরু তেগ বাহাদুর একটি গাছের পাতায় নখ দিয়ে কিছু লিখে গলায় বাঁধলেন। বললেন, এই পাতা যতক্ষণ আমার সঙ্গে আছে, ততক্ষণ আমার গলা কেটে ফেললেও আমাকে নত করা যাবে না। আওরঙ্গজেবের এই বেয়াদপি সহ্য হল না। তিনি বললেন, তাহলে গলাটাই বরং কেটে ফেলা যাক। হত্যার নির্দেশ দিলেন। আবার বললেন, বাঁচতে চা‌঩ইলে তোমার গোপন অলৌকিক শক্তি দেখাও। গুরু তেগ বাহাদুর নীরব হয়ে হাসছেন। তাঁকে জনতার মাঝখানে নিয়ে গিয়ে হত্যা করতে বললেন আওরঙ্গজেব। জনতাকে সাক্ষী রেখে এরপর তাঁর শিরোশ্ছেদ করা হল। একদিকে মস্তক লুটিয়ে পড়ল। অন্যদিকে পবিত্র দেহ। রক্তাক্ত কাণ্ড। সেই পাতায় লেখা ছিল, আমি তোমাকে মস্তক দিলাম, গোপন শক্তিটা কিন্তু দেখালাম না!  হঠাৎ সেই রাতে দিল্লিতে উঠল ঝড়। সম্রাটের নির্দেশ ছিল কেউ যেন গুরু তেগ বাহাদুরের শরীর আর মস্তক সরাতে না আসে। তাহলে তাদেরও হত্যা করা হবে। ১৬৭৫ সালের ১১ নভেম্বর। 
কিন্তু আচমকা ঝড়ে দিশাহারা হয়ে গেল মুঘল প্রহরীরা। চারদিক অন্ধকার। কালি আঁধি! ধুলো আর ঝড়ের মধ্যে গুরুর দুই শিষ্য আচমকা এগিয়ে এল অকুস্থলে। জাইতা ভাই নিয়ে গেল মস্তক। সোজা আনন্দপুরের দিকে। আর লাকি শাহ ভাই বানজারা গুরুর মস্তকহীন দেহ নিয়ে ছুটল নিজের গ্রামের দিকে। সে কী করল এরপর? নিজের বাড়িতেই আগুন লাগিয়ে দিল! আর সেই আগুনে শেষকৃত্য সম্পন্ন হল গুরু তেগ বাহাদুরের! 
নতুন দিল্লির পার্লামেন্ট ভবনের পিছনে থাকা গুরুদ্বার রেকাবগঞ্জ। এখানেই বাড়িতে আগুন ধরিয়ে সৎকার করা হয়েছিল গুরু তেগ বাহাদুরকে। আজও যাঁর মাহাত্ম্য অম্লান। আর চাঁদনী চকের ওই যে অনবদ্য গুরুদ্বারটি দাঁড়িয়ে রয়েছে একঝাঁক মুঘল স্থাপত্যের হর্ম্যের মধ্যে একক এক বৈশিষ্ট্য নিয়ে, সেটিই হল সিস গঞ্জ গুরুদ্বার। ঠিক এখানেই হত্যা করা হয়েছিল গুরু তেগ বাহাদুরকে! এখন সন্ধ্যা। চাঁদনী চকের রহস্যময় বাতাসে ভাসছে পবিত্র গ্রন্থসাহিব পাঠের অনুরণন! 
4Months ago
কলকাতা
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

মাতুলকূলের সম্পত্তি প্রাপ্তির যোগ আছে। সব কাজকর্মে বাধার মধ্যে অগ্রগতি। শরীর-স্বাস্থ্য চলনসই।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার ৮২.৭৬ টাকা৮৪.৫০ টাকা
পাউন্ড১০৭.০০ টাকা ১১০.৫২ টাকা
ইউরো৮৯.৮৮ টাকা৯৩.০৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা