Bartaman Patrika
শরীর ও স্বাস্থ্য
 

ঘুম না এলে
কী করবেন?

 পরামর্শে সল্টলেক মাইন্ডসেট ক্লিনিকের মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ দেবাঞ্জন পান, সল্টলেকের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হোমিওপ্যাথির অধিকর্তা ডাঃ সুভাষ সিং ও প্রতাপচন্দ্র মেমোরিয়াল হোমিওপ্যাথিক মেডিক্যাল কলেজের ফরেনসিক মেডিসিনের লেকচারার ডাঃ অরুণাভ নাথ।

শরীরের ঘড়ি আর ঘুম
আমাদের শরীরের ভিতরে রয়েছে কয়েক হাজার ঘড়ি! হার্টের যে কোষগুলি রয়েছে, সেই কোষগুলি নির্দিষ্ট সময় মেনে কাজ করে, একইরকমভাবে লিভার, প্যাংক্রিয়াসের কোষগুলিরও কাজ করার এবং কাজ বন্ধ করার নির্দিষ্ট সময় আছে। তবে আমাদের ব্রেনের সুপ্রাকিয়াসমাটিক নিউক্লিয়াস অংশে রয়েছে ‘কেন্দ্রীয়’ বা প্রধান ঘড়িটি। অনেকটা অর্কেস্ট্রার নির্দেশকের মতোই তার কাজ। বিভিন্ন ধরনের হর্মোন এবং স্নায়বিক সঙ্কেত পাঠিয়ে শরীরের বাকি ঘড়িগুলিকে একটা নির্দিষ্টে তালে বাঁধে কেন্দ্রীয় ঘড়ি। অর্থাৎ যতক্ষণ না পর্যন্ত প্রধান ঘড়িটি বুঝতে পারছে, এবার ঘুমানোর সময় হল, ততক্ষণ পর্যন্ত বাকি ঘড়িগুলিও নিজের মতো চলতে থাকে!

নিদ্রা হর্মোন
‘কর্টিজল’ নামে বিশেষ হর্মোন আছে। এই হর্মোনটির সাহায্যেই নির্দেশ পাঠিয়ে কেন্দ্রীয় ঘড়িটি শরীরের বাকি ঘড়িগুলিকে এক ছন্দে বাঁধে। মুশকিল হল, দীর্ঘদিন ধরে মানসিক চাপে ভুগলে কর্টিজলের মাত্রার হেরফের ঘটে যায়। ফলে কেন্দ্রীয় ঘড়ি ছাড়া বাকি ঘড়িগুলির ভারসাম্যের অভাব ঘটে যায়। দেখা গিয়েছে, মানসিক চাপ ছাড়াও অতিরিক্ত কফি পান করলে, প্রচুর এক্সারসাইজ করলে কর্টিজল লেভেলের পরিবর্তন ঘটে যায়। ঘুম আসার ক্ষেত্রে সমস্যা হয়। তবে গবেষণা বলছে, শুধু কর্টিজল নয়, ঘুম আসার পিছনে হাত রয়েছে অন্য একটি হর্মোনের। তার নাম মেলাটোনিন।
জানা গিয়েছে, উজ্জ্বল এবং নীল আলোর অনুপস্থিতিতে আমাদের প্রধান ঘড়ি বা সুপ্রাকিয়াসমাটিক নিউক্লিয়াস নির্দেশ পাঠায় পিনিয়াল গ্রন্থিকে। সঙ্গে সঙ্গে গ্রন্থিটি মেলাটোনিন ক্ষরণ করে এবং রক্তে মিশতে শুরু করে। এইভাবে শরীরের বাকি অংশের ঘড়িগুলি জানতে পারে— ঘুমানোর সময় হল। মেলাটোনিন হর্মোন আমাদের মানসিক চাপ কমাতেও সাহায্য করে। অর্থাৎ শরীরের প্রধান ঘড়িটিকে স্বাভাবিক রাখার জন্য দরকার কর্টিজল ও মেলাটোনিন হর্মোনের পর্যাপ্ত ক্ষরণ। তবেই হবে আর সন্তোষজনক ঘুম। আর সঠিক ঘুমের জন্য স্বাস্থ্যকর অভ্যেস।

