Bartaman Patrika
বিজ্ঞান-প্রযুক্তি
 

অন্ধকারের উৎস হতে 
ডঃ দেবীপ্রসাদ দুয়ারী

কথায় আছে বাস্তব সত্য কল্পনার চেয়েও আশ্চর্য। তবে এক্ষেত্রে ঠিক কল্পনা নয়। ১৯১৫ সালে তাঁর সাধারণ আপেক্ষিকতাবাদ তত্ত্ব প্রকাশ করেন স্যার অ্যালবার্ট আইনস্টাইন। সেই তত্ত্ব অনুযায়ী, উঠে এল এমন একটি বিষয় যা কল্পবিজ্ঞান ছাড়া অন্য কিছু হতেই পারে না। তাঁদের অঙ্ক এবং ব্যাখ্যার সূত্র ধরে উঠে এল, একটি অভূতপূর্ব বস্তুর উপস্থিতি যা পরবর্তীকালে নামাঙ্কিত হয় ‘কৃষ্ণ-গহ্বর’ বা Black hole হিসাবে।
প্রাচীনকাল থেকেই নক্ষত্রখচিত আকাশ মানুষের মনে অনেক প্রশ্ন তুলেছিল। সভ্যতার বিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে, বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তির হাত ধরে, আমরা বুঝতে পেরেছি একটি তারা বলতে কি বোঝায়। একটি তারার জন্ম হয় তখনই, যখন একটি গ্যাসীয় পিণ্ডের মধ্যে অভিকর্ষজ আকর্ষণের ফলে কেন্দ্রে সৃষ্টি হয় প্রচণ্ড উত্তাপ। সেই উত্তাপের ফলে কেন্দ্রীয় অঞ্চলে একটি পারমাণবিক সংযোজক বিক্রিয়ার ফলে হাইড্রোজেন হিলিয়ামে রূপান্তরিত হয়। এই বিক্রিয়ায় উৎপন্ন হয় বিপুল পরিমাণ শক্তি। এই শক্তির বহির্মুখী বিকিরণজনিত চাপ যখন কেন্দ্রীয় অভিকর্ষজ চাপের সঙ্গে সমান হয়ে যায় এবং গ্যাসীয় পিণ্ডটিও উদ্ভাসিত হয়, সেই শক্তির বহিঃপ্রকাশে তখনই জন্ম নেয় একটি তারা। যেমনটি হয়েছিল আমাদের সূর্যের ক্ষেত্রে প্রায় ৪৬০ কোটি বছর আগে। একই সময় গঠিত হয়েছিল আমাদের গ্রহরাজি। সূর্যের অভিকর্ষজ আকর্ষণী টানে সেই গ্রহরা ঘুরে চলেছে সূর্যকে কেন্দ্র করে নিরন্তর।
ঊনবিংশ শতকের শেষভাগে কিছু বিজ্ঞানীর মাথায় এল, যদি এমন কোনও তারা হয়, যা সূর্যের থেকেও অনেক গুণ ভারী, সে কি তার নিজের চারিদিকের বস্তুসকলকে অভিকর্ষজ বলের দ্বারা আকর্ষণ করে নিজের দিকে টেনে আনতে পারে? তাঁরা কল্পনা করলেন, এমন এক বৃহৎ ভরের তারা, যা তার চারপাশ থেকে সমস্ত বস্তুকে টেনে নেয়। এমনকী আলোক কণাকেও নির্গত হতে দেয় না নিজের ভিতর থেকে। তাহলে কি একটি অত্যন্ত ভারী তারা অদৃশ্য হয়ে যেতে পারে? শুধু তাই নয়, প্রচণ্ড ভরের ফলে এই তারাটির মধ্যে সক্রিয় স্বঅভিকর্ষজ বলের ফলে তারাটি ক্রমাগত সংকুচিত হতে হতে ক্রমাগত ছোট হতে থাকে?
