Bartaman Patrika
ভ্রমণ
 

লাটপাঞ্চারে দেখা হতে পারে রেড পাণ্ডার সঙ্গে 

অজন্তা সিনহা: প্রথম একা একা বেড়াতে যাওয়া এবং এক অনামি পাহাড়ি গ্রামে। প্রায় দু’দশক আগে এক বাঙালি মধ্যবিত্ত মহিলার পক্ষে ব্যাপারটা যথেষ্ট দুঃসাহসিক ছিল বলাই বাহুল্য। মনে পড়ছে ট্রেনের কথা। কামরায় একটি বড় পরিবার ছিল। পরিবারের মহিলাদের একজন তো অবাক হয়ে জিজ্ঞেসই করে ফেললেন, ‘আপনার স্বামী আপনারে একা ছাইড়া দিল?’ খুব মজা পেয়েছিলাম। এরপর তো বহুবারই বেরিয়ে পড়েছি একা একা। কিন্তু প্রথম একা যাওয়ার ব্যাপারটাই আলাদা। পূর্ণ স্বাধীনতা লাভের মতোই একটা অনুভূতি। বিশেষ করে এই কারণেই বোধহয় বহু বছর আগে গেলেও লাটপাঞ্চার আমার স্মৃতিতে আজও অম্লান।
অফিসের এক সহকর্মীর কাছে হদিশ মেলে জায়গাটির। শুরু থেকেই ঠিক করেছিলাম কোনও চেনা জায়গা নয়। বড্ড লোকের ভিড়। খুঁজে পাওয়া গেল লাটপাঞ্চার। নাকি লাটসাহেবের গাড়ি এখানে এসেই পাঞ্চার হয়ে গিয়েছিল, তাই এমন নামকরণ। সত্যি জানার উপায় নেই। অত উঁচুতে লাটসাহেব আদৌ গিয়েছেন কিনা, তা ঈশ্বর ছাড়া কেউ জানেন না। উত্তরবঙ্গের নানা পাহাড়ি গ্রামে ঘোরার সুবাদে আজব-গজব সব নাম পেয়েছি। কোনও নামের অর্থ জানা গিয়েছে, কোনওটা যায়নি। সে হোক, লাটসাহেব না এলেও সাহেবদের এখানে আসা-যাওয়া ছিল। মূল্যবান সিঙ্কোনা চাষের জন্য বিখ্যাত এই অঞ্চলের অনেকটাই ছিল একদা ব্রিটিশের অধীন।
সেসব বৃত্তান্ত পরে। আগে শুরুর কথা। সারাদিন অফিস করে রাতের ট্রেনে আধো ঘুম আধো জাগরণে কাটিয়ে যখন নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশনে পৌঁছলাম তখন সবে অন্ধকার কাটছে। একেবারে অচেনা সব। যাই হোক, সেই সহকর্মীর পরামর্শ মেনে একটা রিকশ করে স্টেশনের কাছের এক টেলিফোন বুথে এলাম। মোবাইল ফোন তখন কোথায়? বুথ থেকে গাড়ির মালিককে ফোন করি। সে বেচারা সম্ভবত গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন তখনও। শিলিগুড়ি শহরের ঘুম একটু দেরিতেই ভাঙে। গাড়ি কলকাতা থেকেই রিজার্ভ করা ছিল। যাই হোক ঘণ্টাখানেক অপেক্ষার পর একটি সাদা মারুতি ভ্যান এল আমার বাহন হয়ে। ড্রাইভার এক নেপালি তরুণ।
