Bartaman Patrika
শরীর ও স্বাস্থ্য
 

কলেরা থেকে করোনা
বহু ভাইরাসকেই ‘অস্ত্র’ বানানোর অভিযোগ রয়েছে

 
মহামারীর আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ার সময়ই ষড়যন্ত্রের তত্ত্বটা তুলেছিলেন ইজরায়েলের সামরিক গোয়েন্দা বিভাগের প্রাক্তন কর্তা ও জীবাণু অস্ত্র বিশারদ ড্যানি শোহাম। বলেছিলেন,  দ্রুতগতিতে ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসের কারণ উহান ইনস্টিটিউটের ন্যাশনাল বায়োসেফটি ল্যাব। ড্যানিকে উদ্ধৃত করে মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন টাইমস দাবি করেছিল, করোনা ভাইরাসগুলো নিয়ে গবেষণা করা হয় ওই গোপন পরীক্ষাগারে। সেখান থেকেই লিক হয়েছে এই ভাইরাস! চীন অবশ্য বিতর্কিত জৈব অস্ত্র কর্মসূচি পরিচালনার বিষয়টি অস্বীকার করে আসছে। জৈব রাসায়নিক অস্ত্র কর্মসূচি থেকে নতুন করোনা ভাইরাসটির উৎপত্তি কি না,  জানতে চেয়ে আমেরিকার চীনা দূতাবাসের কাছে ইমেল পাঠালেও কোনও উত্তর পায়নি ওয়াশিংটন টাইমস। চীনের দাবি,  তারা এই ভাইরাসের উৎস সম্পর্কে কিছুই জানে না।
সম্প্রতি আন্তর্জাতিক স্তরে আরও একটি তথ্য সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়। আর তা ৩৯ বছর আগে প্রকাশিত একটি ‘বেস্ট সেলার’ বইকে কেন্দ্র করে। ১৯৮১ সালে আমেরিকার থ্রিলার লেখক ডিন কুন্স একটি বই লেখেন। বইয়ের নাম ‘দ্য আইস অব ডার্কনেস’। ডিন কুন্সের পাঠকরা বলছেন, লেখক এই করোনা ভাইরাসের বিষয়টা সেই ৩৯ বছর আগে হুবহু বইতে লিখেছেন। তাঁর বইয়ে একটি জীবাণু-অস্ত্রের কথা লেখা আছে। উহান-৪০০। ডিন কুন্স লিখেছেন, চীনের উহানে ওই জীবাণু অস্ত্র কারখানা অবস্থিত এবং এই ভাইরাসটি মানুষের তৈরি অণুজীবের চারশোতম সংস্করণ হওয়ায় এমন নামকরণ। ফলে বায়োলজিক্যাল উইপন অর্থাৎ জীবাণু অস্ত্র বানাতেই যে করোনা ভাইরাসটি তৈরি করেছিল চীন— এমন জল্পনা আবার শুরু হয়ে গিয়েছে।
বিশ্বে বায়োলজিক্যাল যুদ্ধের শুরু হয়েছিল অনেক আগেই। ক্ষমতাশালী দেশগুলোতে এই অস্ত্র তৈরির ইতিহাসও বেশ পুরনো। যুদ্ধে অ্যানথ্রাক্স, ব্রুসেলোসিস, কলেরা, নিউমোনিক প্লেগ, টুলারেমিয়া, স্মলপক্স, গ্ল্যান্ডার্সের মতো নানা ধরনের প্রাণঘাতী ভাইরাস এবং ব্যাকটেরিয়া একাধিকবার ব্যবহৃত হয়েছে। ১৯৭৮ থেকে ১৯৮১ সাল পর্যন্ত কিউবাতে ডেঙ্গু জ্বরে কয়েক লাখ মানুষ মারা গিয়েছিল। কেউ কেউ বলেন, এর সংখ্যা ছিল পাঁচ লাখ। ওই সময় কিউবার নেতা ফিদেল কাস্ত্রো অভিযোগ করেছিলেন, ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব ঘটেছিল আমেরিকার জীবাণু অস্ত্রের আক্রমণে। পেন্টাগন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে অনুদান দিয়ে থাকে জীবাণু অস্ত্র নিয়ে গবেষণা করার জন্য। এমন অভিযোগ প্রায়ই শোনা যায়। অভিযোগ রয়েছে, অনুদানপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন দেশে দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতার নামে জীবাণু অস্ত্রের গবেষণাগার গড়ে তোলে। ১৯৮১ সালে প্রকাশিত মার্কিন সামরিক বাহিনীর এক প্রতিবেদনে বলা হয়, পোকামাকড়ের মাধ্যমে জীবাণু অস্ত্র ছড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা আমেরিকারই ছিল। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ আ্যালগিপ্টি মশার মাধ্যমে আফ্রিকায় ইয়েলো ফিভার ছড়ানো হয়। ১৯৭৯ সালে তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নে সামরিক বায়ো-ল্যাব থেকে অ্যানথ্রাক্স রোগের জীবাণু প্রবলভাবে ছড়িয়ে পরে সর্বত্র। বহু মানুষ মারা যায়। তদন্তের পর প্রেসিডেন্ট বরিস ইয়েলৎসিন এর দায় স্বীকার করে নেন। করোনার ক্ষেত্রে জীবাণু অস্ত্রের ধারণাও একেবারেই বাতিল করে দেওয়া যায় না। অস্ত্র ছাড়াই প্রাণঘাতী কোনও ভাইরাসের মাধ্যমে শত্রুপক্ষকে তিলে তিলে খতম করে দেওয়ার জন্যই মূলত এসব ভাইরাস তৈরি করা হয়। জৈবিক বিষাক্ত পদার্থ কিংবা ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস এবং ছত্রাকের মতো সংক্রামক অণুজীবের মাধ্যমে বায়োলজিক্যাল এসব অস্ত্র নাকি পারমাণবিক অস্ত্রের থেকেও ভয়ঙ্কর! আসলে মানুষই মানুষের শত্রু সৃষ্টি করে। তারপর তা যখন ফ্রাঙ্কেনস্টাইন হয়ে ওঠে, তখন তাকে ধ্বংস করার জন্য হিমশিম খায়।