এই ধারণাটিকে একটি মজবুত ভিত্তির উপর দাঁড় করিয়ে দিয়েছিল আইনস্টাইনের সাধারণ আপেক্ষিকতাবাদ তত্ত্ব। এই তত্ত্ব অনুসারে সূর্যের থেকে বেশ কয়েকগুণ ভারী একটি তারা সংকুচিত হতে হতে এক অসীম শূন্যতায় অদৃশ্য হয়ে যেতে পারে। তাঁর তত্ত্ব প্রমাণ করেছিল যে কোনও ভারী বস্তু স্থান এবং কালকে (Space and Time) বক্র করে তুলতে পারে। এই বক্রতা প্রমাণ করতে পারে এমন কিছু ঘটনাকে যা আমাদের বিশ্ব প্রকৃতিতে উপস্থিত থাকলেও, আমাদের সাধারণ চিন্তা ভাবনার ক্ষেত্রে বিস্ময়ের সৃষ্টি করে। বক্রতা আলোকে সরলরেখায় ভ্রমণের থেকে বিচ্যুতি ঘটাতে পারে। আবার একটি বৃহদাকার তারার অভিকর্ষজ সংকোচনী ক্ষমতার প্রভাবে স্থান-কালের বক্রতাকে এতটাই বাড়িয়ে দিতে পারে যার ফলে সৃষ্টি হতে পারে একটি বিন্দুসম কালের অসীম শূন্যতা (Singularity) এই অসীম অভিকর্ষজ বলের ফলে আলোর কণিকাও আর নির্গত হতে পারে না সেই অঞ্চল থেকে। তারাটি যেন অন্ধকারের গভীরে চিরকালের জন্য হারিয়ে যায়। তাকে শুধু অনুভব করা যায় তার তীব্র অভিকর্ষজ আকর্ষণের দ্বারা।
যদিও কৃষ্ণগহ্বর বা Black hole নামটি দেওয়া হয়েছিল বেশ কিছু বছর পরে বিজ্ঞানী জন হুইলার দ্বারা, কিন্তু আইনস্টাইনের তত্ত্ব উদ্ভূত এই ধারণাকে নতুন মাত্রা দিয়েছিলেন বেশ কিছু বিজ্ঞানী বিংশ শতাব্দীর প্রথম দিকে। এক জার্মান বৈজ্ঞানিক কার্ল সোয়ার্জচাইল্ড আইনস্টাইনের তত্ত্বকে ব্যবহার করে অঙ্ক কষে দেখান, কৃষ্ণগহ্বরের সেই বিন্দুসম অঞ্চল থেকেই যে আলো নির্গত হবে না তাই নয়, এই বিন্দুর পার্শ্ববর্তী একটি স্ফীতকায় অঞ্চল থেকেও আমরা কোনও আলো দেখতে পাব না। এই অঞ্চলের পৃষ্ঠদেশকেই ঘটনার দিকচক্রবাল (ইভেন্ট হরাইজন) হিসাবে চিহ্নিত করা হল। এটি যেন এমন একটি আস্তরণ যা কি না তার ভিতর থেকে কোনও আলোকে বেরিয়ে আসতে দেয় না। এমনকী, কোনও বস্তু তার দিকে আকর্ষিত হয়ে সেই পর্দাকে অতিক্রম করলে চিরকালের জন্য তার অস্তিত্বকে হারিয়ে ফেলে। এই অঞ্চলের ব্যাসার্ধকে সোয়ার্জচাইল্ড ব্যাসার্ধ বলা হয়। পরবর্তীকালে বিভিন্ন বিজ্ঞানী এই কৃষ্ণগহ্বরের বিভিন্ন দশা (যেমন ঘূর্ণায়মান, তড়িতায়িত) নিয়ে বিভিন্ন তত্ত্ব এবং সমাধান দিয়ে ছিলেন। পরবর্তীকালের বিশ্ববিখ্যাত স্যার স্টিফেন হকিং দেখিয়েছিলেন, একটি কৃষ্ণগহ্বর তার নিজের মধ্যে চারপাশের সব কিছুকে আকর্ষণ করে ক্রমান্বয়ে তার ভর বৃদ্ধি করে চলে, তা নয়। একটি জটিল প্রক্রিয়ার মাধ্যমে কৃষ্ণগহ্বরে অঞ্চল থেকে নির্গত হতে পারে বিকিরণ। এই বিকিরণকেই বলা হয় ‘হকিং রেডিয়েশন’। যেন কৃষ্ণগহ্বরটির বাষ্পীকরণ (ব্ল্যাক হোল ইভাপোরেশন) হয়।