স্টেশন চত্বর ছাড়িয়ে, শিলিগুড়ি শহর পার হয়ে সেবক। সেই প্রথম তিস্তার সঙ্গে দেখা। সে যে কী মোহাবিষ্ট এক অবস্থা ! ততক্ষণে সূর্য আকাশ জুড়ে বিরাজমান। শরতের পেঁজা-তুলো মেঘ পুজোর আবেশ ছড়িয়ে দিয়েছে দিকদিগন্তে। সেবক রোড , তারপর মহানন্দা রেঞ্জ। দুপাশে জঙ্গল ফেলে সোজা চলে গিয়েছে পিচ রাস্তা। তারপরই তিস্তা। কিছুক্ষণ যাওয়ার পর কালিঝোরা। এখান থেকেই গাড়ি বাঁদিকের কিছুটা কাঁচাপাকা এক পাথুরে রাস্তা ধরল। এখন শুধুই চড়াই। পাহাড় বেষ্টন করে রাস্তা উঠেছে। সেই রাস্তা ধরেই গাড়িও উঠছে উপরে। যতই উঠুক তিস্তা রয়েছে দৃষ্টিপথে। সে যাত্রা রোমাঞ্চকর, আবার বিপজ্জনকও বটে। কোথাও কোথাও রাস্তা একেবারে খাড়া। কোথাও বা এত সরু যে একচুল এদিক ওদিক হলেই সোজা খাদে। এটা ঠিক এই সব অনির্বচনীয়তার জন্যই তো পাহাড়ে আসা। নেপালি ড্রাইভার গান শুনতে শুনতে অতি দক্ষতায় চড়াই চড়িয়ে শেষে পৌঁছে দিল হোম স্টে-র দরজায়। হাসিমুখে বেরিয়ে আসেন এক নেপালি ভদ্রলোক। এদিক ওদিক থেকে কিছু কৌতূহলী মুখ। সেইসব পেরিয়ে ভিতরে ঢুকি।
লাটপাঞ্চারে তখন একটাই থাকার জায়গা। বেশ সমৃদ্ধ এক নেপালি পরিবার। বাড়ির নীচতলায় নিজেরা থাকেন। ওপরের তিনটি ঘর অতিথির জন্য নির্দিষ্ট। তারই একটিতে আমার থাকার ব্যবস্থা। ঝটপট স্নান করে ফ্রেশ হই। ঘরের একপাশের বিশাল কাচের জানালা খুলে দিতেই পুরো প্রকৃতি যেন ঘরের ভিতর চলে এল। যতদূর চোখ যায়, শুধুই পাহাড়। ওপরে নীল আকাশ। মেঘের দল নেমে এসেছে পাহাড়ের কোলে। সে এক অপূর্ব দৃশ্যকাব্য ! সম্বিত ফেরে এক মহিলার ডাকে। জানান, লাঞ্চ রেডি।
মহানন্দা ওয়াইল্ড লাইফ স্যাংচুয়ারির অন্তর্গত লাটপাঞ্চার। উচ্চতা ৪ হাজার ২০০ ফুট। কাঞ্চনজঙ্ঘার দর্শন মেলে। কাছাকাছি ঘন জঙ্গল। প্রায় ৩৬ প্রজাতির পশু আছে এখানে। হরিণ, বার্কিং ডিয়ার, ব্ল্যাক ডিয়ার, বানর, লেপার্ড আছে শুনলাম। মাঝে মাঝে হাতিরাও অনেকটা উঠে আসে। আর আছে রেড পাণ্ডা। তার দুর্লভ দর্শন সে যাত্রায় ভাগ্যে ঘটেছিল। বাকি কারও দেখা মেলেনি। হোম স্টে-র মালিক বললেন লেপার্ড মশাইয়ের দেখা না পাওয়াই ভালো। ছাগল, বাছুরদের সুযোগ পেলেই আক্রমণ করে। মানুষকে কি আর রেয়াত করবে? ফুলের বাহার দেখবার মতো। প্রায় সবার বাড়ির সামনেই বাগান রয়েছে। জঙ্গলে রয়েছে নানা প্রজাতির