২০১৮ সালে জেনেভায় বিশ্ব স্বাস্থ্যসংস্থার এক সভায় আর অ্যান্ড ডি ব্লুপ্রিন্টের বিশেষজ্ঞ দল প্রথম ‘ডিজিজ এক্স’ নাম দিয়ে পরবর্তী মহামারী সম্পর্কে সতর্ক করেছিল। সেখানে বলা হয়েছিল, পরবর্তী মহামারী কী থেকে উদ্ভূত হবে, তা জানা নেই। কিন্তু এর আশঙ্কা প্রবল। অজানা সেই জীবাণুর নাম তাঁরা দিয়েছিলেন, ‘ডিজিজ এক্স’। তাঁরা বলেছিলেন, চেনা কোনও জীবাণু থেকে পরবর্তী মহামারী হওয়ার আশঙ্কা কম। আর তেমন হলেও চেনা শত্রুর বিষয়ে মানুষের মোটামুটি প্রস্তুতি থাকে। মুশকিল হচ্ছে অজানা জীবাণু নিয়ে। সেই সময় গবেষকরা এও বলেছিলেন যে, এই ডিজিজ এক্স কোনও প্রাণীদেহ থেকে আসা ভাইরাস থেকেই ছড়িয়ে পড়তে পারে। মানুষ এখন এক নতুন মহামারীর যুগের সামনে দাঁড়িয়ে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অন্য সব মহামারীর মতোই, করোনা ভাইরাসের মহামারী এবং আতঙ্ক একদিন শেষ হবে। এর আগে সার্স, তারপর সোয়াইন ফ্লু মহামারীও দমন হয়েছে। আরও আগে, অনেক ভয়াবহ মহামারী ছিল। ১৯১৮ সালের স্প্যানিশ ফ্লু। স্প্যানিশ ফ্লু মহামারীতে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় পাঁচ থেকে দশ কোটি মানুষ মারা যায়। সেনাশিবিরে এই ভাইরাস ছড়ায় বেশি। কিন্তু যুদ্ধ শেষ হয়ে গেলে যখন এক জায়গায় গাদাগাদি করে সেনাদের থাকার প্রয়োজন পড়ল না, তখন সেই স্প্যানিশ ফ্লু’র সংক্রমণও আপনা-আপনি কমে গেল।
প্লেগ হয়তো মানুষের সংস্কৃতির অংশ ছিল না। কিন্তু মানুষের অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক বিস্তারই প্লেগের জন্মভূমি। একই কথা প্রযোজ্য মধ্যযুগে ইউরোপে ছড়িয়ে পড়া ‘ব্ল্যাক ডেথের’ ক্ষেত্রেও। প্রাচীন সিল্ক রোড ধরে বাণিজ্য বিস্তারের সঙ্গে সঙ্গে বিস্তার পেয়েছিল অসংখ্য রোগও। এক মহাদেশ থেকে অন্য মহাদেশে ছড়িয়ে পড়েছিল জীবাণু। ইনফ্লুয়েঞ্জার নতুন ধরনটি এসেছিল গবাদিপশুর খামার থেকে। হালের করোনা ভাইরাস থেকে শুরু করে ইবোলা, সার্স, মার্স, জিকা— এই সবেরই সংযোগ রয়েছে কোনও না কোনও বন্যপ্রাণীর সঙ্গে। তার উপর রয়েছে জলবায়ু পরিবর্তন। যার কারণে গলে যাচ্ছে বড় বড় বরফের চাঁই। ফলে নিদ্রা ভাঙছে অচেনা-অজানা অনেক অণুজীবের।
করোনা ভাইরাস যে রোগটি ঘটাচ্ছে, তার নাম কোভিড-১৯। এটি আসলে একধরনের ইনফ্লুয়েঞ্জা বা ফ্লু। একই লক্ষণ। সাধারণ ফ্লু’র সঙ্গে এর অনেক মিল এবং বেশ কিছু তফাৎও রয়েছে। এটা সহজে একজনের থেকে আরেকজনের কাছে চলে যাচ্ছে। ওষুধ নেই। এই ভাইরাস সম্পর্কে অনেক কিছু এখনও অজানা। লক্ষণ শুরুর আগেই আক্রান্ত মানুষটি ভাইরাস ছড়াচ্ছে। এই ব্যাপারটা সাধারণ ফ্লু’র বেলায় ঘটে না। করোনা ভাইরাস অন্য মানুষের কাছে যাচ্ছে মুখ থেকে বের হওয়া হাঁচি-কাশির সঙ্গে। জানা-বোঝা বলতে ওইটুকুই। ভয় হল, একে এখনই থামানো না গেলে কিংবা সে যদি নিজেই বসন্তে বা গ্রীষ্মে থেমে না যায়, তাহলে বিপদ হবে। ভাইরাস বারবার ফিরে আসবে। যার একবার হয়েছে, তার অ্যান্টিবডি সৃষ্টি হওয়ার কারণে আরেকবার হবে না, সেটাও বলা যাচ্ছে না। এটা মিউটেট অর্থাৎ অভিযোজনের মাধ্যমে আরও ভয়ঙ্কর হতে পারে। সবচেয়ে বড় ভয়ের কারণ, করোনা ভাইরাস সম্পর্কে অনেক কিছুই এখনও বিজ্ঞানীদের অজানা রয়ে গিয়েছে।
অনেকেই বলছেন, করোনা ভাইরাস একটি জীবাণু অস্ত্রই। অস্ত্রের কার্যকারিতা পরীক্ষার জন্য সাধারণের মধ্যে জীবাণু ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। পরীক্ষা–নিরীক্ষা শেষে যথাসময়ে প্রতিষেধকও চীনের ওষুধ কোম্পানিগুলো বাজারে ছাড়বে। কাড়ি কাড়ি মুনাফা ঘরে তুলবে। অপেক্ষা করুন!
লিখেছেন মৃণালকান্তি দাস
 
