Bartaman Patrika
বিনোদন
 

পিকচার আভি বাকি হ্যায় 

চোখের নিমেষে ফুরিয়ে গেল চারটি দিন। মর্তবাসীর মন খারাপ করে দিয়ে কৈলাসের উদ্দেশে রওনা গেলেন মা দুর্গা। কিন্তু, দুর্গোৎসবের আমেজ তো এখনও ভরপুর। ফেস্টিভ মুডে চেটেপুটে খাওয়া বাঙালির কি আর চার দিনে হয়! কী করা যায়! কালীপুজো আসতে এখনও বেশ দেরি। এদিকে মনটা এখনও এদিক সেদিক করে যাচ্ছে। তাই কিছু তো একটা করতেই হবে। পুজো শেষ হয়ে গেলেও এই মরশুমে মুক্তি পাওয়া চারটি বাংলা, একটি হিন্দি ও একটি ইংরেজি ছবি কিন্তু এখনও সিনেমা হলে চলছে। পুজোর প্যান্ডেল হপিং সারা হয়ে যাওয়ার পর এবার নয় সিনেমা হল হপিং হয়ে যাক। তার আগে অ্যাপেটাইজার হিসেবে তুলে দেওয়া হল ওই পাঁচটি ছবির সমলোচনা। পড়ে নিয়ে সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলুন কোনটা বা কোনটা কোনটা দেখবেন।
গুমনামি
প্রাইমারি অবৈতনিক স্কুল। ক্লাস থ্রি। বাংলা পরীক্ষা। রচনা লিখতে হতো, তোমার প্রিয় দেশনায়ক। সিংহভাগ বাঙালি ছেলেমেয়ে চোখ বুঁজে লিখে ফেলতো ‘নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু’। রচনা লিখতে গিয়েই প্রথম পরিচয় ঘটত নেতাজির সঙ্গে। তাঁর ছদ্মবেশে গৃহত্যাগ, সাবমেরিনে করে জাপানে যাওয়া, ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল আর্মি গঠন, তাঁর বীরত্ব, অত্যাচারী ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে স্বাধীনতার লড়াইয়ের গল্প মুখস্থ করতে গিয়ে কখন যেন রক্ত ফুটতে শুরু করত টগবগিয়ে! নিজের অজান্তে কচি মন হয়ে উঠত খুদে নেতাজি! দমাস দমাস করে আছাড় দিত গোরা সাহেবদের। স্কুলের মাঠে, টিফিন পিরিয়ডে কতশত স্বাধীনতার লড়াই-লড়াই খেলায় সবাই হয়ে উঠত ‘সুভাষ’! মাঠের ওপারে তখন কল্পনায় ব্রিটিশ সেনা!
রচনার শেষ লাইনটা বলা হল না। বাঁধা গতে লেখা হতো— ‘শোনা যায়, ১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দে, তাইহোকু বিমানবন্দরে এক বিমান দুর্ঘটনায় নেতাজির মৃত্যু হয়। অবশ্য এই ঘটনার সত্যতা নিয়ে অনেক সংশয় রয়েছে। তবে যাই হয়ে থাকুক না কেন, সুভাষচন্দ্র বসুর মতো নেতার মৃত্যু হয় না। নেতাজি বেঁচে থাকেন তাঁর স্বাধীনতা সংগ্রামের গল্পে।’
ঠিক তাই। আমাদের মধ্যবিত্ত জীবনচর্চায়, প্রিয় দেশনায়ক রচনায়, তেইশে জানুয়ারিতে, পনেরোই আগস্টে, দূরে বেজে ওঠা হঠাৎ জাতীয় সঙ্গীতে, দেশাত্মবোধক গানে বুকের ভিতর নেতাজির ঘোড়া ক্ষুর ঠোকে। কে যেন আঙুল তুলে বলে ‘দিল্লি চলো’।
নেতাজির মৃত্যু হয় না।
ছোটবেলায় ‘নেতাজি জীবিত, শীঘ্রই দেশে ফিরবেন’— দেওয়াল লিখন দেখে, সম্ভবত অনেকেই বাবাকে প্রশ্ন করে থাকবেন, ‘নেতাজি কি সত্যিই বেঁচে আছেন? ফিরে আসবেন?’
সম্ভবত প্রত্যেক পিতাই বলেছিলেন,‘এখন তো অনেক বয়স হয়ে যাওয়ার কথা। তবে ফিরে আসতেও পারেন।’
পরের প্রশ্ন ছিল নির্ঘাৎ— ‘এলে কী হবে?’
এই প্রশ্নের উত্তরে সম্ভবত কারও বাবাই মুখে কিছু বলতে পারেননি। কিন্তু, আমরা জানতাম, বাবা মনে মনে উত্তর দিচ্ছেন, ‘রক্ত দেব, নেতাজি তুমি স্বাধীনতা দাও।’
১৯৪৫ এর পর তিয়াত্তর বছর অতিক্রান্ত। আজকাল দেওয়ালে ‘নেতাজি জীবিত...’ লেখা দেখে ঠোঁটের কোণে হাসি ফুটে ওঠে। কে যেন কানের কাছে সহসা বলে নেতাজি মারা যাননি...! নেতাজির বিমান দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়নি, তাঁর রাশিয়ায় মৃত্যু হয়নি, তাঁর সাধু বেশেও মৃত্যু হয়নি। তিনি জীবিত...ফিরে আসবেন। কোনও কমিশন, কোনও গবেষক, লেখকের বই তাঁর মৃত্যু হয়েছে প্রমাণ করতে পারবে না! তাই প্রজন্মের পর প্রজন্ম, দেওয়াল লিখনের দিকে তাকিয়ে প্রতিটি পিতা তাঁর সন্তানকে বলবে— ‘নেতাজি ফিরে আসতেও পারেন।’ কারণ নেতাজির মৃত্যুর চাইতেও তাঁর আদর্শ, তাঁর দেখানো পথ অনেক বড়! সে পথে নেতাজি হাঁটেন সামরিক পোশাক পরে, আজও হাঁটেন। আমরা তাঁকে অনুসরণ করতে পারি মাত্র।
পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের সবথেকে বড় কৃতিত্ব হল, তিনি বাঙালির ভাবনায়, নেতাজির অমরত্ব নিয়েই প্রশ্ন তুলে দিয়েছেন! ছবির থেকেও যেন ‘গুমনামি’ হয়ে উঠেছে ডকুফিচার। যেখানে এক গবেষকের চোখ দিয়ে পরিচালক দেখিয়েছেন, নেতাজিও মরণশীল!
দর্শকের ইচ্ছে হলে ‘গুমনামি’ দেখবেন। দেখে নিজেরাই বিচার করবেন— কোনটা বেশি বড়? একটা মানুষের ‘আদর্শ’ নাকি তিনি ‘নশ্বর’ তা প্রমাণ হওয়ার!
অনির্বাণ ভট্টাচার্য, আপনার অভিনয় সত্যিই ভালো। নেতাজি সম্পর্কিত যে কোনও বই, লেখা, গবেষণা পড়তে শুরু করলেই পাঠকের শিরায় শিরায় রক্তপ্রবাহ বাড়ে। বেড়ে যায় হৃদস্পন্দন। অস্থির, উত্তেজিত হয়ে পড়ে মস্তিষ্ক। কিন্তু বাইরে থেকে সেসব দেখা যায় না। অথচ চন্দ্রচূড় ধরের চরিত্রে আপনার অভিব্যক্তিতে, চোখের ভাষায় তা দেখা যাচ্ছিল! ছোঁয়া যাচ্ছিল। তনুশ্রী চক্রবর্তীকে বেশ গ্ল্যামারাস মনে হয়েছে। আর প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় এমনিতেই বলিষ্ঠ অভিনেতা। তাঁর সম্পর্কে আলাদা করে আর কী বলব!
এই ছবির সম্পদ আসলে গান আর ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক। সোনু নিগমের কণ্ঠে ‘সুভাষজি’ বুকে কাঁপুনি ধরিয়ে দেয়। ‘ধন ধান্য পুষ্পে ভরা...’ গানের ব্যবহার যথাযথ। জন গণ মন অধিনায়কের হিন্দি তর্জমা ‘শুভ সুখ চ্যায়েন’ চমৎকৃত করে। এই গানের রেশ থেকে যায় দীর্ঘসময় ধরে, যতক্ষণ না মনে পড়ে, ফৈজাবাদের এক সাধুকে অনেকে নেতাজি মনে করতো, আবার কেউ কেউ তাকে খুনের আসামি বলেও সন্দেহ করতো! আকিরা কুরোসাওয়া কি সত্যকে নানা দৃষ্টিকোণে দেখাতে গিয়ে এই খুনের অভিযোগটি এড়িয়ে যেতেন?
পাসওয়ার্ড
বার্তা প্রেরক ‘পাসওয়ার্ড’। প্রাপক দক্ষিণী ইন্ডাস্ট্রি। দারুণ অ্যাকশন, মন মাতানো সঙ্গীত- এই রেসিপিতেই গোটা দেশকে মাত করে এসেছে দক্ষিণী ইন্ডাস্ট্রি। এবার তাদের একটু দেখার পালা। কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায় পরিচালিত ‘পাসওয়ার্ড’ আক্ষরিক অর্থেই ছকভাঙা কমার্শিয়াল বাংলা ছবি। ভাবনা, অ্যাকশন, ভিএফএক্স সবক্ষেত্রেই এই ছবি দশে বারো পাওয়ার যোগ্য। এক্ষেত্রে পাঠককে মনে রাখতে হবে, তিনি পুরোদস্তুর একটি কমার্শিয়াল ছবি দেখতে যাচ্ছেন। আল্লু অর্জুনদের ছবি দেখার সময় যেমন যুক্তিকে কুলুঙ্গিতে তুলতে হয়, এক্ষেত্রেও তা বাঞ্ছনীয়। দক্ষিণী ছবির অ্যাকশন দৃশ্যের গুণ গেয়ে যদি দর্শক ‘পাসওয়ার্ড’ দেখে নাক সিঁটকান তবে তা নিছকই ভণ্ডামি। ‘পাসওয়ার্ড’ বাংলা ছবির বাঁক বদল করবে না, কিন্তু ইন্ডাস্ট্রিকে কাঁধের বাঁকে নিয়ে এগবে নিঃসন্দেহে।
বাংলা ইন্ডাস্ট্রি যে ভেন্টিলেশনে দর্শক মাত্রেই জানেন। মূল ধারার বাণিজ্যিক ছবি চলছে না। প্যারালাল ছবি তৈরি হওয়াও প্রায় বন্ধ। মধ্যপন্থী ছবিগুলিই ডাল-ভাতের ব্যবস্থা করছে। এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে দেব-কমলেশ্বর জুটির থেকে মাস্টারপিস আশা করা মূর্খামি। কিন্তু এই ভিন্নধর্মী চেষ্টার জন্য সাধুবাদ দিতেই হবে। তাঁদের ‘পাসওয়ার্ড’ স্মার্ট, নিউ এজ কমার্শিয়াল ছবি, যা এই মুহূর্তে ইন্ডাস্ট্রির জন্য জরুরি। গল্পকে বারবার খাবি খাইয়ে বাংলার প্রথম সাইবার ক্রাইম থ্রিলার ‘পাসওয়ার্ড’ শুরু থেকে ফোর জি স্পিডে ছুটেছে। তবে মজুত রেখেছে ভরপুর বিনোদনের মশলা। ২ ঘণ্টা ১৭ মিনিটের ছবিটি এতই গতিশীল যে দর্শক গল্পের ফাঁক খুঁজে যুক্তি দিয়ে বিশ্লেষণ করার সময়ই পাবেন না। যদিও বারবার ফ্ল্যাশব্যাক আর বর্তমানের ওভারল্যাপিং সমস্যার উদ্রেক করতে পারে।
পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় ও পাওলি দাম জুটিকে দেখে অনেকের ‘কালবেলা’ ছবির কেমিস্ট্রি মনে পড়তে পারে। পরমের চোস্ত উর্দু শায়েরি ও হিমশীতল আচরণ বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। তবে পাওলিকে আর একটু জায়গা দেওয়াই যেত। পুলিস আধিকারিকের ভূমিকায় দেব মানানসই। তবে কিছু ক্ষেত্রে তাঁর উচ্চারণ ফের ভুগিয়েছে। রুক্মিনী মৈত্র হতাশ করেননি কিন্তু ‘কবীর’-এর চরিত্রই যেন নতুন মোড়কে চালিয়ে দিলেন। ছবির সবথেকে বড় চমক আদৃত রায়। চকোলেট বয় ইমেজের সঙ্গে ভিলেনি বদমাইশি মিশিয়ে তিনি এই ছবির ‘মনস্টার’।