কৃষ্ণগহ্বরের উপস্থিতির প্রমাণ করতে বিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয়ার্ধে বিজ্ঞানীরা বিভিন্ন পদ্ধতির কথা তুলে ধরলেন। ব্ল্যাক হোলের তীব্র আকর্ষণের ফলে যখন কোনও বস্তু তার ইভেন্ট হরাইজনের দিকে এগিয়ে যায়, তখন সে তার নিজস্বতা হারিয়ে ফেলে। অদৃশ্য হওয়ার বেশ কিছু আগেই অত্যন্ত উত্তপ্ত গ্যাসে রূপান্তরিত হয় সব বস্তু। সুতীব্র উত্তাপের ফলে এই গ্যাস আয়নিত হয়ে যায়। সেই উত্তপ্ত আয়নিত প্লাজমার স্রোত, কিন্তু সরাসরি ভাবে ইভেন্ট হরাইজনের আড়ালে অদৃশ্য হয় না। তীব্র এক ঘূর্ণনের মাধ্যমে একটি চাকতির মতো অঞ্চল সৃষ্টি করে তারা অবশেষে অদৃশ্য হয়। বিজ্ঞানীরা দেখালেন, প্রচণ্ড বেগে ঘূর্ণায়মান এই ধরনের একটি প্লাজমার চাকতি থেকে তীব্র গতি ও ঘর্ষণের ফলে নির্গত হতে থাকে শক্তিশালী বিকিরণ। তড়িৎ চুম্বকীয় সমস্ত তরঙ্গ দৈর্ঘ্যের রশ্মিতে উদ্ভাসিত হয়ে ওঠে এই ‘আকর্ষণী চাকতি’ (Accretion Disk) এই চাকতির সমকোণে শক্তিশালী চৌম্বকীয় ক্ষেত্রের প্রভাবে আয়নিত কণার স্রোত সার্চলাইটের মতো যেন বেরিয়ে আসে। এইসব ধারণা থেকে বুঝতে পারা যায় যদি মহাশূন্যের নিঃসীম অন্ধকারে দূরবীন দিয়ে লক্ষ্য করা যায় একটি উজ্জ্বল চাকতির মতো অঞ্চল, যার কেন্দ্রে রয়েছে একটি অদৃশ্য অন্ধকারময় জগৎ, তাহলেই প্রমাণ হবে কৃষ্ণগহ্বরের উপস্থিতি।
একটি তারার কৃষ্ণগহ্বরের রূপান্তরিত হওয়ার ধারণা হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা বিংশ শতাব্দীর ষাটের দশকে মহাকাশে লক্ষ্য করলেন আর এক ধরনের অদ্ভুত বস্তুকে। আবিষ্কৃত হল অতি উজ্জ্বল এক প্রকারের মহাজাগতিক বস্তু। রেডিও তরঙ্গের মাধ্যমে এদের উপস্থিতি জানা গেল। হিসাব কষে দেখা গেল এদের দূরত্ব পৃথিবী থেকে কয়েক কোটি আলোকবর্ষ। এদের নাম দেওয়া হল ‘কোয়াজার’। পরবর্তীকালে বোঝা গেল এগুলি আর কিছুই নয়, বৃহদাকার গ্যালাক্সির কেন্দ্রীয় অঞ্চল। এতটা শক্তি এত ক্ষুদ্র জায়গা হতে নির্গত হতে পারে তখনই, যখন সেই অঞ্চলে বাস করে অতি বৃহৎ কৃষ্ণগহ্বর (Supermassive Black Hole)। তবে এদের ভর, তারাদের থেকে কয়েক লক্ষ কোটি গুণ। আমাদের গ্যালাক্সি আকাশগঙ্গার কেন্দ্রীয় অঞ্চলে যখন দেখা গেল বেশ কিছু তারা অত্যন্ত তীব্র গতিতে একটি অদৃশ্য বস্তুকে যেন কেন্দ্র করে প্রদক্ষিণ করছে, সেই অঞ্চল থেকে ছিটকে উঠছে প্রভূত পরিমাণে উত্তপ্ত গ্যাস, তখন বোঝা গেল, আমাদের গ্যালাক্সির কেন্দ্রেও লুকিয়ে রয়েছে একটি বৃহৎ ভরের কৃষ্ণ-গহ্বর। তাদের মধ্যে কিছু ভীষণ সক্রিয়, যারা অবস্থান করছে একটি কোয়েজার বা অ্যাক্টিভ গ্যালাক্টিক নিউক্লিয়াই। তারই পাশাপাশি রয়েছে এমন গ্যালাক্সি, যার মাঝখানে অবস্থান করছে একটি ঘুমন্ত বা আপেক্ষিকভাবে নিষ্প্রভ কৃষ্ণগহ্বর। জানা গেল, আমাদের আকাশগঙ্গার কেন্দ্রে রয়েছে সূর্যের থেকে প্রায় চল্লিশ লক্ষ গুণ ভারী একটি কৃষ্ণগহ্বর। তাঁরা এর নাম দিলেন স্যাজিটারিয়াস Sagittarius A* (Sgr A* )।
