Bartaman Patrika
শরীর ও স্বাস্থ্য
 

ছাত্রছাত্রীদের চোখের
যত্ন নেবেন কীভাবে?
ডাঃ প্রিয়াংশা চট্টোপাধ্যায়

এ বছরের মতো পুজো পর্ব প্রায় শেষ। সামনে আছে বলতে কেবল কালী পুজো-ভাইফোঁটা। এই ছুটি পেরলেই দরজায় কড়া নাড়বে বার্ষিক পরীক্ষা। তাই শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতিতে স্বভাবতই উঠে পড়ে লেগে গিয়েছেন পড়ুয়া এবং তাঁদের অভিভাবকরা। চলছে এক্সট্রা ক্লাস, রাত জেগে পড়ার পর্ব। যে সকল পড়ুয়ারা এই প্রচেষ্টায় আপাতত সঙ্গ দিতে চাইছেন না, অভিভাবকের চাপে তাঁরাও বইতে মুখ গুঁজে থাকতে বাধ্য। তা বেশ, পড়াশোনা করতেই হবে। ভালো নম্বর পেতে হবে। ঝকঝকে কেরিয়ারও বানাতে হবে। এই তত্ত্বে কারও কোনও ঘোর আপত্তি থাকার কথা নয়। তবে অবৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে দীর্ঘক্ষণ পড়াশোনা করলে যে ছেলেমেয়ের চোখের বারোটা বাজাতে পারে, এটাও জেনে রাখা উচিত। তাই ‘পড়-পড়’ করার পাশাপাশি ছেলে-মেয়ের চোখের ব্যাপারেও যত্ন নিতে হবে।
পড়ার আলো
আগুন আবিষ্কারের সঙ্গেই মানব সভ্যতা সূর্যের পাশাপাশি আলোর এক বিকল্প সন্ধান পেয়েছিল। আগুনের উপর ভর করেই মানুষ রাতের বেলাতেও কাজ করতে থাকল। পায়ে পা মিলিয়ে এগিয়ে চলল শিল্প, সংস্কৃতি, বিজ্ঞান। তারপর একদিন মানুষ বৈদ্যুতিক আলো আবিষ্কার করে ফেলল। শুরু হল আরও এক নতুন অধ্যায়।
আবিষ্কারের পর থেকে বৈদ্যুতিক আলোর অনেক বিবর্তন হয়েছে। বাল্ব থেকে টিউব, সিএফএল হয়ে হাল আমলের এলইডি। তবে এতশত পছন্দের মধ্যে অনেকের প্রশ্ন থাকতেই পারে যে কোন আলো পড়ার জন্য ভালো? এক্ষেত্রে উত্তর হল, সাদা আলো পড়ার জন্য ভালো। তাই পড়ার সময় বাল্বের হলুদ আলো নয়, টিউব বা সিএফএল লাইটের আলোতেই পড়া ভালো। তবে এলইডি লাইটের তীক্ষ্ণতা অত্যন্ত বেশি হওয়ায় সাদা আলো হওয়া সত্ত্বেও পড়ার সময় এলইডি আলো ব্যবহার করা উচিত নয়। এক্ষেত্রে এলইডি-এর আলো বা বাল্বের আলো চোখে অতিরিক্ত চাপ ফেলতে পারে। আর সকালে পড়ার ক্ষেত্রে জানলা খুলে সূর্যের আলোয় পড়া যেতেই পারে।
এবার প্রশ্ন হতে পারে, ঠিক কতটা আলো প্রয়োজন? পর্যাপ্ত আলো থাকতে হবে যাতে একটু দূর থেকেই বই বা খাতার অক্ষরগুলি পরিষ্কার দেখা যায়। অপর্যাপ্ত আলোয় পড়লে চোখের উপর বেজায় চাপ পড়ে। দীর্ঘদিন এমনটা চললে চোখে পাওয়ার আশা থেকে আরও নানা ধরনের সমস্যায় আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে।
একনাগাড়ে কতক্ষণ পড়া?
