Bartaman Patrika
শরীর ও স্বাস্থ্য
 

ছাত্রছাত্রীদের চোখের
যত্ন নেবেন কীভাবে?
ডাঃ প্রিয়াংশা চট্টোপাধ্যায়

এ বছরের মতো পুজো পর্ব প্রায় শেষ। সামনে আছে বলতে কেবল কালী পুজো-ভাইফোঁটা। এই ছুটি পেরলেই দরজায় কড়া নাড়বে বার্ষিক পরীক্ষা। তাই শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতিতে স্বভাবতই উঠে পড়ে লেগে গিয়েছেন পড়ুয়া এবং তাঁদের অভিভাবকরা। চলছে এক্সট্রা ক্লাস, রাত জেগে পড়ার পর্ব। যে সকল পড়ুয়ারা এই প্রচেষ্টায় আপাতত সঙ্গ দিতে চাইছেন না, অভিভাবকের চাপে তাঁরাও বইতে মুখ গুঁজে থাকতে বাধ্য। তা বেশ, পড়াশোনা করতেই হবে। ভালো নম্বর পেতে হবে। ঝকঝকে কেরিয়ারও বানাতে হবে। এই তত্ত্বে কারও কোনও ঘোর আপত্তি থাকার কথা নয়। তবে অবৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে দীর্ঘক্ষণ পড়াশোনা করলে যে ছেলেমেয়ের চোখের বারোটা বাজাতে পারে, এটাও জেনে রাখা উচিত। তাই ‘পড়-পড়’ করার পাশাপাশি ছেলে-মেয়ের চোখের ব্যাপারেও যত্ন নিতে হবে।
পড়ার আলো
আগুন আবিষ্কারের সঙ্গেই মানব সভ্যতা সূর্যের পাশাপাশি আলোর এক বিকল্প সন্ধান পেয়েছিল। আগুনের উপর ভর করেই মানুষ রাতের বেলাতেও কাজ করতে থাকল। পায়ে পা মিলিয়ে এগিয়ে চলল শিল্প, সংস্কৃতি, বিজ্ঞান। তারপর একদিন মানুষ বৈদ্যুতিক আলো আবিষ্কার করে ফেলল। শুরু হল আরও এক নতুন অধ্যায়।
আবিষ্কারের পর থেকে বৈদ্যুতিক আলোর অনেক বিবর্তন হয়েছে। বাল্ব থেকে টিউব, সিএফএল হয়ে হাল আমলের এলইডি। তবে এতশত পছন্দের মধ্যে অনেকের প্রশ্ন থাকতেই পারে যে কোন আলো পড়ার জন্য ভালো? এক্ষেত্রে উত্তর হল, সাদা আলো পড়ার জন্য ভালো। তাই পড়ার সময় বাল্বের হলুদ আলো নয়, টিউব বা সিএফএল লাইটের আলোতেই পড়া ভালো। তবে এলইডি লাইটের তীক্ষ্ণতা অত্যন্ত বেশি হওয়ায় সাদা আলো হওয়া সত্ত্বেও পড়ার সময় এলইডি আলো ব্যবহার করা উচিত নয়। এক্ষেত্রে এলইডি-এর আলো বা বাল্বের আলো চোখে অতিরিক্ত চাপ ফেলতে পারে। আর সকালে পড়ার ক্ষেত্রে জানলা খুলে সূর্যের আলোয় পড়া যেতেই পারে।
এবার প্রশ্ন হতে পারে, ঠিক কতটা আলো প্রয়োজন? পর্যাপ্ত আলো থাকতে হবে যাতে একটু দূর থেকেই বই বা খাতার অক্ষরগুলি পরিষ্কার দেখা যায়। অপর্যাপ্ত আলোয় পড়লে চোখের উপর বেজায় চাপ পড়ে। দীর্ঘদিন এমনটা চললে চোখে পাওয়ার আশা থেকে আরও নানা ধরনের সমস্যায় আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে।
একনাগাড়ে কতক্ষণ পড়া?