সঠিক অভ্যেস
খাদ্যাভ্যাস: আমাদের শরীর মেলাটোনিন তৈরি করে অ্যামাইনো অ্যাসিড ট্রিপটোফান এবং ভিটামিন সি-এর সাহায্যে। ট্রিপটোফান এবং ভিটামিন বি৬-এর খুব ভালো উৎস হল ডিম ও কলা। আবার বেশ কিছু খাদ্যে রেডিমেড মেলাটোনিন মেলে। ডিনারে এই ধরনের খাদ্য খেলে উপকার পাওয়া যায়। উদাহরণ হিসেবে কল বের করা কলাই, কড়াইশুঁটি, গোরুর দুধের কথা বলা যায়।
তবে খাদ্যগ্রহণের সময়টাও বেশ গুরত্বপূর্ণ। শরীরের ঘড়িগুলির কাজের ছন্দ নির্ভর করে খাদ্যগ্রহণের সময়ের ওপর। সাম্প্রতিককালের এক সমীক্ষায় ধরা পড়েছে, বেশি রাতে খাবার খাওয়ার পর রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা বেড়ে যায়। কারণ মেলাটোনিন ইনসুলিনের কাজে বাধা দেয়।
উষ্ণতা: রাতে ঘুমানোর সময় আমাদের দেহের তাপমাত্রা কমতে শুরু করে। সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর পুনরায় দেহের তাপমাত্রা বাড়তে শুরু করে। তাই দেহের তাপমাত্রা কমতে শুরু করলে আমাদের ঘুম পায়। মজার ব্যাপার হল, আমাদের শরীরের কিন্তু দু’টি ভাগ রয়েছে। একটা এই হাত, পা নিয়ে বাইরের আধার। আর একটা হল এই আধারের অন্দরে যে অংশ রয়েছে সেটি। সেখানেই রয়েছে অন্দরের অঙ্গগুলি। ঘুমের সময় শরীরের এই ভিতরের অংশগুলি ক্রমশ শীতল হতে থাকে। আর ঠিক এই কারণেই শুতে যাওয়ার আগে ঈষদুষ্ণ জলে স্নান করলে ঘুম পায়। কারণ ঈষদুষ্ণ জল আমাদের শরীরের বাইরের অংশকে গরম করে দেয়। ফলে মস্তিষ্ক মনে করে, শরীরের উত্তাপ বেড়ে গিয়েছে। তাই অন্দরের উত্তাপ দ্রুত বের করে দিতে থাকে। অন্দরের শরীর শীতল হয়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমাদের ঘুম পেতে থাকে।
বাইরের উদ্দীপক: শব্দ, আলো, টেলিভিশন, মোবাইলের মতো সমস্ত বাইরের উদ্দীপক মেলাটোনিন-এর ক্ষরণে বাধা দেয়। এমনকী চা, কফির মতো পানীয়ও ঘুম আসতে বাধা দেয়।