পৃথিবী থেকে দৃশ্যমান একটি অতি শক্তিশালী অ্যাক্টিভ গ্যালাক্টিক নিউক্লিয়াই হল মেসিয়ের ৮৭ (M87)। এর কেন্দ্রতে রয়েছে একটি অত্যন্ত উজ্জ্বল অঞ্চল। কেন্দ্র থেকে প্রচণ্ড শক্তিশালী রশ্মিপুঞ্জ বেরিয়ে আসছে একটা সার্চলাইটের মতো। বোঝা গেল M87-এর কেন্দ্রে অবস্থান করছে একটি অতি বৃহৎ কৃষ্ণগহ্বর, যার ইভেন্ট হরাইজন-এর আশপাশ থেকে নির্গত হচ্ছে প্রভূত পরিমাণ শক্তি। পৃথিবী থেকে এই ইভেন্ট হরাইজনকে আমরা মুখোমুখি যেন দেখতে পাচ্ছি। আর সেই আলোর চাকতি থেকে প্রায় সমকোণে বেরিয়ে আসা, অতি শক্তিশালী কণারাশি যখন এই অঞ্চলে উৎপন্ন তীব্র চৌম্বকীয় ক্ষেত্রের মধ্যে দিয়ে গমন করতে গিয়ে যে শক্তিশালী রশ্মি বিকিরণ করে সৃষ্টি করছে ওই সার্চলাইটের মতো রশ্মিপুঞ্জ। তত্ত্ব অনুযায়ী তীব্র গতিবেগ সম্পন্ন এই আলোর রশ্মি আমাদের কাছে স্বাভাবিকের থেকে অনেক বেশি উজ্জ্বল দেখাবে। একেই বলা হল রিলেটিভিস্টিক বিমিং। হিসাব করে দেখা গেল এই M87 গ্যালাক্সির কেন্দ্রে অবস্থান করছে সূর্যের থেকে প্রায় ছ’শো পঞ্চাশ কোটি গুণ ভরের একটি কৃষ্ণগহ্বর।
একবিংশ শতাব্দীর শুরুতে প্রযুক্তির উন্নতির সঙ্গে সঙ্গে বিজ্ঞানীরা সৃষ্টি করে চললেন অত্যন্ত ক্ষমতাশালী সমস্ত দূরবীন, তড়িৎ চুম্বকীয় সকল তরঙ্গদৈর্ঘ্যের। কম্পিউটার প্রযুক্তির অগ্রগতির সাহায্যে মহাকাশের সুদূরতম বিন্দুর থেকে নিঃসৃত সংকেত পর্যালোচনা করার সুযোগ হল। কৃষ্ণগহ্বর একটি অদৃশ্য অস্তিত্ব হলেও তার ইভেন্ট হরাইজেনের উজ্জ্বল উপস্থিতির মাধ্যমে তাকে অনুভব করা যেতে পারে, এই উদ্দেশ্য নিয়ে প্রায় পনেরো বছর আগে শুরু হল ইভেন্ট হরাইজন টেলিস্কোপ (EHT) প্রজেক্ট। সমস্যা হল এই যে, সৌরজগৎ থেকে প্রায় সাড়ে পাঁচ কোটি আলোকবর্ষ দূরে M87 গ্যালাক্সির কেন্দ্রীয় অঞ্চল, পৃথিবীর নিরিখে এতই ক্ষুদ্র, যে কোন একটি দূরবীন দিয়ে তাকে দেখা যায় না। M87 এর কৃষ্ণগহ্বরকে মোটামুটিভাবে দেখতে গেলে দরকার পৃথিবীর আয়তনের মাপের একটি রেডিও দূরবীণের। বিজ্ঞানের অগ্রগতির স্বার্থে রূপ নিল একটি অভূতপূর্ব আন্তর্জাতিক সহযোগিতা। পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা আটটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন রেডিও দূরবীণ-এর সংকেতকে সফ্‌টওয়্যারের মাধ্যমে যোগ করে আপাতভাবে সৃষ্ট হল একটি পৃথিবীর আয়তনের সমান দূরবীন। গত দশবছর ধরে পৃথিবীর প্রায় দুশো বিজ্ঞানী এই দূরবীণগুলোর মাধ্যমে নিরন্তর দেখে চলেছিলেন M87 এবং আমাদের আকাশগঙ্গা গ্যালাক্সির কেন্দ্রে লুকিয়ে থাকা কৃষ্ণগহ্বর দুটিতে। গত ১০ এপ্রিল সারা বিশ্বের মানুষকে তাক লাগিয়ে তাঁরা প্রকাশ করেছেন তাঁদের এই কৃষ্ণগহ্বর ‘দর্শনের’ ফল।