পরীক্ষার মরশুমে পড়ার সময় বাড়ছে। একবার পড়তে বসলে বই-খাতায় মুখ গুঁজে অন্তত পক্ষে ২ থেকে ৩ ঘণ্টা। তারপর মিলছে ব্রেক। বাড়ির সকলে বাহ বাহ করছে। তবে চক্ষু বিশেষজ্ঞের কথায়, এমনটা করা কিন্তু চোখের পক্ষে ভীষণ ক্ষতিকর। অর্থাৎ একনাগাড়ে দীর্ঘক্ষণ বই-খাতায় দৃষ্টি রাখলে চোখের সমস্যা হতে পারে। তাহলে সমাধান কী? এক্ষেত্রে ‘২০-২০-২০’ নিয়ম মানতে হবে। ২০ মিনিট বই বা খাতায় মনোযোগ দেওয়ার পর ২০ সেকেন্ডের জন্য অন্তত পক্ষে ২০ ফিট দূরের কোনও জিনিস দেখতে হবে। এক্ষেত্রে জনালার বাইরের গাছ, ল্যাম্পপোস্ট বা অন্য কোনও বাড়ির দিকেও তাকানো যেতে পারে। আসলে একনাগাড়ে হাতের কাছের বই-খাতার দিকে নজর রাখলে চোখের পেশির উপর ভীষণ চাপ পড়ে। এই চাপ মুক্ত করতেই দূরের কোনও জিনিসের দিকে তাকাতে হয়। মোটের উপর দিনে ৮ ঘণ্টা পড়া যায়। তবে পরীক্ষার সময় চাইলে সময়টা বাড়িয়ে ১০ ঘণ্টা করা যেতেই পারে। তবে অবশ্যই নিয়ম মেনেই পড়তে হবে।
কম্পিউটার, মোবাইল বা ট্যাবে পড়াশোনা
এখনকার হাইটেক যুগে পড়াশোনার সঙ্গে প্রযুক্তি অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িয়ে গিয়েছে। কম্পিউটার, মোবাইল বা ট্যাবেই চলছে অজানাকে জানার পর্ব। তবে দীর্ঘক্ষণ এই জাতীয় টেকনোলজি ব্যবহার করলেও চোখের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা থাকে। তাই এক্ষেত্রেও ‘২০-২০-২০’ নিয়ম মানতে হবে। অর্থাৎ ২০ মিনিট স্ক্রিনে নজর দেওয়ার পর ২০ সেকেন্ডের জন্য ২০ ফিট দূরত্বে তাকাতে হবে।
এখানে বলা দরকার, অনেকেই পড়া থেকে বিরতি নেওয়ার সময় মোবাইল বা কম্পিউটারে সময় দেয়। এই অভ্যেস কিন্তু চলবে না। এক্ষেত্রে চোখ ভালো রাখতে চাইলে স্ক্রিন টাইমকেও পড়ার টাইমের মধ্যে ধরতে হবে। অর্থাৎ ২০ মিনিট বই পড়ার পর ২০ সেকেন্ড মোবাইলে চোখে রাখলে কোনও লাভ নেই। বরং ১৭ মিনিট পড়ে ৩ মিনিট মোবাইল ঘেঁটে ২০ সেকেন্ডের জন্য ২০ ফিট দূরত্বে তাকানো যেতে পারে। তবে পরীক্ষার সময় এমন পদ্ধতি মেনে চলাটা ঠিক নয়। তাই যতটা সম্ভব মোবাইল বা কম্পিউটার মনোরঞ্জন এড়িয়ে চলতে হবে। মোটের উপর দিনের ৪৫ মিনিটের বেশি স্ক্রিনে চোখ রাখা ঠিক হবে না। একইভাবে পরীক্ষার সময় টিভি দেখার সময়ও ৩০ মিনিট থেকে ১ ঘণ্টার মধ্যে বেঁধে ফেলতে হবে।
চোখের থেকে কতটা দূরে বই?
একদম চোখের খুব কাছে বা চোখের থেকে অনেক দূরে বই-খাতা রেখে পড়লেও কিন্তু চোখের সমস্যা তৈরি হতে পারে। এক্ষেত্রে নিয়ম হল পড়ার সময় চোখের থেকে এক হাত দূরত্বে বই-খাতা রেখে পড়তে হবে। আর লেখার সময়ে খাতার দূরত্ব হবে চোখের থেকে হাফ হাত।
চোখে পাওয়ার থাকলে
এখন অনেক ছোট বয়স থেকেই বাচ্চাদের চোখে পাওয়ার চলে আসছে। তাই চোখে পাওয়ার থাকা পড়ুয়াদের আরও বেশি মাত্রায় সতর্ক হতে হবে বইকি! এক্ষেত্রে প্রাথমিকভাবে লেখাপড়ার সময় অবশ্যই চশমা ব্যবহার করতে হবে। চশমা না পড়লে চোখের পাওয়ার আরও বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। এছাড়া মাথা ব্যথা, ঘোলাটে দেখা, চোখ জ্বালা ইত্যাদি সমস্যা শুরু হলে অবশ্যই বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে।