গাছ। সেখানে পাখিদের রীতিমতো মিটিং হয় দেখলাম। প্রায় ২৪০ প্রজাতির পাখি আছে এখানে, অনেকেই বেশ বিরল তাদের মধ্যে। হোম স্টে থেকে এক-দু পা এগোলেই জঙ্গল। দিনের বেলাতেও সেখানে অন্ধকার, এতটাই ঘন গাছগাছালি। বাড়ির সামনে ফুলের বাগানে প্রজাপতির ওড়াউড়ি। ভয়ডর নেই, নিশ্চিন্তেই আছে তারা।
জঙ্গল লাগোয়া এই ছোট্ট গ্রামে অল্প কয়েকঘর লোকের বসবাস। বেশির ভাগই সিঙ্কোনা চাষের সঙ্গে যুক্ত। দুই-একজন পুলিস বা আর্মিতে। কারও কারও বাড়িতে নার্সারি আছে। জমিও আছে অল্পস্বল্প। দিন গুজরান হয়ে যায় কোনওমতে। অভাব আছে , কিন্তু অভিযোগ নেই। ঘুম ভাঙতেই নারী-পুরুষ কাজে লেগে পড়েন। ঝাড়পোছে ঝকঝকে করে তোলেন পুরো গ্রামটাই। প্রথম দিনেই গ্রামের বাচ্চাকাচ্চা চলে এল আমার সঙ্গে আলাপ করতে। তারপর থেকে যে ক’দিন ছিলাম সঙ্গ ছাড়েনি ওরা আমার। সকাল-বিকেল পায়ে হেঁটে ওদের সঙ্গেই ঘুরে বেড়িয়েছি গ্রাম আর জঙ্গলের পথে। ঘুরতে ঘুরতেই জেনেছি কিছুটা নীচে জঙ্গলের মধ্যে অবস্থিত সাহেবি আমলের বাংলোর কথা। সেই ১৯০০ সালে সিঙ্কোনা চাষের সূত্রে সাহেবরা এখানে থাকতেন। এখন রাজ্য বন উন্নয়ন নিগমের অধীনে অতিথিশালা। গ্রাম থেকে অনেকটা উঁচুতে সিঙ্কোনা চাষের খেত। শুনলাম দুর্গাপুজো হচ্ছে ওখানেই। অত উঁচুতে ওঠার উপায় নেই। বাচ্চাপার্টি প্রসাদ এনে খাওয়ায়। পরম আদরে রোজ সকালে পুজোর পর কপালে টিকা লাগিয়ে দিয়ে যায়। টেনে নিয়ে যায় নিজেদের ঘরে। কী সুন্দর যে ওদের জীবনযাপন। কী গুণী মানুষজন। বিত্তের অভাব ওদের সৌন্দর্যবোধকে ঘুম পাড়িয়ে রাখতে পারেনি।
প্রায় ১৪০০ একর জমি জুড়ে সিঙ্কোনা চাষ, সঙ্গে বেশ কয়েকটি কারখানাও আছে। ঘুরে দেখতে ভালোই লাগে। এছাড়া গ্রামের ভিতর থেকেই পথ গিয়েছে জঙ্গলে। একটু দূরে অহল দারা ভিউ পয়েন্ট। এখান থেকে কাঞ্চনজঙ্ঘা দর্শন এক অতুলনীয় অভিজ্ঞতা হতে পারে। এখান থেকে তিস্তাও বড় অপরূপ। থাকার জন্য কিছু কটেজ হয়েছে এখন । কাছাকাছি নামথিং লেক, যার পাশে ঘন হয়ে আছে পাইন বন। যেন পটে আঁকা ছবি। বিরল হিমালয়ান সালমন্দরের দেখা পাবেন নামথিং পার্শ্ববর্তী জঙ্গলে। এছাড়াও অতি প্রাচীন ও গুরুত্বপূর্ণ সিল্ক রুটও কাছেই। লাটপাঞ্চারে সিঙ্কোনা ছাড়াও জঙ্গলে রয়েছে শাল, টিক ও পাইনের মহার্ঘ বিলাস।