পরীক্ষার মরশুমে পড়ার সময় বাড়ছে। একবার পড়তে বসলে বই-খাতায় মুখ গুঁজে অন্তত পক্ষে ২ থেকে ৩ ঘণ্টা। তারপর মিলছে ব্রেক। বাড়ির সকলে বাহ বাহ করছে। তবে চক্ষু বিশেষজ্ঞের কথায়, এমনটা করা কিন্তু চোখের পক্ষে ভীষণ ক্ষতিকর। অর্থাৎ একনাগাড়ে দীর্ঘক্ষণ বই-খাতায় দৃষ্টি রাখলে চোখের সমস্যা হতে পারে। তাহলে সমাধান কী? এক্ষেত্রে ‘২০-২০-২০’ নিয়ম মানতে হবে। ২০ মিনিট বই বা খাতায় মনোযোগ দেওয়ার পর ২০ সেকেন্ডের জন্য অন্তত পক্ষে ২০ ফিট দূরের কোনও জিনিস দেখতে হবে। এক্ষেত্রে জনালার বাইরের গাছ, ল্যাম্পপোস্ট বা অন্য কোনও বাড়ির দিকেও তাকানো যেতে পারে। আসলে একনাগাড়ে হাতের কাছের বই-খাতার দিকে নজর রাখলে চোখের পেশির উপর ভীষণ চাপ পড়ে। এই চাপ মুক্ত করতেই দূরের কোনও জিনিসের দিকে তাকাতে হয়। মোটের উপর দিনে ৮ ঘণ্টা পড়া যায়। তবে পরীক্ষার সময় চাইলে সময়টা বাড়িয়ে ১০ ঘণ্টা করা যেতেই পারে। তবে অবশ্যই নিয়ম মেনেই পড়তে হবে।
কম্পিউটার, মোবাইল বা ট্যাবে পড়াশোনা
এখনকার হাইটেক যুগে পড়াশোনার সঙ্গে প্রযুক্তি অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িয়ে গিয়েছে। কম্পিউটার, মোবাইল বা ট্যাবেই চলছে অজানাকে জানার পর্ব। তবে দীর্ঘক্ষণ এই জাতীয় টেকনোলজি ব্যবহার করলেও চোখের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা থাকে। তাই এক্ষেত্রেও ‘২০-২০-২০’ নিয়ম মানতে হবে। অর্থাৎ ২০ মিনিট স্ক্রিনে নজর দেওয়ার পর ২০ সেকেন্ডের জন্য ২০ ফিট দূরত্বে তাকাতে হবে।
এখানে বলা দরকার, অনেকেই পড়া থেকে বিরতি নেওয়ার সময় মোবাইল বা কম্পিউটারে সময় দেয়। এই অভ্যেস কিন্তু চলবে না। এক্ষেত্রে চোখ ভালো রাখতে চাইলে স্ক্রিন টাইমকেও পড়ার টাইমের মধ্যে ধরতে হবে। অর্থাৎ ২০ মিনিট বই পড়ার পর ২০ সেকেন্ড মোবাইলে চোখে রাখলে কোনও লাভ নেই। বরং ১৭ মিনিট পড়ে ৩ মিনিট মোবাইল ঘেঁটে ২০ সেকেন্ডের জন্য ২০ ফিট দূরত্বে তাকানো যেতে পারে। তবে পরীক্ষার সময় এমন পদ্ধতি মেনে চলাটা ঠিক নয়। তাই যতটা সম্ভব মোবাইল বা কম্পিউটার মনোরঞ্জন এড়িয়ে চলতে হবে। মোটের উপর দিনের ৪৫ মিনিটের বেশি স্ক্রিনে চোখ রাখা ঠিক হবে না। একইভাবে পরীক্ষার সময় টিভি দেখার সময়ও ৩০ মিনিট থেকে ১ ঘণ্টার মধ্যে বেঁধে ফেলতে হবে।
চোখের থেকে কতটা দূরে বই?
একদম চোখের খুব কাছে বা চোখের থেকে অনেক দূরে বই-খাতা রেখে পড়লেও কিন্তু চোখের সমস্যা তৈরি হতে পারে। এক্ষেত্রে নিয়ম হল পড়ার সময় চোখের থেকে এক হাত দূরত্বে বই-খাতা রেখে পড়তে হবে। আর লেখার সময়ে খাতার দূরত্ব হবে চোখের থেকে হাফ হাত।
চোখে পাওয়ার থাকলে
এখন অনেক ছোট বয়স থেকেই বাচ্চাদের চোখে পাওয়ার চলে আসছে। তাই চোখে পাওয়ার থাকা পড়ুয়াদের আরও বেশি মাত্রায় সতর্ক হতে হবে বইকি! এক্ষেত্রে প্রাথমিকভাবে লেখাপড়ার সময় অবশ্যই চশমা ব্যবহার করতে হবে। চশমা না পড়লে চোখের পাওয়ার আরও বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। এছাড়া মাথা ব্যথা, ঘোলাটে দেখা, চোখ জ্বালা ইত্যাদি সমস্যা শুরু হলে অবশ্যই বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে।