রাত জেগে পড়া
রাত জেগে পড়ার সঙ্গে সরাসরি চোখের কোনও যোগ নেই। সঠিক আলোর বন্দোবস্ত থাকলে রাতের বেলায় পড়ার ক্ষেত্রে অন্তত চোখের দিক থেকে কোনও সমস্যা নেই।
পড়ার ভঙ্গি
মুখ গুঁজে পড়া, শুয়ে পড়া বা অন্য কোনও ভঙ্গিতে বসে খুব ঘাড় ঝুঁকিয়ে পড়লে চোখের উপরও চাপ পড়ে। তাই চেয়ারে বসে পড়ার টেবিলে বই-খাতা রেখে পড়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। বাড়িতে পড়ার টেবিল না থাকলে বাবু হয়ে বসে জলচৌকির উপর বই-খাতা রেখে মোটের উপর পিঠ সোজা রেখে পড়া যেতে পারে।
অনেকটা সময় পড়ার পর
তবে এত সমস্যা জানার পরও অনেকেই আসন্ন পরীক্ষা লগ্নে কয়েকটা দিন এই নিয়মগুলি খুব সচেতনভাবেই মানবে না। ঘণ্টাখানেক হলেও একনাগাড়ে পড়বেই। তাঁদের জন্য বলা— একনাগাড়ে পড়ে ওঠার পর অবশ্যই চোখে ঠান্ডা জলের ঝাপটা দিতে হবে  কিছুক্ষণ চোখ বন্ধ করে রাখা যেতে পারে। আবার কিছুক্ষণ বারবার চোখ খোলাবন্ধ করতে হবে। এর মাধ্যমে চোখে শুষ্কভাব কাটবে  চোখ জ্বালা শুরু হলে, ঘোলাটে দেখলে বা অন্য কোনও সমস্যা হলে— তখনই পড়া বন্ধ করে বিশ্রাম নিতে হবে  চেষ্টা করতে হবে ‘২০-২০-২০’ নিয়ম মানার।
দীর্ঘদিন এভাবে চললে
কোনওরকম নিয়ম না মেনে বই-খাতায় চোখার অভ্যেস থাকলে কিন্তু চোখে সমস্যা হওয়ার আশঙ্কা থাকে—
 প্রথমত, চোখ অস্থির হয়ে যায়  চোখের পাতা বন্ধ হয়ে যেতে পারে  চোখ জ্বালা করে  মাথায় ব্যথা  বিকেলের দিকে চোখ লাল হয়ে যেতে পারে  হঠাৎ হঠাৎ চোখের দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে পারে, আবার নিজে থেকেই কিছু সময় বাদে ঠিক হয়ে যায়  চোখ শুষ্ক হওয়ার আশঙ্কা থাকে  এমনকী চোখে পাওয়ার পর্যন্ত আসতে পারে।
তাই বাচ্চার চোখে এমন লক্ষণ দেখা দিলে অবশ্যই চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে।
চোখ ভালো রাখতে
অন্তত পক্ষে বছরে একবার চোখের চিকিৎসকের কাছে রুটিন চেক-আপ করিয়ে নেওয়া দরকার। এছাড়া চোখ ভালো রাখতে অবশ্যই খাবারের দিকে নজর দিতেই হবে। পড়ুয়ার ডায়েটে ভিটামিন সি যুক্ত খাবার যেমন গাঁজর, সমস্ত সবুজ শাক-সব্জি রাখা চাই। পাশাপাশি মাছের মধ্যে উপস্থিত ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড চোখের পক্ষে ভালো। এছাড়া চোখ ভালো রাখতে হলে অবশ্যই ৩০ মিনিটের জন্য হলেও বাড়ির বাইরে বেরতে হবে। দূরের বস্তু দেখতে হবে। চাপ মুক্ত থাকা দরকার।
সুশ্রুত আই ফাউন্ডেশন অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টারের কনসালটেন্ট ক্যাটার্যািক্ট সার্জেন ডাঃ প্রিয়াংশা চট্টোপাধ্যায়ের পরামর্শে লিখেছেন : সায়ন নস্কর
17th  October, 2019
স্ট্রোকের রোগীকে ৪ ঘণ্টার মধ্যে হাসপাতালে আনুন 