হোম স্টে-র খাওয়াদাওয়া খুবই সহজ সরল। ভাত-রুটি, সঙ্গে ডাল, ডিম, চিকেন বা সব্জি। ব্রেকফাস্টে পুরি-সব্জি বা আলুর পরোটা। চা-কফির সঙ্গে সন্ধ্যায় কিছু স্ন্যাকস। সুস্বাদু রান্না। গরম গরম পরিবেশন। পরিচ্ছন্নতা সর্বত্র। আর অনাবিল আন্তরিকতা। মনেই হবে না ঘরের বাইরে এসেছেন। মনে পড়ছে , ফেরার ঠিক আগের দিনের কথা। একদিন আগে কলকাতা থেকে একদল ছেলে এসেছে। তারা আসার পর স্বাভাবিক ভাবেই নির্জন নিঃশব্দ গ্রামে কিছু শোরগোল শোনা যাচ্ছে। যদিও তা উচ্চকিত নয়। পাহাড়ি এই গ্রামের মিষ্টি জীবনছন্দে মেতেছে ওরাও। আকাশ ঝকঝকে। তারারা যেন কথা বলছে। হোম স্টে-র সামনের চাতালে ছড়িয়ে বসেছি আমরা। খুব আড্ডা হচ্ছে। কয়েকবার চা হয়ে গেছে। আমার একলা ভ্রমণে ওরাও বেশ অবাক। এমন সময় গ্রামেরই এক তরুণ এসে জানায় রেড পাণ্ডার দেখা পাওয়া গিয়েছে। ছুট ছুট। সবাই গিয়ে সেই গাছের সামনে দাঁড়াই, যেখানে তিনি অধিষ্ঠান করছেন। ছোটখাটো চেহারার সেই প্রাণী তো প্রায় লজ্জায় মরেই যায়। কিছুক্ষণ ইতিউতি তাকিয়ে ধীরেসুস্থে ডালপালার আড়ালে চলে যায় সে। আমরা ঘরে ফিরি। আলোচনায় উত্তেজিত সবাই। কিছু তো একটা দেখা গিয়েছে! ফেরার সময় মনটা ভালো হয়ে গেল।
কিছু জরুরি তথ্য। নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশন থেকে লাটপাঞ্চার পৌঁছতে এক ঘণ্টা পঞ্চাশ মিনিট মতো লাগে। বাগডোগড়া থেকে একটু বেশি। গাড়ি রিজার্ভ করে যাওয়াই ভালো। পিক আপ ও ড্রপের ব্যবস্থা করে হোম স্টে থেকেই। এনজেপি থেকে ভাড়া মোটামুটি ২০০০ টাকা। হোম স্টে-র থাকাখাওয়ার খরচ দিনপ্রতি জনপ্রতি ১০০০ থেকে ১৫০০ টাকা। সাইট সিয়িং-এর জন্য গাড়ির ব্যবস্থা হোম স্টে থেকেই করে দেয়। জঙ্গলে ঘুরে বেড়ানো , পাখি ও গাছপালা দেখার জন্য গ্রামেই গাইড পাওয়া যায়। সব থেকে ভালো সময় অক্টোবর থেকে মে। বর্ষা এড়িয়ে যাওয়াই শ্রেয়। ডিসেম্বর-জানুয়ারিতে গেলে যথেষ্ট শীতপোশাক সঙ্গে থাকা আবশ্যক। কিছু শুকনো খাবার, টর্চ, মোম-দেশলাই, প্রয়োজনীয় ওষুধ ও ফার্স্ট এইড বক্স সঙ্গে রাখুন। প্রয়োজনে দার্জিলিং ট্যুরিজমের সঙ্গেও যোগাযোগ করা যেতে পারে।
ছবি: লেখক 
01st  September, 2019
ড্রিব্রুগড়ের জঙ্গলে