ব্ল্যাক হোলের ছবি সৃষ্টি করতে পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় অবস্থিত আটটি দূরবীণকে ব্যবহার করা হয়েছে। M87-কে অত্যন্ত নিপুণতার সঙ্গে সংগৃহীত সংকেতগুলিকে যোগ করে বিজ্ঞানীরা সৃষ্টি করেছেন কৃষ্ণগহ্বরের একটি বাস্তবরূপী চিত্র। ছবিটিতে প্রকাশ হওয়ার পরে সারা পৃথিবীর মানুষ দেখেছেন একটি অস্পষ্ট আলোর চাকতির ছবি। অন্ধকারের বুকে একটি উজ্জ্বল বৃত্ত। তার নীচের ভাগটা অপেক্ষাকৃত বেশি উজ্জ্বল। এই চিত্রটির বিশ্লেষণ করে বিজ্ঞানীরা আমাদের বুঝিয়েছেন যে এটি হল M87-এর কৃষ্ণগহ্বরের ইভেন্ট হরাইজনের বহির্দৃশ্য। এই আলোকবৃত্তটি ইঙ্গিত দিচ্ছে যে ইভেন্ট হরাইজনের আশেপাশে অত্যন্ত উত্তপ্ত প্লাজমা তীব্র গতিতে ঘুরে চলেছে। পৃথিবীর নিরিখে একটি ঘড়ির কাঁটার মতো ঘুরে চলেছে প্লাজমা প্রতি দু’দিনে একবার। আইনস্টাইনের তত্ত্ব অনুযায়ী একটি অতি ঘন বৃহৎ ভরের বস্তু স্থান-কালকে এতটাই বক্র করে দিতে পারে যে আলোকরশ্মি বক্রপথে একটি সাধারণ বস্তুরও অতি সাধারণ রূপ ফুটিয়ে তুলতে পারে। একে বলা হয় গ্র্যাভিটেশনাল লেন্সিং। এরই ফলে তীব্র গতিসম্পন্ন আয়নিত কণা দ্বারা সৃষ্ট, ইভেন্ট হরাইজনের বহির্ভাগে যে প্লাজমার চাকতি (Accretion Disk) তৈরি হয়, তার পিছনের অংশটিও পৃথিবী থেকে দৃশ্যমান হয়। আর তার ফলেই আমরা যে আলোকবৃত্তটিকে দেখেছি সেটি সত্যিকারের ইভেন্ট হরাইজন থেকে প্রায় আড়াই গুণ বড়। এ যেন ইভেন্ট হরাইজেনের ‘ছায়ার’ একটা ছবি। এই আলোকবৃত্তের একাংশ উজ্জ্বল। তার কারণ এই অংশটি আমাদের নিরিখে পৃথিবীর দিকে গতিসম্পন্ন বলে রিলেটিভিস্টিক বিমিং-এর কারণে বেশি উজ্জ্বল।
ছবিটি একটু অস্পষ্ট। মনে রাখতে হবে যে অঞ্চলের চিত্র এটিতে দৃশ্যমান, পৃথিবীর কাছে তা হল একটি ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র পরিমাপের অঞ্চল। কৌণিক হিসাবের ভাষায় এই অঞ্চলটির বিস্তৃতি এক ডিগ্রির দশ কোটি ভাগের এক ভাগ। উন্নত প্রযুক্তি এবং বহু বিজ্ঞানীর নিরলস প্রচেষ্টা ও সাধনার ফলে মানব সভ্যতা, এক সুবৃহৎ কৃষ্ণগহ্বরের উপস্থিতি ও বাস্তব রূপ জানতে পেরেছে। আগামী দিনগুলিতে আমরা আশা রাখি কৃষ্ণগহ্বরের আরও এমন আপাত ছবি, আমাদের জ্ঞানকে সমৃদ্ধ করবে। কৃষ্ণগহ্বরের উৎপত্তি, গঠন, বিবর্তন, কণাজগতের বৈচিত্র্য এমনকী ব্রহ্মাণ্ডের উৎস মুহূর্ত সম্বন্ধেও জন্ম নেবে অনেক নতুন তত্ত্ব। কল্প বিজ্ঞানের কৃষ্ণগহ্বর এখন বাস্তব। তাকে না দেখা গেলেও ওই আলোর বৃত্তটি যেন একটি কৃষ্ণগহ্বরের ছায়া হিসাবে দৃশ্যমান করে তুলেছে এক অদ্ভুত অচেনা জগৎকে। এ যেন সত্যিই কবির ভাষায় ‘অন্ধকারের উৎস হতে উৎসারিত আলো।’