সঙ্গীত ছবির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ। সম্পাদক রবিরঞ্জন মৈত্র আরও কড়া হলে এলোপাথাড়ি জাম্প কাটগুলি এড়ানো যেত। অভীক মুখোপাধ্যায়ের সিগনেচার ফোটোগ্রাফি ছবিতে অনুপস্থিত। শেষে পরিচালকের কাছে একটা অভিযোগ জানাতেই হচ্ছে। ক্লাউড সার্ভারের যুগে বিশ্বের পয়লা নম্বর হ্যাকার সার্ভার সঙ্গে করে ঘোরে, পুলিস কমিশনার র’-এর পূর্বাঞ্চলীয় প্রধানকে থার্ড ডিগ্রি নিয়ে জ্ঞান দেয়, এসব হজম হওয়া মুশকিল। তবে বাংলার রোহিত শেট্টি আগামী ছবিতে আক্ষেপ মিটিয়ে দেবেন বলেই আশা।
মিতিন মাসি
প্রথমেই বলে রাখা ভালো, আপনারা যাঁরা সুচিত্রা ভট্টাচার্যের মিতিন মাসি পড়েছেন তাঁরা এই ছবি দেখে একটু ভ্রু কুঁচকোতেই পারেন। পরিচালক অরিন্দম শীল ছবির স্বার্থে কিছু কিছু জায়গা বদলে দিয়েছেন। ‘হাতে মাত্র তিনটি দিন’ গল্প অবলম্বনে তৈরি এই ছবি। এখানে মিতিন, মানে প্রজ্ঞাপারমিতা মুখার্জি (কোয়েল মল্লিক) যেমন শাড়ি পরে, তেমনই আবার শার্ট-প্যান্টও পরে। সে তার পেশীর জোরে খারাপ লোকেদের ঘায়েল করতে পারে। স্নিকার পরা পায়ের এক টোকাতে গাড়ির দরজা বন্ধ করে দিতে পারে। যাই হোক! ক্যামেরার সামনে মেকআপ করে দাঁড়ালেই তো বেশি ভালো দেখায়। এই পরিবর্তনগুলো সেই মেকআপের সমান হিসেবে ধরা যেতেই পারে। কলকাতা নিবাসী পার্সি ব্যবসায়ী রুস্তমজি জরিওয়ালার (বিনয় পাঠক) আট বছরের ছেলেকে অপহরণ করা হয়েছে। সেই কারণেই মিতিনের শরণাপন্ন হয়েছে রুস্তমজি।
মিতিন এবং তার সহকারী বোনঝি টুপুর (রিয়া বণিক) আঁকা বাঁকা পথ দিয়ে হেঁটে অপরাধী পর্যন্ত পৌঁছনোর চেষ্টা চালিয়ে যায়। মাঝেমধ্যে তার স্বামী পার্থও (শুভ্রজিত্ দত্ত) তাদের কাজে মগজ লাগায়। গল্প তার নিজের ঢঙে এগতে থাকে। কখনও রহস্যের পোড়া গন্ধ আবার কখনও গল্পের মধ্যে ঝাঁঝালো বাক্যালাপ আসতে থাকে। যেমন, পরিচালক গল্পের মাঝে মিতিন আর পার্থর ব্যক্তিগত জীবনের সমস্যাও ছুঁয়ে গিয়েছেন আবার কিছু সামাজিক বদ্ধমূল ভুল ধারণাকেও কাউন্টার করেছেন। সব মিলিয়ে পরিচালক দর্শকদের সিটে বসিয়ে গল্পের পুরো বাগানটি ঘুরে ঘুরে দেখিয়েছেন। পুজোর ছুটিতে ভিড় ঠেলে প্যান্ডেল ঘোরার চেয়ে সপরিবারে এই ছবির গল্পের বাগান ঘুরে দেখা অনেক ভালো এবং আরামদায়ক। স্কুলে পড়া বাচ্চা থেকে শুরু করে তাদের বাড়ির লোক, সবারই সরু চোখে মিতিনের কিডন্যাপার ধরার গল্প পর্দায় দেখতে মন্দ লাগবে না। একটা সময় সঙ্গীত পরিচালক বিক্রম ঘোষের মিউজিক পরিচালক এবং দর্শকদের মাঝে জোরালোভাবে যোগদান করে। এর ফলে স্লগওভারে ঢাকের বাদ্যির সঙ্গে কাঁসর ঘণ্টার আওয়াজও যোগ হয়ে যায়। পাশে বসে থাকা ক্লাস ফাইভের দুরন্ত ছেলে হয়তো তখন মায়ের হাতটা শক্ত করে ধরে ফেলে।
অভিনয়ের ক্ষেত্রে, কোয়েলকে মিতিন মাসি রূপে মেনে নিতে অসুবিধা হয় না। পার্সি ব্যবসায়ীর চরিত্রে বিনয় পাঠক বেশ ভালো, তার স্ত্রীয়ের চরিত্রে জুন মালিয়াও মন্দ নয়। পার্থর চরিত্রে শুভ্রজিত্ দত্ত যথাযথ। টুপুরের চরিত্রে রিয়া বণিক বেশ সপ্রতিভ। শুভঙ্কর ভরের ক্যামেরাও বেশ ভালো। সবশেষে যে কথাটা বলতেই হয়, বাঙালিকে গোয়েন্দা দিয়ে বশ করার এক অদৃশ্য চাবিকাঠি এবারও অরিন্দম শীলের পকেটেই বহাল তবিয়তে গচ্ছিত থাকল।
সত্যান্বেষী ব্যোমকেশ
সাহিত্যের কোনও কোনও চরিত্র কখনও-সখনও রক্তমাংসের হয়ে ওঠে। পাঠক তার বাস্তবিক উপস্থিতি উপলব্ধি করতে শুরু করেন। সে রামায়ণের রামই হোক বা সাহিত্যিক শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়ের অমরসৃষ্টি ব্যোমকেশ বক্সী— বাঙালির কাছে এই সত্যান্বেষীর উপস্থিতি প্রবল। আর সাহিত্য যখন সেলুলয়েডে রূপ নেয় তখন পরিবর্তন-পরিবর্ধন-পরিমার্জন অবশ্যম্ভাবী। কিন্তু সেই পরিবর্তন কতটা সিনেম্যাটিক ও যুক্তিযুক্ত হল সেটাই বড়সড় প্রশ্ন।