চলতি বছরের ৩ নভেম্বর পঞ্চমীর রাতে তীব্র স্ট্রোকে আক্রান্ত হন ৫৮ বছর বয়সি সমীর বন্দ্যোপাধ্যায়। কথা জড়িয়ে যাওয়া, শরীরের ডানদিক বিকল হওয়ার মতো লক্ষণও ফুটে ওঠে তাঁর শরীরে। সেই রাতেই তাঁকে আনা হয় অ্যাপোলো গ্লেনিগলস হাসপাতালে। তৎক্ষণাৎ শুরু হয়ে যায় চিকিৎসা।
বিশদ

07th  November, 2019
ব্রেস্ট ক্যান্সারের লক্ষণ চিনুন 

পরামর্শে হাওড়ার নারায়ণা সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালের কনসালটেন্ট ব্রেস্ট অঙ্কো সার্জেন ডাঃ নেহা চৌধুরী।  বিশদ

07th  November, 2019
নিয়মিত ধ্যান করুন, বলছেন অ্যালোপ্যাথিক চিকিৎসকরাও 

ধ্যান বা মেডিটেশন শব্দটা শুনলেই চোখের সামনে ভেসে উঠে পদ্মাসনে বসে থাকা মুনি-ঋষিদের ছবি। কেননা ধ্যান সম্পর্কে সাধারণ মানুষের ধারণা খুবই কম। আসলে ধ্যান হল এমন একটি উপায়, যার মাধ্যমে মনের উপর নিয়ন্ত্রণ আনা হয়। মনকে প্রশিক্ষিত করা হয়। ধ্যানের মাধ্যমে নতুন ও ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি তৈরি করা যায়। মানুষের মন সর্বদাই একসঙ্গে অনেক কিছু চিন্তা করে। ধ্যানের মাধ্যমে একটি বিষয়ে মনোনিবেশ করার অভ্যাস তৈরি হয়। কিন্তু, আজকের আধুনিক চিকিৎসাশাস্ত্রে তথা অ্যালোপ্যাথিক চিকিৎসা ব্যবস্থায় ধ্যান কতটা বিজ্ঞানসম্মত? কতটাই বা উপকারী ‘মেডিটেশন ইন মেডিকেশন’? সে বিষয়েই আলোকপাত করছেন তিন ক্ষেত্রের তিন বিশিষ্ট চিকিৎসক। 
বিশদ

07th  November, 2019
ধ্যান করলে কী কী লাভ? 

সমস্ত রোগের উৎস আসলে রিপু। রিপুর আধার হল শরীর। শরীরকে চালনা করে মন। শরীর থেকে মনকে আলাদা করে ফেললেই রিপুর উপর আসবে নিয়ন্ত্রণ! আর মনকে নিয়ন্ত্রণে আনতে প্রয়োজন ধ্যানের অভ্যেস। পরামর্শে যোগবিশারদ প্রেমসুন্দর দাস 
বিশদ

07th  November, 2019
ঘুম না এলে
কী করবেন?

