Bartaman Patrika
শরীর ও স্বাস্থ্য
 

 চোখ কতটা শক্তিশালী ক্যামেরা?

 কে বেশি শক্তিশালী? মানব অক্ষি নাকি ক্যামেরার লেন্স? দু’টির মধ্যে মিল কোথায়? কোথায় বা বৈসাদৃশ্য? আলোচনা করলেন বিশিষ্ট চক্ষু রোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক হিমাদ্রী দত্ত।

 চোখ কতটা শক্তিশালী?
  কোন ফোনের ক্যামেরা কত মেগাপিক্সেলের, তা নিয়ে প্রযুক্তিপ্রিয় মানুষের আগ্রহ অসীম। বাজারে এখন ৮ থেকে শুরু করে ৬৪ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা সম্পন্ন স্মার্টফোন পাওয়া যাচ্ছে। আর কয়েক বছরের মধ্যেই চলে আসবে একশোরও বেশি মেগাপিক্সেলের ক্যামেরাযুক্ত স্মার্টফোন। কিন্তু আমাদের খুব কাছেই রয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী ক্যামেরা! সেটি হল আমাদের এই চোখজোড়া। জানলে অবাক হবেন, মানুষের চোখে রয়েছে ৫৭৬ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। সেই জন্যই আমরা প্রায় এক কোটি রং আলাদাভাবে দেখতে পাই।
 পিক্সেল কী?
  পিক্সেল হচ্ছে ছবির প্রাণ, ছবির ক্ষুদ্রতম অংশ, যা খালি চোখে দেখা যায় না। একটি ছবি দৈর্ঘ্যে তিন হাজার পিক্সেল আর প্রস্থে দু’হাজার পিক্সেল হলে পুরো ছবির আয়তন দাঁড়ায় ৬০ লক্ষ পিক্সেল। অর্থাৎ, এই ছবিটি হবে ছয় মেগাপিক্সেলের। আন্তর্জাতিক নিয়ম অনুযায়ী, ১০ লক্ষ পিক্সেল সমান এক মেগাপিক্সেল। এই মেগাপিক্সেলই হচ্ছে ক্যামেরার লেন্সে তোলা ছবির আয়তনের একক। সাধারণত বলা হয়ে থাকে যে, স্থির দৃষ্টিতে একটি স্থিরচিত্র হিসেবে মানুষের চোখ ৫৭৬ মেগা পিক্সেলের ছবি গ্রহণ করতে পারে। তবে চলমান ছবি বা ভিডিও’র ক্ষেত্রে মানুষের চোখ ৭৭৭.৬ গিগাপিক্সেল/সেকেন্ড পর্যন্ত রেজোলিউশনের ছবি তুলতে সক্ষম।
 ক্যামেরা ও চোখ, মিল-অমিল
 ক্যামেরা ও চোখ— দু’টো জিনিসই লেন্সের মাধ্যমে আলোক প্রক্ষেপণ করে কোনও ছবি বা দৃশ্যকে ফুটিয়ে তোলে। তাই তাদের গঠনগত মিলের জন্য ক্যামেরাকে অনেক সময়ই চোখের সঙ্গে তুলনা করা হয়ে থাকে। যদি বলি, যে চোখ আসলে একটা অ্যান্টেনা, তাহলে অনেকেই হয়তো সেটা মানবেন না। অ্যান্টেনা সাধারণত রেডিও বা মোবাইল ফোনের যান্ত্রিক অনুষঙ্গ যা বেতার তরঙ্গ ধরার কাজে ব্যবহৃত হয়। চোখের কাজ তো সেরকম কিছু না, আমরা তো চোখ দিয়ে বেতার তরঙ্গ নয়, আলো ধরি। কিন্তু অন্যভাবে ভাবলে বেতার তরঙ্গ, আলো কিংবা এক্স রে– এরা সবাই আসলে তড়িৎ চৌম্বকীয় তরঙ্গ, এদের মাঝে পার্থক্য কেবল তরঙ্গদৈর্ঘ্যে। সেক্ষেত্রে এন্টেনা বা চোখের কাজ এক। তড়িৎ চৌম্বকিয় তরঙ্গকে ফাঁদে ফেলে প্রয়োজনীয় তথ্য বিশ্লেষণ করা। তবে ক্যামেরাকে কখনওই চোখের সমতুল্য বলা যাবে না। কারণ, গঠনগত মিল থাকলেও চোখের ক্ষমতা