অন্যান্য—
 ভোরের আলো ও সূর্যের আলো শরীরে ঘুমের হর্মোন ক্ষরণে সাহায্য করে। তাই দিনের বেলা কিছুক্ষণ অন্তত রোদে থাকুন  ঘুমোতে যাওয়ার ঘণ্টা তিনেক আগে এক্সারসাইজ করবেন না  ঘুমোতে যাওয়ার ঘণ্টা দুয়েক আগে টেলিভিশন বন্ধ করে দিন। হাতের কাছে মোবাইল রাখবেন না  শুয়ে পড়ার পর কখনওই ভাববেন না, আমি এবার ঘুমাব বা এবার ঘুম এলে ভালো হয় ইত্যাদি। মস্তিষ্ক সজাগ হয়ে যাবে। বরং বই পড়ুন বা গান শুনুন। হালকা যন্ত্র সংগীত শুনলে ভালো হয়। হাসির বইও পড়তে পারেন। ঘুম আসবে।
অনিদ্রার জন্য দায়ী যখন অসুখ
প্রাপ্তবয়স্কদের ঘুম না আসার সমস্যা দু’ধরনের হয়— প্রাইমারি ইনসমনিয়া এবং সেকেন্ডারি ইনসমনিয়া।
প্রাইমারি ইনসমনিয়া: কাজের চাপ, রোজকার রুটিনের গণ্ডগোল, খুব চিন্তা নানা কারণে এমন হয়। মূল কারণ বের করতে পারলেই ঘুম না আসার সমস্যার সমাধান করা যায়।
সেকেন্ডারি ইনসমনিয়া: এক্ষেত্রে ঘুম না আসার পিছনে অবসাদ, জেনেরালাইজড অ্যাংজাইটি ডিসঅর্ডারের (জিএডি) মতো নির্দিষ্ট কিছু সমস্যা দায়ী থাকে।  জিএডি-এর ক্ষেত্রেও রোগীর ঘুমের সমস্যা হতে পারে। রোগীর দৈনন্দিন জীবনের নানা বিষয় নিয়ে দুশ্চিন্তা হয়। বুক ধড়ফড় করে, ছোটখাট বিষয়গুলি ভুলে যান, পায়ের পেশিতে টান ধরার মতো সমস্যা দেখা দেয় ইত্যাদি
 দীর্ঘদিন ধরে অ্যালকোহল সেবন করলে তা ঘুম নষ্ট করে।
 সাইকোসিস অর্থাৎ সিজোফ্রেনিয়া, বাইপোলার ডিজঅর্ডারের মতো রোগে ঘুমের সমস্যা হয়।
 বৃদ্ধদের ক্রমশ ঘুম কমতে শুরু করে। এক্ষেত্রে বয়স্কদের কোনও মানসিক এবং শারীরিক কষ্ট হচ্ছে কি না দেখতে হবে। কষ্ট হলে বুঝতে হবে তাঁর ঘুমের চাহিদা মিটছে না। তাঁকে ঘুমের ওষুধ বা মেলাটোনিন সাপ্লিমেন্ট দিতে হবে স্বল্পমাত্রায়। মেলাটোনিনের মতো সাপ্লিমেন্ট ব্যবহার করা ভালো। পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কম হয়। আবার কিছু ক্ষেত্রে একাকিত্বের কারণেও ঘুম আসে না। সেদিকেও নজর দেওয়া উচিত।
লিখেছেন: সুপ্রিয় নায়েক