রাত জেগে পড়া
রাত জেগে পড়ার সঙ্গে সরাসরি চোখের কোনও যোগ নেই। সঠিক আলোর বন্দোবস্ত থাকলে রাতের বেলায় পড়ার ক্ষেত্রে অন্তত চোখের দিক থেকে কোনও সমস্যা নেই।
পড়ার ভঙ্গি
মুখ গুঁজে পড়া, শুয়ে পড়া বা অন্য কোনও ভঙ্গিতে বসে খুব ঘাড় ঝুঁকিয়ে পড়লে চোখের উপরও চাপ পড়ে। তাই চেয়ারে বসে পড়ার টেবিলে বই-খাতা রেখে পড়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। বাড়িতে পড়ার টেবিল না থাকলে বাবু হয়ে বসে জলচৌকির উপর বই-খাতা রেখে মোটের উপর পিঠ সোজা রেখে পড়া যেতে পারে।
অনেকটা সময় পড়ার পর
তবে এত সমস্যা জানার পরও অনেকেই আসন্ন পরীক্ষা লগ্নে কয়েকটা দিন এই নিয়মগুলি খুব সচেতনভাবেই মানবে না। ঘণ্টাখানেক হলেও একনাগাড়ে পড়বেই। তাঁদের জন্য বলা— একনাগাড়ে পড়ে ওঠার পর অবশ্যই চোখে ঠান্ডা জলের ঝাপটা দিতে হবে  কিছুক্ষণ চোখ বন্ধ করে রাখা যেতে পারে। আবার কিছুক্ষণ বারবার চোখ খোলাবন্ধ করতে হবে। এর মাধ্যমে চোখে শুষ্কভাব কাটবে  চোখ জ্বালা শুরু হলে, ঘোলাটে দেখলে বা অন্য কোনও সমস্যা হলে— তখনই পড়া বন্ধ করে বিশ্রাম নিতে হবে  চেষ্টা করতে হবে ‘২০-২০-২০’ নিয়ম মানার।
দীর্ঘদিন এভাবে চললে
কোনওরকম নিয়ম না মেনে বই-খাতায় চোখার অভ্যেস থাকলে কিন্তু চোখে সমস্যা হওয়ার আশঙ্কা থাকে—
 প্রথমত, চোখ অস্থির হয়ে যায়  চোখের পাতা বন্ধ হয়ে যেতে পারে  চোখ জ্বালা করে  মাথায় ব্যথা  বিকেলের দিকে চোখ লাল হয়ে যেতে পারে  হঠাৎ হঠাৎ চোখের দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে পারে, আবার নিজে থেকেই কিছু সময় বাদে ঠিক হয়ে যায়  চোখ শুষ্ক হওয়ার আশঙ্কা থাকে  এমনকী চোখে পাওয়ার পর্যন্ত আসতে পারে।
তাই বাচ্চার চোখে এমন লক্ষণ দেখা দিলে অবশ্যই চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে।
চোখ ভালো রাখতে
অন্তত পক্ষে বছরে একবার চোখের চিকিৎসকের কাছে রুটিন চেক-আপ করিয়ে নেওয়া দরকার। এছাড়া চোখ ভালো রাখতে অবশ্যই খাবারের দিকে নজর দিতেই হবে। পড়ুয়ার ডায়েটে ভিটামিন সি যুক্ত খাবার যেমন গাঁজর, সমস্ত সবুজ শাক-সব্জি রাখা চাই। পাশাপাশি মাছের মধ্যে উপস্থিত ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড চোখের পক্ষে ভালো। এছাড়া চোখ ভালো রাখতে হলে অবশ্যই ৩০ মিনিটের জন্য হলেও বাড়ির বাইরে বেরতে হবে। দূরের বস্তু দেখতে হবে। চাপ মুক্ত থাকা দরকার।
সুশ্রুত আই ফাউন্ডেশন অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টারের কনসালটেন্ট ক্যাটার্যািক্ট সার্জেন ডাঃ প্রিয়াংশা চট্টোপাধ্যায়ের পরামর্শে লিখেছেন : সায়ন নস্কর
17th  October, 2019
করোনা থেকে হতে পারে
স্ট্রোক, বলছেন বিজ্ঞানীরা