19th  March, 2020
করোনা ঠেকাতে
ভ্যাকসিন ঠিক কত দূরে?

মার্চ মাসের মাঝামাঝি যখন কাঁসরঘণ্টা বাজিয়ে করোনা ভাইরাস আমাদের জীবনে বর্গীহানা দিল, দুশ্চিন্তা কাটাতে আমরা সবাই একে-অপরকে আশ্বস্ত করতে লাগলাম – ‘ওঃ! ভ্যাকসিন এলেই সব ঠিক হয়ে যাবে’ বা ‘চিন্তার কিছু নেই, ভ্যাকসিন তো আসছেই’, ইত্যাদি।
বিশদ

09th  July, 2020
 উচ্চ রক্তচাপ সামলে রাখুন

৯৯ বছর বয়সি রোগীও করোনা থেকে সুস্থ হচ্ছেন। অতএব উচ্চ রক্তচাপ রয়েছে বলে রাতের ঘুম নষ্ট করে প্রেসার বাড়াবেন না। রক্তচাপ থাকলেই সংক্রমণ উড়ে এসে জুড়ে বসবে না। সতর্ক থাকলে সংক্রমণ হওয়ার আশঙ্কা কম। আর হলেও তা সবার জন্য সমান জটিলতা ডেকে আনবে না। তবে অনেকেই জানতে চাইছেন, উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা থাকলে তা কীভাবে রোগের জটিলতা বৃদ্ধির আশঙ্কা বাড়িয়ে তুলছে?
বিশদ