অনিদ্রায় হোমিওপ্যাথি ঘড়ি আর ঘুমের ছন্দ
ঘুম সার্কেডিয়ান তালের একটি প্রয়োজনীয় উপাদান। আমাদের জীবনের প্রায় এক তৃতীয়াংশ ঘুমিয়েই কেটে যায়! ঘুম বেশ কয়েকটি প্রাথমিক প্রক্রিয়া দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয় এবং যখন এই গঠনতন্ত্র খারাপ হয়ে যায় তখন অনিদ্রা ব্যাধি দেখা যায়। বলা হয়, মানুষ খাদ্য ছাড়া বেঁচে থাকতে পারে, তবে পর্যাপ্ত ঘুম না হলে তা সম্ভব হয় না। এমনকী বেশ কিছু জায়গায় মানসিক নির্যাতনের একটি পদ্ধতি হল মানুষকে ঘুম থেকে বঞ্চিত করা! অবশ্য বহু গেরস্থ ঘরে অনেকেই এমন মানসিক নির্যাতন ভোগ করেন। তবে তা অন্য প্রসঙ্গ। আমরা আপাতত ঘুমের উপরেই নজর লিপিবদ্ধ করি—
১) ডি-স্লিপ (ডিসিঙ্ক্রোনাইজড বা স্বপ্নের ঘুম) বা আরইএম-স্লিপ (র্যা পিড আই মুভমেন্ট স্লিপ)
২) এস-স্লিপ (সিঙ্ক্রোনাইজড ঘুম) বা এনআরইএম-স্লিপ (নন র্যা পিড আই মুভমেন্ট স্লিপ)
এনআরইএম ঘুমের চারটি স্তর রয়েছে
পর্যায় ১: নিদ্রালু বা তন্দ্রালু ঘুম, হালকা ঘুম, সহজেই জাগ্রত হয়। মোচড় বা ঝাঁকুনি অনুভূত হয়।
পর্যায় ২: পেশিগুলির ক্রিয়াকলাপ হ্রাস পায়। জাগরিত করা কঠিন।
পর্যায় ৩: জাগরিত করা আরও কঠিন।
পর্যায় ৪: গভীর ঘুম, সবচেয়ে দীর্ঘায়িত। ঘুমন্ত অবস্থায় প্রস্রাব, দুঃস্বপ্ন, সুপ্তিভ্রমণ এই অবস্থায় হয়ে থাকে।
ঘুম এবং স্বপ্নের মধ্যে একটা অন্তর্নিহিত সম্পর্ক রয়েছে। প্রাচীন সমাজে স্বপ্ন রাজনৈতিক, সামাজিক এবং নিত্যদিনের সিদ্ধান্তগুলিকে পরিচালিত করত। প্রাচীন বই তথা বাইবেল-এ ঘুমের মধ্যে ঐশ্বরিক দর্শনের উল্লেখ পাওয়া যায়। অপরদিকে গ্রিক দার্শনিকরা ঘুমের বিষয়বস্তুকে প্রাকৃতিক উৎসের সঙ্গে বিবেচিত করেছিলেন যা কিনা বর্তমান কালের ঘুমের ব্যাখ্যার অগ্রদূত হিসাবে গুরুত্ব পায়। উনিশ শতকে, সিগমুন্ড ফ্রয়েড একটি জনপ্রিয় তত্ত্ব প্রচার করেছিলেন যে, ঘুম আমাদের অচেতন দমানো দ্বন্দ্বের প্রবেশের সহায়তা করে। আরও এক প্রাথমিক মনোরোগ বিশেষজ্ঞ, আলফ্রেড অ্যাডলার বিশ্বাস করতেন যে, স্বপ্ন বর্তমান জীবনযাত্রাকে প্রতিফলিত করে এবং সমসাময়িক সমস্যার সমাধান দেয়। এটি বিশ্বাস করা হয় যে, অপর্যাপ্ত ঘুম অপ্রাকৃত বা ভীত স্বপ্ন দেখাতে পরিচালনা করে আমেরিকান সাইকিয়াট্রিক অ্যাসোসিয়েশনের (এপিএ) ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড স্ট্যাটিসটিকাল ম্যানুয়াল অফ মেন্টাল ডিসঅর্ডার (ডিএসএম-৫)-এর পঞ্চম সংস্করণে দশটি ব্যাধিকে ঘুমের ব্যাধি হিসাবে তালিকাভুক্ত করেছে যার মধ্যে অনিদ্রা ডিজঅর্ডার প্রথম অবস্থানে রয়েছে। ডিএসএম-৫ অনিদ্রা ডিসঅর্ডার-টিকে সংজ্ঞায়িত করে এই প্রকার যে নিদ্রার পরিমাপ বা গুণগত অসন্তুষ্টি যা কিনা এই প্রকার লক্ষণের সঙ্গে সম্পর্কিত— যেমন ঘুম আসতে অসুবিধা, ঘুমন্ত অবস্থায় থাকা এবং তার সঙ্গে বারবার ঘুম ভেঙে যাওয়া বা আবার ঘুম আসা এবং খুব ভোরে ঘুম ভাঙা ও তার সঙ্গে আর ঘুম না আসা। অনিদ্রা খুব সহজে দেখা যায় এবং প্রায় ১৫-৩০ শতাংশ সাধারণ লোক প্রতি বছর অনিদ্রার জন্য চিকিৎসার প্রয়োজন আছে বলে অভিযোগ করে। অনিদ্রা বিভিন্ন ধরনের রয়েছে:
 প্রাথমিক অনিদ্রা (প্রাইমারি ইনসমনিয়া)
 সাইকো ফিজিওলজিক অনিদ্রা (সাইকোফিজিওলজিকাল ইনসমনিয়া)
 তীব্র অনিদ্রা (অ্যাকিউট ইনসমনিয়া)
 অনিদ্রার সঙ্গে মানসিক রোগ (ইনসমনিয়া অ্যাসোসিয়েটেড উইদ মেন্টাল ডিজঅর্ডার)
অনিদ্রার সঙ্গে স্নায়ুসংক্রান্ত অসুখ (ইনসমনিয়া অ্যাসোসসিয়েটেড উইদ নিউরোলজিক ডিজঅর্ডার)
 অনিদ্রার অন্যান্য চিকিৎসা সংক্রান্ত অসুস্থতার সঙ্গে যুক্ত রয়েছে অসুখ যেমন হাঁপানি, ক্রনিক অবস্ট্রাকটিভ পালমনারি ডিসিজ, হাইপার থাইরয়োডিজম, রেনাল ফেলিয়র, লিভার ফেলিয়র এবং অন্যান্য।
একটা বিষয় প্রমাণিত সত্যি যে হোমিওপ্যাথি অনিদ্রা ও ঘুমের মধ্যে দুঃস্বপ্ন ব্যাধিগুলির পরিচালনা করতে পারে। হ্যোমিওপ্যাথি যেহেতু রোগীর চিকিৎসা করে, রোগের নয় সে কারণে কেন ব্যক্তিটি অনিদ্রায় ভুগছে এবং তার ফলস্বরূপ তার ওপর কী কী প্রভাব হতে পারে তা জানা প্রয়োজন। যদি লক্ষণ নির্ভর করে সঠিক ওষুধ নির্বাচন করা হয় তবে তা সেই বিশেষ ক্ষেত্রে প্যানাসিয়া (রোগহর সমাধান) হয়ে উঠতে পারে। লক্ষণ ভিত্তি করে নিদ্রাহীনতার জন্য কয়েকটি ওষুধ দেওয়া হয় রোগীকে—
 উদ্বেগ থেকে অনিদ্রায়: আর্সেনিকাম অ্যালবাম, ককুলাস ইন্ডিকাম।
 যেখানে বাচ্চাকে কোলে করে ঘুরতে হবে: ক্যামোমিলা (ম্যাট্রিকারিয়া ক্যামোমিলা)
 শীত সহ: মিউরিটিক অ্যাসিড
 শারীরিক ঘনিষ্ঠতার পরে: ক্যালকেরিয়া কার্বনিকা, কোপাউভা অফিসিনালিস, নাইট্রিক অ্যাসিড, সেপিয়া অফিসিনালিস, সিলিসিয়া।
 উত্তেজনার পরে: কফিয়া ক্রুডা, হারোসাইমাস নাইজার, নাক্স ভোমিকা।
 গৃহকাতরতা থেকে: ক্যাপসিকাম অ্যান্নাম।
 অতিরিক্ত আনন্দ থেকে: কফিয়া ক্রুডা।
 মানসিক পরিশ্রমের পরে: আর্সেনিকাম অ্যালবাম, হায়োসাইমাস নাইজা।
 মানসিক আঘাত থেকে: আর্জেন্টিয়াম মেটালিকাম, আর্সেনিকাম অ্যালবাম।
 মদ্যপান করলে: নাক্স-ভোমিকা।
 অন্ধকার ঘরে: ক্যালকেরিয়া কার্বনিকা, স্ট্রামোনিয়াম।
 কথোপকথনের পরে: অম্ব্রা গ্রিসিয়া।
 শোক থেকে: ইগনাশিয়া আমারা, কেলি ব্রোমাটাম, নেট্রাম মিউরিয়েটিকাম।
 বয়স্ক লোকেদের ক্ষেত্রে: ব্যারাইটা কার্বনিকা।
 ক্লান্তি থেকে: আর্সেনিকাম অ্যালবাম
তবে অবস্থা যাই হোক না কেন, কোনও ওষুধ খাওয়ার আগে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত।
31st  October, 2019
করোনা থেকে হতে পারে
স্ট্রোক, বলছেন বিজ্ঞানীরা