পুজোর ছবির বাজারে আবারও পদচারণা করলেন বাঙালির প্রিয় গোয়েন্দা ব্যোমকেশ। এবারে নতুন পরিচালক— সায়ন্তন ঘোষাল। স্বভাবতই কাস্টিংয়ে বড়সড় রদবদল। ‘ব্যোমকেশ’ পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে জুটি বেঁধেছেন ‘অজিত’ রুদ্রনীল ঘোষ। ছবির নাম ‘সত্যান্বেষী ব্যোমকেশ’। যেটি ‘মগ্ন মৈনাক’ গল্প অবলম্বনে তৈরি।
যাঁরা ব্যোমকেশের একনিষ্ঠ পাঠক, তাঁদের গল্পটি জানা। আর যাঁরা গল্পটি পড়েননি, তাঁদের উদ্দেশে বলতে হয় গোয়েন্দা ছবির গল্প বলতে নেই, তাতে রসভঙ্গ হয়। তবে, পরিবর্তনটা অবশ্যই আলোচনাযোগ্য। ‘স্বাধীনতা লাভের পর পনেরো বছর অতীত হইয়াছে...’ লাইনটি দিয়ে ‘মগ্ন মৈনাক’ গল্পটির শুরু। অর্থাৎ শরদিন্দুর এই গল্পটির প্রেক্ষাপট ১৯৬২ সাল। তবে, ‘যকের ধন’, ‘আলিনগরের গোলকধাঁধা’র পরিচালক তাঁর ‘সত্যান্বেষী ব্যোমকেশ’ ছবিতে গল্পটি ১৯৭১ সালে নিয়ে গিয়ে ফেঁদেছেন। এনেছেন এপার বাংলার নকশাল আন্দোলন এবং ওপার বাংলার মুক্তিযুদ্ধের অনুষঙ্গ। মূল গল্পে কংগ্রেসী নেতা (দলের নাম উল্লেখ না থাকলেও ইঙ্গিতে বোঝা যায়) সন্তোষ সমাদ্দার পরিবর্তিত হয়ে ছবিতে হয়েছে যুক্তফ্রন্ট সরকারের তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী সন্তোষ দত্ত (সুমন্ত্র মুখোপাধ্যায়)। গল্পের পরিণতি মোটামুটি একই রাখলেও শিল্পীর স্বাধীনতা নিয়েছেন চিত্রনাট্যকার।
তবে, যেহেতু একটি বিশেষ সময়কে প্রেক্ষাপট করে গল্পটি এগিয়েছে তাই ইতিহাস রক্ষার দায়বদ্ধতা অবশ্যই পরিচালকের ছিল। ’৬৭ ও ’৬৯ সালে এ রাজ্যে যুক্তফ্রন্ট সরকার গঠিত হয়েছিল। ’৭১ সালে মাস তিনেকের জন্য অজয় মুখোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন একটি জোট সরকার গঠিত হয়েছিল। যেহেতু ছবির গল্পে সন্তোষ দত্তকে যুক্তফ্রন্ট সরকারের মন্ত্রী দেখানো হয়েছে, তাই ধরে নিতে হয় ’৭১ সালের এপ্রিল থেকে জুনের মধ্যে গল্পটি দেখানো হচ্ছে। সন্তোষ দত্ত বার বার সামনে ভোটের কথা বলছেন। অথচ, ইতিহাস বলছে, ওই সরকারের পতন হয়েছিল রাষ্ট্রপতি শাসনের মাধ্যমে। এ রাজ্যে ১৯৭১ সালের ২৯ জুন থেকে ’৭২-এর ২০ মার্চ পর্যন্ত চলেছিল রাষ্ট্রপতিশাসন। আবার মন্ত্রীমশাইয়ের বাড়ির ছাদ থেকে গঙ্গা আর বালির ব্রিজ দেখা যায়। গঙ্গার ওপারে দক্ষিণেশ্বর মন্দির থেকে ভেসে আসে ঘণ্টাধ্বনি। তাহলে ধরে নিতে হয় সন্তোষ দত্তের বাড়ি হাওড়ার বালি অঞ্চলে। অথচ, এই বাড়ির নেংটি দত্ত নামে কিশোর মাঝে মধ্যে সিগারেট আর বইয়ের লোভে দক্ষিণ কলকাতার কেয়াতলায় ব্যোমকেশের বাড়িতে ঢুঁ মারতে যায়! এককথায় বললে ‘টাইম অ্যান্ড স্পেস’ বেশ গুলিয়েছে। আবার চোখের সামনে পড়ে থাকা গুলিবিদ্ধ আইবি অফিসারকে একবারও বাঁচানোর চেষ্টা হল না— এটাও ঠিক ব্যোমকেশসুলভ আচরণ নয়।
প্যান্ট-শার্ট পরা দৃশ্যগুলিতে পরমব্রতকে একটু কমবয়সি মনে হলেও ধুতি-পাঞ্জাবিতে তাঁকে ব্যোমকেশ চরিত্রে বেশ মানিয়েছে। রুদ্রনীলও যথাসাধ্য অজিত হওয়ার চেষ্টা করেছেন। এই জুটির ভবিষ্যৎ কী হয় দর্শক বলবেন। মন্ত্রীর সেক্রেটারি রবি বর্মার চরিত্রে অঞ্জন দত্ত যথাযথ। মন্ত্রীর চরিত্রে সুমন্ত্রও ভালো কাজ করেছেন। আবহসঙ্গীত ও সম্পাদনাও ঠিকঠাক। তবে, পুরো ছবিতে আগাগোড়া একটা সিফিয়া টোন রাখা হয়েছে। টাইটেল কার্ডও বেশ চমকপ্রদ। তবে, নতুন ‘টিম ব্যোমকেশ’ বক্সঅফিসের রহস্যভেদ করতে পারবেন কিনা, সেটা জনতা জনার্দনই বলবেন।
ওয়ার
গত কয়েকদিন ধরেই রীতিমতো বাংলা ছবির দুঃস্বপ্ন হয়ে উঠেছিল ‘ওয়ার’। পুজোর আগে এই ছবির চাপে প্রেক্ষাগৃহে বাংলা ছবি কোণঠাসা! কিন্তু যুদ্ধের ভয়ে বাংলা ছবির আকাশ মেঘাচ্ছন্ন হবে কি? মনে হয় না। ধুন্ধুমার অ্যাকশন, বিদেশের অসাধারণ সব লোকেশন। তার থেকেও বড় কথা বড়পর্দায় বলিউডের দুই স্টাইল আইকনের ডুয়েল— ‘ওয়ার’ এর মধ্যে একটা স্মার্ট অ্যাকশন ছবির সব মশলাই উপস্থিত। অর্থাৎ বক্সঅফিসে রেকর্ড রোখে সাধ্যি কার। কিন্তু রকমারি মশলা থাকলেও পরিচালক সিদ্ধার্থ আনন্দের রান্নায় অতিরিক্ত নুন ঢেলেছে ছবির গল্প। ভারতের এক ইন্টালিজেন্স সংস্থার অফিসার কবীর (হৃতিক রোশন) হঠাৎই সংস্থার বিরোধিতা শুরু করে। সহকর্মী ও সেনার এক অফিসারকে খুনও করে সে। কিন্তু কেন? কবীরকে গ্রেপ্তার করতেই সংস্থা নিয়োগ করে একসময়ে কবীরেরই ছাত্র খালিদকে (টাইগার শ্রফ)। এরপর আড়াই ঘণ্টা পর্দা জুড়ে শুধু গুরু-শিষ্যর লড়াই।