 আমাদের শরীরের ভিতরে রয়েছে কয়েক হাজার ঘড়ি! হার্টের যে কোষগুলি রয়েছে, সেই কোষগুলি নির্দিষ্ট সময় মেনে কাজ করে, একইরকমভাবে লিভার, প্যাংক্রিয়াসের কোষগুলিরও কাজ করার এবং কাজ বন্ধ করার নির্দিষ্ট সময় আছে। বিশদ

31st  October, 2019
 খাবার যখন বিষ!

  নিম্নমানের খাদ্যাভ্যাস আয়ু কমাচ্ছে আমাদের। প্রতিদিন যে নিম্নমানের খাদ্য খাই, তাতে ফি বছর এক কোটিরও বেশি মানুষ প্রাণ হারাচ্ছেন। তাও আবার অকালে। এক চিকিৎসা সাময়িকীতে প্রকাশিত তথ্য থেকে এমনটাই জানা গিয়েছে। ধূমপানের পাশাপাশি রোজকার কিছু খাবারও আমাদের অকালমৃত্যুর পিছনে অনুঘটকের কাজ করে।
বিশদ

31st  October, 2019
বোকাবাক্সে স্মৃতিনাশ!

প্রতিদিন সাড়ে তিন ঘণ্টার বেশি সময় টেলিভিশন দেখলে বয়স্ক মানুষদের স্মৃতিশক্তি কমে যেতে পারে! এমনই জানানো হয়েছে এক গবেষণায়। ৫০ বছরের বেশি বয়সি সাড়ে তিন হাজার মানুষের ওপর বিজ্ঞানীরা এই গবেষণাটি চালিয়েছেন।
বিশদ

31st  October, 2019
বাজি পোড়ানোর সময়
কী কী সাবধানতা নেবেন?

পুজোর সিজন এখন শুরু হয় গণেশপুজো থেকে। বিশ্বকর্মা, দুর্গা, লক্ষ্মী, ছট, কালী হয়ে জগদ্ধাত্রীতে এসে শেষ হয়। প্রতি পুজোতেই এখন কমবেশি বাজি-পটকা ফাটে, কালীপুজোতে যা ভয়ঙ্কর রূপ নেয়।
বিশদ

24th  October, 2019
 আগে চোখ, তারপর বাজি
ডাঃ নলিনাক্ষী করণ  চক্ষু বিশেষজ্ঞ

কালীপুজো বা দিওয়ালিতে ‘ফায়ার ক্রেকার্স’ বা বাজি ফাটানো খুবই স্বাভাবিক। কিন্তু সেখান থেকে নানান দুর্ঘটনা হতে পারে। তুবড়ি, রংমশাল ইত্যাদি জাতীয় বাজি হঠাৎ ফেটে গিয়ে চোখের নানান ক্ষতি করতে পারে
বিশদ

24th  October, 2019
 ত্বকের সমস্যায় হোমিওপ্যাথি

সোরিয়াসিস, একজিমা ও স্কিন অ্যালার্জির মতো সমস্যায় ভুক্তভোগী মাত্রই জানেন সমস্যা কতটা জটিল। তবে এক্ষেত্রে হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা যথেষ্ট কার্যকরী হতে পারে বলে জানাচ্ছেন মল্লিক হোমিও হল প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার ডাঃ প্রকাশ মল্লিক।
বিশদ

24th  October, 2019
 মেডেভিশন-এর চতুর্থ রাজ্য সম্মেলন

বিজেপি প্রভাবিত মেডিক্যাল ও ডেন্টাল পড়ুয়াদের সংগঠন মেডেভিশন-এর চতুর্থ সম্মেলন কলকাতায় অনুষ্ঠিত হল। সংগঠনের তরফে জানানো হয়, মেডিক্যাল ও ডেন্টাল পড়ুয়া, যুব চিকিৎসক, অন্যান্য কৃতী ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন এখানে। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আলোচনা করা হয়।
বিশদ