09th  July, 2020
লকডাউনে কাটাছেড়ায়
ঘরেই প্রাথমিক চিকিৎসা

 বাড়ির নানা কাজের ফাঁকে অসাবধানে প্রায়ই ছোটখাটো কাটাছেড়ার সম্মুখীন হই আমরা। করোনা পরিস্থিতি এবং লকডাউনের জেরে কাজ সবারই খানিক বেড়েছে। বেড়েছে চোট-আঘাতের আশঙ্কাও। প্রয়োজন ছাড়া কেউ এখন বাড়ির বাইরে বেরচ্ছেন না। শিশুরা থাকলে ভয় আরও বেশি।
বিশদ

09th  July, 2020
উম পুন বিধ্বস্তদের পাশে শিশু চিকিৎসকরা

  উম পুন বিধ্বস্ত সুন্দরবনের কুলতলি এলাকায় বসবাসরত মানুষের পাশে দাঁড়াল ইন্ডিয়ান আকাদেমি অব পেডিয়াট্রিকসের হাওড়া শাখা। সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়, এই অঞ্চলের মানুষগুলি, বিশেষত শিশুদের জন্য সারাবছর স্বাস্থ্য পরীক্ষা শিবির ও বিনামূল্যে ওষুধ দেওয়ার বন্দোবস্ত করা হচ্ছে।
বিশদ

09th  July, 2020
প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে হোমিওপ্যাথি

 হোমিওপ্যাথির ধারণা অনুযায়ী, যে কোনও অসুখের নেপথ্যে তিনটি মুখ্য কারণ থাকে। এই কারণগুলি হল, জীবাণু, পরিবেশ এবং রোগ প্রতিরোধ কম থাকা কোনও ব্যক্তি। রোগ প্রতিরোধের জন্য অসুখের এই কারণগুলির বিরুদ্ধে জয়লাভ করতে হবে।
বিশদ

09th  July, 2020
টাক বাড়লেই ঝুঁকি বেশি
করোনা সংক্রমণের

ওয়াশিংটন: ‘মাথা ভরা টাক দিলি, আকার দিলি না...!’ মানে, টাক থাকলে টাকা আসবে—এমনটাই বুঝি বলতে চেয়েছিলেন গীতিকার। ভাগ্যিস, তখন মারণ কোভিডের নামগন্ধ ছিল না! আজকের মতো তার ‘মৃত্যুদূত’ চেহারা দেখেনি গোটা বিশ্ব। তা না হলে একটি বাংলা ব্যান্ডের ভবিষ্যৎ কী হত কে জানে! টাকের সঙ্গে টাকার আব্দার তখন খোলা মনেই গ্রহণ করেছিলেন শ্রোতারা।
বিশদ

07th  July, 2020
লকডাউনে বাড়িতে হঠাৎ
আগুনে পোড়ার বিপদে কী করবেন? 

পরামর্শে আর জি কর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডাঃ রূপনারায়ণ ভট্টাচার্য। 
বিশদ

02nd  July, 2020
করোনা জয়ী
চোয়াল শক্ত রাখুন, অর্ধেক
রোগ তাতেই সারবে 

দেশবন্ধু দাস: কর্মজীবনে সর্বদা সরকারি নীতি ও ব্যবস্থাপনার উপর ভরসা করে এসেছি। গত ৩১ মার্চ করোনা পজিটিভ জানার পর কোনওরকম হতাশ না হয়েই রাজ্য সরকারের স্বাস্থ্য পরিষেবার উপর প্রচণ্ড আস্থাশীল ছিলাম।  
বিশদ

02nd  July, 2020
প্রাণচঞ্চল রাখুন ছোটদের 

পরামর্শে বিশিষ্ট মনোবিদ অমিত চক্রবর্তী।বাচ্চাদের অবসাদ হয় না— এখনও বেশিরভাগ মানুষ এই ধারণা রাখেন। যদিও বর্তমানে মনোবিজ্ঞান বলছে, সাত থেকে আট বছরের বাচ্চারও অবসাদ হতে পারে। তবে আশার কথা হল, ছোট বয়সে অবসাদে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা অনেকটাই কম।   বিশদ

02nd  July, 2020
ঝুঁকি নিয়েও নিজেকে
উজাড় করে দিচ্ছেন ডাক্তাররা 

প্রাণের ঝুঁকি নিয়েও নিজেকে উজাড় করে পরিষেবা দিয়ে যাচ্ছেন চিকিৎসকরা। বুধবার ছিল চিকিৎসক দিবস। এই উপলক্ষে একথা জানালেন দক্ষিণ কলকাতার নারায়ণ মেমোরিয়াল হাসপাতালের মেডিক্যাল সার্ভিসেস-এর এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর ডাঃ পূজা সাউ।  বিশদ

02nd  July, 2020
ডিপ্রেসন কাটাবেন কীভাবে? 