হৃতিক ও টাইগার দু’জনকেই পছন্দ হবে দর্শকের। অ্যাকশন, বুদ্ধিমত্তা, নাচ—সবেতেই তাঁরা যেন একে অপরের পরিপূরক হয়ে উঠেছেন। কিন্তু স্টাইল, স্মার্টনেস বা কমিক টাইমিংয়ে টাইগারকে টেক্কা দিয়েছেন হৃতিক। পরিচালকও হয়তো সেটাই চেয়েছিলেন। আর কাঁচাপাকা চুল ও রকমারি সানগ্লাসে হৃতিক যদি এই ছবির স্টাইল কোশেন্ট হন,তাহলে বলতে হয় টাইগার তাঁর ঘাম ঝড়ানো স্টান্টে নিজের স্বতন্ত্র জায়গা তৈরি করে নিতে পেরেছেন। কিন্তু ছবির প্রথমার্ধ যে কৌতূহল তৈরি করে তা দ্বিতীয়ার্ধের ‘বড় বড়’ ট্যুইস্ট সামনে আসতেই উবে যায়। তাছাড়া ছবির বেশকিছু ঘটনাই যুক্তিহীন। একাধিকবার গুলি খেয়েও নায়ক বেঁচে যাচ্ছে। মিসাইলের টাইমার শূন্য হতে মাত্র পাঁচ সেকেন্ড, অথচ নায়ক দামী গাড়ি নিয়ে পালাতে সক্ষম! এই যথেষ্ট। কারণ আর বললে সমস্ত চমকই নষ্ট হতে পারে। ‘ওয়ার’ এর থিম যদি ‘দ্য নভেম্বর ম্যান’ ছবির কথা মনে করায়, তাহলে বলতে হবে পরিচালক এই অ্যাকশন থ্রিলারকে হলিউড ধাঁচে গড়ে তুলতে কোনও কসুর করেননি। অ্যাকশন ও চেজ সিকোয়েন্সগুলো দেখার সময় ‘মিশন ইমপসিবল’, ডার্ক নাইট সিরিজ বা ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস সিরিজের মতো বিখ্যাত ছবিগুলোর কথাও মনে পড়ে!
বাণী কাপুরকে (নয়না) এই ছবিতে ক্যামিও চরিত্রে কেন রাখা হয়েছে তা বোঝা মুশকিল। মেরেকেটে পর্দায় তাঁর দশ মিনিটের উপস্থিতি। ইন্টালিজেন্স সংস্থার চিফ কর্নেল লুথরার চরিত্রে আশুতোষ রানা যথাযথ। সোনি রাজদানকে পরিচালক ব্যবহারই করেননি। ছবির গানগুলো পছন্দ হলেও চিত্রনাট্যে তাদের গ্রহণযোগত্য নিয়ে দর্শকদের মনে প্রশ্ন জাগতেই পারে। তবে ছবির আবহসঙ্গীত বেশ ভালো। আসলে বলিউডের নিরিখে ‘ওয়ার’ নির্মাতাদের উচ্চাকাঙ্খা মাত্র। যাঁরা এর আগে আন্তর্জাতিক স্পাই থ্রিলার সেইভাবে দেখেননি তাঁদেরকেই টার্গেট করতে চেয়েছিলেন পরিচালক। তাঁর প্রচেষ্টাকে সাধুবাদ জানানো উচিত। কিন্তু আজকে ইন্টারনেটের কল্যাণে বিদেশি অ্যাকশন থ্রিলারের ভক্তদের কাছে এই ছবি কতটা গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠবে তা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যায়। অগত্যা ভরসা সেই হৃতিক-টাইগারের ফ্যানমহল।
জোকার
গথাম শহর জ্বলছে। দাঙ্গা লেগেছে শহর জুড়ে। দুর্ঘটনায় ক্ষত বিক্ষত পুলিস গাড়ির বনেটের উপর দাঁড়িয়ে আহত আর্থার ফ্লেক (মুখে জোকারের মেকআপ), দুলছে এক আশ্চর্য নাচের ভঙ্গিমায়। মুখের রক্ত মেখে নিচ্ছে ঠোঁটে, তাই দিয়ে চওড়া করে নিচ্ছে তার হাসি। জেগে উঠছে আরও শয়ে শয়ে জোকার। গথাম শহরে কি তবে জোকার মুভমেন্টের শুরু?
টড ফিলিপসের হাত ধরে সেলুলয়েডে ‘ব্যাটম্যান ব্যাডি’ জোকার। ডি সি স্ট্যান্ড অ্যালোন সিরিজের প্রথম ছবি। এই প্রথম শুধু জোকারকে নিয়ে এক আদ্যোপান্ত গল্প বুনেছেন টড ফিলিপস আর স্কট সিলভার।
ছবির শুরুতে ‘ওয়ার্নার ব্রাদার্স’-এর রেট্রো লোগো দেখলেই এই ছবির সময়কাল বুঝতে বাকি থাকে না কারও। আটের দশকের গথাম শহর। ময়লাকুড়ুনিরা ধর্মঘট ডেকেছে। সারা শহরে ময়লার স্তূপ। ধেড়ে ইঁদুরের আনাগোনা। এমনই হাল যে থমাস ওয়েন (গথামের সম্ভাব্য মেয়র) পারলে হ্যামলিনের বাঁশিওয়ালা খুঁজে ধরে আনবেন। শহর জুড়ে এই আবর্জনার স্তূপ যতটা আক্ষরিক ততটাই রূপক। যে শহর জুড়ে ইমার্জেন্সি, যেখানে মানুষ দিনরাত চাকরির জন্য হন্যে সেই শহরে আর্থার ফ্লেক (জোয়াকিন ফিনিক্স) এক পার্টি ক্লাউন। মানুষের দুঃখকে সাময়িক দূর করতে যার চেষ্টা সেই ক্লাউনের মুখে হাসি কিন্তু চোখ দুটো বিষাদে ভরপুর।