সায়ন নস্কর, কলকাতা: বাড়ছে সংক্রমণ। সেই সঙ্গে বদলে যাচ্ছে উপসর্গও। করোনা আক্রান্ত হলে স্বাদ-গন্ধ বিচারের ক্ষমতা চলে যাওয়া, কনজাংটিভাইটিস ইত্যাদি বিভিন্ন অদ্ভুত লক্ষণের কথা ইতিমধ্যেই সামনে এসেছে। সংক্রামিতদের একাংশের নিউমোনিয়া এবং তীব্র শ্বাসকষ্ট (এআরডিএস) হওয়াও এখন কঠিন বাস্তব।  
বিশদ

06th  June, 2020
ছড়াতে পারে করোনা, দাঁতের
অস্ত্রোপচারে নিষেধাজ্ঞা জারি

 নিজস্ব প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি, ২০ মে: দাঁতের ডাক্তারখানা থেকে ব্যাপক হারে ছড়াতে পারে করোনার ভাইরাস। তাই একান্ত জরুরি ছাড়া দাঁতের অস্ত্রোপচার করতে বারণ করল কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। রোগী দেখার ক্ষেত্রেও জারি হল বিধি নিষেধ। বিশদ

21st  May, 2020
গার্হস্থ্য হিংসায় বাচ্চাদের মানসিক স্বাস্থ্য
ভেঙে পড়ার আশঙ্কা শিশু কমিশনের

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: লকডাউনে বেড়ে চলা গার্হস্থ্য হিংসার ঘটনা শিশুমনেও ব্যাপক প্রভাব ফেলতে পারে। ফলে তাদের মধ্যে নানা আচরণগত পরিবর্তন হওয়ার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে। এমনই আশঙ্কা রাজ্য শিশু কমিশনের।
বিশদ

21st  May, 2020
প্রসূতিদের মধ্যে উত্তরোত্তর বাড়ছে করোনা,
হাই-প্রোটিন ডায়েট এবং ব্যায়ামের পরামর্শ 

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: এনআরএস মেডিক্যাল কলেজে সাতজন, মেডিক্যাল কলেজে দু’জন, কেপিসি মেডিক্যাল কলেজে তিনজন, সঞ্জীবন হাসপাতালে একজন....। করোনা পর্ব যতই দীর্ঘায়িত হচ্ছে, প্রসূতিদের মধ্যে সংক্রমণও বাড়ছে। 
বিশদ

10th  May, 2020
করোনা ঠেকাতে কোন ধরণের
সাবান ব্যবহার করবেন

যে রোগে মৃত্যুর হার শতকরা মাত্র পাঁচ ভাগ, সেই রোগটাকে নিয়ে কী শুরু হয়েছে বলুন তো! গুজব আর আতঙ্কে তো কান পাতাই দায়। এলাকায় কারো করোনা ধরা পড়ার পর, যে ধরনের অসভ্যতা শুরু হয়ে যায়, মনে হয় কোনও আতঙ্কবাদী ধরা পড়েছে! সেদিন আবার শুনলাম, সাবান না স্যানিটাইজার, নাকি দুটোই- এই নিয়েও প্রশ্ন উঠছে। সাবান হলে কোন সাবান? 
বিশদ

06th  May, 2020
খাদ্যাভ্যাস সম্পর্কে ভারতীয়দের সতর্ক
করলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত ডাক্তার

  লন্ডন, ৩ মে (পিটিআই): করোনায় মৃত্যু এড়াতে দৈনন্দিন খাদ্যাভ্যাস সম্পর্কে ভারতীয়দের সতর্ক করলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ চিকিৎসক ডাঃ অসীম মালহোত্রা। ব্রিটেনের ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস (এনএইচএস)-এর সঙ্গে যুক্ত স্বনামধন্য কার্ডিওলজিস্ট ডাঃ মালহোত্রা আবার ‘এভিডেন্স বেসড মেডিসিন’-এর অধ্যাপক। বিশদ

04th  May, 2020
লকডাউনে সুস্থ থাকবেন কী করে
প্রেমসুন্দর দাস, বিশিষ্ট যোগ বিশেষজ্ঞ

শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার জন্য জরুরি তিনটি বিষয়—শারীরিক স্বাস্থ্য, মানসিক স্বাস্থ্য ও পুষ্টি। তিনের মেলবন্ধনেই প্রতিরোধ ক্ষমতার শ্রীবৃদ্ধি ঘটে। মন যত প্রশান্ত হবে, শারীরিক সমস্যাও তত কমবে। মন একাগ্র করার পন্থা আবার নিহিত শরীরচর্চার মধ্যে।
বিশদ

02nd  May, 2020
লকডাউন ওঠার পর কী কী
অভ্যাস বজায় রাখবেন?