(লেখক এম পি বিড়লা তারামণ্ডলের অধিকর্তা, গবেষণা ও শিক্ষণ) 
12th  May, 2019
এই বোস সেই বোস নয়

মৃণাল শীল: আমরা দেশনায়ক সুভাষচন্দ্র বসুর ছাত্রাবস্থার একটি ঘটনার সঙ্গে সকলেই পরিচিত। সেটি হল, প্রেসিডেন্সি কলেজের ইতিহাসের এক ইংরেজ অধ্যাপক ওটেন সাহেব এক বাঙালি ছাত্রকে বিনা কারণে অপমান করেন। এই ঘটনার প্রতিবাদে সরব হয় গোটা প্রেসিডেন্সি কলেজ।  
বিশদ

12th  January, 2020
অদৃশ্য ক্যামেরার ফোন!

রোটেটর, পপ আপ, আন্ডার ডিসপ্লে ক্যামেরার স্মার্টফোনের দুনিয়ায় নতুন সংযোজন। ছবি তোলার পরই অদৃশ্য হয়ে যাবে ক্যামেরা। এমনই অভিনব প্রযুক্তির স্মার্টফোনের আত্মপ্রকাশ করল ওয়ান প্লাস। সম্প্রতি লাস ভেগাসে আয়োজিত ‘কনজিউমার ইলেক্ট্রনিক্স শো’-তে (সিইএস ২০২০) মডেলটি প্রকাশ্যে এনেছে ওয়ান প্লাস।
বিশদ

12th  January, 2020
রোদ্দুর ছুঁতে সূর্যের দেশে পাড়ি দিচ্ছে ভারত 

বিনয় মালাকার: চাঁদের পর এবার সূর্য। পরপর দু’বার চন্দ্র অভিযানের সাফল্যের পর ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা বা ইসরোর এখন লক্ষ্য সূর্য। সূর্যের অগ্নি বলয়ে হয়তো পৌঁছনো সম্ভব হবে না, তবে সূর্যের অনেকটাই কাছে পৌঁছনোর চেষ্টা চালানো হবে।  
বিশদ

12th  January, 2020
সেরা কিছু প্রযুক্তিগত উন্নতি 

১০৮, ৪৮ ও ৬৪ মেগা পিক্সেল ক্যামেরা: মোবাইল ক্যামেরার অগ্রগতি ডিএসএলআর জগৎকে কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে ঠেলে দিয়েছে। বিশ্বে প্রথমবার ১০৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা সেন্সর বাজারে নিয়ে এসেছে স্যামসাং।  বিশদ

29th  December, 2019
এ বছরের সেরা ব্যক্তিত্ব 

২০১৯ সালে বিজ্ঞানের অগ্রগতিতে অবদান রাখা ব্যক্তিদের মধ্যে এক ঝলকে খুঁজে নেওয়া কয়েকজন...  বিশদ

29th  December, 2019
জীবজন্তু 

প্রতিবছরই কিছু না কিছু নতুন প্রজাতির জীবজন্তু আবিষ্কার হয়। ২০১৯ সালও তার ব্যতিক্রম ছিল না। সেরকমই কয়েকটি প্রাণী হল  বিশদ

29th  December, 2019
এ বছরের উল্লেখযোগ্য ঘটনা 

 ১ জানুয়ারি: মানববিহীন মহাকাশযান নিউ হরাইজন্‌স সৌর জগতের দূরতম প্রান্তে অবস্থিত কাইপার বেল্টের মহাজাগতিক বস্তু ২০১৪ এমইউ৬৯-এর কাছে পৌঁছয়।
 ৩ জানুয়ারি: মহাকাশ গবেষণার ইতিহাসে প্রথমবার চাঁদের অন্ধকার পৃষ্ঠে অবতরণ করে চীনা মহাকাশযান চ্যাং ই-৪।  বিশদ

29th  December, 2019
ইলেকট্রনিক্সের ইতি!
আলোয় চলবে নতুন
যুগের কম্পিউটার

রক্তিম হালদার: বর্তমানে ‘কোয়ান্টাম সুপ্রিমেসি’র মাহেন্দ্রক্ষণে দাঁড়িয়ে তামাম বিশ্ব। এই পরিস্থিতিতে প্রশ্ন একটাই — তাহলে কি আজকের যুগের সাধারণ ইলেকট্রনিক কম্পিউটারের বদলে খুব শীঘ্রই বাজারে আসতে চলেছে ‘কোয়ান্টাম কম্পিউটার’? 
বিশদ

08th  December, 2019
 কৃত্রিম ত্বক নিয়ে মানুষ
হয়ে উঠবে রোবট

 সৌম্য নিয়োগী: রোবটরাও এবার হয়ে উঠবে মানুষের মতো! কৃত্রিম নয়, যন্ত্রমানবের শরীরেও থাকবে ব্যথা-বেদনা-ভালোবাসার মতো অনুভূতি। রোবটকে জড়িয়ে ধরলে সে লজ্জা পাবে। ভালোবেসে জড়িয়েও ধরবে। হাতে হাত রেখে মনও পড়তে পারবে সে। ঠান্ডা-গরম, হাসি-কান্না, আশঙ্কা — সব‌মিলিয়ে ষষ্ঠ ইন্দ্রিয়ই কাজ করবে যন্ত্র শরীরে।
বিশদ