এ ছবি ফ্লেকের সাধারণ মানুষ থেকে গথামের ক্লাউন প্রিন্স হয়ে ওঠার গল্প বলে। যে গল্পের পরতে পরতে বিষাদ। যে গল্পের পরতে পরতে মাখানো ফ্লেকের আর্তনাদ মেশানো হাসি, যা কানে বাজে। এ হাসি প্রাণখোলা হাসি নয়। এ হাসি হৃদয় নিংড়ানো দুঃখের হাসি। ছবি শেষ হয়ে যাওয়ার পরেও যে হাসির রেশ থেকে যায় সারা শরীর হিম করা এক শিরশিরানি অনুভূতির মতো। সাত রকমের ওষুধ খেয়েও আর্থার যখন বলে ‘আই ডোন্ট ওয়ান্ট টু ফিল ব্যাড এনিমোর’ তখন তার আর্তিতে এই অভিব্যক্তি স্পষ্ট যে সমাজ থেকে ভালো থাকার আর কোন রসদই খুঁজে পাচ্ছে না সে। টড ফিলিপসের পরিচালনায় ‘জোকার’ দেখতে দেখতে একটা কথাই মনে পড়বে বারবার – ‘অল ইট টেকস ইজ ওয়ান ব্যাড ডে টু রিডিউস দ্য সেনেস্ট ম্যান অ্যালাইভ টু লুন্যাসি।’
আটের দশকের ভিন্টেজ গথাম যেন মার্টিন স্করসিসির ছবি থেকে উঠে আসা কোনও দৃশ্য। এ ছবি দেখে বোঝা যায় যে, স্করসিসির ‘ট্যাক্সি ড্রাইভার’ কতটা অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে পরিচালককে। আর এই ভিন্টেজ গথামের বুকে দাঁড়িয়ে একটু একটু করে প্রতিনিয়ত বিষাদে তলিয়ে যাওয়া ফ্লেকের গল্প জোয়াকিনের ছোঁয়ায় এক আশ্চর্য মানবিকতার গল্প হয়ে উঠতে থাকে। এত দুঃখের মধ্যে দাঁড়িয়েও সে হাসে। হাসতেই থাকে। চাকরি চলে যাওয়ার পর দেওয়ালে লেখা ‘নেভার ফরগেট টু লাফ’ এর ফরগেট টু অংশটুকু কালো কালি দিয়ে ঢেকে দিতে দিতে সে হাসে। ট্রেনে তিন পুরুষ যখন এক মহিলাকে উত্যক্ত করে, তখনও সে হাসে। মাইকের সামনে দাঁড়িয়ে দর্শককে জোক বলার আগেই জোরে জোরে চিৎকার করে হাসতে থাকে জোকার। একাই হাসে সে। আর কেউ হাসে না। পরিচালক এই গল্পে আর্থারকে এক আজব অসুখ দিয়েছেন। ‘প্যাথলজিক্যাল লাফটার’। সে এক দম বন্ধ হয়ে আসা হাসি। আর্ত চিৎকার মেশানো হাসি।
এই ‘জোকার’এর সঙ্গে হিথ লেজার অভিনীত জোকারের কোনও তুলনা চলে না। বরং জ্যাক নিকলসনের জোকারের চরিত্রায়নের সঙ্গে কিছু মিল পাওয়া যায়। সিনেমা জগতে জোয়াকিন ফিনিক্সের মাস্টারপিস অভিনয় হয়ে থেকে যাবে এই ফ্লেক থেকে জোকার হয়ে ওঠার গল্প। ফ্লেকের অসহায়তা থেকে ক্লাউন প্রিন্স হয়ে ওঠার কনফিডেন্স জোয়াকিনের প্রতিটি শারীরিক ভঙ্গিমায় ফুটে উঠেছে পরিষ্কার।
এই চরিত্রে অভিনয় করার জন্য প্রায় ২৫ কেজি ওজন কমিয়েছেন তিনি। খালি গায়ে পাঁজরের হাড় স্পষ্ট। চোখে বিষাদ, দম বন্ধ করা হাসি, হঠাৎ নাচের ভঙ্গিমা আর সবকিছু ছাপিয়ে সেই সিগনেচার জোকার ওয়াক—প্রতি দৃশ্যে তিনি বুঝিয়ে দেবেন যে এ ছবি তাঁকে ছাড়া প্রায় অসম্ভব ছিল। জোয়াকিন ছাড়া এই ছবিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছে হিলদুর গুয়ানাদতিরের ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোর, যার রেশ হল থেকে বেরিয়েও থেকে যাবে।
টক শো হোস্ট মারে ফ্র্যাঙ্কলিনের চরিত্রে রবার্ট ডি নিরোকে যথাযথ ব্যবহার করেছেন পরিচালক। এমনকী, আর্থারের মা পেনি ফ্লেকের চরিত্রে ফ্রান্সেস কনরয়কেও ভালো লাগবে। লরেন্স শেরের সিনেমাটোগ্রাফি ও জেফ গ্রথের সম্পাদনা ছবিকে যোগ্য সঙ্গত করেছে।
এই ছবি বিষন্নতার প্রতীক। তাই ছবির নামও প্রতীকী। ‘দ্য রিচ আর টেরিবল অ্যান্ড দ্য পুওর আর মিজারেবল’ থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা কোথাও কোথাও। আর তাই এই সামাজিক, মানসিক উত্তাল সময়ে দাঁড়িয়ে এই ছবি শুধু সিনেম্যাটিক ভিশনে আটকে থাকে না। ছবির টাইমিং হয়ে ওঠে অসম্ভব গুরুত্বপূর্ণ।
টড ফিলিপসের জোকার এক মানসিক অবস্থানের গল্প বলে। এমন এক অবস্থানের কথা বলে যা আপাতভাবে মানসিক ভ্রম মনে হলেও চকচকে মোড়কের আড়ালে লুকিয়ে থাকা কঠিন বাস্তব। ছবিতে ফিলিপস তাঁর জোকারের চরিত্রকে বিচার করার চেষ্টা করেননি। বরং তাকে সহানুভূতির চোখে দেখার চেষ্টা করেছেন। আবার সহানুভূতির চোখে দেখতে গিয়ে তাকে আইডলাইজও করে ফেলেননি। আর সবকিছু ছাপিয়ে তিনি এই ছবিতে জোকারের যে পোর্ট্রেট আঁকতে চেষ্টা করেছেন সেটাই দেখার। সেখানেই এই ছবির ম্যাজিক লুকিয়ে।
09th  October, 2019
অনলাইনে ডকু ফিল্ম মোতি বাগ 