ডায়াবেটিসের মতো মনের অসুখও এখন মহামারীর আকার নিয়েছে। ডিপ্রেসন বা অবসাদ সেগুলির মধ্যে একটি। এরই মধ্যে টানা লকডাউন এবং তার ক্ষতিকর প্রভাব পড়েছে মনে। অনেকেরই কিছু ভালো লাগছে না। উত্তর হাতড়ে যাচ্ছেন বর্তমান পরিস্থিতি থেকে মুক্তির। সামগ্রিকভাবে ডিপ্রেসন থেকে বেরিয়ে আসার পরামর্শ দিলেন বিশিষ্ট মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ দেবাঞ্জন পান। 
বিশদ

02nd  July, 2020
করোনা ডেকে আনছে সুগার?
উত্তর খুঁজছে চিকিৎসক মহল

বিশ্বজিৎ দাস, কলকাতা: করোনা ভাইরাসের সঙ্গে সুগারের কোনও সম্পর্ক আছে কি? এই প্রশ্নেই এখন শোরগোল পড়ে গিয়েছে বাংলা সহ গোটা দুনিয়ায়। আলোচনা আরও বেড়েছে বিখ্যাত নেচার পত্রিকার ২৪ জুন সংখ্যায় এনিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হওয়ার পর। লেখাটি শুরুই হয়েছে কোভিড আক্রান্ত এক ১৮ বছরের তরুণের হঠাৎ করে টাইপ-১ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা দিয়ে।
বিশদ

29th  June, 2020
করোনা ও ডেঙ্গু-ম্যালেরিয়ার
একসঙ্গে মোকাবিলা কীভাবে

রাজ্যে ইতিমধ্যেই প্রবেশ করেছে বর্ষা। দু-এক পশলা বৃষ্টির হাত ধরে থাবা বসাচ্ছে বরাবরের শত্রু ডেঙ্গু। ম্যালেরিয়া এবং চিকুনগুনিয়াও যেন কোনও সময়ে ফেলতে পারে বিপদে। একইসঙ্গে এতগুলি রোগের সঙ্গে যুঝবেন কীভাবে? পরামর্শে মুকুন্দপুরের আরটিআইআইসিএস হাসপাতালের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডাঃ অরিন্দম বিশ্বাস। বিশদ

25th  June, 2020
 লকডাউনে পেটের রোগ কী করবেন?

বর্তমানে শুধু করোনাতেই মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন, তা তো নয়। অন্যান্য শারীরিক সমস্যাতেও নাজেহাল। লকডাউন, মানসিক উত্তেজনা ও ব্যায়াম বন্ধ হওয়ায় অনিদ্রা ও বদহজম আমাদের নিত্যসঙ্গী হয়ে উঠেছে। পরামর্শে বিশিষ্ট গ্যাস্ট্রোএনটেরোলজিস্ট ডাঃ সত্যপ্রিয় দে সরকার। বিশদ

25th  June, 2020
একনজরে
লখনউ: গ্যাংস্টার বিকাশ দুবের ঘনিষ্ঠ এক সহযোগী তথা আত্মীয়কে গ্রেপ্তার করল উত্তরপ্রদেশ পুলিস। ধৃতের নাম শশীকান্ত ওরফে সোনু পাণ্ডে। তাকে জেরা করে এনকাউন্টারের দিন পুলিসের ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, আরামবাগ: সোমবার গভীর রাতে আরামবাগ শহরের কালীপুরে তৃণমূলের পতাকা ও ফ্লেক্স ছিঁড়ে ফেলার ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। শাসক দলের অভিযোগ, বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরাই ওই কাজ করেছে। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছে বিজেপি।   ...

সংবাদদাতা, মালদহ: মালদহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আধুনিক ট্রমা কেয়ার সেন্টারটি নভেম্বর মাস নাগাদ চালু হতে পারে। করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসার পরেই এই বিশেষ চিকিৎসা কেন্দ্রটি চালু করার কথা ভাবনাচিন্তা করছে মেডিক্যাল কর্তৃপক্ষ।   ...