08th  December, 2019
যন্ত্র কখনই চেতনা সম্পন্ন হবে না
বেদান্ত দর্শন তুলে ধরে বসু বিজ্ঞান
মন্দিরে বলে গেলেন সুভাষ কাক

 দেবজ্যোতি রায়: আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই) বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার উন্নতিতে অনেক কাজই আর মানুষকে করতে হচ্ছে না। করে দিচ্ছে যন্ত্র। কর্মচ্যুত হচ্ছেন বহু চাকুরিজীবী। এআইয়ের অগ্রগতির ফলে বর্তমান গোটা বিশ্বজুড়ে একটা অস্থিরতা তৈরি হয়েছে। আশঙ্কা, সংশয়ের প্রহর গুনছে তামাম দুনিয়া।
বিশদ

08th  December, 2019
 গুগল ইন্ডিয়ার শীর্ষ পদে সঞ্জয় গুপ্ত

ডিজনি ভারত শাখার প্রাক্তন শীর্ষ আধিকারিক সঞ্জয় গুপ্তকে কান্ট্রি ম্যানেজার এবং সেলস ও অপারেশনসের ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে নিয়োগ করল মার্কিন তথ্যপ্রযুক্তি জায়ান্ট গুগল। আগামী বছরের শুরুতে তিনি নতুন পদে কাজ শুরু করবেন। এই পদে ছিলেন রঞ্জন আনন্দন।
বিশদ

08th  December, 2019
কী করে বুঝবেন ফোন
ট্যাপ হচ্ছে কি না?

 একটি উপায় হচ্ছে অ্যান্টি-ভাইরাস বা অ্যান্টি-ম্যালওয়্যার অ্যাপ বা মোবাইল এন্ড টু এন্ড সিকিউরিটির উপর অনেক অ্যাপ প্লে স্টোরে রয়েছে। সেরকম অ্যাপ যদি ডাউনলোড করা হয়, তারা কিন্তু একটা সঙ্কেত দেবে যে কিছু একটা হতে চলেছে বা কোনও প্রিভিলেজ অ্যাক্সেস দেওয়া হয়েছে।
বিশদ

10th  November, 2019
বিজ্ঞানের টুকিটাকি 

চন্দ্র অভিযানের জন্য নাসার নতুন স্পেসস্যুট, পরতে পারবেন যে কেউ
নতুন অভিযানের জন্য চাই নতুন পোশাক। আগামী আর্টেমিস চন্দ্র অভিযানের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে নাসা। তার জন্য বিশেষ স্পেসস্যুট বা মহাকাশ অভিযানের উপযুক্ত পোশাক প্রস্তুত করে ফেললেন বিজ্ঞানীরা। সাংবাদিক সম্মেলন করে তা প্রকাশ্যে নাসার প্রধান জিম ব্রিডেনস্টাইন।   বিশদ

10th  November, 2019
নজরদারির নয়া ফাঁদ হোয়াটসঅ্যাপ 

সন্দীপ সেনগুপ্ত (ফাউন্ডার ডিরেক্টর, ইন্ডিয়ান স্কুল অব অ্যান্টি হ্যাকিং): আপনার তথ্য কি সুরক্ষিত? বা আপনার হাতে থাকা মোবাইল ফোনের মাধ্যমেই কেউ আপনার উপর নজরদারি চালাচ্ছে না তো? ফেসবুকে তথ্য চুরির বিষয়টি এখন আর কারও অজানা নয়। কিন্তু, অনেকেই হোয়াটসঅ্যাপের সুরক্ষা ব্যবস্থার উপর ভরসা রেখেছিল।  
বিশদ

10th  November, 2019
একনজরে
জীবানন্দ বসু, কলকাতা: গত কয়েক মাস ধরে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তথা রাজ্য সরকারের সঙ্গে অহি-নকুল সম্পর্ক তৈরি হয়েছে রাজ্যপালের। সম্প্রতি শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় তাঁর সঙ্গে দেখা করায় সমঝোতার আবহ তৈরি হলেও পরবর্তীকালে নানা ইস্যুতে ফের সংঘাতের বাতাবরণ ফিরে এসেছে।  ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: রাজ্যপালের দায়িত্ব নিয়ে এই প্রথম নির্বিঘ্নে কোনও সমাবর্তনে হাজির হলেন জগদীপ ধনকার। আর সেই অনুষ্ঠানে গিয়েও সরকারের উদ্দেশ্যে খোঁচা দিতে ছাড়লেন না ...