24th  October, 2019
শীতকালের বিস্ময়কর স্বাস্থ্য উপকারিতা

 আমাদের শরীর ও সার্বিক সুস্থতার জন্য শীতকাল যে নেতিবাচক— তাতে কোনও সন্দেহ নেই। কিন্তু এর কিছু ইতিবাচক দিকও রয়েছে। নীচে শীতকাল বা ঠান্ডা আবহাওয়ার কিছু বিস্ময়কর স্বাস্থ্য উপকারিতা আলোচনা করা হল। বিশদ

17th  October, 2019
ডিমেনশিয়া সচেতনতায় 

বাকি বিশ্বের মতো ভারতেও ডিমেনশিয়া নিয়ে উন্নাসিকতা বিদ্যমান! এই উদাসীনতার কারণে সময় থাকতে সাধারণ মানুষ রোগীর ডিমেনশিয়ার প্রাথমিক লক্ষণগুলি অবধি অবহেলা করে যান। 
বিশদ

10th  October, 2019
পূর্ব ভারতে পা রাখল
হিয়ারিং সলিউশন 

কানের চিকিৎসায় যুক্ত থাকা হিয়ারিং সলিউশন সংস্থাটি পশ্চিমবঙ্গে ৬টি ক্লিনিক খুলল। এই উপলক্ষে সংস্থার পক্ষ থেকে আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সংস্থার ডিরেক্টর রাজাপন্দিয়ান এস, সিভান্তোস ইন্ডিয়ার সিইও অভিনাশ পাওয়ার, হিয়ারিং সলিউশনের বিজনেস হেড শুভেন্দু দাস এবং প্রাক্তন ক্রিকেটার পদ্মশ্রী সইদ কিরমানি। 
বিশদ

10th  October, 2019
একনজরে
 বিএনএ, বারাকপুর: বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংয়ের গড় ভাটপাড়া পুরসভার আরও পাঁচ বিজেপি কাউন্সিলার তৃণমূলের দিকে পা বাড়িয়ে রাখলেন। তাঁরা যে কোনও দিন ঘরে ফিরতে পারেন ...

নিজস্ব প্রতিনিধি,কলকাতা: আগামী ২২ থেকে ২৬ নভেম্বর কলকাতায় হবে টাটা স্টিল র‌্যাপিড - ব্লিৎজ টুর্নামেন্ট। এই প্রতিযোগিতায় বিশ্বের প্রথম ১৫ জন গ্র্যান্ডমাস্টারের মধ্যে দশজন যোগ ...

সংবাদদতা, আলিপুরদুয়ার: ২০২১ সালে বিধানসভা ভোট। তার আগেই রয়েছে আলিপুরদুয়ার পুরসভার ভোট। এই জোড়া নির্বাচনকে পাখির চোখ করে জেলায় বন্ধ চা বাগানের ইস্যুকে হাতিয়ার করে তেড়েফুঁড়ে ময়দানে নেমে পড়েছে গেরুয়া বাহিনী। অন্যদিকে বিজেপির প্রধান প্রতিপক্ষ রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল শিবিরে ...

রাঁচি, ৭ নভেম্বর (পিটিআই): ঝাড়খণ্ডের গিরিডিতে এক মহিলার মৃত্যুর ঘটনায় তাঁর পরিবারের দাবি, না খেতে পেয়ে তিনি মারা গিয়েছেন। যদিও রাজ্য প্রশাসনের তরফে অনাহারে মৃত্যুর ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