উত্তর-পূর্ব ভারতের বহু বনভূমিই এখনও পর্যটকদের কাছে সেভাবে পরিচিত নয়। ফলে সেখানে ভিড় যেমন কম তেমনই বন্যপ্রাণীর দেখা পাওয়াও তুলনামূলকভাবে সহজ। মানস বা কাজিরাঙা অবশ্য এই অচেনার তালিকায় পড়ে না। উত্তর-পূর্ব ভারতের প্রায় অপরিচিত এমনই একটি বনভূমি হল অসমের তিনসুকিয়া ও ডিব্রুগড় জেলা জুড়ে অবস্থিত ডিব্রু-সাইখোয়া জাতীয় উদ্যান। বিশদ

11th  April, 2021
জম্মু কাশ্মীরে
নতুন ট্রেক রুট

 

জম্মু-কাশ্মীর সরকার এই কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে সাতটি নতুন ট্রেক রুট খুলেছে। সব রুটগুলিই রাজ্যের বনাঞ্চলে। পরিবেশ, বাস্তুতন্ত্রকে রক্ষা করেই ট্রেক করা যাবে। বনাঞ্চল ও বন্যপ্রাণ  সুরক্ষিত রাখার আশ্বাসেই মিলবে ছাড়পত্র। বিশদ

11th  April, 2021
কুম্ভ ভাবনা
 

করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ হয়ে উঠেছে দ্বিতীয় তরঙ্গে। তাই হরিদ্বারের কুম্ভমেলার ক্ষেত্রে আবার নতুন করে নির্দেশিকা জারি করেছে উত্তরাখণ্ড সরকার। বিশদ

11th  April, 2021
বসন্তের জাপান

বসন্তে জাপান সেজে ওঠে চেরি ফুলে। এবছর বসন্তের সমাগম হয়েছে সময়ের আগেই। মধ্য এপ্রিলের বদলে মধ্য মার্চেই চেরি ফুলের শোভায় সেজেছে জাপান। বিশদ

11th  April, 2021
নতুন রূপে চাঁদনি চক
 

দিল্লির চাঁদনি চককে পর্যটকদের কাছে আকর্ষণীয় করতে নতুন করে সাজিয়ে তুলেছে দিল্লি সরকার। লালকেল্লা থেকে ফতেপুরি মসজিদ পর্যন্ত ১.৩ কিমি রাস্তা। এই রাস্তায় সকাল ৯ টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত গাড়ি চলাচল বন্ধ থাকবে। রাস্তার দু’ধার সবুজে মুড়ে দেওয়া হয়েছে। বিশদ

11th  April, 2021
অনলাইনে ল্যুভর
 

ফ্রান্সের বিখ্যাত আর্ট মিউজিয়াম ল্যুভর এবার অনলাইনে তাদের শিল্পকর্ম দেখার সুযোগ করে দিচ্ছে। বিশদ

11th  April, 2021
ইয়ারাদা বিচ

ঘন সবুজের ঠাস বুনটে নারকেল গাছে ছাওয়া সোনালি বালির বিচ  ইয়ারাদা। বিশাখাপত্তনম থেকে প্রায় ৩০ কিমি দূরে এই বিচ। অর্ধচন্দ্রাকার তট, ডান দিকে পিজিওন হিল। বিশদ

28th  March, 2021
খুলছে আমন্ড বাগান

এক বছর পর ফের খুলছে শ্রীনগরের বাদামওয়ারি বাগান। আমন্ড গাছের এই বাগান ফুলে ফুলে সেজে ওঠে এই বসন্ত ঋতুতেই। বিশদ

28th  March, 2021
আবার এভারেস্ট

নেপাল সরকার পর্বতারোহীদের জন্য আবার খুলে দিচ্ছে এভারেস্টের দরজা। কোভিড পরবর্তী সময়ে প্রায় ৩০০ জন অভিযানে অংশ নিতে পারেন বলে জানিয়েছেন পর্যটন আধিকারিক মীরা আচার্য। বিশদ

28th  March, 2021
জুনে শুরু হচ্ছে অমরনাথ যাত্রা

মহামারীর পর এ বছর অমরনাথ যাত্রার কথা ঘোষণা করেছে অমরনাথ শ্রাইন বোর্ড। আগামী ২৮ জুন থেকে শুরু হবে যাত্রা। কোভিড প্রোটোকল মেনে যাত্রা করতে হবে। বিশদ