সায়ন নস্কর, কলকাতা: বাড়ছে সংক্রমণ। সেই সঙ্গে বদলে যাচ্ছে উপসর্গও। করোনা আক্রান্ত হলে স্বাদ-গন্ধ বিচারের ক্ষমতা চলে যাওয়া, কনজাংটিভাইটিস ইত্যাদি বিভিন্ন অদ্ভুত লক্ষণের কথা ইতিমধ্যেই সামনে এসেছে। সংক্রামিতদের একাংশের নিউমোনিয়া এবং তীব্র শ্বাসকষ্ট (এআরডিএস) হওয়াও এখন কঠিন বাস্তব।  
বিশদ

06th  June, 2020
ছড়াতে পারে করোনা, দাঁতের
অস্ত্রোপচারে নিষেধাজ্ঞা জারি

 নিজস্ব প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি, ২০ মে: দাঁতের ডাক্তারখানা থেকে ব্যাপক হারে ছড়াতে পারে করোনার ভাইরাস। তাই একান্ত জরুরি ছাড়া দাঁতের অস্ত্রোপচার করতে বারণ করল কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। রোগী দেখার ক্ষেত্রেও জারি হল বিধি নিষেধ। বিশদ

21st  May, 2020
গার্হস্থ্য হিংসায় বাচ্চাদের মানসিক স্বাস্থ্য
ভেঙে পড়ার আশঙ্কা শিশু কমিশনের

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: লকডাউনে বেড়ে চলা গার্হস্থ্য হিংসার ঘটনা শিশুমনেও ব্যাপক প্রভাব ফেলতে পারে। ফলে তাদের মধ্যে নানা আচরণগত পরিবর্তন হওয়ার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে। এমনই আশঙ্কা রাজ্য শিশু কমিশনের।
বিশদ

21st  May, 2020
প্রসূতিদের মধ্যে উত্তরোত্তর বাড়ছে করোনা,
হাই-প্রোটিন ডায়েট এবং ব্যায়ামের পরামর্শ 

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: এনআরএস মেডিক্যাল কলেজে সাতজন, মেডিক্যাল কলেজে দু’জন, কেপিসি মেডিক্যাল কলেজে তিনজন, সঞ্জীবন হাসপাতালে একজন....। করোনা পর্ব যতই দীর্ঘায়িত হচ্ছে, প্রসূতিদের মধ্যে সংক্রমণও বাড়ছে। 
বিশদ

10th  May, 2020
করোনা ঠেকাতে কোন ধরণের
সাবান ব্যবহার করবেন

যে রোগে মৃত্যুর হার শতকরা মাত্র পাঁচ ভাগ, সেই রোগটাকে নিয়ে কী শুরু হয়েছে বলুন তো! গুজব আর আতঙ্কে তো কান পাতাই দায়। এলাকায় কারো করোনা ধরা পড়ার পর, যে ধরনের অসভ্যতা শুরু হয়ে যায়, মনে হয় কোনও আতঙ্কবাদী ধরা পড়েছে! সেদিন আবার শুনলাম, সাবান না স্যানিটাইজার, নাকি দুটোই- এই নিয়েও প্রশ্ন উঠছে। সাবান হলে কোন সাবান? 
বিশদ

06th  May, 2020
খাদ্যাভ্যাস সম্পর্কে ভারতীয়দের সতর্ক
করলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত ডাক্তার

  লন্ডন, ৩ মে (পিটিআই): করোনায় মৃত্যু এড়াতে দৈনন্দিন খাদ্যাভ্যাস সম্পর্কে ভারতীয়দের সতর্ক করলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ চিকিৎসক ডাঃ অসীম মালহোত্রা। ব্রিটেনের ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস (এনএইচএস)-এর সঙ্গে যুক্ত স্বনামধন্য কার্ডিওলজিস্ট ডাঃ মালহোত্রা আবার ‘এভিডেন্স বেসড মেডিসিন’-এর অধ্যাপক। বিশদ

04th  May, 2020
লকডাউনে সুস্থ থাকবেন কী করে
প্রেমসুন্দর দাস, বিশিষ্ট যোগ বিশেষজ্ঞ

শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার জন্য জরুরি তিনটি বিষয়—শারীরিক স্বাস্থ্য, মানসিক স্বাস্থ্য ও পুষ্টি। তিনের মেলবন্ধনেই প্রতিরোধ ক্ষমতার শ্রীবৃদ্ধি ঘটে। মন যত প্রশান্ত হবে, শারীরিক সমস্যাও তত কমবে। মন একাগ্র করার পন্থা আবার নিহিত শরীরচর্চার মধ্যে।
বিশদ

02nd  May, 2020
লকডাউন ওঠার পর কী কী
অভ্যাস বজায় রাখবেন?

 লকডাউন কবে উঠবে? তার চাইতেও অনেক বড় প্রশ্ন হল আমাদের আগামী দিনে জীবন কেমন হবে? সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, মাস্ক, স্যানিটাইজারের ব্যবহার করে যেতেই হবে লকডাউন শেষ হওয়া পর্যন্ত। বিশদ

02nd  May, 2020
কীভাবে হাত ধুলে করোনা
ভাইরাসকে মাত দেওয়া যায়?

 করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে চিকিৎসাবিজ্ঞানের সমস্ত স্তর দিয়েই হাত ধোয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। সেই পরামর্শ মেনে নিয়ে একটা বড় অংশের মানুষই নিয়মিত হাত ধুয়ে চলেছেন। তবে অনবরত হাত ধুয়ে চলা এই মানুষগুলির মধ্যে অনেকেই অবশ্য হাত ধোয়ার আদর্শ পদ্ধতি মানছেন না।
বিশদ

02nd  May, 2020
ওয়ার্ক ফ্রম হোমে
উৎসাহ হারাচ্ছেন?
জেনে নিন সমাধানের ঘরোয়া উপায়

 নোভেল করোনার দাপট রুখতে দেশ জুড়ে চলছে লকডাউন। মোটের উপর ঘরবন্দি দেশের অধিকাংশ মানুষ। অবশ্য এই ঘরবন্দি অবস্থাতেও বাড়িতে বসেই কাজ করে যাচ্ছেন অনেকে। বিশদ

02nd  May, 2020
রান্নায় এই ৭ টি মশলা বাড়াবে
রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা

 এই মুহূর্তে করোনা আতঙ্কে কাঁপছে গোটা বিশ্ব। মারণ এই ভাইরাসের তাণ্ডবে কার্যত বিপর্যস্ত মানবজীবন। কীভাবে এই মহামারীর হাত থেকে নিজেকে রক্ষা করা যায় এই চিন্তাতেই দিন কাটছে মানুষের।
বিশদ

02nd  May, 2020
বাসন মাজলে করোনা
ভাইরাস মরে?

 জিম বন্ধ। বন্ধ সেলেবদের শরীরচর্চা। তা বলে থেমে নেই তারকারা। বেছে নিয়েছেন অন্য উপায়। হাত লাগিয়েছেন বাসন মাজায়! কে নেই এই তালিকায়— ক্যাটরিনা থেকে কার্তিক আরিয়ান সকলেই মাজছেন বাসন। গৃহস্থালির এত কাজ থাকতে হঠাত্ কেন বাসন মাজা-মাজি?
বিশদ

02nd  May, 2020
সাবান না স্যানিটাইজার
কোনটা বেশি ভালো?

 নোভেল করোনার করাল গ্রাস থেকে রক্ষা পেতে সাবান এবং স্যানিটাইজারের কদর প্রতিদিন বেড়েই চলেছে। চাহিদা এতটাই বেশি যে বাজারে স্যানিটাইজার তো প্রায় পাওয়াই যাচ্ছে না। আর সাবান পাওয়া গেলেও তার বিক্রি বেড়েছে কয়েক গুণ। বিশদ

02nd  May, 2020
বারবার বাসন মেজে নখকুনি?
কাপড় কেচে, ঘর মুছে
হাতে হাজা? কী করবেন?

 বাসন মাজা, ঘর মোছা, কাপড় কাচা, সব্জি কাটার কারণে হাতে বেশ কিছু ত্বকের সমস্যা দেখা দেয়। তার উপর এখন লকডাউন চলছে। ঘরের কাজ একটু বেশিই করতে হচ্ছে। এদিকে কাজ থেকে নিষ্কৃতি পাওয়ার উপায় নেই। বিশদ

02nd  May, 2020
একনজরে
নয়াদিল্লি, ৬ জুন: রাশিয়াতে সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। শেষ ২৪ ঘণ্টায় সেখানে সংক্রমণের শিকার হয়েছেন ৮ হাজার ৮৫৫ জন। প্রাণ হারিয়েছেন ১৯৭ জন। সবমিলিয়ে ভ্লাদিমির পুতিনের ...