ব্যবসা সূত্রে উপার্জন বৃদ্ধি। বিদ্যায় মানসিক চঞ্চলতা বাধার কারণ হতে পারে। গুরুজনদের শরীর-স্বাস্থ্য নিয়ে সচেতন ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮৬২- সঙ্গীত জগতের কিংবদন্তি পুরুষ ওস্তাদ আলাউদিন খাঁর জন্ম।
১৮৯৫- জার্মান পর্দাথবিদ উইলিয়াম কনরাড রঞ্জন এক্স রে আবিষ্কার করেন।
১৯১০ - ওয়াশিংটনের নির্বাচনে প্রথম কোনও মহিলা ভোট দেন।
১৯২৭- রাজনীতিক লালকৃষ্ণ আদবানির জন্ম
১৯৩৬ - প্রখ্যাত হিন্দী কথাসাহিত্যিক মুনশি প্রেমচাঁদের মৃত্যু
১৯৪৭ – সঙ্গীতশিল্পী ঊষা উত্থুপের জন্ম
১৯৭৬ - ক্রিকেটার ব্রেট লি’র জন্ম
২০১৭ – ভারতে ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট বাতিল হয়





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৯.৪৮ টাকা ৭২.৬৪ টাকা
পাউন্ড ৮৯.১২ টাকা ৯৩.৪৫ টাকা
ইউরো ৭৬.৭৪ টাকা ৮০.৪৮ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,৮২৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৮৩৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৭,৩৯০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৫,৭৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৫,৮৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২১ কার্তিক ১৪২৬, ৮ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, একাদশী ১৬/৩০ দিবা ১২/২৫। পূর্বভাদ্রপদ ১৫/৫৯ দিবা ১২/১২। সূ উ ৫/৪৮/২৭, অ ৪/৫২/২১, অমৃতযোগ দিবা ৬/৩৩ মধ্যে পুনঃ ৭/১৭ গতে ৯/৩০ মধ্যে পুনঃ ১১/৪২ গতে ২/৩৯ মধ্যে পুনঃ ৩/২৩ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৫/৪৪ গতে ৯/১১ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৬ গতে ৩/১৩ মধ্যে পুনঃ ৪/৫ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ৮/৩৫ গতে ১১/২১ মধ্যে, কালরাত্রি ৮/৬ গতে ৯/৪৩ মধ্যে। 
২১ কার্তিক ১৪২৬, ৮ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, একাদশী ১৫/৫৮/১৯ দিবা ১২/১২/৪৩। পূর্বভাদ্রপদ ১৭/৫৮/২৫ দিবা ১/০/৪৫, সূ উ ৫/৪৯/২৩, অ ৪/৫৩/১৪, অমৃতযোগ দিবা ৬/৪৪ মধ্যে ও ৭/২৭ গতে ৯/৩৬ মধ্যে ও ১১/৪৫ গতে ২/৩৭ মধ্যে ও ৩/২০ গতে ৪/৫৩ মধ্যে এবং রাত্রি ৫/৩৯ গতে ৯/১১ মধ্যে ও ১১/৫০ গতে ৩/২২ মধ্যে ও ৪/১৫ গতে ৫/৫০ মধ্যে, বারবেলা ৮/৩৫/২১ গতে ৯/৫৮/২০ মধ্যে, কালবেলা ৯/৫৮/২০ গতে ১১/২১/১৮ মধ্যে, কালরাত্রি ৮/৭/১৬ গতে ৯/৪৪/১৭ মধ্যে। 
১০ রবিয়ল আউয়ল 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আগামীকাল অযোধ্যা মামলার রায় ঘোষণা করবে সুপ্রিম কোর্ট

09:17:50 PM

এবার হকি বিশ্বকাপ ভারতে
২০২৩ সালে পুরুষদের এফআইএইচ হকি বিশ্বকাপ আয়োজন করবে ভারত। ...বিশদ

05:08:38 PM

পদত্যাগ করলেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী
 মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে ইস্তফা দিলেন দেবেন্দ্র ফড়নবিশ। সরকার গড়ার ...বিশদ

05:01:39 PM

আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন হল এবছরের আন্তর্জাতিক কলকাতা ফিল্ম উৎসবের

05:01:00 PM

বর্ধমান স্টেশনে পদপিষ্ট হয়ে জখম বহু
বর্ধমান স্টেশনে ৪ ও ৫ নম্বর প্লাটফর্মের মাঝে ফুটওভারব্রিজে ওঠানামা ...বিশদ

04:54:00 PM

গান্ধী পরিবারের এসপিজি নিরাপত্তা তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত কেন্দ্রের: সূত্র 

03:53:10 PM