ক্যামেরার তুলনায় বহুগুণ বেশি। প্রথমত চোখ দিয়ে আমরা ত্রিমাত্রিক দৃশ্য দেখি। যখন ত্রিমাত্রিক দর্শনের কথা আসে তখন মানতেই হয় যে এক চোখের থেকে দুই চোখের গুরুত্ব এখানে সর্বাধিক। আমাদের দু’টি চোখ থাকার ফলে আমরা কোনও বস্তুর দৈর্ঘ্য, প্রস্থ এবং উচ্চতা— এই তিন মাত্রা বা ডাইমেনশনই দেখতে পাই। এখানে স্বাভাবিকভাবেই মনে প্রশ্ন আসতে পারে, আমরা দেখি দুই চোখ দিয়ে, কিন্তু এক জিনিস দু’টি না দেখে একটাই দেখি কিভাবে? বাস্তবে আমরা দুই চোখ দিয়ে দু’টি দ্বিমাত্রিক ছবিই দেখে থাকি। কিন্তু যখন দুই চোখের অপটিক স্নায়ু দিয়ে এই ছবির সিগন্যাল যায় মস্তিষ্কে, তখন মস্তিষ্ক এই ছবি দু’টিকে একটি ছবিতে পরিণত করে ত্রিমাত্রিক ছবি তৈরি করে।
বিশ্বাস না হলে এক চোখ বন্ধ করে সুচে সুতা পরিয়ে দেখতে পারেন। সেক্ষেত্রে ক্যামেরা দিন দিন যতই আধুনিক হোক না কেন, তার দৌড় সেই দ্বিমাত্রিক ছবিতেই শেষ হয়ে যায়। মানুষের চোখ একটি নির্দিষ্ট প্রক্রিয়া মেনে কাজ করে। আমাদের দুই চোখের পেছনের পর্দায় প্রতিফলিত হয় সামনের দৃশ্যের উল্টো হয়ে থাকা এক জোড়া শীর্ণ প্রতিবিম্ব। সামনের দৃশ্য থেকে আলো চোখের আলোক সংবেদী অঙ্গ রেটিনা-পর্দায় গিয়ে সেই প্রতিবিম্ব গঠন করে। আর তার প্রায় সঙ্গে সঙ্গে, কার্যত সেকেন্ডেরও কম সময়ে, সামনের ত্রিমাত্রিক জগতের জরুরি তথ্যে ভরপুর একটি বিস্তারিত দৃশ্য তৈরি হয় আমাদের মস্তিষ্কে। যার ফলে আমরা দেখতে পাই। এই ‘দেখতে পাওয়া’র জন্যই আমরা ক্রিকেট খেলায় বলে-ব্যাটে-সংঘাতে ছক্কা মারতে পারি, সন্ধ্যার আবছায়া অন্ধকারে পরিচিতদের চিনতে পারি, কেউ মুখ বরাবর তাকিয়ে থাকলে হঠাৎ চোখে চোখ ফেলতে পারি। যে প্রক্রিয়ার মাধ্যমে চোখ থেকে পাওয়া তথ্য মস্তিষ্কে দেখার অনুভূতি তৈরি করে তা বেশ জটিল। আমাদের চোখের গঠন এতটাই জটিল যে, তা কল্পনাকেও অনায়াসে হার মানাবে। চোখের কার্যপদ্ধতি অনেকটা ক্যামেরার কার্যপদ্ধতির মতোই। চোখের পাতা কাজ করে ক্যামেরার শাটারের মত, চোখের ভেতরে আছে স্থিতিস্থাপক লেন্স যা দর্শনীয় বস্তুকে ফোকাস করে এবং তারপর কোনও অদৃশ্য যাদুবলে প্রয়োজনীয় প্রক্রিয়াকরণের মাধ্যমে একসময় সেই ছবি আমরা দেখতে পাই। শুধু তাই নয়, মানুষের চোখ উপরে-নীচে প্রায় ১৩৫ ডিগ্রি থেকে ১৪০ ডিগ্রি এবং দুই পাশে প্রায় ২০০ ডিগ্রি পর্যন্ত দেখতে পারে। এতকিছু ক্যামেরার পক্ষে সম্ভব নয়। তাই এবার কেউ উচ্চক্ষমতা সম্পন্ন অত্যাধুনিক ক্যামেরা নিয়ে বড়াই করতে এলে, মুষড়ে পড়বেন না। মনে রাখবেন, এই জগতের সবচেয়ে ক্ষমতাশালী ক্যামেরাটি কিন্তু আপনার সঙ্গে সবসময় আছে।
লিখেছেন নীতীশ চক্রবর্তী
21st  November, 2019
ফাঙ্গাল ইনফেকশন থেকে
বাঁচবেন কীভাবে?