ওয়াশিংটন: চাপের মুখে অবশেষে বিদেশি পড়ুয়াদের দেশে ফেরানোর সিদ্ধান্ত থেকে পিছু হটল ট্রাম্প প্রশাসন। মঙ্গলবার ম্যাসাচুসেটসের ফেডারেল ডিস্ট্রিক্ট কোর্টে সরকার জানিয়েছে, অনলাইনে ক্লাস করা বিদেশি পড়ুয়াদের ভিসা বাতিল করে দেশে ফেরানোর সিদ্ধান্ত রদ করা হয়েছে। হার্ভার্ড ও এমআইটির দায়ের করা ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

পড়শির ঈর্ষায় অযথা হয়রানি। সন্তানের বিদ্যা নিয়ে চিন্তা। মামলা-মোকদ্দমা এড়িয়ে চলা প্রয়োজন। প্রেমে বাধা।প্রতিকার: একটি ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮২০: সাহিত্যিক অক্ষয়কুমার দত্তের জন্ম
১৯০৩: রাজনীতিক কে কামরাজের জন্ম
১৯০৪: রুশ লেখক আস্তন চেকভের মৃত্যু
১৯৫৪: আর্জেন্তিনার ফুটবলার মারিও কেম্পেসের জন্ম  



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.৪৬ টাকা ৭৬.১৭ টাকা
পাউন্ড ৯২.৯৩ টাকা ৯৬.২০ টাকা
ইউরো ৮৩.৮৮ টাকা ৮৬.৯৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৯, ৭৭০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৭, ২২০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৭, ৯৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৫১, ৯০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৫২, ০০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৩১ আষাঢ় ১৪২৭, ১৫ জুলাই ২০২০, বুধবার, দশমী ৪৩/৯ রাত্রি ১০/২০। ভরণী ২৯/৭ অপঃ ৪/৪৩। সূর্যোদয় ৫/৪/৪২, সূর্যাস্ত ৬/২০/১৪। অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৩ গতে ১১/১৫ মধ্যে পুনঃ ১/৫৫ গতে ৫/২৭ মধ্যে। রাত্রি ৯/৫৫ মধ্যে পুনঃ ১২/৪ গতে ১/৩০ মধ্যে। বারবেলা ৮/২৩ গতে ১০/৩ মধ্যে পুনঃ ১১/৪২ গতে ১/২১ মধ্যে। কালরাত্রি ২/২৩ গতে ৩/৪৪ মধ্যে।  
৩০ আষাঢ় ১৪২৭, ১৫ জুলাই ২০২০, বুধবার, দশমী রাত্রি ৮/৪৩। ভরণী নক্ষত্র অপরাহ্ন ৪/৭। সূযোদয় ৫/৪, সূর্যাস্ত ৬/২৩। অমৃতযোগ দিবা ৭/৪৩ গতে ১১/১৬ মধ্যে ও ১/৫৬ গতে ৫/২৮ মধ্যে এবং রাত্রি ৯/৫৬ মধ্যে ও ১২/৪ গতে ১/৩০ মধ্যে। কালবেলা ৮/২৪ গতে ১০/৪ মধ্যে ও ১১/৪৩ গতে ১/২৩ মধ্যে। কালরাত্রি ২/২৪ গতে ৩/৪৪ মধ্যে।
২৩ জেল্কদ  

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
মাধ্যমিকে ষষ্ঠ অশোকনগরের অস্মি চৌধুরি চিকিৎসক হতে চায় 
মাধ্যমিকে রাজ্যে ষষ্ঠ স্থান অধিকার করেছে অশোকনগর বাণীপিঠ ...বিশদ

01:39:49 PM

বিহারে রাজভবনের ২০ জন কর্মী করোনায় আক্রান্ত 

01:36:04 PM

মাধ্যমিকে সপ্তম চন্দননগরের সুহা ঘোষ ভবিষ্যতে বিজ্ঞানের শিক্ষক হতে চায় 

01:35:35 PM

৭০১ পয়েন্ট উঠল সেনসেক্স

01:32:50 PM

মাধ্যমিকে দশম জুনায়েদ হাসান চিকিৎসক হতে চায় 

01:29:42 PM

ময়নাগুড়িতে  ব্যারিকেড করে বিজেপির মিছিল আটকাল পুলিস 

01:27:50 PM