 লকডাউন কবে উঠবে? তার চাইতেও অনেক বড় প্রশ্ন হল আমাদের আগামী দিনে জীবন কেমন হবে? সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, মাস্ক, স্যানিটাইজারের ব্যবহার করে যেতেই হবে লকডাউন শেষ হওয়া পর্যন্ত। বিশদ

02nd  May, 2020
কীভাবে হাত ধুলে করোনা
ভাইরাসকে মাত দেওয়া যায়?

 করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে চিকিৎসাবিজ্ঞানের সমস্ত স্তর দিয়েই হাত ধোয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। সেই পরামর্শ মেনে নিয়ে একটা বড় অংশের মানুষই নিয়মিত হাত ধুয়ে চলেছেন। তবে অনবরত হাত ধুয়ে চলা এই মানুষগুলির মধ্যে অনেকেই অবশ্য হাত ধোয়ার আদর্শ পদ্ধতি মানছেন না।
বিশদ

02nd  May, 2020
ওয়ার্ক ফ্রম হোমে
উৎসাহ হারাচ্ছেন?
জেনে নিন সমাধানের ঘরোয়া উপায়

 নোভেল করোনার দাপট রুখতে দেশ জুড়ে চলছে লকডাউন। মোটের উপর ঘরবন্দি দেশের অধিকাংশ মানুষ। অবশ্য এই ঘরবন্দি অবস্থাতেও বাড়িতে বসেই কাজ করে যাচ্ছেন অনেকে। বিশদ

02nd  May, 2020
রান্নায় এই ৭ টি মশলা বাড়াবে
রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা

 এই মুহূর্তে করোনা আতঙ্কে কাঁপছে গোটা বিশ্ব। মারণ এই ভাইরাসের তাণ্ডবে কার্যত বিপর্যস্ত মানবজীবন। কীভাবে এই মহামারীর হাত থেকে নিজেকে রক্ষা করা যায় এই চিন্তাতেই দিন কাটছে মানুষের।
বিশদ

02nd  May, 2020
বাসন মাজলে করোনা
ভাইরাস মরে?

 জিম বন্ধ। বন্ধ সেলেবদের শরীরচর্চা। তা বলে থেমে নেই তারকারা। বেছে নিয়েছেন অন্য উপায়। হাত লাগিয়েছেন বাসন মাজায়! কে নেই এই তালিকায়— ক্যাটরিনা থেকে কার্তিক আরিয়ান সকলেই মাজছেন বাসন। গৃহস্থালির এত কাজ থাকতে হঠাত্ কেন বাসন মাজা-মাজি?
বিশদ

02nd  May, 2020
সাবান না স্যানিটাইজার
কোনটা বেশি ভালো?

 নোভেল করোনার করাল গ্রাস থেকে রক্ষা পেতে সাবান এবং স্যানিটাইজারের কদর প্রতিদিন বেড়েই চলেছে। চাহিদা এতটাই বেশি যে বাজারে স্যানিটাইজার তো প্রায় পাওয়াই যাচ্ছে না। আর সাবান পাওয়া গেলেও তার বিক্রি বেড়েছে কয়েক গুণ। বিশদ

02nd  May, 2020
বারবার বাসন মেজে নখকুনি?
কাপড় কেচে, ঘর মুছে
হাতে হাজা? কী করবেন?

 বাসন মাজা, ঘর মোছা, কাপড় কাচা, সব্জি কাটার কারণে হাতে বেশ কিছু ত্বকের সমস্যা দেখা দেয়। তার উপর এখন লকডাউন চলছে। ঘরের কাজ একটু বেশিই করতে হচ্ছে। এদিকে কাজ থেকে নিষ্কৃতি পাওয়ার উপায় নেই। বিশদ

02nd  May, 2020
একনজরে
নয়াদিল্লি, ৬ জুন: রাশিয়াতে সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। শেষ ২৪ ঘণ্টায় সেখানে সংক্রমণের শিকার হয়েছেন ৮ হাজার ৮৫৫ জন। প্রাণ হারিয়েছেন ১৯৭ জন। সবমিলিয়ে ভ্লাদিমির পুতিনের ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: পঞ্চম দফার লকডাউনে রাজ্যে ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হচ্ছে সরকারি হাসপাতালের আউটডোর পরিষেবা। যানবাহন পরিষেবা কিছুটা স্বাভাবিক হতেই এনআরএস, আরজিকর, পিজি, ন্যাশনাল মেডিক্যাল ...