নির্মল চান্দের পরিচালিত ডকু ফিল্ম ‘মোতি বাগ’ দু’দিন বিনামূল্যে অনলাইনে দেখানো হবে কৃতী ফিল্ম ক্লাবের উদ্যোগে। ছবিটি ২০১৯ সালে তৈরি হয়েছিল। প্রযোজক পাবলিক সার্ভিস ব্রডকাস্টিং ট্রাস্ট এবং দূরদর্শন।   বিশদ

আগামীর উদ্দেশে খোলা চিঠি শুভশ্রীর 

করোনায় লকডাউন এবং ঘূর্ণিঝড়ের জোড়া আঘাতের মধ্যেই পরিবারে আসার অপেক্ষায় থাকা নতুন সদস্যের জন্য খোলা চিঠি লিখলেন শুভশ্রী। সোশ্যাল মিডিয়াতে পাঠ করেও শোনালেন সেই চিঠি।   বিশদ

নিজের স্ট্রাগল লাইফের ছায়া ঘুমকেতুতে দেখছেন নওয়াজ

মুম্বই, ২২ মে (পিটিআই): পারিবারিক জীবনে কালো মেঘের ঘনঘটা। স্ত্রী ডিভোর্সের নোটিস পাঠিয়েছেন। এমনই পরিস্থিতিতে শুক্রবার মুক্তি পেয়েছে নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকির ছবি ‘ঘুমকেতু’। এই ছবিই নওয়াজকে মনে করিয়ে দিচ্ছে তাঁর ফেলে আসা দিনগুলির কথা।  বিশদ

23rd  May, 2020
বাংলা অন্যধারার ছবি মুক্তির জন্য খুঁজছে নতুন মাধ্যম 

প্রথম বাংলা ছবি হিসেবে ওটিটি প্ল্যাটফর্মে মুক্তি পেতে চলেছে দেবেশ চট্টোপাধ্যায় পরিচালিত ‘ইয়ে’। ছবিটিতে অভিনয় করেছেন দেবশঙ্কর হালদার, অর্পিতা ঘোষ, নিত্য গঙ্গোপাধ্যায় প্রমুখ। নতুন অ্যাপ ‘মাই সিনেমা হল’-এ ছবিটি আগামী ২২ মে থেকে দেখা যাবে।  বিশদ

23rd  May, 2020
গুলাবো সিতাবো 

শুক্রবার ৪টের সময় ট্রেলার লঞ্চ হওয়ার কথা ছিল অমিতাভ বচ্চন ও আয়ুষ্মান খুরানা অভিনীত গুলাবো সিতাবোর। এই ছবির পোস্টার নিজের সোশ্যাল অ্যাকাউন্টে শেয়ারও করেছিলেন অমিতাভ।  বিশদ

23rd  May, 2020
লিওনার্ডোর ছবিতে 

বলিউডের কুইন দীপিকা পাড়ুকোনের প্রেমে হাবুডুবু খেয়েছেন ভারতের বহু সিনেমাপ্রেমী। কিন্তু জানেন কি একটা সময় কার প্রেমে হাবুডুবু খেতেন রণবীর সিংয়ের ঘরণী। তিনি আর কেউ নন, টাইটানিক খ্যাত অভিনেতা লিওনার্ডো ডি ক্যাপ্রিও।  বিশদ

23rd  May, 2020
ভূমির আবিষ্কার 

লকডাউনের সময় বাড়ির বাইরে বেরোচ্ছেন না কেউই। বাদ যাচ্ছেন না তারকারাও। অনেক বলিউড তারকাই সোশ্যাল মিডিয়ায় লকডাউনের সময় তাঁদের কর্মকাণ্ডের ছবি শেয়ার করেছেন। লকডাউনে আটকে রয়েছেন বলিউড অভিনেত্রী ভূমি পেডনেকরও।   বিশদ

23rd  May, 2020
কোয়ারেন্টাইনে জাহ্নবী 

বনি কাপুরের বাড়িতে আবারও করোনার আক্রমণ। গত সপ্তাহেই তাঁর বাড়ির এক পরিচারিকা করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। এবার আরও দু’জন করোনা আক্রান্ত হলেন। স্থানীয় থানা এই ঘটনা জানিয়েছে।  বিশদ

23rd  May, 2020
ধর্ষণে অভিযুক্ত 

বিগ বস-১৩ সিরিজের অন্যতম জনপ্রিয় মুখ শেহনাজ গিল। চ্যাম্পিয়ন সিদ্ধার্থশুক্লার সঙ্গে শেহনাজের রসায়ন তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করেছেন দর্শক। এবার সেই শেহনাজের বাবার বিরুদ্ধে এক তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠল।   বিশদ

23rd  May, 2020
বেঁচে আছি: মমতাজ 

ফের বর্ষীয়ান অভিনেত্রী মমতাজের মৃত্যু নিয়ে গুজব। এবার বাধ্য হয়েই অতীতের লাস্যময়ী অভিনেত্রী লন্ডন থেকে বলেই বসলেন, আমি মারা গেলে বোধহয় অনেকেই খুশি হবেন। লোকে আমাকে কেন মারতে চাইছেন?   বিশদ

23rd  May, 2020
জাদুর জাদু 

একদিকে যখন অবতারের শ্যুটিং শুরু হতে চলেছে, তখন সুখবর বলিউডেও। বলিউডের একান্ত সুপার হিরো কৃশকে আবার পর্দায় দেখা যেতে পারে। হৃতিক ও কৃশ সিরিজের পরিচালক রাকেশ রোশন এই ছবি নিয়ে ইতিমধ্যেই চিত্রনাট্যকারের সঙ্গে কথা বলেছেন।  বিশদ

23rd  May, 2020
আন্তর্জাতিক ক্রীড়া
তারকাদের সঙ্গে মানুষী 

করোনা মোকাবিলায় অর্থ সংগ্রহের উদ্দেশ্যে একটি ক্রীড়া সরঞ্জাম নির্মাতা সংস্থার আন্তর্জাতিক ক্যাম্পেনে অংশ নিলেন প্রাক্তন মিস ওয়ার্ল্ড মানুষী চিল্লার। ‘হোম টিম হিরো’ শীর্ষক এই ক্যাম্পেনের সঙ্গে ইতিমধ্যেই যুক্ত হয়েছেন ফুটবলার লিওনেল মেসি, ডেভিড বেকহ্যাম, গ্যারেথ বেল, মেসুট ওজিল, ভারতীয় ক্রিকেটার রোহিত শর্মার মতো আরও অনেক সেলিব্রিটি।  বিশদ

21st  May, 2020
শর্ট ফিল্মে ফুডকা ও ভাইপো

করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় দেশজুড়ে চলছে লকডাউন। ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গিয়েছে যার চতুর্থ দফা। এই লকডাউনের মাঝে নানা বিষয়ের মধ্যে বারবার ফিরে এসেছে খাদ্য-ইস্যু। সেই ইস্যুকেই অন্য মোড়কে পরিবেশন করতে চলেছেন পরিচালক সত্রাজিৎ সেন। ২৫ মে ইউটিউবে মুক্তি পাবে সত্রাজিৎ পরিচালিত ছবি ‘গ্রাব নে বনা দি জোড়ি’। মুখ্য চরিত্রে রয়েছেন ইউটিউব খ্যাত ফুডকা ও ভাইপো।
বিশদ