মুম্বই, ৬ জুন: খেলাধূলাই পারে সামাজিক বৈষম্য দূর করতে। নেলসন ম্যান্ডেলার একটি বিখ্যাত উদ্ধৃতি উল্লেখ করে এমন আশা প্রকাশ করেছেন শচীন তেন্ডুলকর।  ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: পঞ্চম দফার লকডাউনে রাজ্যে ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হচ্ছে সরকারি হাসপাতালের আউটডোর পরিষেবা। যানবাহন পরিষেবা কিছুটা স্বাভাবিক হতেই এনআরএস, আরজিকর, পিজি, ন্যাশনাল মেডিক্যাল ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: লকডাউনে অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের জোগান যাতে ব্যাহত না হয়, তার জন্য গত ১০ এপ্রিল থেকে বিভিন্ন রুটে পার্সেল এক্সপ্রেস ট্রেন চালাচ্ছে পূর্ব রেল। তারা জানিয়েছে, আগামী ১৫ জুন পর্যন্ত এই ট্রেনগুলি চালানো হবে।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

উচ্চবিদ্যার ক্ষেত্রে মধ্যম ফল আশা করা যায়। প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় সাফল্য আসবে। প্রেম-প্রণয়ে নতুনত্ব আছে। কর্মরতদের ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৭৪- টেনিস খেলোয়াড় মহেশ ভূপতির জন্ম
১৯৭৫- সিরিয়ালের প্রযোজক একতা কাপুরের জন্ম
১৯৭৭- ক্রিকেটার দীপ দাশগুপ্তের জন্ম 



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.৭৭ টাকা ৭৬.৪৮ টাকা
পাউন্ড ৯৪.১৪ টাকা ৯৭.৪৭ টাকা
ইউরো ৮৩.৮২ টাকা ৮৬.৯২ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৮৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,৭৩০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪০,৩৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
22nd  March, 2020

দিন পঞ্জিকা

২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ৭ জুন ২০২০, রবিবার, দ্বিতীয়া ৪০/৩ রাত্রি ৮/৫৬। মূলা নক্ষত্র ২৩/৯ দিবা ২/১১। সূর্যোদয় ৪/৫৫/৭, সূর্যাস্ত ৬/১৫/১৭। অমৃতযোগ দিবা ৬/৪২ গতে ৯/২১ মধ্যে পুনঃ ১২/২ গতে ২/৪২ মধ্যে, রাত্রি ৭/৪০ মধ্যে পুনঃ ১০/৩০ গতে ১২/৩৯ মধ্যে। বারবেলা ৯/৫৫ গতে ১/১৪ মধ্যে। কালরাত্রি ১২/৫৫ গতে ২/১৫ মধ্যে।  
২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ৭ জুন ২০২০, রবিবার, দ্বিতীয়া রাত্রি ১০/২১। মূলানক্ষত্র দিবা ৩/৫০। সূর্যোদয় ৪/৫৬, সূর্যাস্ত ৬/১৭। অমৃতযোগ দিবা ৬/৪৩ গতে ৯/২৫ মধ্যে ও ১২/৬ গতে ২/৪ মধ্যে এবং ৭/৪৪ মধ্যে ও ১০/৩৬ গতে ১২/৪২ মধ্যে। বারবেলা ৯/৫৬ গতে ১/১৬ মধ্যে। কালরাত্রি ১২/৫৬ গতে ২/১৬ মধ্যে।
১৪ শওয়াল 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আলিপুরদুয়ারে মাদকদ্রব্য সহ ধৃত এক চোরাচালানকারি 
আজ রবিবার আলিপুরদুয়ারের বীরপাড়ায় মাদকদ্রব্য সহ এক চোরাচালাকারিকে ধরা হয়েছে। ...বিশদ

03:34:00 PM

রাশিয়ায় একদিনে করোনা আক্রান্ত ৮৯৮৪, মৃত ১৩৪ 
রাশিয়ায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন আরও ৮ হাজার ৯৮৪ ...বিশদ

03:29:00 PM

জম্মু ও কাশ্মীরের সোপিয়ানে জওয়ানদের গুলিতে হত ৩ জঙ্গি 

03:10:18 PM

করোনা: অসমে আক্রান্ত আরও ৯২ জন, মোট আক্রান্ত ২৫৬৫ 

03:05:43 PM

বিল না মেটানোয় মধ্যপ্রদেশের এক হাসপাতালে বৃদ্ধকে বেঁধে রাখা অভিযোগ 

03:03:23 PM

আগামীকাল থেকে খুলে দেওয়া হবে দিল্লি সীমানা: কেজরিওয়াল 

02:57:00 PM