 কিছুদিন আগে পর্যন্ত আমরা ভাবতাম, ত্বকের ছত্রাক সংক্রমণ গ্রীষ্মকালে ও বর্ষাকালে বেশি হয়। তারপরে শারদীয়া পুজোর সময় নিজের থেকেই অধিকাংশ ত্বকের ছত্রাক সংক্রমণ সেরে যাবে। ওষুধ দেওয়ার একেবারে দরকার হবে না তা নয়, কিন্তু আমাদের ধারণা ছিল ছত্রাক সংক্রমণ সারানো আদৌ কঠিন নয়।
বিশদ

05th  December, 2019
 হোমিওপ্যাথিতে সারান
ফিসার-ফিসচুলা

 ফিসচুলা: ফিসচুলা হল মলদ্বারের বাইরের ত্বক থেকে মলদ্বারের ভিতর পর্যন্ত একটি নালীপথের সৃষ্টি হওয়া। এর পূর্বশর্ত হল মলদ্বারের পাশে ফোঁড়া হওয়ার ইতিহাস।
ফিসার: ফিসারের ক্ষেত্রে শক্ত পায়খানার কারণে মলদ্বার চিরে গিয়ে যন্ত্রণার হয়। মলদ্বারে জ্বালা করে।
বিশদ

05th  December, 2019
 সিনি’র স্বাস্থ্য উদ্যোগ

  ২০১৭ সালে মানুষের মধ্যে কাজ করার জন্য এইচসিএল গ্র্যান্ট পুরস্কার পেয়েছিল চাইল্ড ইন নিড ইনস্টিটিউট (সিনি)। এই গ্র্যান্ট পাওয়ার পর পশ্চিমবঙ্গের তিনটি ব্লক— জলপাইগুড়ির নাগরাকাটা, মুর্শিদাবাদের সুতি ১ এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনার ফলতায় কাজ শুরু করে সংস্থা।
বিশদ

05th  December, 2019
দৃষ্টি শক্তি হ্রাসে কলকাতা পঞ্চম

কয়েকদিন আগেই চলে গেল বিশ্ব দৃষ্টি দিবস। অথচ দৃষ্টিশক্তির হাল নিয়ে দেশের মানুষ কতটা ওয়াকিবহাল? সিগনিফাই নামে সংস্থার করা এক সমীক্ষায় উঠে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য।
বিশদ

05th  December, 2019
বিপদ যখন
স্ক্র্যাব টাইফাস 

রোগ লক্ষণ
 রোগীর প্রবল জ্বর আসবে।
 গাঁটে গাঁটে খুব ব্যথা হবে প্রবল।
 কাশি হতে পারে।  বিশদ