20th  May, 2020
 ডির্ভোসের নোটিস নওয়াজকে

  সময়টা ভালো যাচ্ছে না নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকির। এবারে স্ত্রী আলিয়া তাঁকে বিবাহবিচ্ছেদের আইনি নোটিস পাঠালেন। সূত্রের মতে গত ৭ মে অভিনেতাকে এই নোটিস পাঠানো হয়েছে। ডাক বিভাগ বন্ধ থাকায় ইমেল ও হোয়াটসঅ্যাপে এই নোটিস পাঠানো হয়েছে বলে খবর। বিশদ

20th  May, 2020
একনজরে
নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আগামী মাস থেকেই বিধানসভার বিভিন্ন স্থায়ী কমিটির বৈঠক ধাপে ধাপে শুরু করার কথা চিন্তা করছেন অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে করোনা আবহে সরকারি বিধিনিষেধ তাঁকে ভাবনায় ফেলেছে।  ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি, ২৪ মে: স্যানিটাইজার, মাস্ক এবং গ্লাভসের কালোবাজারি হচ্ছে বলে অভিযোগ পেয়ে রাজ্যগুলিকে নজরদারি বাড়ানোর নির্দেশ দিল কেন্দ্র। অত্যাবশ্যকীয় পণ্য হিসেবে এন -৯৫ মাস্ককে চিহ্নিত করার পরেও বেশ কিছু জায়গায় অত্যধিক দামে তা বিক্রি হচ্ছে বলেই অভিযোগ।  ...

সংবাদদাতা, ইটাহার: ২০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে রায়গঞ্জ শহরে বাস-বে বানাচ্ছে রায়গঞ্জ পুরসভা। জানা গিয়েছে, রায়গঞ্জের মোহনবাটি বাজার এলাকায় নেতাজি সুভাষ রোডের পাশে বাজারে ঢোকার মুখে ওই নতুন বাস-বে বা লেন তৈরির পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।   ...

নয়াদিল্লি, ২৪ মে (পিটিআই): সরকারের ঘোষণা করা পদক্ষেপের সুবিধা নিয়ে দেশে বিনিয়োগ করুন। এবং ভারতকে ‘আত্মনির্ভর’ করে তুলুন। দেশের শিল্পপতিদের প্রতি এমনই আর্জি জানালেন অর্থমন্ত্রকের রাষ্ট্রমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর।   ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

প্রণয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্ব থাকবে। কারও কথায় মর্মাহত হতে হবে। ব্যবসায় শুরু করা যেতে পারে। কর্মে সুনাম ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

 বিশ্ব থাইরয়েড দিবস
১৮৮৬: বিপ্লবী রাসবিহারী বসুর জন্ম
১৮৯৯: বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের জন্ম
১৯০৬ - বিখ্যাত ভাস্কর রামকিঙ্কর বেইজের জন্ম
১৯২৪ - শিক্ষাবিদ, কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি ও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় এর ভাইস-চ্যান্সেলর আশুতোষ মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যু
১৯৭২: পরিচালক করণ জোহরের জন্ম
২০০৫: অভিনেতা সুনীল দত্তের মৃত্যু
২০০৯: পশ্চিমবঙ্গের কয়েকটি জেলায় আইলা আঘাত করল
২০১৮ - শান্তি নিকেতনে বাংলাদেশ ভবনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদী



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.৮৯ টাকা ৭৪.৮৯ টাকা
পাউন্ড ৯০.৮৮ টাকা ৯০.৮৮ টাকা
ইউরো ৯০.৮৮ টাকা ৮৪.৩৫ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
23rd  May, 2020
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৮৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,৭৩০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪০,৩৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
22nd  March, 2020

দিন পঞ্জিকা

১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ২৫ মে ২০২০, সোমবার, তৃতীয়া ৫০/৫৪ রাত্রি ১/১৯। মৃগশিরানক্ষত্র ৩/২ প্রাতঃ ৬/১০। সূর্যোদয় ৪/৫৬/৫৮, সূর্যাস্ত ৬/১০/৮। অমৃতযোগ দিবা ৮/২৮ গতে ১০/১৪ মধ্যে। রাত্রি ৯/২ গতে ১১/৫৫ মধ্যে পুনঃ ১/২১ গতে ২/৪৭ মধ্যে। বারবেলা ৬/৩৬ গতে ৮/১৫ মধ্যে পুনঃ ২/৫২ গতে ৪/৩২ মধ্যে । কালরাত্রি ১০/১২ গতে ১১/৩৩ মধ্যে।  
১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ২৫ মে ২০২০, সোমবার, তৃতীয়া রাত্রি ১২/০। মৃগশিরানক্ষত্র প্রাতঃ৫/৩৩। সূর্যোদয় ৪/৫৬, সূর্যাস্ত ৬/১২। অমৃতযোগ দিবা ৮/৩০গতে ১০/১৬ মধ্যে এবং রাত্রি ৯/৮ গতে ১১/৫৮ মধ্যে ও ১/২২ গতে ২/৫০ মধ্যে। কালবেলা ৬/৩৬ গতে ৮/১৫ মধ্যে ও ২/৫৩ গতে ৪/৩৩ মধ্যে। কালরাত্রি ১০/১৪ গতে ১১/৩৪ মধ্যে।  
১ শওয়াল 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
করোনা: চণ্ডীগড়ে নতুন করে আক্রান্ত হলেন ৯ জন, মোট আক্রান্ত ২৬৫ 

10:15:31 AM

করোনা: রাজস্থানে নতুন করে আক্রান্ত হলেন ৭২ জন, মোট আক্রান্ত ৭১০০ 

10:12:50 AM

করোনা: সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত কোন কোন দেশ 
বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। সংখ্যাটা বর্তমানে ৫৫ লক্ষ ...বিশদ

10:08:13 AM

উঃ দিনাজপুরের ইটাহারে পুকুর থেকে গৃহবধূর দেহ উদ্ধার, চাঞ্চল্য 
পুকুর থেকে এক গৃহবধুর দেহ উদ্ধারের ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য। সোমবার ...বিশদ

09:55:09 AM

২৭ মে থেকে দমদমে অটো 
নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আগামী ২৭ মে থেকে দমদমে অটো চলাচল ...বিশদ

09:45:00 AM

মাস্ক পরে ঘরেই ঈদের নামাজ পড়ছেন এক যুবক

09:38:00 AM