28th  March, 2021
শ্রীনগর থেকে রাতের বিমান

দেশের একটি অগ্রণী বিমান সংস্থা সম্প্রতি ঘোষণা করেছে শ্রীনগর থেকে রাত্রিকালীন বিমান পরিষেবা শুরু করবে। প্রতিদিন রাত্রি সাড়ে ৮টায় শ্রীনগর থেকে দিল্লির শেষ বিমান ছাড়বে। বিশদ

28th  March, 2021
 লেপচাজগতের পথে

লকডাউনের পর পরিস্থিতি একটু স্বাভাবিক হতেই কোভিড স্পেশালের টিকিট কাটলাম। দার্জিলিং, কালিম্পং, কার্শিয়াং, গ্যাংটক কিংবা পেলিংয়ের ভিড় এড়াতে এখন অনেকেরই স্বপ্নের গন্তব্য লামাহাটা, তিনচুলে, তাকদা, লেপচাজগতের মতো নির্জন স্বল্পখ্যাত এলাকাগুলো। পর্যটন মানচিত্রে লামাহাটা এখনও বেশ নতুন। বিশদ

28th  March, 2021
হিমাচলের কিন্নরে

এই গ্রীষ্মে চলুন যাই হিমাচল প্রদেশের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের স্বর্গরাজ্য কিন্নর জেলায়। কিন্নরের বিউটি স্পট সাংলা উপত্যকা দিয়েই এই ভ্রমণপর্ব শুরু করুন। তাই সিমলা থেকে গাড়ি নিয়ে পাড়ি দিন ২৪০ কিলোমিটার দূরের সাংলার পথে। পথ গিয়েছে কুফরি, নারকান্ডা, রামপুর, জিওরি, কারছাম হয়ে সাংলায়। সবুজ পাহাড়ি প্রকৃতির কোলে ২ হাজার ৬৮০ মিটার উচ্চতায় ছড়িয়ে আছে অপরূপ জনপদ। বিশদ

28th  March, 2021
কাজু জঙ্গলের পথে
সুদর্শন নন্দী

বম্বে রোড ধরে খড়্গপুরের দিকে এলেই কোলাঘাট বা মেছোগ্রামে দশ মিনিট জিরিয়ে  নেওয়া বরাবরের অভ্যেস। শুধু কি জিরিয়ে নেওয়া? আলু, মোচা, ফুলকপি, ডিম, পটল, টমেটোর চপের ভ্যারাইটি আইটেম থেকে রসনা মেটানো এখানে থামার অন্যতম কারণ। বিশদ

14th  March, 2021
একনজরে
তরল মাদক পাচারের সময় সীমান্তের বাসিন্দা ও জওয়ানদের তাড়া খেয়ে পালাতে গিয়ে গুরুতরভাবে আহত হল ২ বাংলাদেশি পাচারকারী। সীমান্তরক্ষীরা তাদের উদ্ধার করে বসিরহাট সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ভর্তি করে। ...

দশমীর রাতে বাড়ির সামনে নিষিদ্ধ শব্দবাজি ফাটানোর প্রতিবাদ করায় এক মহিলা আইনজীবী ও তাঁর বাবাকে স্থানীয় কয়েকজন যুবক বেধড়ক মারধর করে বলে অভিযোগ উঠেছে। ...

স্কুলের ফি দেওয়ার সামর্থ্য ছিল না। অভিযোগ, স্কুলের তরফে পরীক্ষায় বসার অনুমতি মেলেনি। মানসিক অবসাদে তাই আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিল ১৬ বছরের কিশোরীটি। ...