28th  November, 2019
অজানা টাইফাস দুশ্চিন্তার টাইফাস 

গোড়ার কথা
ওরিয়েনশিয়া সুসুগামুশি নামক ব্যাকটেরিয়ার কারণে মানুষ স্ক্র্যাব টাইফাস রোগটিতে আক্রান্ত হন। এই অসুখটি সম্পূর্ণভাবে একটি অ্যাকিউট ইনফেকশন। ট্রম্বিকিউলিড নামক এক লার্ভার (চিগার) কামড় থেকে এই ব্যাকটেরিয়াটি শরীরে প্রবেশ করে। এই লার্ভাটিই এই রোগটির বাহক।  
বিশদ

28th  November, 2019
ডায়াবেটিসে হাঁটুন 

বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস উপলক্ষ্যে জিডি হাসপাতাল এবং ডায়াবেটিস ইনস্টিটিউটের পক্ষ থেকে ‘হাঁটো বাংলা হাঁটো’ কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক ঘোষণা করা হল। সেই উপলক্ষ্যে সংস্থার থেকে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন হাসপাতালের চেয়ারম্যান এবং সিনিয়র কনসালটেন্ট ফিজিশিয়ান ডাঃ সুকুমার মুখোপাধ্যায়, এন্ডোক্রিনোলজির প্রধান ডাঃ শুভঙ্কর চৌধুরী, অর্থোপেডিক সার্জারির প্রধান ডাঃ চন্দ্রচূড় ভট্টাচার্য, অপথ্যালমোলজির প্রধান ডাঃ সিদ্ধার্ত ঘোষ সহ অন্যান্য বিশিষ্ট চিকিৎসকরা।  
বিশদ

28th  November, 2019
সুভাষ মুখোপাধ্যায়ের মরণোত্তর মুকুট 

সম্প্রতি কলকাতায় আয়োজিত হয়েছিল পশ্চিমবঙ্গ শাখার ইন্ডিয়ান সোসাইটি অব অ্যাসিস্টেড রিপ্রোডাকশন সোসাইটির সম্মেলন। উক্ত সম্মেলনে প্রকশিত হল ডাঃ সুভাষ মুখোপাধ্যায়ের জীবনী অবলম্বনে লেখা উপর লেখা বই ‘মরণোত্তর মুকুট’। বইটি লিখেছেন ডাঃ সাধনকুমার দে এবং সুনীত মুখোপাধ্যায়।  
বিশদ

28th  November, 2019
পিএমপিএআই-এর সম্মেলন 

নন রেজিস্টার্ড চিকিৎসকদের সংগঠন প্রোগ্রেসিভ প্র্যকটিশনার্স অ্যাসোসিয়েশন অব ইন্ডিয়া (পিএমপিএআই)-এর উদ্যোগে গত ১৮ এবং ১৯ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হয়ে গেল ষষ্ঠ রাজ্য সম্মেলন এবং কর্মশালা। 
বিশদ

28th  November, 2019
অসুখের নাম গচার 

উত্তরাধিকারসূত্রে পাওয়া ৪০ রকম বা তার বেশি বিপাক প্রক্রিয়ার বিশৃঙ্খলাকে একত্রে বলা হয় লাইসোসামাল স্টোরেজ ডিসঅর্ডার। এই রোগে দেহের লাইসোসোমাল প্রক্রিয়া বাধাপ্রাপ্ত হয় এবং ছোটখাট অঙ্গ বা অর্গানেলের মধ্যে জীবাণু জমতে থাকে। বিপাক প্রক্রিয়ার ত্রুটির জন্যই গচার ডিজিজ হয়। আসলে এটি হল গ্লুকোসেরেব্রোসিডেজ নামে একটি এনজাইমের ঘাটতি। 
বিশদ

28th  November, 2019
স্বাস্থ্যরক্ষায় পদযাত্রা 

সম্প্রতি চলে গেল বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস। ওই দিবস সম্পর্কে জনমানসে সচেতনতা গড়ে তুলতে দুর্গাপুর শ্রী রামকৃষ্ণ সেবা মিশনের অধীনস্থ সুগম ক্লিনিক নামে সংস্থার পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছিল বিশেষ উদ্যোগ।  
বিশদ

28th  November, 2019
সুগার আছে, জানেনই না পাঁচ কোটি
জানাল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

  দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় ডায়াবেটিসে আক্রান্তর সংখ্যা বেড়েই চলেছে দিনের পরদিন ধরে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার আঞ্চলিক অধিকর্তা ডাঃ পুনম ক্ষেত্রপাল সিং জানিয়েছেন, ওই অংশে প্রায় পাঁচ কোটি মানুষ (চার কোটি ৯০ লক্ষ) জানেনই না যে তাঁরা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত! অথচ অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস হার্ট, কিডনি এবং স্নায়ুতন্ত্র এবং চোখের ভয়ানক ক্ষতি করতে পারে।
বিশদ

21st  November, 2019
 টাইপ ১ ডায়াবেটিসের উত্তর খুঁজতে

  ১৪ নভেম্বর ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরুর জন্মদিন। এই দিনটি ভারতে শিশু দিবস হিসেবে পালিত হয়। আবার ওই একই দিনে জন্মেছিলেন ইনসুলিনের আবিষ্কর্তা ডাঃ ব্যান্টিং। তাঁর জন্মদিনে গোটা বিশ্বে ডায়াবেটিস দিবস পালিত হয়। তাই ভারতে শিশু দিবস ও বিশ্ব ডায়াবেটিস ডে একই দিনে পড়ে।
বিশদ

21st  November, 2019
বাচ্চাদের মধ্যে টাইপ টু ডায়াবেটিস বাড়ছে

  বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবসের দিনই গোটা দেশে পালিত হল শিশু দিবস। এই নির্দিষ্ট দিনে বাচ্চাদের ডায়াবেটিস নিয়ে সতর্ক করলেন নারায়ণা হেল্‌থ সিটির কনসালটেন্ট এন্ডোক্রিনোলজি ডাঃ শুব্রহ্মনিয়ম কান্নন। তাঁর কথায়, প্রতি বছর বাচ্চাদের মধ্যে টাইপ ওয়ান এবং টাইপ টু ডায়াবেটিসে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে।
বিশদ

21st  November, 2019
একনজরে
সংবাদদাতা, লালবাগ: লালগোলা ব্লকের বিলবোরা কোপরা গ্রাম পঞ্চায়েতের চিন্তামণি এবং বয়রা গ্রামে পদ্মা নদীর পাড় মেরামতির কাজ শুরুর আগে শনিবার সকালে নারকেল ফাটিয়ে পুজো দিলেন রাজ্যের শ্রম দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী তথা জঙ্গিপুরের তৃণমূল বিধায়ক জাকির হোসেন।  ...

সংবাদদাতা, ইসলামপুর: শনিবার দুপুরে চাকুলিয়া থানার শিকারপুরে পাটবোঝাই একটি চলন্ত ট্রাক্টরে হঠাৎ আগুন লেগে প্রায় তিন লক্ষ টাকার পাট ভস্মীভূত হয়। এই ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, চাকুলিয়া হাট থেকে এক ব্যবসায়ী পাট কিনে ট্রাক্টরে চাপিয়ে নিয়ে বিহারের কিষাণগঞ্জে ...

 উন্নাও ও নয়াদিল্লি, ৭ ডিসেম্বর (পিটিআই): শুক্রবার রাতে দিল্লির হাসপাতালে মৃত্যু হয়েছে উন্নাওয়ের নির্যাতিতার। শনিবার উন্নাওয়ে নির্যাতিতার বাড়িতে গিয়ে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। উত্তরপ্রদেশে একের পর এক বর্বরোচিত ঘটনার প্রেক্ষিতে তোপ দাগলেন রাজ্যের বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে। ...