বিএনএ, কৃষ্ণনগর: নদীয়াজুড়ে এবার প্রকাশ্যে ধূমপান ও গুটখার বিরুদ্ধে অভিযানে নামবে জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর। কিছু দিন আগেই এবিষয়ে আলোচনায় বসা হয়েছিল। গত প্রায় ছ’মাসে অভিযান ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: কথা রাখতে ব্যর্থ মোহন বাগান কর্তারা। তাঁরা আনতে পারলেন না নতুন ইনভেস্টর কিংবা স্পনসর। শেষ পর্যন্ত এটিকের সঙ্গে সংযুক্তিকরণের পথেই হাঁটতে হল ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
aries

গুরুজনের চিকিৎসায় বহু ব্যয়। ক্রোধ দমন করা উচিত। নানাভাবে অর্থ আগমনের সুযোগ। সহকর্মীদের সঙ্গে ঝগড়ায় ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৪১: মহান বিপ্লবী সুভাষচন্দ্র বসুর মহানিষ্ক্রমণ
১৯৪২: মার্কিন মুষ্টিযোদ্ধা মহম্মদ আলির জন্ম
১৯৪৫: গীতিকার ও চিত্রনাট্যকার জাভেদ আখতারের জন্ম
২০১০: কমিউনিস্ট নেতা তথা পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসুর মৃত্যু 





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯. ২০ টাকা ৭২.৩৪ টাকা
পাউন্ড ৯০.১৯ টাকা ৯৪.৫৮ টাকা
ইউরো ৭৭.১০ টাকা ৮০.৮৫ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪০, ৩৯৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৮, ৩২৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৮, ৯০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৬, ৩০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৬, ৪০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২ মাঘ ১৪২৬, ১৭ জানুয়ারি ২০২০, শুক্রবার, সপ্তমী ২/৪০ দিবা ৭/২৮। চিত্রা ৪৭/৪ রাত্রি ১/১৩। সূ উ ৬/২৩/৭, অ ৫/৯/৫১, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৯ মধ্যে পুনঃ ৮/৩২ গতে ১০/৪১ মধ্যে পুনঃ ১২/৫০ গতে ২/১৭ মধ্যে পুনঃ ৩/৪৪ গতে অস্তাবধি। বারবেলা ৯/৪ গতে ১১/৪৫ মধ্যে। কালরাত্রি ৮/২৮ গতে ১০/৭ মধ্যে। 
২ মাঘ ১৪২৬, ১৭ জানুয়ারি ২০২০, শুক্রবার, সপ্তমী ১২/৪/১৯ দিবা ১১/১৫/২৬। হস্তা ০/৩/৫ প্রাতঃ ৬/২৬/৫৬ পরে চিত্রা নক্ষত্র দং ৫৬/৯/৪১ শেষরাত্রি ৪/৫৩/৩৪। সূ উ ৬/২৫/৪২, অ ৫/৮/৫৬, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৮ মধ্যে ও ৮/৩২ গতে ১০/৪৩ মধ্যে ও ১২/৫৫ গতে ২/২৩ মধ্যে ও ৩/৫১ গতে ৫/৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৩ গতে ৮/৪৭ মধ্যে ও ৩/৪৪ গতে ৪/৩৬ মধ্যে। কালবেলা ১০/২৬/৫৫ গতে ১১/৪৭/১৯ মধ্যে, কালরাত্রি ৮/২৮/৮ গতে ১০/৭/৪৩ মধ্যে । 
মোসলেম: ২১ জমাদিয়ল আউয়ল 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে ভারত ৩৬ রানে জিতল 

09:55:34 PM

অস্ট্রেলিয়া ২৩৫/৫ (৪০ ওভার), টার্গেট ৩৪১ 

08:50:02 PM

অস্ট্রেলিয়া ১৫১/২ (২৬ ওভার), টার্গেট ৩৪১

07:46:57 PM

অস্ট্রেলিয়াকে ৩৪১ রানের টার্গেট দিল ভারত 

05:12:00 PM

নির্ভয়া কাণ্ড: দোষীদের ফাঁসি ১ ফেব্রুয়ারি 
নির্ভয়া কাণ্ডে চারজন দোষীদের ফাঁসি ২২ জানুয়ারির বদলে হবে ১ ...বিশদ

05:08:00 PM

ভারত ২৪৯/৩ (৪০ ওভার) 

04:25:39 PM