ম্যাচের সেরা, সর্বাধিক গোলদাতা, প্রতিযোগিতার সেরা ফুটবলার। স্যাফ কাপের এই তিনটি পুরস্কার সুনীল ছেত্রীর ট্রফি ক্যাবিনেটে সংযোজিত হতে চলেছে।​​​​ ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

সময় মতো চিকিৎসায় ও যত্ন গ্রহণে দেহে রোগারোগ্য। মানসিক অস্থিরতা বৃদ্ধি কর্মে বাধার সৃষ্টি করতে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৭১: কম্পিউটারের জনক চার্লস ব্যাবেজের মৃত্যু
১৯১৮: চিত্রশিল্পী পরিতোষ সেনের জন্ম
১৯৩১: গ্রামাফোনের আবিষ্কারক টমাস আলভা এডিসনের মৃত্যু
১৯৪০: টলিউড অভিনেতা পরাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৫০: অভিনেতা ওমপুরীর জন্ম 



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.৪৯ টাকা ৭৬.২১ টাকা
পাউন্ড ১০১.০৮ টাকা ১০৪.৬০ টাকা
ইউরো ৮৫.৬৩ টাকা ৮৮.৭৫ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
12th  October, 2021
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৮,০০০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৫,৫০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৬,২৫০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৩,৩০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৩,৪০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
17th  October, 2021

দিন পঞ্জিকা

 ১ কার্তিক, ১৪২৮, সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১।  ত্রয়োদশী ৩১/১৫ সন্ধ্যা ৬/৮। পূর্বভাদ্রপদ নক্ষত্র ১২/৫৯ দিবা ১০/৫৯। সূর্যোদয় ৫/৩৭/৫৮, সূর্যাস্ত ৫/৫/৫২।  অমৃতযোগ দিবা ৭/১০ মধ্যে পুনঃ ৮/৪১ গতে ১০/৫৯ মধ্যে। রাত্রি ৭/৩৭ গতে ১০/৫৭ মধ্যে পুনঃ ২/১৮ গতে ৩/৭ মধ্যে। বারবেলা ৭/৪ গতে ৮/৩০ মধ্যে পুনঃ ২/১৩ গতে ৩/৩৯ মধ্যে। কালরাত্রি ৯/৪৭ গতে ১১/২২ মধ্যে। 
৩১ আশ্বিন, ১৪২৮, সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১। ত্রয়োদশী রাত্রি ৬/২৫। পূর্বভাদ্রপদ নক্ষত্র  দিবা ১২/১৮। সূর্যোদয় ৫/৩৯, সূর্যাস্ত ৫/৭। অমৃতযোগ দিবা ৭/১৭ মধ্যে ও ৮/৪৫ গতে ১০/৫৮ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/২৮ গতে ১০/৫৪ মধ্যে ও ২/২১ গতে ৩/১৩ মধ্যে। কালবেলা ৭/৫ গতে ৮/৩১ মধ্যে ও ২/১৫ গতে ৩/৪১ মধ্যে। কালরাত্রি ৯/৪৯ গতে ১১/২৩ মধ্যে। 
১১  রবিয়ল আউয়ল।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
৪৬০ পয়েন্ট উঠল সেনসেক্স

03:53:29 PM

আপাতত ছুটি বাতিল
আপাতত কলকাতা পুরসভার স্বাস্থ্য বিভাগের ছুটি বাতিল করা হল। জানানো ...বিশদ

03:50:00 PM

আগামী ২ দিন দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলায় বৃষ্টির সম্ভাবনা, জানাল আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর

03:43:00 PM

সুন্দরবনের কুঁড়েখালিতে গোখরো সাপ উদ্ধার করল বনদপ্তর

03:42:00 PM

মেমারিতে ঘর থেকে উদ্ধার যুবকের পচাগলা দেহ
বর্ধমানের মেমারির দক্ষিণপাড়া এলাকায় একটি বাড়ি থেকে যুবকের পচাগলা মৃতদেহ ...বিশদ

01:34:05 PM

কৃষক আন্দোলনকে সমর্থন করে কৃষ্ণনগরে চলছে রেল রোকো কর্মসূচি

01:27:39 PM