 বিএনএ, চুঁচুড়া: পুরসভার ওয়ার্ডের কাজের জন্যে বরাদ্দ হয়েছিল ২৮ জন শ্রমিক। কিন্তু, বাস্তবে অনুসন্ধান করে পাওয়া গেল ৪ জন! খোদ পুরসভার চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে এই পরিস্থিতি ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

শরীর-স্বাস্থ্যের প্রতি নজর দেওয়া প্রয়োজন। কর্মক্ষেত্রে উন্নতির সম্ভাবনা। গুপ্ত শত্রুতার মোকাবিলায় সতর্কতা প্রয়োজন। উচ্চশিক্ষায় বিলম্বিত ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৩৫- অভিনেতা ধর্মেন্দ্রর জন্ম
১৯৭১- ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের সময় করাচি বন্দরে হানা দিল ভারতীয় নৌবাহিনী
১৯৭৪- গণভোটের মাধ্যমে গ্রিসে রাজতন্ত্রের অবসান
১৯৮০- নিউইয়র্কে এক মানসিক প্রতিবন্ধী ভক্তের হাতে খুন হলেন বিখ্যাত ব্রিটিশ পপ গায়ক জন লেনন
১৯৯১- রাশিয়া, বেলারুশ এবং ইউক্রেনের রাষ্ট্রনেতারা সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে দেওয়ার জন্য চুক্তিবদ্ধ হলেন এবং স্বাধীন রাষ্ট্রগুলিকে নিয়ে কমনওয়েলথ গঠন করলেন
২০০৯- বাগদাদে বোমা হামলায় নিহত ১২৭ এবং আহত ৪৪৮ জন



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৪৯ টাকা ৭২.১৯ টাকা
পাউন্ড ৯২.২০ টাকা ৯৫.৫৪ টাকা
ইউরো ৭৭.৭৫ টাকা ৮০.৭৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
07th  December, 2019
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮, ৩৮৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬, ৪২০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৬, ৯৬৫ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৩, ৪০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৩, ৫০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯, রবিবার, একাদশী ৫/৫৩ দিবা ৮/৩০। অশ্বিনী ৫৩/২৫ রাত্রি ৩/৩০। সূ উ ৬/৮/১৩, অ ৪/৪৮/১৭, অমৃতযোগ দিবা ৬/৫১ গতে ৮/৫৮ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৯ মধ্যে পুনঃ ২/৪০ গতে ২/৪০ মধ্যে। রাত্রি ৭/২৮ গতে ৯/১৫ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৫ গতে ১/৪২ মধ্যে পুনঃ ২/৩৫ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ১০/৮ গতে ১২/৪৮ মধ্যে, কালরাত্রি ১/৮ গতে ২/৪৮ মধ্যে।
২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯, রবিবার, একাদশী ৩/১৫/৫২ দিবা ৭/২৭/৫৯। অশ্বিনী ৫৩/১০/৩০ রাত্রি ৩/২৫/৫০, সূ উ ৬/৯/৩৮, অ ৪/৪৮/৪৮, অমৃতযোগ দিবা ৭/১ গতে ৯/৮ মধ্যে ও ১১/৫৬ গতে ২/৪৫ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৩৩ গতে ৯/২১ মধ্যে ও ১২/২ গতে ১/৫০ মধ্যে ও ২/৪৮ গতে ৬/১০ মধ্যে, কালবেলা ১১/২৯/১৪ গতে ১২/৪৯/৮ মধ্যে, কালরাত্রি ১/৯/২০ গতে ২/৪৯/২৭ মধ্যে।
১০ রবিয়স সানি

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
দ্বিতীয় টি২০: ওয়েস্ট ইন্ডিজ ভারতের বিরুদ্ধে ৮ উইকেটে জিতল

10:32:44 PM

দ্বিতীয় টি২০: ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৭৩/১ (১০ ওভার) 

09:47:37 PM

দ্বিতীয় টি২০: ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ১৭১ রানের টার্গেট দিল ভারত 

08:47:23 PM

কোচবিহারে বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষ, জখম ২ 
কোচবিহারে ফের বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষ। বোমার ঘায়ে জখম দুই তৃণমূল সমর্থক। ...বিশদ

08:23:24 PM

দ্বিতীয় টি২০: ভারত ১৩২/৪ (১৫ ওভার) 

08:19:18 PM

দ্বিতীয় টি২০: ভারত ১১২/৩ (১২ ওভার) 

08:06:46 PM