রাষ্ট্রসঙ্ঘ, ৬ জুন (পিটিআই): কোভিড ১৯-এর মারণ গ্রাসে গোটা বিশ্ব কাঁপছে। তবে এই পরিস্থিতিকেই কাজে লাগিয়ে ভারতের ‘আয়ুষ্মান ভারত’ বিমা প্রকল্পের প্রসার ঘটাতে পারে। করোনা পরিস্থিতিই আয়ুষ্মান ভারতের কাছে একটা বড় সুযোগ। ...

সংবাদদাতা, আলিপুরদুয়ার: করোনা মোকাবিলায় পুর এলাকায় ভালো কাজ করে জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের প্রশংসা কুড়িয়েছিলেন আলিপুরদুয়ার পুরসভার অনারারি হেল্থ ওয়ার্কারদের নোডাল অফিসার বিমলেন্দু তালুকদার।   ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

উচ্চবিদ্যার ক্ষেত্রে মধ্যম ফল আশা করা যায়। প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় সাফল্য আসবে। প্রেম-প্রণয়ে নতুনত্ব আছে। কর্মরতদের ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৭৪- টেনিস খেলোয়াড় মহেশ ভূপতির জন্ম
১৯৭৫- সিরিয়ালের প্রযোজক একতা কাপুরের জন্ম
১৯৭৭- ক্রিকেটার দীপ দাশগুপ্তের জন্ম 



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.৭৭ টাকা ৭৬.৪৮ টাকা
পাউন্ড ৯৪.১৪ টাকা ৯৭.৪৭ টাকা
ইউরো ৮৩.৮২ টাকা ৮৬.৯২ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৮৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,৭৩০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪০,৩৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
22nd  March, 2020

দিন পঞ্জিকা

২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ৭ জুন ২০২০, রবিবার, দ্বিতীয়া ৪০/৩ রাত্রি ৮/৫৬। মূলা নক্ষত্র ২৩/৯ দিবা ২/১১। সূর্যোদয় ৪/৫৫/৭, সূর্যাস্ত ৬/১৫/১৭। অমৃতযোগ দিবা ৬/৪২ গতে ৯/২১ মধ্যে পুনঃ ১২/২ গতে ২/৪২ মধ্যে, রাত্রি ৭/৪০ মধ্যে পুনঃ ১০/৩০ গতে ১২/৩৯ মধ্যে। বারবেলা ৯/৫৫ গতে ১/১৪ মধ্যে। কালরাত্রি ১২/৫৫ গতে ২/১৫ মধ্যে।  
২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ৭ জুন ২০২০, রবিবার, দ্বিতীয়া রাত্রি ১০/২১। মূলানক্ষত্র দিবা ৩/৫০। সূর্যোদয় ৪/৫৬, সূর্যাস্ত ৬/১৭। অমৃতযোগ দিবা ৬/৪৩ গতে ৯/২৫ মধ্যে ও ১২/৬ গতে ২/৪ মধ্যে এবং ৭/৪৪ মধ্যে ও ১০/৩৬ গতে ১২/৪২ মধ্যে। বারবেলা ৯/৫৬ গতে ১/১৬ মধ্যে। কালরাত্রি ১২/৫৬ গতে ২/১৬ মধ্যে।
১৪ শওয়াল 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
জম্মু ও কাশ্মীরের সোপিয়ানে জওয়ানদের গুলিতে হত ৩ জঙ্গি 

03:10:18 PM

করোনা: অসমে আক্রান্ত আরও ৯২ জন, মোট আক্রান্ত ২৫৬৫ 

03:05:43 PM

বিল না মেটানোয় মধ্যপ্রদেশের এক হাসপাতালে বৃদ্ধকে বেঁধে রাখা অভিযোগ 

03:03:23 PM

আগামীকাল থেকে খুলে দেওয়া হবে দিল্লি সীমানা: কেজরিওয়াল 

02:57:00 PM

কেতুগ্রামে ছিনতাই ও গৃহবধূকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে ধৃত যুবক
কেতুগ্রামে ছিনতাই ও গৃহবধূকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে ধৃত এক যুবক। ...বিশদ

02:51:00 PM

দিল্লিতে আপাতত বন্ধ থাকবে হোটেল, ব্যাঙ্কওয়েট হল: কেজরিওয়াল 

02:49:39 PM